৩ লক্ষ কোটি টাকা !!

প্রথমবার মালয়েশিয়া যাচ্ছিলাম। সময়ের অনেক আগেই এয়ারপোর্টে পৌঁছলাম। কিছুটা বুঝে, বাকিটা না বুঝে সব প্রক্রিয়া শেষ করলাম। বোর্ডিং নিয়ে ইমিগ্রেশনে ঢুকতে যাব তখনই সিকিউরিটি গার্ড জিজ্ঞেস করলেন, বর্হিঃগমন ফরম পূরন করেছেন? বললাম না। দেখিয়ে দিল।
পাশে রাখা ব্যাংকের মানি রিসিটের মতো একটা কাগজে নাম, পাসপোর্ট নম্বরসহ অন্যান্য তথ্য পূরন করে ইমিগ্রেশন লাইনে গিয়ে দাঁড়ালাম। সামনে বসা ইমিগ্রেশন অফিসারকে ফরম টা দিতে হবে। কিন্তু ফরমের এক জায়গায় ফ্লাইট নম্বর দিতে হবে। আমি বোর্ডিং পাসে ফ্লাইট নম্বর খুঁজে পাচ্ছিনা বা কোনটা ফ্লাইট নম্বর বুঝতে পারছিনা।
লাইনে দাঁড়িয়ে মনে মনে ভাবছি, আবার কোন সমস্যা হয় কিনা! ডানে-বামে তাকিয়ে আমার সামনেই স্যুট-টাই পড়া সুশ্রী চেহারার এক ভদ্রলোককে পেলাম।
ভাইয়া কি আংকেল সম্বোধন করে আমার ফ্লাইট নম্বর কোনটা জিজ্ঞেস করলাম। তিনি বোর্ডিং পেপারে না তাকিয়ে আমার দিকে কিছুটা ভুরু কুঁচকে তাকিয়ে আছেন।
সামান্য পরেই বোর্ডিং পাস উল্টিয়ে ফ্লাইট নম্বর দেখিয়ে দিতে দিতে জিজ্ঞেস করলেন, মালয়েশিয়া না দুবাই?
আমি বুঝে ফেললাম। ভদ্রতার খাতিরে উত্তর দিলাম।
পরক্ষণেই তিনি জিজ্ঞেস করলেন, প্রথমবার?
-আমি বললাম, না ৩১ বার।
ভুরু কুঁচকে আবার জিজ্ঞেস করলেন, কি করেন?
-আমি উত্তর দিলাম, বিমান চালাই !
তিনি আবার সামনের দিকে তাকালেন। আরো কিছু বলবার ইচ্ছে ছিল, কিন্তু আমিও কিছুটা নার্ভাস ছিলাম।
আজ দেখলাম, দেশে রিজার্ভের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৫ বিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকা। যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ! বিডিনিউজ২৪.কমে সারাদিনই নিউজটা টপে ছিল। তখনই বেশ আগের এই গল্প মনে পড়ল!
এই যে দেশে এত টাকা জমেছে তার প্রায় সবই প্রবাসী ভাইদের পাঠানো। এবছরই তারা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রায় দেড় লাখ কোটি টাকা।
অথচ, প্রবাসীদের অনেকে বিদেশে যেতে বা দেশে ফিরতে এয়ারপোর্টে কিংবা প্লেনে নিজের নির্ধারিত সিট খুজে না পেয়ে, কখনো অন্যের সিটে বসে কি পরিমাণ অপমানের শিকার হোন আমি নিজ চোখে দেখেছি।
অথচ এই প্রবাসী যোদ্ধাদের পাঠানো রেমিট্যান্সেই আমাদের অর্থনীতি বড় হয়। সেই অর্থনীতির চর্বিত রস খেয়ে ফুলে-ফেঁপে ওঠে ঐ সব স্যুট-টাই পড়া ভদ্রর লোকেরা!!
Writer
Khalid Ahsan
Senior Reporter
Bangladesh Television
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত