মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শখ

“সকালে ঘুম ভাঙার পর আগে জায়নামাজ খুঁজি। নামাজ পড়ি। নিজের বিছানা নিজেই গুছিয়ে রাখি । তারপর চা বা কফি যে টা ইচ্ছে নিজে বানিয়ে খাই। আমার ছোট বোন রেহানা থাকলে যে আগে ওঠে সে চা বানায়। এখন আমার মেয়ে পুতুলও রয়েছে। তিন জনের মধ্যে যে আগে উঠবে সেই বানায় ।
এখন তো করোনাকালে নামাজ পড়ে, চা খেয়ে একটু হাঁটাহাঁটি করি। গণভবনে একটা লেক আছে। সেই লেকের পাড়ে বসে বরশি দিয়ে মাছ ধরি।এটা শখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ।
আজ এক প্রশ্নের উত্তরে সংসদে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন ।

ইউএনওর ওপর হামলার পেছনে কে,
খতিয়ে দেখা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
————
অপরাধীদের শাস্তি দেওয়া হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার মূল পরিকল্পনাকারীদের শনাক্ত করার জন্য তদন্ত চলছে।

বুধবার জাতীয় সংসদে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। খবর ইউএনবির

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে অপরাধীদের চিহ্নিত এবং গ্রেপ্তার করেছি। এর পেছনে আর কে ছিল বা কে এই আক্রমণ চালানোর জন্য তাদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছিল তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এর পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত প্রক্রিয়ায় কোনো ঘাটতি নেই এবং ঘাটতি হবেও না।’

তিনি বলেন, ‘অপরাধীদের অবশ্যই শাস্তি দেওয়া হবে। আমি অন্তত এটা বলতে পারি যে, আমরা এটি নিশ্চিত করবো।’

প্রধানমন্ত্রী এ সময় সংসদ সদস্যদের অনুরোধ করেন যাতে কোনো সংসদ সদস্য এ জাতীয় অপরাধীদের রক্ষার চেষ্টা না করেন। তিনি বলেন, ‘যারা অপরাধ করে এবং যারা অপরাধীদের রক্ষা করে তারাও সমান দোষী।’

এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমি একজন অপরাধীকে অপরাধী হিসেবেই দেখি। তিনি কোন দলের সাথে বা তিনি কে তা আমি বিবেচনা করি না। তারা (অপরাধীরা) আমার দলের অন্তর্ভুক্ত হলেও আমি রেহাই দেব না।’

তিনি বলেন, কেবল চুরির উদ্দেশ্যেই নয়, হামলার পেছনে আরও কী কারণ থাকতে পারে তাও খতিয়ে দেখার জন্য সঠিকভাবে তদন্ত করা হচ্ছে।
————–

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ