full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

পাট থেকে পলিথিন :উন্মোচিত হতে পারে নতুন শিল্প সম্ভাবনার দুয়ার

পাটের হাত ধরেই চিরতরে বিদায় নিতে পারে পরিবেশ ধ্বংসকারী পলিথিন। সম্প্রতি পাট থেকে পলিথিন উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশেরই খ্যাতিমান বিজ্ঞানী ড. মোবারক আহমদ খান। এ যুগান্তকারী উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে বদলে যাবে সোনালী আঁশের ভবিষ্যৎ। তার উদ্ভাবিত এ পলিথিন দিয়ে বানানো ব্যাগের নাম দেয়া হয়েছে ‘সোনালি ব্যাগ’।

 

ড. মোবারক বলেন, তার উদ্ভাবিত এ পলিথিন ধ্বংসের মুখে পড়া পাটশিল্পের হারানো গৌরব ফিরিয়ে দিতে পারে। পাতলা, মসৃণ আর মজবুত এ পলিমার ব্যাগটির সোনালী ব্যাগ নাম দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, অত্যন্ত সহজলভ্য উপকরণ থেকে সাধারণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি এ পলিথিন বিদেশেও বিশেষজ্ঞদের নজর কেড়েছে। এরই মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, জাপান, আরব আমিরাতসহ কয়েকটি দেশ এ সোনালী ব্যাগ ক্রয়ে আগ্রহ দেখিয়েছে। তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে দৈনিক তিন টন। সরকারিভাবে এ পলিথিন উৎপাদন হলেও বাণিজ্যিকভাবে এর বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। পাটকলগুলোতে সাধারণ উপকরণ থেকেই এ পলিথিন উৎপাদন সম্ভব। এ ছাড়া উৎপাদন ব্যয় কম হওয়ায় যে কেউই ক্ষুদ্র পরিসরে এ কারখানা স্থাপন করতে পারবেন। এ জন্য সরকারি সহযোগিতাও পাওয়া যাচ্ছে।


অনুসন্ধানে জানা গেছে, স্বল্প পরিসরে সোনালি ব্যাগ উৎপাদন হওয়ায় এর বিপণন এখনো সীমিত। প্রতিটি পলি শপিং ব্যাগের দাম পড়ছে তিন থেকে চার টাকা। কিন্তু অধিক পরিমাণে এর উৎপাদন করা গেলে মাত্র ৫০ পয়সায় একটি উন্নতমানের শপিং ব্যাগ বাজারজাত সম্ভব বলে মনে করছেন পাট গবেষণা ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তারা। তবে এ জন্য বেসরকারি বিনিয়োগ প্রয়োজন বলে তারা জানান। তারা বলেন, দেশের পাট শিল্প ও পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে পাটের পলিথিন উৎপাদন ও ব্যবহার দরকার। ড. মোবারক বলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশন প্রতি বছর যে বিশাল অঙ্কের টাকা জলাবদ্ধতা নিরসন ও পয়ঃনিষ্কাশনে ব্যয় করে তার অর্ধেক টাকা দিয়ে সোনালি ব্যাগ উৎপাদনের প্রকল্প নিলে সারা জীবনের জন্য এ সঙ্কটের হাত থেকে বেঁচে যাবে নগরবাসী। পচনশীল হওয়ায় ও ক্ষতিকর কোনো কেমিক্যাল এতে ব্যবহার না হওয়ায় মাটিতে মিশে জমির উর্বরতা বৃদ্ধি এবং একই সাথে খাদ্যসামগ্রী বহন ও মোড়ক হিসেবেও এর নিশ্চিন্তে ব্যবহার সম্ভব।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *