full screen background image
Search
,
  • :
  • :

দুধ থেকে সাবধান !

দেহটাকে সুস্থ রাখতে এবং হাড় গঠনে অনেকেই প্রতিদিন দুধ খান। কিন্তু বেশি সুস্থ থাকতে গিয়ে প্রতিদিন ৩ গ্লাসের বেশি দুধ খেলে তা দ্রুত মৃত্যুর কারণ হতে পারে বলে নতুন এক গবেষণায় বলা হয়েছে।

সুইডেনের উপসালা ইউনিভার্সিটির গবেষক কার্ল মিকাঅ্যালিসন জানান, দুধ খাওয়া ভালো। কিন্তু অতিরিক্ত দুধ খেলে দেহে ল্যাকটোজ এবং বিশেষ ধরনের চিনি গ্যালাকটোজ এর মাত্রা বেড়ে যায়। অন্যান্য পশুর ওপর এই দুটি উপাদান প্রয়োগে তাদের মধ্যে অক্সিডাটিভ স্ট্রেস ও ক্রনিক প্রদাহ দেখা দেয়।
কিন্তু চিকিৎসকরা বহুদিন ধরেই দেহে ক্যালসিয়ামের মাত্রা ঠিক রাখতে এবং হাড়ে ফ্র্যাকচার রোধ করতে দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার গ্রহণের কথা বলে আসছেন। চিকিৎসকদের এই পরামর্শকে নিরুৎসাহিত করতে পারে আমাদের সাম্প্রতিক গবেষণা।
সুইডেনে দুটো বিশাল দলে নারী-পুরুষের ওপর গবেষণা পরিচালিত হয়েছিল। তাদের দুধ ও দুগ্ধজাত ৯৬টি খাবার সম্পর্কে নানা প্রশ্ন করা হয়েছিল। প্রথম দলে ৩৯-৭৪ বছর বয়সী ৬১ হাজার ৪৩৩ জন নারী-পুরুষের ওপর গবেষণা হয় ১৯৮৭-১৯৯০ সালের মধ্যে। দ্বিতীয় ভাগে ১৯৯৭ সালে ৪৫-৭৯ বছর বয়সী ৪৫ হাজার ৩৩৯ জন নারী-পুরুষের ওপর গবেষণা হয়।
এসব খাবার অধিকমাত্রায় গ্রহণের ফলাফল দেখতে গড়ে ২০ বছর পরীক্ষা চালানো হয়। দেখে গেছে ওই সময়ের মধ্যে অধিকমাত্রায় দুধ খাওয়ার কারণে ১৫ হাজার ৫৪১ জন নারী মারা গেছেন এবং ১৭ হাজার ২৫২ জনের হাড়ে ফ্র্যাকচার হয়।
তবে এই গবেষণায় নারীদের হাড়ের ফ্র্যাকচারের সঙ্গে বেশি পরিমাণ দুধ খাওয়ার কোনো সম্পর্ক পাওয়া যায়নি। কিন্তু যে সব নারী দিনে গড়ে তিন গ্লাস পরিমাণ দুধ (৬৮০ মিলিলিটার) খান তাদের মৃত্যুর সম্ভাবনা দিনে ৬০ মিলিলিটার দুধ খাওয়া নারীদের চেয়ে অনেক বেশি।
আগের ওই গবেষণায় পুরুষদের পর্যবেক্ষণ করা হয় ১১ বছর। ওই সময়ের মধ্যে ১০ হাজার ১১২ জন মারা যান এবং ৫ হাজার ৬৬ জনের হাড়ে ফ্র্যাকচার হয়।
পুরুষরাও বেশি পরিমাণ দুধ খেয়ে দ্রুত মৃত্যুর দিকে ধাবিত হয় বলে দেখা গেছে।
ব্রিটিশ মেডিক্যাল জার্নাল-এ এই গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। সূত্র : ইন্ডিয়ার এক্সপ্রেস
বাংলা আওয়ার : বিএমএন/





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *