শুভ জন্মদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

প্রাণের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শত বছরে পা রেখে গৌরবগাঁথায় যেন পূর্নতা এনে দিচ্ছে। শুধু শিক্ষাক্ষেত্রে নয়, শত যুদ্ধ সংগ্রাম, দাবী আদায়ের ইতিহাসে বা দেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদানের কথা সবারই জানা। শত বছরের এই যাত্রায় জ্ঞান আর সুশীল মনন গঠনে বটবৃক্ষের মতন ছায়া দিয়ে আসছে প্রানের এই বিশ্ববিদ্যালয়! এই বিদ্যাপীঠের একজন ছাত্র ও শিক্ষক হয়ে জীবনযাপন যেন আমাকে জুড়ে দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকালের সময়ের ধারার সাথে।যেন একশত বছরের বিগত সকল সম্মানিত শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রী সবার সাথেই আমি প্যারানরমাল কানেকশনের মতন যুক্ত। অনেকেই প্রযুক্তির অগ্রগতির সাথে তাল মিলিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যকলাপ দ্রুত ত্বরান্বিত করতে টেকনোলজিক্যাল এডভান্সমেন্ট চায়। প্রযুক্তির ব্যবহার বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা পর্যায়ে অব্যাহত আছে ঠিকই কিন্তু নথিপত্র ও অফিসিয়াল কার্যকলাপে এখনো আছে সনাতন পদ্ধতির ব্যবহার। বর্তমান সময়ে একটা চিলি-মাশরুম পিৎজা খেতে মন চাইলেই একঘন্টায় তা মুখের সামনে হাজির হয়। জীবন এখন এত সহজ হয়ে গেছে যে সব কিছু দ্রুত পেতে পেতে সাধনা, অপেক্ষা, ধৈর্য্যর ধরার মাঝে যে আনন্দের নতুন জন্ম হয় তা আমরা ভুলে গেছি। কিছু ব্যাপার সনাতনই ভালো, এতে পুরনোর স্বাদ পাওয়া যায়। করোনা মহামারীকালে যতই আমরা অনলাইনে পড়ানোর ব্যবস্হা করিনা কেন বিদ্যার্থীরা নিশ্চয়ই ক্লাস রুমেই ফিরতে চাইছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের জম্মদিনে আমার এত সুখ কেন লাগছে? কি দিয়েছে এই প্রতিষ্ঠান আমাকে? উত্তরটা বড় তবুও বলছি,এই বিশ্ববিদ্যালয়কে ঘিরেই জীবনের প্রথম স্বপ্ন দেখতে শেখা, যোগ্য হবার প্রেরণা পাওয়া, পরিবারের মতন আপন করে নেয়া বন্ধুমহল, গুরু রূপে সন্মানিত শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ, চেতনাবহুল শিক্ষা, একটি নির্মল বিশুদ্ধ ক্যানভাসের ছবির মতন ক্যাম্পাস, উচ্চ ডিগ্রী, সম্মানের জীবিকা, সন্তানের মতন হাজারো ছাত্র-ছাত্রী, বুদ্ধিদীপ্ত সহকর্মী, কর্মদক্ষ কর্মকর্তা-কর্মচারী আরো কত কি! শিক্ষক হিসেবে আমারো আশা ছাত্র-ছাত্রীরা আমার মতনই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কি কি পেলো তার সবুজ তালিকা তৈরী করবে। ৫০ টিরও বেশি দেশে শত বিশ্ববিদ্যালয়ে একাডেমিক ও গবেষনা কাজে অংশগ্রহন করেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতন জ্ঞানচর্চার এমন নিবিড় অনুভূতি আমার কোথাও হয়নি।
উনিশ থেকে বিশ হলেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে গরম চায়ের কাপের সাথে বিতর্কিত খবর হিসেবে যারা হজম করতে পছন্দ করেন তাদের কত বড় অবদান আছে এই শত বর্ষের সফলনামায় ! তাই সমালোচকদেরকেও শুভকামনা জানাই। হাজারো অভিযোগ, সমালোচনায় বারংবার সম্মুখীন হয়েও টিকে গেছে এতগুলো বছর !
এভাবে হাজার বছর বাঁচুক আর ছড়াতে থাকুক জ্ঞানের আলো। ৯৯ বছর বয়সের একটি বটবৃক্ষের ছোট্ট একটি প্রশাখা হয়ে বর্ষার আদ্র বাতাসে আনন্দে যেন দুলছি!
Akram Hossain Mithun
Chairman, MIS
Faculty (university) at

University of Dhaka
Image may contain: tree, plant, sky, outdoor and nature
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ