full screen background image
Search
,
  • :
  • :

ভুয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধে ফেসবুকের অভিযান

গত শনিবার এক বিবৃতিতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানায়, ভুয়া অ্যাকাউন্ট ঠেকানোর কার্যকর উপায় হিসেবে উন্নত ব্যবস্থা হিসেবে ‘স্প্যাম অপারেশন’ কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরবসহ অন্য কয়েকটি দেশ থেকে আসা ভুয়া লাইক ও মন্তব্য ঠেকাতে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ফেসবুক দাবি করেছে, তারা অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত বিশাল একটি গ্রুপকে শনাক্ত করেছে এবং তাদের মাধ্যমে প্রচারিত ভুয়া লাইক সরিয়ে ফেলেছে। ভুয়া অ্যাকাউন্ট সরানোয় যেসব পেজে ১০ হাজারের বেশি লাইক আছে, তাতে ৩ শতাংশ লাইক কমবে।

ভুয়া অ্যাকাউন্টের সংখ্যা কমায় অনেক ফেসবুক পেজে লাইক কমে যাওয়ার বিষয়টি ই-কমার্স ব্যবসায়ীরাও স্বীকার করেছেন। ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ইক্যাব) সভাপতি রাজীব আহমেদ বলেন, ফেসবুক ভুয়া আর অকার্যকর আইডি বন্ধ করছে, এটি অনেক ভালো একটি উদ্যোগ। এতে লাইক কমে গেলেও তা নিয়ে হতাশ হওয়া উচিত নয়। কারণ, ওই লাইক দিয়ে কখনোই ভালো কিছু হতো না।

বাংলাদেশে গত দুই দিনে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে অনেক ভুয়া অ্যাকাউন্ট বা পেজ বন্ধ হয়ে গেছে। তবে ভুয়া অ্যাকাউন্টের সঙ্গে অনেক প্রকৃত অ্যাকাউন্টও বন্ধ হয়ে গেছে বলে অনেক ব্যবহারকারী অভিযোগ করেছেন। ভুয়া বা ফেক অনেক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হলেও প্রকৃত ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট কেন বন্ধ হচ্ছে, তাঁর কোনো সুস্পষ্ট উত্তর সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো দিতে পারেনি।

জানতে চাইলে তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি মোস্তাফা জব্বার বলেন, ফেসবুকের এ উদ্যোগ খুবই প্রশংসনীয়। দেরিতে হলেও ফেসবুক স্বীকার করেছে ভার্চ্যুয়াল দুনিয়ায় মানুষের পরিচিতি নিশ্চিত না করে কোনো কাজ করতে দেওয়া উচিত নয়। ভুয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে গিয়ে দু-একজন ভুলের শিকার হতেই পারে, এটাকে বড় করে দেখা ঠিক হবে না।

এদিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম সচিবালয়ে গতকাল রোববার গণমাধ্যমকে জানান, বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে সাড়া দিয়েই ভুয়া পেজ ও অ্যাকাউন্টের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে ফেসবুক। তবে এ সময়ে কী পরিমাণ ভুয়া অ্যাকাউন্ট বাংলাদেশে বন্ধ করা হয়েছে, তার কোনো হিসাব সরকারের কাছে নেই। সচিবালয়ে ১০ এপ্রিল এক সংবাদ সম্মেলনে ভুয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সরকারের একটি সমঝোতা হওয়ার তথ্য জানান তারানা হালিম। গত ৩০ মার্চ সিঙ্গাপুরে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেন তারানা হালিম।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন, প্রকৃত ফেসবুক ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে গেলে সেটি খোলার বিষয়ে বিটিআরসি উদ্যোগ নেবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *