অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণের নামে কোটি কোটি টাকা লোপাট

অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণের নামে কোটি কোটি টাকা লোপাট

শুধু প্রশিক্ষণ, সেমিনার আর মুদ্রণ করাই যেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি- এনসিডিসির মূল লক্ষ্য। এই কর্মসূচির অপারেশনাল প্ল্যানের মেয়াদ জানুয়ারি ২০১৭ থেকে জুন ২০২২ পর্যন্ত। সাড়ে পাঁচ বছরের অপারেশনাল প্ল্যানের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হলো অসংক্রামক রোগে অকাল মৃত্যুহার কমিয়ে আনা। কিন্তু শুধু প্রশিক্ষণ, সেমিনার আর মুদ্রণ করেই প্রকল্প কর্মকর্তারা কোটি কোটি টাকা ব্যয় করেছেন। কেউ কেউ কৌশলে পকেট ভরেছেন নিজেদেরও। তাদেরই একজন ডা. আব্দুল আলিম। তিনি অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির প্রোগ্রাম ম্যানেজার-১। ২০১৫ সাল থেকেই তিনি এই কর্মসূচিতে আছেন। ৬ষ্ঠ গ্রেডের কর্মকর্তা হওয়া সত্ত্বেও তিনি সম্প্রতি এনসিডিসি অপারেশনাল প্ল্যানের প্রোগ্রাম ম্যানেজার-১ এর পদ দখল করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী এই পদ ৪ ও ৫ গ্রেডের। এছাড়া তিনি চলতি দায়িত্বে সহকারী পরিচালক।

অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সংশোধিত এডিপি বরাদ্দ ১৬৫ কোটি ৩০ লক্ষ এবং ব্যয় ১৪০ কোটি ৯৩ লক্ষ (ব্যয়ের হার ৮৫.২৫%), ১৮-১৯ অর্থবছরে সংশোধিত এডিপি বরাদ্দ ১৭১ কোটি ৯৩ লক্ষ এবং ব্যয় ১৫২ কোটি ৫০ লক্ষ (ব্যয়ের হার ৮৮.৭%) এবং ১৯-২০ অর্থবছরে সংশোধিত এডিপি বরাদ্দ ২০৮ কোটি ৮০ লক্ষ এবং ব্যয় ১৪৮ কোটি ২ লক্ষ ৬৩ হাজার (ব্যয়ের হার ৭০.৮৯%)। কিন্তু সরকারি এই টাকা দেশের মানুষের কোন উপকারে আসে নাই বরং অসংক্রামক রোগের মৃত্যুহার বেড়েছে যা আগে ছিল ৫৭ ভাগ, বর্তমানে তা বেড়ে হয়েছে ৬৭ ভাগ। আর উচ্চ রক্তচাপ ১৭% থেকে বেড়ে ২৫.২% হয়েছে।

২০২০ সালের জুনের মধ্যে ২০টি উপজেলা হাসপাতাল ও ২০০টি কমিউনিটি ক্লিনিকে এনসিডি ম্যানেজমেন্ট মডেল করার কথা ছিল। কিন্তু সরেজমিনে দেখা যায়, মাত্র ২টি উপজেলায় মডেল বাস্তবায়ন হয়েছে। অথচ কাগজে কলমে দেখানো হয়েছে ৬৬টি উপজেলা ও ২০০টি কমিউনিটি ক্লিনিকে এই মডেল বাস্তবায়ন হয়েছে। ১০টি মেডিকেল কলেজে ক্যান্সার রেজিস্ট্রি হওয়ার কথা থাকলেও বাস্তবে কিছুই পাওয়া যায়নি। ২০১৭ সালের জানুয়ারি হতে ২০২০ সালেএ জুন পর্যন্ত প্রকল্পের মোট ব্যয় হয়েছে ৪৪৪ কোটি ২৮ লক্ষ টাকা। অপারেশনাল প্ল্যানের ইন্ডিকেটর অনুসারে কোন অর্জন না থাকলেও উন্নয়নের নামে কোটি কোটি লোপাটের অভিযোগ আছে ডা. আলীমের বিরুদ্ধে।

অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পেন মডেল অনুসরণ করে এনসিডি মডেল করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি। এছাড়া, হেলথ প্রোমোটিং স্কুল, হেলদি সিটি এর মতো বহুখাতভিত্তিক অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মপরিকল্পনা এখনো আলোর মুখ দেখেনি। কিছু বললেই দু-চারটি কর্মশালা ও কয়টি পোস্টার ছাপিয়ে কাজ সারেন ডা. আলীম। করোনায় মারা যাওয়া বেশিরভাগ মানুষ অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য জানা গেলেও এ নিয়ে কোনো পদক্ষেপ নাই এনসিডিসির।

গবেষণার অর্থ লোপাট:

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে টেন্ডারের মাধ্যমে সার্ভে কাজের প্রায় ৯৫ লক্ষ টাকা গণউন্নয়ন সংস্থা ও এসএন অ্যাসোসিয়েটস নামক বেনামী প্রতিষ্ঠানের সাথে লাইন ডাইরেক্টর এর মাধ্যমে দুইটি চুক্তি হয়। পরবর্তীতে সার্ভের নামে ভূয়া কাগজ জমা দিয়ে কোনোরকম কাজ শেষ করে দিয়ে গণউন্নয়ন সংস্থা ও এস.এন অ্যাসোসিয়েটস থেকে প্রায় ৫০ লাখ টাকা নেন ডা. আলিম, যা টেন্ডার মূল্যায়ন কমিটি এবং লাইন ডাইরেক্টর কেউ অবগত ছিলেন না। কিউসিবিএস পদ্ধতিতে সার্ভিস প্রকিউরমেন্ট কার্যক্রমে সরাসরি পিপিআর এর নিয়ম ভঙ্গ করে তিনি তড়িঘড়ি করে উক্ত প্রতিষ্ঠান দুইটিকে কাজ দেন। কারিগরী প্রস্তাব মূল্যায়নে ৭০ (১০০ নম্বরের মধ্যে) নম্বরের বেশি পাওয়া প্রতিষ্ঠানসমূহকে অবগত করে তাদের সামনে আর্থিক প্রস্তাব মূল্যায়ন করার কথা থাকলেও তিনি সেটা না করে আর্থিক প্রস্তাব সকলের অগোচরে করে তা একই দিনে মূল্যায়ন করেন এবং মূল্যায়ন প্রক্রিয়া শেষ করে গণউন্নয়ন সংস্থা ও এস.এন অ্যাসোসিয়েটসকে কাজ দেন। ডা. আব্দুল আলিম এই কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন।

এনসিডি প্রোগ্রামে ১১শ ১৮ কোটি ২৭ লক্ষ টাকার মধ্যে প্রায় ৭৩০ কোটি টাকা মেজর এনসিডি কম্পোনেন্টভু্ক্ত। প্রতি বছর এই বিপুল টাকা ব্যয় হলেও লক্ষমাত্রা পূরণ হওয়া দূরে, অবস্থার আরও অবনতি হয়েছে।

২০১৫ সালের পর থেকে ডা. আবদুল আলীম, ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। অভিযোগ আছে, এ বিশাল দায়িত্বের মাঝে তিনি শুধু সরকারি অর্থের অপচয় করেননি বরং নিজ পকেটেও ভরেছেন।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত