full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

কাতালোনিয়ায় গণভোটে বাধা, সংঘর্ষে আহত তিন শতাধিক

স্পেনে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার প্রশ্নে আজ রোববার গণভোটের সময় ভোটে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩৩৭ জন আহত হয়েছেন। স্পেন সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী পুলিশ ওই গণভোটে বাধা দেয়।

বিবিসির খবরে বলা হয়, স্পেনের সাংবিধানিক আদালত ওই গণভোটের আয়োজনকে অবৈধ ঘোষণা করেন। সেই রায় অনুযায়ী পুলিশ জনগণকে ভোট দেওয়া থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করছে। পুলিশ নির্বাচনী কেন্দ্রগুলো থেকে ব্যালট পেপার ও বাক্স জব্দ করেছে।

আঞ্চলিক রাজধানী বার্সেলোনায় গণভোটের সমর্থকদের প্রতিবাদ কর্মসূচিতে পুলিশ রাবার বুলেট ছোড়ে ও লাঠিপেটা করে। কাতালান আঞ্চলিক সরকারের মুখপাত্র ও আঞ্চলিক স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, গণভোটকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ৩৩৭ জন আহত হয়েছেন।

অন্যদিকে স্পেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সংঘর্ষে পুলিশের ১১ জন সদস্য আহত হয়েছেন। স্পেনের উপপ্রধানমন্ত্রী সুরায়া শায়েজ ডি সান্তামারিয়া এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, পুলিশ ‘পেশাদারির সঙ্গে কাজ করেছে’।

কাতালান নেতা কার্লস পোয়েগডেমন সহিংসতার জন্য জাতীয় পুলিশ ও আইনপ্রয়োগকারী আরেক সংস্থা গুয়ার্দিয়া সিভিলের নিন্দা জানিয়েছেন। ভোট ঠেকাতে ওই দুই বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্যকে কাতালোনিয়ায় পাঠানো হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। কাতালান ওই নেতা সাংবাদিকদের বলেন, ‘সহিংসতার মাধ্যমে স্পেন সরকার কাতালোনিয়ার জনগণের ইচ্ছাকে দমিয়ে রাখতে পারবে না।’ স্পেনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সহিংসতার জন্য কাতালান নেতা কার্লস পোয়েগডেমনকে দায়ী করেছেন।

গতকাল এক সমাবেশে পোয়েগডেমন বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন, এই গণভোট হবে একটি সার্বভৌম রাষ্ট্রের পথে প্রথম পদক্ষেপ। কাতালোনিয়াবাসী সে পথেই এগোবে। 
স্পেনের বিত্তশালী অঞ্চল কাতালোনিয়া। জনসংখ্যা ৭৫ লাখ। এর রাজধানী বার্সেলোনা। অঞ্চলটির নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি রয়েছে। পাঁচ বছর ধরেই স্বাধীনতার কথা উঠছে। তবে ২০১৫ সালে কাতালোনিয়া প্রাদেশিক পার্লামেন্ট নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় সেখানকার স্বাধীনতাকামীরা। নির্বাচনের ওই ফলের মধ্য দিয়ে স্পেন থেকে পৃথক হয়ে নতুন রাষ্ট্র গঠনের পথে এক ধাপ এগিয়ে যায় কাতালোনিয়া। গত জুনে কাতালোনিয়া কর্তৃপক্ষ ১ অক্টোবর গণভোট আয়োজনের ঘোষণা দেয়। স্পেন সরকার এ ধরনের গণভোটকে বেআইনি বলে আখ্যা দিয়ে আসছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *