বিশ্বের যে এলাকাগুলি বছরের বেশিরভাগ সময়ে অন্ধকারাচ্ছন্ন

জীবনের ধরাবাধা বৃওটা থেকে বের হয়ে প্রায়ই হারিয়ে যেতে মন চায়! কনফারেন্সে কোন দেশে গেলে প্ল্যান থাকে আশেপাশের কোন অজানাকে জানার। বিগত EurOMA Conference ২০১৯ হল হেলসিন্কিতে। উপস্থাপনা শেষে এবার পা রাখতে গেলাম পৃথিবীর মাথায়-উত্তর গোলার্ধে। রওনা হলাম রাজধানী রোভানিয়ামির জাদুকরী স্টেইট Lapland এ।
মানুষ ছাড়া পৃথিবীর আর সবকিছুই বোধহয় সুন্দর! চরম শীতল আবহাওয়ার এই ল্যাপল্যান্ডে উত্তর মেরুর ভৌগলিক বৃত্ত আর্কটিক সার্কেল। আর্কটিক সার্কেল অঞ্চলটি আর্কটিক ওসান, রাশিয়া, নরওয়ে, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, গ্রীণল্যান্ড, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কা প্রভৃতি দেশের সর্ব উত্তরের অংশ নিয়ে গঠিত। এলাকাগুলি বছরের বেশিরভাগ সময়ে অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং বরফাবৃত থাকে। স্থলভাগের বিশাল বিশাল হীমশৈল এবং আর্কটিক ওসান বা উত্তর মেরু মহাসাগরে ভাসমান দানবাকৃতির বরফের স্তুপই যেন এই অঞ্চলের প্রধান বাসিন্দা। উত্তর মেরুর সীমানা শুরু হয়েছে এই রোভানিয়েমি থেকেই। আর্কটিক সার্কেলের সীমানা খুব ঘটা করেই সাজানো! বড় করে লেখা ‘Arctic Circle’ওটার পাশে দাঁড়িয়ে নানা ভঙ্গিতে ছবি তুললাম।যেন সীমানার ফেরত পা রাখলেই কোন মোহনীয় রূপকথা শুরু হয়ে যাবে।ভৌগলিক রহস্যমন্ডিত স্থান বলেই যখন আর্কটিক সার্কেলে পা রাখলাম নিজের ভিতরেও রহস্যময় এক অনুভূতির জন্ম নিল। শীতে প্রকৃতি সাজে পোড়া সবুজ পাইন গাছে সাদা বরফের চুমকিতে।
Lapland নিশীথ সূর্যের দেশ। এটি উত্তর গোলার্ধের দক্ষিণতম অক্ষাংশ হওয়ায় সূর্য জুন মাসের কোন নির্দিষ্ট দিনে ২৪ ঘন্টাই আলো দেয় আর ডিসেম্বরে কোন একদিন ২৪ ঘন্টাই রাত থাকে। বছরের একটা দিন সূর্যমামাই এখানকার মানুষকে রাতের ঘুম পাড়ায়। রাত ১:১৩ মিনিটেও ঝলমলে রোদ পোহানোর সৌভাগ্য হল বলে মাঝে মাঝে মনে হয় পৃথিবীতেই বোধহয় বেহেশত লুকিয়ে আছে!
রোভানিয়েমির প্রতি আমার আগে থেকেই আগ্রহ ছিল। রাজধানী হেলসিংকির পর ফিনল্যান্ডের সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। আমি এলাম গ্রীষ্মকালে! শীতকালে যখন বরফ সবচেয়ে বেশি থাকে, তখন রীতিমতো জেগে ওঠে এই শহর। উত্তরের আকাশে নর্দান লাইট দেখতে ঝাঁকে ঝাঁকে হাজির হয় পর্যটক। বরফকে কেন্দ্র করে নানা আয়োজন করে রিসোর্টগুলো।
সুদূর ফিনল্যান্ডের মেরুবৃত্ত প্রদেশীয় রোভানিয়েমি গ্রামে সান্তাখুড়োর বাড়ি। বলগা হরিণে টানা স্লেজ গাড়ি চড়ে কখনো আকাশপথ বেয়ে, কখনো বা বরফপিছল দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে সময়মত বাড়ির দোরগোড়ায় এসে উপহার নিয়ে উপস্থিত হন সকলের প্রিয় সান্তাদাদু। ইদানীং সব কিছু ছাপিয়ে রোভানিয়েমির সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হয়ে উঠেছে সান্তা ভিলেজ।
সান্তামামার সাথে দেখা করবো বলে তার বাড়ি গেলাম। অন্ধকার ঘর ছাপিয়ে পৌছলাম বড় একটি ঘরে।
চোখের সামনে বিশাল এক পেন্ডুলাম দুলছে। সেখান থেকেই ঘণ্টার মতো ঢং ঢং শব্দ হচ্ছে। চারপাশে রংবেরঙের গিফটবক্স ছড়ানো। দেয়ালে নানা রকম প্রাচীন শিল্পকর্ম। রুমের একপাশে প্যাঁচানো সিঁড়ি ওপরে উঠে গেছে সান্তা ক্লজের অফিস। ১৫/১৬ জনের পেছনে লাইনে দাঁড়াতে হলো। সবাইকে তিন মিনিট করে সময় দেন সান্তা। শুনলাম, ক্রিসমাসে নাকি এই লাইন নিচতলা ছাড়িয়ে বাইরে পর্যন্ত চলে যায়।
এতদূর এসে সান্তার সঙ্গে ছবি না তুললে আফসোস থেকেই যাবে। কিছুক্ষন লাইনে দাঁড়ানোর পর আমাদের পালা এলো। বিচিত্র টুপি আর লাল রঙের অদ্ভুত জামা পরা এক মেয়ে আমাদের অভ্যর্থনা জানাল।। সান্তার ‘সেক্রেটারি’।তার নাম ‘এলফ’। সে-ই আমাদের ছবি তুলবে।বৃত্তাকার ঘরের একপ্রান্তে চিরাচরিত পোশাকে সান্তা ক্লজ বসে আছেন। রুপালি রঙের দাড়ি পেট পর্যন্ত নেমে এসেছে। পায়ে ঢাউস জুতা। সোনালি ফ্রেমের চশমার ওপর দিয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে বললেন, ‘হ্যালো’!ওয়েলকাম টু মাই হোম!’ হ্যান্ডশেক করলাম সান্তার সঙ্গে। হাসতে হাসতে কুশল বিনিময় হল। ইউরোমা কনফারেন্সে আমাদের কি টপিক ছিল তা নিয়ে কথা হল।ছবি তোলা হলো। কিন্তু পুরো ব্যাপারটা আমার মন ছুঁয়ে গেল।গেলাম সান্তার অফিশিয়াল ডাকঘরে। প্রতিবছর সারা বিশ্ব থেকে শিশুদের লাখ লাখ চিঠি আসে এই ঠিকানায়। ।প্রত্যেকটির উত্তর দেওয়া হয়। ডাকঘরের ভেতরটা ছবির মতো সাজানো।জানি পুরো ব্যাপারটাই বাণিজ্যিক। এক্সাইটমেন্ট যে বিজনেসের কত বড় একটা উপকরন তা এইসব দেশের নানা আয়োজন না দেখলে উপলদ্বি করা সম্ভব নয়।এই ভিলেজ থেকে লাখ লাখ ইউরো আয় করছে ফিনিশ সরকার। তার পরও মনে হচ্ছিল কিছুক্ষণের জন্য যেন অন্য একটা জগতে চলে গিয়েছিলাম।
ভোজনরসিক বাঙ্গালী যে দেশেই যায় তাদের খাবার নিয়ে গবেষনার শেষ নেই! রেস্তোরাঁ গুলো পূর্ণ ভালবাসা দিয়ে তাদের অথেন্টিক রেসিপিগুলোয় রেখেছে নানা ফ্লেভারের মেরিনেটেড রেইনডিয়ার মিট আর সী ফুড। নানা রকম জ্যাম, চীজ, রুটি দিয়ে সার্ভ করা খাবার গুলোর স্বাদ অতুলনীয়।এখানে আরো আয়োজনে সাফারি জোন আছে, যেখানে হরিণটানা স্লেজে চড়া যায়, স্কি করা যায়। গ্রামের পাশে আছে সান্তা পার্ক। ছোটদের জন্য নানা রাইড আছে ওখানে। গ্লাসের তৈরি ইগলু রিসোর্টে শুয়ে শুয়ে টুরিস্টরা প্রকৃতির নর্দান লাইট উপভোগ করে।সব মিলিয়ে এক হুলস্থুল কাণ্ডকারখানা।
Akram Hossain Mithun
Chairman, MIS
Faculty (university) at
University of Dhaka

ভাষা অলংকরণে :

Rumana Trishna
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত