দেশে এখন নকল স্বর্ণের বার !

চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী থানাধীন ধোপার দীঘিরপাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ০৫ সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম। প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ৩২ টি নকল স্বর্ণের বার উদ্ধার।

এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, একটি প্রতারক চক্র চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী থানাধীন ধোপার দীঘিরপাড়ে অবস্থিত জম জম সিএনজি ফিলিং স্টেশন এর বিপরীত পাশে ভাই ভাই স্টোরের সামনে নকল স্বর্ণের বার বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সিএনজি গাড়ি নিয়ে অপেক্ষা করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে গত ২৫ জুলাই ২০২০ ইং তারিখ ১৫৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-৭ এর একটি চৌকশ আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা কালে আসামী ১। মোঃ জসিম উদ্দিন (৪২), পিতা- মৃত মোহাম্মদ হোসাইন, সাং- বলিয়া পাড়া, থানা- বায়েজিদ বোস্তামী, চট্টগ্রাম মহানগর, ২। মোঃ ওসমান @ রুবেল (২৯), পিতা- মোঃ ফরিদ @ বাদল, সাং-চিকদাইর , থানা- রাউজান, জেলা- চট্টগ্রাম, বর্তমানে- সাং- আর্দশ পাড়া, থানা- হাটহাজারী, জেলা- চট্টগ্রাম, ৩। মোঃ সোলাইমান (৩৫), পিতা- রুস্তম শেখ @ ভান্ডারী, সাং- খাদেম পাড়া, থানা- সীতাকুন্ড, জেলা- চট্টগ্রাম, ৪। মোঃ ইদ্রিস (৫৮), পিতা- মৃত ইউনুছ, সাং-দেওয়ান নগর , থানা- হাটহাজারী, জেলা- চট্টগ্রাম এবং ৫। মোঃ আবু জাহেদ (৩৬), পিতা- মৃত আবুল কালাম, সাং-কুলগাঁও, থানা- বায়েজিদ বোস্তামী, চট্টগ্রাম মহানগরীদের’কে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে ঘটনাস্থল ও আটককৃত আসামীদের দেহ তল্লাশী করে ৩২ টি নকল স্বর্ণের বার, ০৯ টি শিরিজ কাগজ, ০৩ টি টেষ্টার, ১০ টি স্ক্রু ড্রাইভার, ০১ টি তাতাল, ০১ টি রেত, ০১ টি নোজ প্লায়ার্স, ০১ টি প্লায়ার্স, ০১ টি অটো রেঞ্জ, ০১ টি হেক্স ফ্রেম, ০২ টি হেক্স ব্লেড, ০১ টি গহনার বক্স, ০১ টি হিট সীল, ০৬ টি নাট, ০৫ টি বফ সাবান টুকরা এবং ০১ টি রেঞ্জ উদ্ধারসহ আসামীদের গ্রেফতার করা হয়। এছাড়াও উক্ত স্থান হতে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত একটি সিএনজি অটোরিকশা জব্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তারা দীর্ঘদিন যাবত একে অপরের যোগসাজশে নকল স্বর্ণের বার তৈরি করে পরবর্তীতে যাত্রীবাহী সিএনজি বা অটোরিক্সায় যাত্রী বেশে নিরীহ জনগণকে নকল স্বর্ণের বার দেখিয়ে ধোকা দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নেয়। তারা বিভিন্ন কৌশলে গল্প ফেঁদে সাধারণ মানুষকে প্রতারিত করে সর্বস্ব কেড়ে নেয়। কৌশলের অংশ হিসেবে তারা রিকশা, ভ্যান বা অটো চালিয়ে যাত্রী পরিবহন করে৷ বাহনে আগে থেকেই প্রতারক চক্রের ২/১ জন সদস্য বসা থাকে৷ বাহনে সাধারণ যাত্রী উঠার কিছুক্ষণ পরে চালক হঠাৎ করে তাদের বলে, “ভাই/আপা, আমি পড়ালেখা জানি না। আমার চাচা চিঠিসহ এই বক্সটা আমাকে দিয়েছেন/ আমি বক্সটা কুড়িয়ে পেয়েছি। দেখেন তো কী লেখা আছে?” যাত্রীরা প্রতারণাপূর্ণ চিঠিটি পড়ে মনে করে পিতলের তৈরি বারটি আসল সোনার বার। তখন ওই চালক এবং ছদ্মবেশী অন্য সদস্যরা যাত্রীদেরকে নকল বারটি কিনতে উদ্বুদ্ধ করে। যাত্রীরা ফাঁদে পড়ল বারটি কিনে নেন অথবা তাদের কাছে থাকা আসল গহনার বিনিময়ে নিয়ে প্রতারিত হন। একইভাবে তারা নিজেরাই বারটি রাস্তায় ফেলে নিজেরা কুড়িয়ে নিয়ে পেয়েছি বলে চিৎকার দিয়ে সাধারণ পথচারীদের প্রতারিত করে। এছাড়াও তারা সাধারণ যাত্রী/পথচারীদের চেতনানাশক মলম ব্যবহার করে অজ্ঞান করে সর্বস্ব লুট করে নেয়।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত