স্থানীয় পর্যায়ে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে পর্যটনের কথা বিবেচনায় রাখুন : পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়
প্রতিমন্ত্রীর দপ্তর
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

স্থানীয় পর্যায়ে উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে পর্যটনের কথা বিবেচনায় রাখুন – পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, শনিবার, ২২ আগস্ট ২০২০।

স্থানীয় পর্যায়ে যেকোনো উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে পর্যটনের কথা বিবেচনায় রেখে কাজ করার জন্য প্রশাসনকে আহ্বান জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী,এমপি।

স্থানীয় উন্নয়ন পরিকল্পনায় পর্যটনকে সম্পৃক্তকরণ ও পর্যটন সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে আজ (২২.০৮.২০২০) বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড কর্তৃক নাটোর জেলার সাথে আয়োজিত অনলাইন কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে এ আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে যে কোন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের ক্ষেত্রে পর্যটন-কে বিবেচনায় রাখতে হবে। স্থানীয় প্রশাসন পর্যটনের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবেন। পর্যটন আকর্ষণসমূহের নির্মাণ, উন্নয়ন, সংরক্ষণ ও সংস্কার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সম্পন্ন করতে হবে। পর্যটন গন্তব্যের সাথে সম্পৃক্ত সকল অপ্রশস্ত রাস্তা প্রশস্ত করার পরিকল্পনা প্রণয়ন করে দ্রুততার সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অবস্থিত ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক পুরাকীর্তি ও মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্থানসহ সকল পর্যটন আকর্ষণ সংরক্ষণে স্থানীয় প্রশাসনকে গুরুত্বের সাথে কাজ করতে হবে। কোন স্থানীয় টাউট ও ভূমিদস্যু যাতে এ সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও স্থাপনার কোন ক্ষতি করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। যে সমস্ত স্থানে পর্যটন আকর্ষণ সমৃদ্ধ ঐতিহাসিক স্থাপনাসমূহ বেদখল হয়েছে তা পুনরুদ্ধারের জন্য দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। যারা ঐতিহাসিক স্থাপনা ও পর্যটন আকর্ষণের ক্ষতি করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

মাহবুব আলী বলেন, কোভিড-১৯ এর কারণে বর্তমানে মানুষ দীর্ঘদিন যাবৎ ঘরে অবস্থান করছে। কোভিড-১৯ পরবর্তী সময়ে দেশের পর্যটন গন্তব্য গুলিতে পর্যটকের ভীড় বাড়বে। সেই সময়ের জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। পর্যটকেরা যেন সকল পর্যটন গন্তব্যে সঠিক ও উপযুক্ত পরিবেশ পায় স্থানীয় প্রশাসনকে তা নিশ্চিত করবে।

তিনি বলেন, পর্যটন সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরি না হলে পর্যটনের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি ব্যাহত হবে। পর্যটনের সাথে স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে জনপ্রতিনিধি,স্থানীয় প্রশাসন ও গণমাধ্যম কর্মীদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সবাইকে এই ব্যাপারে গুরুত্বের সাথে কাজ করার জন্য অনুরোধ করছি। পর্যটন সম্পর্কে জনসচেতনতা তৈরি করার জন্য পাঠ্যপুস্তকে পর্যটন বিষয়ক রচনা অন্তর্ভুক্ত করার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়কেও অনুরোধ করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে ঘুরতে আসা পর্যটকদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ পার্শবর্তী দেশ সমূহের জনগণ। তারা আমাদের ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থাপনাসমূহ পর্যটনে আসেন। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত,নেপাল ও ভুটানের নাগরিকদের জন্য পর্যটক ভিসা সহজীকরণের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাথে আলাপ-আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো থেকে পর্যটকের আগমন বৃদ্ধি পাবে।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের পরিচালক আবু তাহের মুহাম্মদ জাবের-এর সঞ্চালনায় ও নাটোর জেলার জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরিয়াজ-এর সভাপতিত্বে কর্মশালায় আরো বক্তব্য রাখেন নাটোর ৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, নাটোর ২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর ১আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাবেদ আহমেদ প্রমুখ।

 

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ