full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

প্রেমের ভারে ব্রিজে ধস


জার্মানির কোলন, অস্ট্রিয়ার সালৎসবুর্গ অথবা ফ্রান্সের প্যারিস – এ সব শহরে নদীর উপর যে বড় বড় ব্রিজ আছে, তার দিকে একটু নজর দিলেই দেখবেন অসংখ্য তালা চোখে পড়ছে৷ এগুলোকে বলে ‘প্যাডলক’৷ সহজ করে বললে ‘প্রেম তালা’৷

এই তালার উদ্দেশ্য হলো সম্পর্কের অটুট বন্ধন৷ প্রেমিক বা প্রেমিকা তাঁর সঙ্গীর সঙ্গে নিজের নামটা লিখে ঐ তালা ব্রিজে আটকে চাবিটা নদীতে ফেলে দেন৷ তাঁদের বিশ্বাস, এর ফলে সম্পর্ক ঐ তালার মতো দীর্ঘ সময় জোড়া লেগে থাকবে৷ প্যারিসকে বলা হয় প্রেমের নগরী৷ তাই স্বাভাবিকভাবেই সেখানে প্রেমিক-প্রেমিকাদের বিচরণ চোখে পড়ার মতো৷ এ কারণে ব্রিজে তালার সংখ্যাটাও তুলনামূলকভাবে অন্যান্য শহরের চেয়ে বেশি৷

জার্মানির সবচেয়ে প্রাচীন এই সেতুটি ট্রিয়ার শহরে মোজেল নদীর উপর অবস্থিত৷ শুরুতে এটা কাঠের তৈরি ছিল৷ এরপর রোমানরা সেটাতে পাথর আর শিলার ব্যবহার করে৷ ছবিতে যে পাথরের পিলারগুলো দেখা যাচ্ছে সেগুলো প্রায় ১,৯০০ বছর আগের! আর উপরের অংশটায় প্রথম সংস্কার করা হয় আটশো বছর আগে আর দ্বিতীয়বার প্রায় দুশো বছর আগে৷

গত জুন মাসে সেখানকার একটি ব্রিজ নাকি এ সমস্ত তালার ভারে ধসে পড়েছে৷ হেলে পড়েছে একপাশের রেলিং৷ তাই তাৎক্ষণিকভাবে পর্যটকদের জরুরিভিত্তিতে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে সেই ব্রিজের আশপাশ থেকে৷

তাই কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয়ে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা করছেন৷ পর্যটক যুগলদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে যাতে তাঁরা হুজুগে মেতে আর তালা না লাগান৷ গত সোমবার প্যারিসের সিটি হলে কর্তৃপক্ষ এ নিয়ে একটি আবেদন জানিয়েছেন৷ শুধু তাই নয়, বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও শুরু হয়েছে প্রচার৷ হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে #lovewithoutlocks লিখে তা পোস্ট করা শুরু হয়েছে ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদি মাধ্যমে৷

এই প্রচারের মাধ্যমে পর্যটকদের তাঁরা বোঝানোর চেষ্টা করছেন যে, এভাবে একটি করে তালা লাগানোর ফলাফলটা কতটা ভয়াবহ৷ এর পেছনে একটি সার্বিয়ান কাহিনি আছে৷ এক নববধূ তাঁর বিয়ের দিন এক ব্রিজে গিয়ে তালা লাগিয়ে দেন৷ কেননা বিয়ের আগে ঐ ব্রিজের ওপরই প্রেমিকের সাথে প্রতিদিন দেখা করতেন তিনি৷ এরপর থেকে এর প্রচলন শুরু হয়৷ যদিও ইটালির লেখক ফেডেরিকো মচা এই প্রচলন তাঁর লেখা উপন্যাস থেকে হয়েছে বলে দাবি করেছেন৷ বইটির নাম ‘আই ওয়ান্ট ইউ'৷ সেখানে এমন একটি দৃশ্য আছে বলে জানিয়েছেন তিনি৷
সূত্র: ডয়চে ভেলে
ঢাকা/ ১৩.০৮.২০১৪






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *