যুক্তরাষ্ট্রের মত দেশের নির্বাচন ব্যবস্থার এই হাল দেখে সত্যিই বিস্মিত আমি

বিশ্বাস করুন, আর না করুন….
আগে থেকে পরিকল্পনা করে রেখেছিলাম, আজ খুব ভোরে ভোট দিতে যাব। আমার ভোট কেন্দ্র জ্যামাইকার থমাস এডিশন হাই স্কুল। ভোর ৬টায় ভোট শুরু। আমি হেলেদুলে ভোট কেন্দ্রে গেলাম ৬টা ৪০ মিনিটে। ভোট কেন্দ্রে শুনশান নিরবতা। এটা দেখে আমি সবসময় অভ্যস্ত। কারণ গত ৫ বছর ধরে আমি ভোট দিতে গিয়ে কেন্দ্রে কোনো কোলাহল দেখিনি। আজও তার ব্যত্যয় হয়নি। তবে আজ সেখানে গিয়ে বিচিত্র এক অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরেছি।
আমার ইলেকশন ডিস্ট্রিক্ট যেহেতু ৪৩, আমার টেবিল নম্বর ছিল ৪৩। এক বাঙালি ভাই ও বোন দায়িত্ব পালন করছেন। টেবিলে গিয়ে পরিচয়পত্র দিলাম। ট্যাব থেকে আমার পরিচয় নিশ্চিত হয়ে বাঙালি বোনটি আমাকে একটি মাত্র ব্যালট দিলেন। ব্যালট একটি কেন জানতে চাইলে ওই বোন ব্যালটটি পরীক্ষা করে দেখলেন অসম্পূর্ণ। অর্থাৎ প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের নাম নেই। তিনি তার সহকর্মি ভাইটিকে ব্যালট দেখালেন। ব্যালট দেখে ওই ভাই প্রথমে জোর দিয়ে বললেন, ব্যালট একটি। আমি আবারো জানতে চাইলাম তাহলে প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের ব্যালট কোথায়? ওই ভাই সদুত্তর না দিতে পেরে আামাকে কেন্দ্র সুপারভাইজারের কাছে যেতে বললেন। আমি সুপারভাইজারকে বললাম ঘটনা। সুপারভাইজার বললেন, আমি সঠিক, ব্যালট দুটি হবে। পরে বাক্স থেকে আরো ব্যালট বের করলেন। সেখানে পাওয়া গেল পৃথক ব্যালট।
আমি খুশী মনে ব্যালট হাতে ভোট দিলাম। এরপর নিয়ম অনুযায়ী ব্যালটটি স্ক্যান করতে হয়। যেই না স্ক্যানারের দিকে এগিয়ে গেলাম, আমার হাতে দুটি ব্যালট দেখে স্ক্যানারের পাশে দায়িত্ব পালনরত সত্তুরোর্ধ এক নারীর মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়লো। তিনি চিৎকার শুরু করে দিলেন, কেন আমি দুটি ব্যালট নিয়েছি। আমি বিনয়ের সাথে বললাম, আজ মোট দুটি ব্যালটে ভোট। তিনি নাছোড় বান্দা। গত ৪০ মিনিট ধরে যারাই ভোট দিয়েছেন সবাই নাকি একটি ব্যালটে ভোট দিয়েছেন। কী সাংঘাতিক কথা! তার মানে কেউ দিয়েছেন শুধু প্রেসিডেন্ট প্রার্থীকে। আবার কেউ দিয়েছেন শুধু লোকাল প্রার্থীদের।
আমি আবার গেলাম সুপারভাইজারের কাছে। সুপারভাইজার আমার কাছে ঘটনার জন্য দ্বিতীয় দফায় দুঃখ প্রকাশ করলেন। স্ক্যানারের পাশে দায়িত্বে থাকা নারীকে বললেন, আমিই সঠিক। ব্যালট দুটি। সুপারভাইজারের কথায় তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলেন ওই নারী। তার এই উত্তেজিত ভূমিকার কারণে সুপারভাইজার তাকে একপর্যায়ে বাড়ি চলে যাবার কথাও বললেন। কিন্তু গত ৪০ মিনিটে অনেকের ভোটই অসম্পূর্ণ থেকে গেছে। জানি না, এই দায় কার?
যাই হোক- আমি ভোট কার্যক্রম শেষ করে বাইরে এসে কল দিলাম ৩১১-এ। তারা ঘটনার আদ্যোপান্ত শুনে বোর্ড অব ইলেকশনের ফোন নম্বর দিলেন। আমি কল করলাম। এক ভদ্র মহিলা আমার তীক্ত অভিজ্ঞতা শুনে মনে হলো বেশ মজাই পেলেন। আমাকে তিনি এবার কুইন্স বোর্ড অব ইলেকশনের একটি ফোন নম্বর দিলেন। কী আর করা। মৃদু বকা দিলাম তাকে। এরপর কল করলাম ওই নম্বরে। কিন্তু ফোন আর কেউ রিসিভ করলো না।
যুক্তরাষ্ট্রের মত একটা দেশের নির্বাচন ব্যবস্থার এই হাল দেখে আমি সত্যিই বিস্মিত হয়েছি। দিন শেষে অবশিষ্ট ব্যালটের জোড়া মেলালে বোঝা যাবে কত মানুষেরই ভোট নষ্ট হয়েছে।

Shahidul Islam

General Secretary at 

America-Bangladesh Press Club
Special Correspondent at 

Daily Ittefaq
New York City, New York
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত