বর্তমানে চাকরির বিজ্ঞপ্তি সংখ্যা গত বছর এই সময়ের তুলনায় ৮৭ শতাংশ কম

এডিবি বলেছে দেশে বর্তমানে চাকরির বিজ্ঞপ্তি সংখ্যা গত বছর এই সময়ের তুলনায় ৮৭ শতাংশ কম।
কোভিড-১৯’র ব্যাপকতা এবং আতঙ্ক একটু থিতিয়ে এলে সরকারি চাকরির দিকে এপ্লিকেশনের ব্যাপক ঢেউ আঁছড়ে পড়বে।
এই করোনাকালে চাকরি আর বেতনের শতভাগ নিশ্চয়তা আছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে, সরকারি চাকরিতে।
কয়েকটি ব্যতিক্রম বাদে করোনা প্রতিরোধে সরকারি কর্মকর্তাদের ফ্রন্টলাইন সংগ্রামের গ্ল্যামারে এবং প্রচারে আকৃষ্ট হয়েছে অসংখ্য যুবক-যুবতী।
সরকারেরও উচিত হবে চতুর্থ থেকে শুরু করে দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরির প্রচুর সু্যোগ সৃষ্টি করা। কারণ প্রায়ই শুনি অমুক জায়গায় জনবলের অভাব, তমুক জায়গায় জনবলের অভাব।
সরলভাবে (অর্থনীতি না, কমনসেন্স দিয়ে) বললে পকেটে টাকা থাকলে ভোগ বাড়বে, জিনিসপত্র বেচাকেনা বাড়বে, ব্যবসায় বাড়বে, প্রাইভেট সেক্টরে জনবল নিয়োগ বাড়বে, আবার পকেটে টাকা ঢুঁকবে এবং এই চক্র চলতে থাকবে।
বেসরকারি খাতের ধাক্কা সামলে ওঠার স্বার্থেই সরকারি খাতে নিয়োগ বেশি হওয়া প্রয়োজন এখন।
করোনার কোটি কোটি খারাপ দিকের মধ্যে একমাত্র ভালো দিক হলো শহুরে সচেতন জনগণের মাঝে ই-কমার্সের প্রতি ভরসা বেড়ে যাওয়া। ভরসার মূল্য এই খাতের ব্যবসায়ীরা ফিরিয়ে দিতে পারলে উভয়ের জন্যই মঙ্গল।
Asif Imtiaz

Lecturer at

Dept. of MIS, Faculty of Business Studies, University of Dhaka
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত