খাগড়াছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জনাব রফিকুল আলম এর পক্ষে ব্যাপক জন সমথর্ন

 

খাগড়াছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জনাব রফিকুল আলম এর পক্ষে ব্যাপক জন সমথর্ন।

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ

খাগড়াছড়ি পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে জোর প্রচার-প্রচারণায় নেমেছে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। দিন-রাতে সমানতালে গণসংযোগ, উঠান বৈঠক ও ভোটারদের দ্বারে দ্বারে কড়া নাড়ছেন তারা।

এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে শালবন এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় যান মোবাইল প্রতীকের স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র রফিকুল আলম। মুহূর্তেই ওই প্রচারণায় ঢল নামে এলাকাবাসী ও ভোটারদের। হাজারো মানুষের মুহুর্মুহু করতালি ও স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত হয় পুরো শালবন এলাকা।

এসময় সংক্ষিপ্ত নির্বাচনী সভায় মেয়র রফিকুল আলম বলেন, বিগত দু’বারের নির্বাচনে শান্তিপ্রিয় মানুষদের অকুন্ঠ সমর্থন ও ভোটে আমি নির্বাচিত হয়েছি। এবারও তাই গণমানুষের রায় হবে মোবাইল প্রতীকের পক্ষে।

এছাড়া অন্য মেয়র প্রার্থীরা পৌর কর প্রসঙ্গে জনগণকে মিথ্যে আশ্বাস দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করে রফিকুল আলম বলেন,পৌর আইন অনুযায়ী কর আদায় করা হয়। এর অন্যথা করার কোনো সুযোগ কারো নেই। অথচ অন্য মেয়র প্রার্থীরা ধারণাতীত এবং মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হবার চেষ্টা করছেন।

আবারও বিজয়ী হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে মেয়র রফিকুল আলম বলেন, এবারও নির্বাচিত হলে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করণের পাশাপাশি পৌর এলাকার সকল নাগরিকের যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করবেন তিনি।

তবে ইভিএমে ভোটগ্রহণ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন মেয়র রফিকুল আলমের কর্মী ও সমর্থকরা।

শালবন এলাকার বাসিন্দা মোঃ লিটন বলেন, ইভিএমের প্রতি জনগণের মোটেও আস্থা নেই। তাছাড়া সাধারণ মানুষ ইভিএমে ভোট প্রদানের সাথে পরিচিত নয়।

পশ্চিম শালবন এলাকার বাসিন্দা মোঃ শাহআলম বলেন, ইভিএমে সুক্ষ্ম কারচুপির আশঙ্কা রয়েছে। তবে গ্রহণযোগ্য এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হলে টানা তৃতীয়বারের মতো মেয়র রফিকুল আলমের বিজয় ঠেকানো অসম্ভব।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ