full screen background image
Search
,
  • :
  • :

নারকেলের আইচাকে শিল্পে রূপদান

নারিকেলের ফেলে দেয়া অংশ আইচা দিয়ে বিভিন্ন প্রকার শো-পিস তৈরি করে তাকে শিল্পে রূপ দিয়েছেন বরিশাল নগরীর রূপাতলীর বাসিন্দা আনোয়ার হোসেন মন্টু। তার নিপুণ হাতে তৈরী এসব পণ্য দেশে-বিদেশে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। নগরীতে এখন তিনি ‘আইচা মন্টু’ হিসেবে পরিচিত। ভবিষ্যতে আইচা দিয়ে বিভিন্ন শো-পিস বানানোর একটি প্রশিণ ইনস্টিটিউট গড়ে তুলতে চান মন্টু। তবে এখনো তিনি কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে তাকে দেয়া সেই ৩০ টাকা অনুদানের কথা। সে দিনের সেই ৩০ টাকা না পেলে হয়তো আজকে তার এ পর্যায়ে আসা সম্ভব হতো না। 
এক সময় রঙমিস্ত্রির কাজ করতেন বরিশালের আনোয়ার হোসেন মন্টু। কিন্তু আর্থিক দৈন্যের কারণে বারবার জীবন সংগ্রামে হোঁচট খেতে হয়েছে তাকে। একপর্যায়ে নিজের হাতে গড়া বিভিন্ন শো-পিসসামগ্রী এলাকার লোকজনের মধ্যে বিক্রি শুরু করেন মন্টু। কিন্তু তার এসব পণ্য বরিশালে তেমন চাহিদা না থাকায় তিনি ঢাকায় চলে যান। ১৯৬৯ সালে তার এক আত্মীয় তৎকালীন পাকিস্তান বেতারের ড. দীন মুহাম্মদের বাসায় থেকে শো-পিসের কাজ করতেন মন্টু। দীন মুহাম্মদের বাসার বিপরীত দিকে ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাসভবন। একদিন মন্টু ওই বাড়িতে ঢুকলে তার সাথে দেখা হয় বরিশাল আওয়ামী লীগের নেতা নুরুল ইসলাম মঞ্জুর সাথে। মন্টু তার কাছে আইচা দিয়ে বানানোর পণ্যসামগ্রীর কথা জানান। তার নিজ হাতে বানানো নিপুণ ও বাহারি শো-পিসসামগ্রী দেখে মুগ্ধ হন ওই নেতা। একপর্যায়ে মন্টুকে নিয়ে যান বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের কাছে। 


আইচা দিয়ে বানানো নৌকা, বাংলাদেশের মানচিত্র, টেবিল লাইটসহ বিভিন্ন শো-পিসসামগ্রী দেখে খুবই খুশি হন বঙ্গবন্ধু। তিনি ‘বাংলাদেশের মানচিত্র’ শো-পিসটি তার কাছ থেকে ক্রয় করে রাখেন। এ সময় বঙ্গবন্ধু মন্টুকে জিজ্ঞেস করেন, ‘তুমি কী চাও?’ তখন তিনি তার কাছে এসব শো-পিস তৈরির যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য কিছু টাকা চান। মন্টুর চাহিদানুযায়ী বঙ্গবন্ধু তাকে ৩০ টাকা দেন। ওই টাকা দিয়েই মন্টু শো-পিস তৈরির বিভিন্ন যন্ত্রপাতি কিনে কাজ শুরু করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সক্রিয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন আনোয়ার হোসেন মন্টু। 
দেশ স্বাধীন হলে ১৯৭২ সালে তিনি বরিশালে একটি সংস্থার মাধ্যমে পুনরায় আইচা দিয়ে শো-পিস বানানোর কাজ শুরু করেন। নানা ঘাত-প্রতিঘাত মাড়িয়ে মন্টু চালিয়ে যেতে থাকেন তার শিল্প সাধনার এই কাজ। ১৯৭৬ সালের দিকে বরিশালের এসডিও জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী চেম্বার অব কমার্সের অফিসে মন্টুর আইচার শো-পিস দেখে মুগ্ধ হন। চেম্বার অব কমার্সের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক কাজী ইসরাইল হোসেনকে সাথে নিয়ে একদিন হঠাৎ করে এসডিও জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী হাজির হন মন্টুর বাসায়। তখন মন্টুকে দুই বান টিন ও তিন মণ গম দেয়া হয়। 
অনেক চড়াই-উৎরাই আর ঘাত-প্রতিঘাত মাড়িয়ে বরিশাল নগরীর রূপাতলী এলাকার শেরেবাংলা সড়কে মন্টু তার মায়ের নামে গড়ে তুলেছেন ‘হাসিনা কুটির শিল্প’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এক সময় তিনি একাই এ প্রতিষ্ঠানে কাজ করলেও বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে কাজ করছেন অন্তত ২০ জন কর্মচারী। সম্প্রতি এসব শো-পিসে প্রিন্টিংয়ের ছাপ দেয়ার জন্য ছয় লাখেরও বেশি টাকা দিয়ে একটি অত্যাধুনিক কালার লেজার প্রিন্টার ক্রয় করেছেন আনোয়ার হোসেন মন্টু। প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক কার্যক্রমে তাকে সহযোগিতা করছেন তার ছেলে এম এ রশীদ আরিফ। 
আইচার শো-পিস বানাতে সাধারণত নারিকেলের আইচা থেকে শুরু করে শলা, বাঁশ ও কাঠ কাজে লাগানো হয়। মন্টু জানান, নারিকেলের আইচা নগরীর বিভিন্ন বাসাবাড়ি থেকে সংগ্রহ করা হয়। তবে বেশির ভাগ আইচা সংগ্রহ করা হচ্ছে স্বরূপকাঠী ও বাগেরহাট থেকে। আগে আইচা কেনা হতো মাত্র পাঁচ পয়সা করে। বর্তমানে তা ৫০ পয়সা থেকে শুরু করে আকার ভেদে তিন টাকা পর্যন্ত মূল্য দিতে হচ্ছে। মন্টু তার কুটির শিল্পের কারখানায় আইচা দিয়ে তৈরি করছেন মাকড়সা, শাপলা ফুল, ফুলদানী, মোমদানী, পালের নৌকা, চাবির রিং, দেশের দৃশ্য, বিভিন্ন ধরনের পাখি, হাতি ও ফুলের ঝাড়সহ প্রায় ২০ ধরনের শো-পিস ও গিফটসামগ্রী। তার এসব শো-পিসের মূল্য তিন টাকা থেকে শুরু করে ৫০০ টাকা পর্যন্ত। বরিশালের বাইরে মন্টু প্রথম পণ্য বিক্রি করেন ঢাকার চন্দন নামে একটি দোকানে। ওই দোকানের মালামাল দেখে ঢাকার প্যারিস সু হ্যান্ডিক্রাফট, বাংলাদেশ এজেন্সি এবং সিলেটের চন্দ্রিমা মার্কেটের বিসমিল্লাহ হ্যান্ডিক্রাফট ও কারুশিল্প তার কাছ থেকে মাল নেয়া শুরু করে। ১৯৮২ সাল থেকে প্রতিমাসে ঢাকার আড়ং মন্টুর কাছ থেকে শো-পিস ক্রয় করছে। এ ছাড়া নগরীর নামী-দামি দোকান থেকে শুরু করে দেশের কোথাও মেলা অনুষ্ঠিত হলে সেখান থেকেও তার কাছে পণ্য নেয়ার জন্য ব্যবসায়ীরা আসছেন। বিদেশেও রফতানি করেছেন অনেক প্রোডাক্ট।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *