করোনাকালে ঘরে থেকেই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

করোনাকালে ঘরে থেকেই পড়াশোনা
চালিয়ে যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
————-
করোনা মহামারি থেকে বাঁচতে সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আরও সচেতন থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, স্কুল বন্ধের এই সময়ে ঘরে থেকেই পড়াশোনা চালিয়ে যেতে হবে শিক্ষার্থীদের।

তিনি আজ রোববার বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৭তম জন্মদিনে এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে শেখ রাসেলের স্মৃতিবিজড়িত ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলে ভবন ও ম্যুরাল উদ্বোধন এবং জয়ীতা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত দুটি স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন শেষে এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি জানি করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, এটা যে কোনো শিশুর জন্য কষ্টকর। হয়তো এসব অবস্থা থাকবে না। আমি তাদের বলব, ঘরে বসে মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনা করতে। ঘরে বসে পড়াশোনা করা, যে যা করতে পারে সেটাও তাদের করতে হবে। যেন যখন স্কুল খুলে তখন তারা আবার সবকিছুই করতে পারে। তিনি আরও বলেন, আমি অভিভাবকদের বলব, যার যার নিজের ছেলেমেয়ের অন্যান্য এক্সারসাইজ ও খেলার ব্যবস্থা করতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সবাই যেন সুরক্ষা মেনে চলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের শিশুরা দেশপ্রেমিক হবে, মানুষের জন্য কাজ করবে, মানুষের মতো মানুষ হবে। নিজেদের উপযুক্ত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলবে।

সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমে তাঁর ছোটভাই শেখ রাসেলের স্মৃতিবিজড়িত ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের একটি ভবন ও স্কুল প্রাঙ্গণে স্থাপিত ম্যুরাল উদ্বোধন করেন। এ সময় শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণ থেকে বাংলাদেশে রোলার স্কেটিং ফেডারেশন ও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র থেকে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ অনলাইনে যুক্ত ছিল।

এর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশন আয়োজিত শেখ রাসেলের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে ‘শেখ রাসেল : আমাদের আবেগ আমাদের ভালোবাসা’ স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন। এ সময় অনুষ্ঠানস্থলে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল, ক্রীড়া সচিব আখতার হোসেন, গ্রন্থটির উপদেষ্টা সম্পাদক বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত ছিলেন। মঞ্চে উপস্থিত অতিথিদের সঙ্গে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে সমবেত শিশুরাও তাদের হাতে থাকা বইটি উঁচিয়ে ধরে।

‘শেখ রাসেল : আমাদের আবেগ আমাদের ভালোবাসা’র উপদেষ্টা সম্পাদক বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সম্পাদক কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ও পদ্মা ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সরাফাত এবং প্রকাশক জয়ীতা প্রকাশনীর ইয়াসিন কবীর জয়। প্রচ্ছদ ও গ্রন্থ পরিকল্পনা করেছেন শাহরিয়ার খান বর্ণ। বহু দুর্লভ আলোকচিত্র সম্বলিত ১৩৬ পৃষ্ঠার বইটি প্রকাশ করেছে জয়ীতা প্রকাশনী। বইটির দাম রাখা হয়েছে ১২০০ টাকা।

প্রধানমন্ত্রী পরে গণভবন থেকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ আয়োজিত শেখ রাসেলের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে অনলাইনে যুক্ত হয়ে ‘স্মৃতির পাতায় শেখ রাসেল’ স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন। এ সময় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক; শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রকিবুর রহমান, মহাসচিব মাহমুদ-উস-সামাদ চৌধুরী এমপি এবং সাংগঠনিক সচিব কে এম শহিদ উল্ল্যা এবং গ্রন্থটির প্রকাশক জয়ীতা প্রকাশনীর ইয়াসিন কবীর জয় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

‘স্মৃতির পাতায় শেখ রাসেল’ স্মারক প্রকাশনাটির উপদেষ্টা সম্পাদক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি এবং সম্পাদক কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ও পদ্মা ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সরাফাত। জয়ীতা প্রকাশনীর এই বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা ১০০। প্রচ্ছদ ও গ্রন্থ পরিকল্পনা করেছেন শাহরিয়ার খান বর্ণ। দাম রাখা হয়েছে ১২০০ টাকা। শতাধিক আলোকচিত্র সম্বলিত গ্রন্থটিতে শেখ রাসেলের সংক্ষিপ্ত জীবন তুলে ধরার প্রয়াস রয়েছে।

সবশেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর ছোট ভাই শেখ রাসেলের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া-মোনাজাত করেন। এ সময় অনলাইনে সংযুক্ত ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল, শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্স ও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের সবাই দোয়া-মোনাজাতে অংশ নেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখেন।

শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিনে জয়ীতা প্রকাশনীর শ্রদ্ধা নিবেদন
‘শেখ রাসেল : আমাদের আবেগ আমাদের ভালোবাসা’ ও ‘স্মৃতির পাতায় শেখ রাসেল’
………………………..

শেখ রাসেলের জন্ম ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর, ঢাকায় ধানমন্ডির বিখ্যাত ৩২ নম্বর বাড়িতে। ভাষায় প্রকাশ করা যায় না এমন নির্মম পৈশাচিকতায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এই অবোধ শিশুটিকে হত্যা করা হয়েছিল। মাত্র ১০ বছর শেষ হয়ে যায় তার পৃথিবীর পথচলা। তাই শেখ রাসেলকে নিয়ে আলোচনা, লেখালেখিও হয়েছে খুব অল্প। জয়ীতা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত বই দুটিতে শেখ রাসেলকে নিয়ে বড় বোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ছোট বোন শেখ রেহানার স্মৃতিচারণা সংকলিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই জন্মের পর রাসেলকে প্রথম কোলে নিয়েছিলেন। মায়ের মতোই মমতা দিয়ে বড় করেছেন। খুবই আবেগময় সেই সব ঘটনার স্মৃতিচারণ করেছেন তিনি।

শেখ রাসেলকে নিয়ে আরো স্মৃতিচারণ করেছেন তাঁর গৃহশিক্ষিকা গীতালি দাশগুপ্তা। তিনি ১৯৭২ থেকে ১৪ আগস্ট ১৯৭৫ পর্যন্ত রাসেলকে পড়িয়েছেন। এ ছাড়া সদ্য প্রয়াত দেশের বিশিষ্ট কথাশিল্পী ও মুক্তিযুদ্ধ গবেষক রশীদ হায়দারের একটি বিশ্লেষণধর্মী লেখা সন্নিবেশিত হয়েছে। এতে তিনি বঙ্গবন্ধুকে হত্যার কারণ অনুসন্ধানের সঙ্গে সঙ্গে শেখ রাসেল বিখ্যাত ব্রিটিশ দার্শনিক ও নোবেলজয়ী সাহিত্যিক বার্ট্রান্ড রাসেলের মতোই মানবতাবাদী হয়ে উঠতে পারতেন কি না, সেই ইঙ্গিত রেখেছেন। শেখ রাসেলকে নিয়ে অধ্যাপক মো. সাজ্জাদ হোসাইন, লেখক এম নজরুল ইসলাম এবং সাংবাদিক জাফর ওয়াজেদের আরও তিনটি লেখা সংকলিত হয়েছে। রয়েছে রাসেলকে নিয়ে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখা কবিতা ‘শিশুরক্ত’।

বই দুটিতে ১৩০টিরও বেশি আলোকচিত্র সন্নিবেশিত হয়েছে, যার অনেকগুলো পাঠক আগে দেখেননি। বইটিতে গোলাম মাওলা, কামরুল হুদা, আলহাজ জহিরুল হক, মোহাম্মদ আলম, লুৎফর রহমান, পাভেল রহমানসহ নাম না জানা আরো অনেক আলোকচিত্রীর তোলা ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। কিছু ছবি নেয়া হয়েছে বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট কর্তৃক প্রকাশিত ‘জাতির জনক’ গ্রন্থ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রকাশিত ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’ গ্রন্থ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পারিবারিক অ্যালবাম থেকে। এছাড়া জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৪৫তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত বহুমাত্রিক চিত্রকর্ম প্রদর্শনী থেকে দুটি চিত্রকর্ম ব্যবহার করা হয়েছে।

বই ‌দুটি পাওয়া যাবে ২০-২১ বঙ্গবন্ধু অ্যাভেনিউস্থ জয়ীতা প্রকাশনীর কার্যালয়ে।

 

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ