ছোট গল্প “পরীক্ষা”

ডক্টর মোহাম্মদ আলমগীর আলমের দ্বিতীয় ছোট গল্প “পরীক্ষা”
————————————————————————-

-আচ্ছা তুমি প্রায়ই বলো, আমাকে অনেক ভালবাসো, আমাকে ভালবাসার পরীক্ষা দিতে পারবে?
-কেন নয়? তো বলুন কিভাবে পরীক্ষা দিতে হবে?
-দেখি আমাকে ভালবাসার পরীক্ষা দিতে এগিয়ে যাও সমুদ্রের দিকে। যতক্ষণ আমি ফিরতে না বলি এগুতে থাকবে।

কবির এগিয়ে যায় সমুদ্রের স্রোতের দিকে। সাগরের ফেনা ফেনা ঢেউগুলো যেনো ওকে আলিঙ্গন করার জন্যে ডাকছে। কবির এক পা দু’পা করে এগোয়। একটু একটু করে এগোয় আর ধীরে ধীরে স্রোতের তোড়ে আসা পানির ঝাপটা পা ভেজাতে থাকে, এক সময় পা ভিজে, গোড়ালি ভিজে, হাঁটুও ভিজে। কবির এগিয়ে যায়। আবেগ যেনো জিনের মতো করে ভর করেছে পুরো শরীরে আর মনের ভেতরটায়। কবির অদ্ভুত এক সম্মোহনে এগিয়ে যাচ্ছে ভালবাসার পরীক্ষা দিতে সমুদ্রকে আলিঙ্গনের উদ্দেশ্যে।

পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতটা কবিরের চট্টগ্রাম শহরের সবচেয়ে পছন্দের জায়গা। প্রায়ই সুযোগ পেলেই এখানে ঘুরতে আসে। পাথরের উপর ঠায় দাঁড়িয়ে আদিগন্ত সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে থাকে। মাঝে মাঝে সৈকতের বড় বড় পাথরের উপর বসে পাথরের উপর আছড়ে পড়া সমুদ্রের ঢেউ গুণে কিংবা অপলক দৃষ্টিতে সমুদ্রের দিকে তাকিয়ে থাকে ঘন্টার পর ঘন্টা। কখনো কখনো আনমনে আওড়ায় কবিতার মতো করে কিছু একটা – যা মনে আসে তাই, আবেগে উম্মাতাল হয়ে উঠে পুরো শরীর মন। এভাবেই সে একাকীত্বকে উপভোগ করে এখানে। তবে ঐ একাকীত্ব কোন নিঃসঙ্গতা নয় বরং নির্জনতাকে উপভোগ করা।

তবে আজ আমি যে কবিরের কথা বলছি সে যেন অন্য কেউ। সমুদ্রের তীরে বসে সমুদ্রকে ছুঁয়ে দেখতে যে স্রোতের তোড়ে আসা পানির ছটাটা পর্যন্ত স্পর্শ করে না, সমুদ্র সৈকতে আর সবাই যখন পানিতে নেমে দাপাদাপি করে প্রাণের উচ্ছ্বাস মেটায় সে দূর থেকে দেখেই মজা নেয়। অথচ আজ কিনা সে সমুদ্রের গভীরতাকে আলিঙ্গন করতে চলেছে! এটাকে যে কেউ হয় বলবেন নিছক পাগলামি নয়তো কৈশোরের বা বয়োঃসন্ধির হঠাৎ উথলে ওঠা আবেগের আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত।

তো আসুন আবার ফিরে যাই কবিরের কাছে। কবির এখন যেখানটায় দাঁড়িয়ে এখানে কম করে হলেও আপনাদের উচ্চতায় হাঁটুপানি আর কবিরের মতো লিকলিকে পাতলা খাটো শরীরের জন্য পানি কোমর সমান। কবির আর এগুতে পারে না, পেছন হতে হাফিজ সাহেব আর আরও দু’জন লোক ওকে টেনে তুলে তীরের দিকে নিয়ে আসে। হাফিজ সাহেব কবিরকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকেন। কান্না বললে ভুল হবে, মরাকান্না। সবাই মিলে কবিরকে ধরে আলগিয়ে একেবারে তীরে নিয়ে আসে।

আপনারা যারা এই গল্পটা পড়ছেন তাঁরা সবাই অস্থির হয়ে জানতে চাইছেন কবির কে, কি করে, কোথায় থাকে বা হাফিজ সাহেবটাই আবার কে বা কবিরের সাথে তাঁর সম্পর্কটাইবা কি? একটু ধৈর্য্য ধরুন মশাইরা, একে একে সব বলছি।

আমি যে কবিরের কথা বলছি সে মফস্বল থেকে আসা চট্টগ্রাম শহরের একটি কলেজে ইন্টারমিডিয়েট পড়ুয়া এক ছাত্র। হাফিজ সাহেবের কাছ হতে জানতে পারি জন্মের সময়ই কবিরের মা মারা যায় আর বাবা কবিরের এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন সময়েই স্ট্রোক করে মারা যায়। চট্টগ্রাম শহরের বাকলিয়া এলাকায় কবির যে মেসটায় থাকে ওটার পাশেই হাফিজ সাহেব এক চিলতে জমিতে পাকা একতলা ঘর করে থাকেন। কলেজের ক্লাসে কিংবা প্রাইভেট শিক্ষকের বাসায় পড়তে যাওয়া আসার পথে মাঝে মাঝেই দেখা হতো কবিরের সাথে হাফিজ সাহেবের। দেখা সাক্ষাতে সালাম বিনিময় হতে হতে একসময় কুশলাদি জানতে চাওয়া, এরপর দুই চার কথা হতে হতে সম্পর্কটা চাচা ভাতিজায় রূপ নেয়। একসময় কবিরের অসুস্থতার খবর পেয়ে ওকে নিয়মিত দেখে আসে হাফিজ সাহেব। বাসা থেকে খাবার পথ্যও আসে। রোজার সময় আসে ইফতার। এরপর একটু একটু করে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠতায় এগোয়। কবিরের সাথে আড্ডায় মাতে হাফিজ সাহেবের পরিবারের সবাই। হাফিজ সাহেবের স্ত্রী আর দুই ছেলে কবির বলতে অজ্ঞান। আর কথা প্রসঙ্গে কবির বলেই ফেলে, তার বাবা-মা হারা এতিম অন্তরটা হাফিজ সাহেবের আর তার স্ত্রীর মাঝে মা-বাবার চেহারা দেখতে পায়। এই কথা শুনতেই হাফিজ সাহেবের আর তার স্ত্রীর চোখে পানি চলে আসে। তারা কবিরকে তাঁদের আরেকটা ছেলে হিসেবে মনে প্রাণে গ্রহণ করে। তাই আজ যখন কবির ভালোবাসার পরীক্ষা দিতে গিয়ে সাগরে ডুবতে যাচ্ছিল তখন ঘটনার আকস্মিকতায় প্রথমে থতমত খেয়ে গিয়েছিলো ওরা সবাই। হাফিজ সাহেব ধরেই নিয়েছিলেন কবির পানির দিকে এগুতে এগুতে একসময় থেমে যাবে। বাঁচতে কে না চায় বলুন? কিন্তু পাগলাটা যে এমন আবেগী আচরণ করবে অতটা ধারণাই করতে পারেন নি তিনি।

কবিরকে ভেজা কাপড়ে তীরে তুলে এনে নিজের পড়ার ওড়না দিয়ে গা মুছে দিলেন হাফিজ সাহেবের স্ত্রী হাসিনা বেগম। ছেলেটার পাগলামি দেখে ছেলেটার প্রতি দরদ আরও বেড়ে গেলো। যাই হোক ছেলেটার এই অবস্থার জন্য তিনি হাফিজ সাহেবের উপর তেড়ে উঠলেন।

-কি দরকার ছিল ছেলেটাকে এভাবে কষ্ট দেওয়ার? ওতো আমাদের জানপ্রাণ দিয়ে ভালোবাসে, এর উপর আবার পরীক্ষা নেয়ার কি দরকার ছিল?
-আমিতো মজা করে বলেছি। আমি কি করে জানবো ও বলার সাথে সাগরের দিকে ছুটে যাবে। পেছন হতে কত্তো ডাকলাম, তুমিওতো ডাকলে, শুনলো কি?

পরিবারের সবাইকে নিয়ে সাপ্তাহিক ছুটির দিনটা একটু আনন্দে কাটাতেই এখানে আসা। কবির সাহেব একটা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। সপ্তাহের অন্যদিনগুলোতে অনেক ব্যস্ত থাকতে হয়, মাঝে মাঝে অনেক রাত পর্যন্ত অফিসে থাকতে হয়। আর একারণেই ছুটির দিনে পরিবারের সবাইকে সময় দিতে এখানে ওখানে ঘুরতে বেরোয় প্রতি শুক্রবার। হাফিজ সাহেবের আর এই সৈকতটা ভালো লাগল না। তাছাড়া সন্ধ্যাও ঘনিয়ে আসছে। এই সময়ে সাগরের বুকের ভেতরে আস্তে আস্তে লুকোতে সূর্যটা একটু একটু করে হেলে পড়ে সব অন্ধকারে ভরিয়ে দেয়। ছেলেটা ভিজে কাপড় পড়ে আছে। তাই ছুটলেন বাকলিয়ার বাসার দিকে।

রাস্তায় বড্ড জ্যাম লেগে আছে। বিশেষ করে পতেঙ্গা বীচের কার পার্কিং থেকে বেরিয়ে মূল সড়কে উঠতেই ঘন্টাখানেক লেগে গেলো। আর বাকলিয়া পৌঁছতে পৌঁছতে অনেক রাত হয়ে গেলো। বাসায় সবাইকে আগে নামিয়ে দিলেন। এরপর গাড়ি পার্ক করে গাড়ির ভেতরে ঘুমন্ত কবিরকে ডেকে তুললেন। এরপর কবিরকে নিয়ে মেসের দিকে এগুলেন। মেসে ঢুকতেই দেখেন কবিরের মেসে কবিরের খোঁজে বসে আছেন ষাটোর্ধ এক ভদ্রলোক। পরিচয় দিলেন কবিরের বাবা বলে। জানালেন, চট্টগ্রাম শহরে অফিসের কাজে আসা। কবিরের মাসের খরচের টাকা দিতে আর কবিরের পড়াশোনার খোঁজ খবর নিতেই কবিরের মেসে এসেছেন তিনি। আজ রাতে এখানেই থাকবেন। ভদ্রলোকের দিকে যখন হাফিজ সাহেব ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে আছেন তখন ভদ্রলোক তাঁর সামনে মেলে ধরলেন কিছু নাড়িকেলের নাড়ু আর বললেন,
“কবিরের নাড়িকেলের নাড়ু খুব পছব্দ তাই মাসের যে দু-চার দিন ও গ্রামের বাড়িতে আসে ওর মা নিজ হাতে ওকে নাড়িকেলের নাড়ু বানিয়ে খাইয়ে দেয়।”

ভদ্রলোকের পীড়াপীড়িতে হাফিজ সাহেব একটি নাড়িকেলের নাড়ু মুখে দিলেন। মিষ্টি নাড়ুটার স্বাদটা খুব তেতো আর পানশে মনে হলো। কোনমতে পুরো পরিস্থিতি হজম করে পা ফেললেন তাঁর বাসার দিকে। কেন জানি আজ বাসাটা অনেক দূরের আর চোখের দূরদৃষ্টি ঝাপসা মনে হলো। পা যেন আর চলছেই না। মনে হলো, আপন সবাই যেন কাছে থেকে সরে যাচ্ছে। কাছের সবাই যেন ক্রমশই হয়ে যাচ্ছে দূরের, অনেক দূরের।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ