full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

থাকার জায়গা ছিল না, তারপরও বাড়িটি জাদুঘরের জন্য দিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী

আজকে আমি মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের উদ্বোধনে এসেছি। আমরা দুটি বোন ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িটি পেয়েছিলাম। কিন্তু অন্য কোনো সম্পত্তি না থাকলেও আমরা কোনো দিন ভাবিনি যে বাড়িটি আমরা ব্যবহার করবো। কারণ, এই বাড়ি থেকেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঐতিহাসিক ৬ দফা দিয়েছেন। এই বাড়ি থেকেই অসহযোগ আন্দোলনের নির্দেশনা যেতো। এই বাড়ি থেকেই জাতির পিতা স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ঘোষণা দিলে তৎকালীন ইপিআর’র ওয়্যারলেসের মাধ্যমে দেশবাসীর নিকট ঘোষণা প্রচার করা হয়। বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন টেলিগ্রাম এবং টেলিপ্রিন্টারের মাধ্যমে সেই ঘোষণা আগেই বিভিন্ন জেলায় জেলায় পাঠিয়ে দেন যে, দেশ আক্রান্ত হলেই যেন এই ঘোষণা প্রচার করা হয়।

তিনি পাকিস্তানের কারাগার থেকে ফিরে এসে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ও পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে এই ছোট বাড়িটাতেই ছিলেন। আর এই বাড়িতেই তিনি জীবন দিয়ে গেছেন। সেই বাড়ি আমরা ব্যবহার করবো আমাদের সেই ধরনের আকাঙ্খা বা লোভ কোনটাই ছিল না।

তিনি বলেন, এই বাড়িকে ঘিরে সবসময় আমাদের একটা চিন্তা ছিল যে, এমন একটা কিছু করবো যা ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে থাকবে। বাংলাদেশে আর কোনো নেতার ছেলে-মেয়ে তাঁদের সম্পত্তি কিন্তু দেয়নি। সবাই ভোগ দখল করেছে। কেউ সেখানে মাল্টি স্টোরিড বিল্ডিং করেছে বা ব্যবসা-বাণিজ্যের কাজে লাগিয়েছে। একমাত্র আমরা দুই বোন, আমাদের আর কোনো জায়গা ছিল না। থাকার মত জায়গাও ছিল না, তারপরও বাড়িটি জাদুঘরের জন্য দিয়ে দিয়েছি।

রবিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের নবনির্মিত বহুতল ভবন উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশপ্রেমিক এবং ভালো নৈতিক চরিত্রের অধিকারী হিসেবে গড়ে ওঠার জন্যই ভবিষ্যত প্রজন্মকে দেশের ইতিহাস জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হওয়ার জন্যই তাদের ইতিহাস জানতে হবে।

তিনি বলেন, প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে যেন জানতে পারে যে কত মহান ত্যাগের বিনিময়ে আমরা এই স্বাধীনতা অর্জন করেছি। সেই স্মৃতিচিহ্নগুলো তারা দেখবে। সেই স্মৃতিগুলি তারা উপলদ্ধি করবে। অন্তরে ধারণ করবে এবং সেভাবেই নিজেদের চরিত্রকে গঠন করবে, দেশপ্রেমে তারা উদ্বুদ্ধ হবে।

তিনি বলেন ’৮১ সালে দেশে ফেরার পর কোনো বাড়ি ভাড়াও পেতেন না উল্লেখ করে বলেন, যখনই শুনতো, বাড়ি ভাড়া করতে যেতাম। কেউ বাড়িভাড়া দিত না। একরাত ছোট ফুপুর বাড়িতে একদিন মেঝো ফুপুর বাড়িতে এইভাবে আমাকে থাকতে হতো। তারপরেও আমাদের সিদ্ধান্ত ছিল আমরা এটাকে স্মৃতি জাদুঘর করবো এবং আমরা সেটা করেছি। এটাকে যখন স্মৃতি জাদুঘরে রূপান্তর করি তখন প্রফেসর সালাউদ্দিন আহমেদ, গাজিউল হক, বিচারপতি প্রয়াত কে এম সোবহানসহ, রবিউল হোসাইন, অধ্যাপক মুনতাসির মামুন- আরো অনেককে নিয়ে আমরা একটা কমিটি করি এবং জাদুঘর করার সমস্ত ব্যবস্থা নেই এবং তখনই মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর করার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করি। কারণ ৩২ নম্বরের বাড়িটি ছোট, সেখানে কতটুকুই বা মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ধারণ করতে পারবো। তখনই একটি মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর করার প্রস্তাবটা আমিই করেছিলাম। যাতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস অন্তত মানুষ জানতে পারে।

সেই সময়ে তিনি নানা প্রতিবন্ধকতারও শিকার হন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের পর প্রবাসে তিনি নির্বাসিত জীবন কাটাতে বাধ্য হন। কারণ দেশে ফিরতে দেয়া হয়নি। তারপর যখন দেশের ফিরলেন তখন তাঁকে এই ধামন্ডির বাড়িতে ঢুকতে দেয়া হয়নি। তিনি রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে ফাতেহা পাঠ করেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *