full screen background image
Search
,
  • :
  • :

বাংলাদেশের বিতর্কিত এক ধনকুবের মুসা বিন শমসের (ভিডিও)

বাংলাঅাওয়ার ডেস্ক:  মুসা বিন শমসের বর্তমান বাস করছেন গুলশানে অবস্থিত তার প্রাসাদোপম বাড়িতে। । এর সাজসজ্জা চোখ ধাঁধানো। লিভিং রুমসহ ভবনের ছাদ অবধি শোভা পায় দ্যুতিময় অসংখ্য ঝালর। মেঝে মূল্যবান ক্রিস্টাল পাথরে ছাওয়া। ফ্লোরে ঝকঝকে কার্পেট। সব মিলিয়ে যেন এক স্বপ্নপুরী। এ বাড়িতে প্রায় প্রতিদিনই পার্টি থাকে। সেখানে সবসময় তার দেশি বেদেশি হাইপ্রোফাইল মেহমানরা উপস্থিত থাকেন। পার্টিতে খাবার পরিবেশনের জন্য রয়েছে প্রশিক্ষিত কয়েক ডজন সেফ। এরা সবাই রান্না-বান্না ও পরিবেশনার উপর উচ্চ ডিগ্রিধারী। বিখ্যাত কলম ও স্টেশনারী প্রস্তুত কারক প্রতিষ্ঠান মন্ট ব্লাঙ্ক  মুসা বিন শমসেরের জন্য একটি কলম বানিয়ে দিয়েছে যার মধ্যে রয়েছে ৭,২৫০ টি ছোট ছোট হীরা । এই কলম দিয়েই নুলা মুসা সব গুরুত্বপূর্ণ দলিল দস্তাবেজ,চুক্তি,ইত্যাদি সাক্ষর করে থাকে । তার হীরক খচিত জুতো রয়েছে অসংখ্য । পৃথিবীর সব বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনার তার  জন্য স্যুটের ডিজাইন করে দেয় । ১৯৯৯ সালের দিকেই সম্ভবত, এই  মুসা বিন শমসের পুরো এটিএন বাংলা কয়েক ঘন্টার জন্য ভাড়া নিয়েছিলো শেরাটনে তার জন্মদিনের অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করবার জন্য । রোলেক্সের ৫০ লাখ ডলার মূল্যের একমাত্র ঘড়ি তার বাঁ হাতে। ২৪ ক্যারেট সোনায় মোড়া এ কলমে রয়েছে সাড়ে সাত হাজার হীরক খণ্ড। অঙ্গসজ্জায় যোগ করেছেন ১০ লাখ ডলার মূল্যের ১৬ ক্যারেটের চুনি। ৭০ লাখ ডলার মূল্যের অলংকার। প্রতিদিন গোসল করেন গোলাপ পানিতে। ১৯৯৪ সালে ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের নির্বাচনী খরচ যোগাতে ৫০ লাখ পাউন্ড অনুদান অফার করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রথম আলোচনার ঝড় তোলেন। দুই দশকে নানা কারণে কেড়েছেন আন্তর্জাতিক মিডিয়ার দৃষ্টি।
তিনি আর কেউ নন, আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসায়ী মুসা বিন শমসের। বাংলাদেশের বিতর্কিত এক ধনকুবের।
তার লাইফ স্টাইল, আয়-ব্যয় আর জাঁকজমকপূর্ণ জীবনযাত্রায় বিস্মিত দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদকও। তিনি কত টাকার মালিক? কী তার অর্থের উৎস? এ কৌতূহল থেকেই এবার মুসা বিন শমসেরের সম্পদ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুদক। সোমবার কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। দুদকের উপপরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলীকে নিয়োগ করা হয়েছে অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

রয়েছের তার নিজস্ব ওয়েব সাইট

কে এই মুসা বিন শমসের : মুসা বিন শমসেরের জন্ম ১৯৫০ সালের ১৫ অক্টোবর ফরিদপুরে। পিতা শমসের আলী মোল্লা ছিলেন ব্রিটিশ সরকারের স্থানীয় সরকার দফতরের কর্মকর্তা। চার ভাই-বোনের মধ্যে তিনি তৃতীয়। আÍীয়তার সূত্রে তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বেয়াই।
১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে মুসার ভূমিকা নিয়ে রয়েছে বিতর্ক। মুসার পুত্র ববি হাজ্জাজ (হাজ্জাজ বিন মুসা ববি) জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিশেষ উপদেষ্টা। এ বছরের ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনের আগে ববির রহস্যময় রাজনৈতিক তৎপরতা দেশে তাকে পরিচিত করে।
মুসার আরেক পুত্র আজ্জাত বিন মুসা জুবি। মেয়ে জাহারা বিনতে মুসা ন্যান্সি। শেখ ফজলুল করিম সেলিমের পুত্র শেখ ফজলে ফাহিমের কাছে বিয়ে দিয়েছেন ন্যান্সিকে। ববি হাজ্জাজ বিয়ে করেছেন ব্যারিস্টার রাশনা ইমামকে। জুবির স্ত্রীর নাম সুমী নাসরিন। তারা যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন।

রাজাকার নুলা মুসা: কি করে নুলা মুসা হলো । নুলা মুসার বাম হাতের উপরের অংশটি জন্মগতভাবে খানিকটা বাঁকা ও সেটিকে সোজা করে রাখতে পারতনা সে । অনেকটা ঝুলিয়ে রাখতে হতো । সে কারনেই স্থানীয় লোকজন তাকে “নুলা মুসা” বলে সম্বোধন করে । তবে তার এই নামকরন টি মুক্তিযুদ্ধে তার ঘৃণ্য ভূমিকার পর-পরই হয়েছিলো। সে ফরিদপুরে হত্যা ধর্ষনে জড়িত ছিল। আর জনকন্ঠ পেপারে তার ৭১ এর কর্মকান্ড তুলে ধরায় সাংবাদিক প্রবির দাশের পা কেটে দেয় নুলা মুসার লোকজন। নুলা মুসার বাবার নাম ছিলো শমশের মোল্লা । আজকে নুলা মুসা যেমন তার নামের আগে প্রিন্স শব্দটি বসিয়েছে ঠিক তেমনি এইভাবেই তার বাবা শমশের মোল্লা নিজের নামের আগে পীর শব্দটি বসিয়েছিলো । ডক্টর এম এ হাসানের ১৯১ জন পাকিস্তানী যুদ্ধপরাধী বইটিতে ফরিদপুর নগরকান্দা উপজেলার দায়িত্বে থাকা পাকি অফিসার মেজর আনসারী, মেজর আকরাম কোরায়শী ও সিপাহী রাশিদ খান (বেলুচ) সম্পর্কে সেই অঞ্চলেরই কিছু সাক্ষীর জবানবন্দীতে পাকি হানাদারদের তান্ডব এবং সেসময় নুলা মুসার প্রত্যক্ষ মদদ সম্পর্কে যায় । ওয়ার ক্রাইমস ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটির তালিকায় ফরিদপুর জেলার প্রধান ১৩ জন রাজাকারের মধ্যে তার নাম আছে শুরুর দিকেই। কিন্তু যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর ঘৃন্য রাজাকার মুসা বিন শমশের ওরফে নুলা মুসা নিজেকে রীতিমতো ‘মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক’ হিসেবে দাবি করে বসে আছে! ‘ওয়ার ক্রাইম ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি’র আহ্বায়ক ডা. এমএ হাসান আওয়ামী লীগে যুদ্ধাপরাধী খোঁজার বিষয়ে বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করবো, দলের মর্যাদা অক্ষুণ্ন ও নিষ্কলুষ করার জন্য নিজেদের উদ্যোগেই জরুরি ভিত্তিতে একটি তদন্ত কমিটি করা উচিত।’ (আমাদের সময়, ২৮ এপ্রিল, ২০১০)
১৯৭১ সালের আগে এই ধনকুবের নুলা মুসা ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামীলীগের পক্ষে মাইকিং করেছিলো । ১৯৭১ সালের অসহযোগ আন্দোলনেও তার ভুমিকা ছিলো বলে কথিত রয়েছে । ২১ শে এপ্রিল যখন ফরিদপুরে পাক সেনারা ঢোকে তখন এই নুলা মুসাই পাক আর্মিদের স্বাগত জানিয়েছিলো । ২২ শে এপ্রিল ১৯৭১ সালে এই আকরাম কোরায়শীর সাথে এক বৈঠকে এই নুলা মুসাকে দেখা যায় । এই ঘটনার প্রতক্ষ্যদর্শী ছিলেন ফরিদপুরের মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম আবু ইউসুফ সিদ্দীক পাখি ।

সূত্রঃ
১. দৈনিক জনকন্ঠে (তুই রাজাকার)
২. দৈনিক মানবজমিন, ২০ ডিসেম্বর ২০১০
৩. ১৯১ পাকিস্তানী যুদ্ধপরাধী(এম এ হাসান)


আদম ব্যবসা থেকে অস্ত্র ব্যবসায়ী : একবার মুসা বিন শমসেরের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। অর্থ পাচার সন্দেহে তার অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়ে সবগুলো তফসিলি ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ বিভাগের যুগ্ম পরিচালক একেএম এহসান স্বাক্ষরিত চিঠিতে ৭ দিনের মধ্যে মুসার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হলেও ব্যাংকগুলো তা দিতে পারেনি।
ব্যাংক সূত্র জানায়, মুসা বিন শমসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট করার সময় ‘গ্রাহক পরিচিতি’র (কেওয়াইসি) স্থানটি অসম্পূর্ণ রেখেছেন। এ দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তিনি অর্থ পাচার করেছেন বলে সন্দেহ করা হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংক তথ্য চাইতে গিয়ে মুসার ঠিকানায় লেখে, ‘প্রিন্স মুসা বিন শমসের। পিতা- শমসের আলী মোল্লা, জেলা ফরিদপুর। ব্যবসায়িক ঠিকানা : বাড়ি নম্বর ৫৭, রোড ১, ব্লক ১, বনানী, ঢাকা-১২১৩’।
সূত্র আরও জানায়, সত্তর দশকের মধ্যভাগে মধ্যপ্রাচ্যে জনশক্তি রফতানির মধ্য দিয়ে মুসার ব্যবসায়িক উত্থান। বিশেষ করে সৌদি আরব ও কাতারে তিনি জনশক্তি রফতানি করেন। শিক্ষিত ও দক্ষ শ্রমিকদের তিনি ইতালি পাঠান।

রহস্য আর রহস্য : গত বছর ১৪ নভেম্বর ব্রিটেনের ‘দ্য উইকলি নিউজ’ ‘গোল্ডফিঙ্গারস্?! ম্যান উইথ দ্য মিডাস টাচ ওন্ট জাস্ট রাইট অফ ফ্রোজেন এসেটস’ শীর্ষক প্রতিবেদন ছাপে। এতে মুসার বর্ণাঢ্য জীবনের অনেকখানি তুলে ধরা হয়। বলা হয়, মুসা যে রোলেক্স ঘড়িটি ব্যবহার করেন তার দাম ৫০ লাখ ডলার। বিশেষ ওই ঘড়ি মাত্র একটিই তৈরি করেছে নির্মাতা কোম্পানি। তার ইউনিক মন্ট বাঙ্ক কলমের দাম ১০ লাখ (সুইস ব্যাংকের তথ্যে এক কোটি) ডলার। অঙ্গসজ্জায় তিনি ব্যবহার করেন ১৬ ক্যারেটের একটি চুনি (বর্বি)- যার দাম ১০ লাখ ডলার। আরও একটি চুনি পরেন ৫০ হাজার ডলারের। এছাড়া পরেন ৫০ হাজার ডলার দামের একটি হীরা ও ১ লাখ ডলার দামের একটি পান্না (এমেরাল্ড)।
মুসার কত সম্পদ : বিশ্বে মুসার পরিচিতি ধনকুবের হিসেবে। কিন্তু কেউ জানে না কত তার ধনসম্পদ। এমনকি তিনি নিজেও সম্পদের হিসাব জানেন না মর্মে প্রচার রয়েছে। মনে করা হয়, তিনি বাংলাদেশের অন্যতম ধনী।
উইকলি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়, মুসা বিন শমসের বিপুল ধনসম্পদের অধিকারী হয়েছেন আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসা, তেল বাণিজ্য ও ব্রোকারির মাধ্যমে। ‘ড্যাটকো’ নামে জনশক্তি রফতানি প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার। আইরিশ ডেইলি মিররে ‘ম্যান উইথ দ্য গোল্ডেন পেন’ শীর্ষক আরেক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুর্ধর্ষ ছয় দেহরক্ষী ছাড়া তিনি চলাফেরা করেন না। অনলাইনে প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, (২০১২ সালের ২৭ জুলাই) মুসা বিন শমসেরের অর্থের পরিমাণ ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।
১৯৯৮ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত ‘সানডে টেলিগ্রাফ’র ১৭ মে সংখ্যায় ‘ম্যান উইথ দ্য গোল্ডেন গানস’ শিরোনামে প্রচ্ছদ কাহিনীতে আলোচনায় আসেন মুসা। টেলিগ্রাফের বিশেষ প্রতিনিধি নাইজেল ফার্নডেল লিখেন, বিশ্বের প্রথম সারির এ অস্ত্র ব্যবসায়ী পাশ্চাত্য সমাজে ‘প্রিন্স অব বাংলাদেশ’ নামে খ্যাত। আন্তর্জাতিক মহলে তিনি ‘প্রিন্স মুসা’ সম্বোধিত হন।
২০১০ সালের ৯ নভেম্বর আইরিশ ‘ডেইলি মিরর’-এ প্রকাশিত তথ্যে উল্লেখ করা হয়, ১৯৯৭ সালে মুসা তার ইউরোপিয়ান সদর দফতর হিসেবে আয়ারল্যান্ডের কালকিনি দুর্গ কিনতে চেয়েছিলেন। মুসা বিন শমসেরের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান বিষয়ে জানতে চাইলে দুদক কমিশনার (তদন্ত) মো. সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, সুইস ব্যাংক তার অর্থ জব্দ করেছে। এ অর্থ তিনি কোথায় পেলেন। এদেশ থেকে পাচার হয়েছে কিনা- এ সন্দেহ থেকেই অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত।  বাংলাঅাওয়ার/আমীন/ঢাকা

  





















Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *