এখনকার TEEN AGE ছেলেমেয়েদের মাঝে দেখবেন চরম হতাশা,বোরিং নেস


এখনকার TEEN AGE ছেলেমেয়েদের মাঝে দেখবেন চরম হতাশা,বোরিং নেস।
এরা কথায় কথায় মরে যেতে চায়।
এর জন্য কারা দায়ী,জানেন?

এদের বাবা মা রা।

কেনো বলেন তো?
কারণ এনারা সন্তানকে খুব EARLY AGE এ পৃথিবীর সব আনন্দ এনে দিয়েছেন।

কি হয়েছে….বাবু তো ট্যাব ছাড়া খায় না।
কি হয়েছে….বেবী তো থিম পার্ক ছাড়া খেলে না।
কি হয়েছে….বাচ্চারা তো বার্গার পিজজা ছাড়া খায় না।
কি হয়েছে….স্মার্ট ওয়াচ,এ্যাপেল পড ছাড়া তো চলে না।
কি হয়েছে…..বাবু তো গুগল সার্চ করে আর ইউটিউবে সব দেখে শিখছে।

এর পরিণাম কি হচ্ছে,বলেন তো….১৩/১৪ বছরের মধ্যে এরা পৃথিবীর সব দেখে ফেলছে।

অথচ আমরা ৯০’s KID যারা ছিলাম তারা জীবনের শুরুতে পিং পং বল খেলতাম।ওয়ার্ড ব্লক এনে দিতো।ইয়ো ইয়ো দিয়ে খেলতাম।
সপ্তাহে একদিন বিকেল ৩:৩০ টা আর ৫:৩০ টায় টম এন্ড জেরী বা নিনজা টার্টেল দেখতাম।
বছরে ২/৩ বার কালেভদ্রে চাইনিজ খেতে নিতো।
বাবা মার ম্যারেজ ডে বা খুব এলিট ক্লাস লোকের দাওয়াতে।
ক্লাস 5/8 এর বৃত্তি পাওয়া উপলক্ষে CASIO WATCH কিনে দিতো।
আমরা পত্রিকা পড়তাম।
বিনোদন পাতা দেখে নায়ক নায়িকার ছবি কেটে রাখতাম।
আমাদের ছোট বেলায় পৃথিবীটা খুব ছোট ছিলো।
আমরা ধীরে ধীরে বড় হয়ে পুরো পৃথিবী জেনেছি।
আমরা অপেক্ষা করা শিখেছি।
আমরা টার্গেট করে তা এচিভ করার রাস্তা শিখেছি।

এগুলো বাস্তব জীবনে খুব দরকার।
আপনার সামর্থ্য আছে বলেই আপনি সন্তানকে যা ইচ্ছে সেভাবে বড় করতে যেয়ে আসলে তাদের খুব EARLY AGE এ মেরে ফেলছেন।

বাচ্চা কে শেখান…LIFE IS A LONG RACE & U HAVE TO TOUCH EVERY POINT,if u really want to win & sustain.

লেখক:

Muzahidul Islam Shibbir

CEO

Sorisso

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত