full screen background image
Search
,
  • :
  • :

ব্যাটসম্যানদের সামনে কঠিন পরীক্ষা

বৃষ্টিতে পচেফস্ট্রুম টেস্টে চতুর্থ দিনের খেলা বন্ধ হয়ে গেছে। চা বিরতির পর আর বল মাঠেই গড়ায় নি। প্রথম ওভারে দুই উইকেটের পর ইমরুল কায়েস(৩২) আউট হয়েছেন কেশব মহারাজের বলে। বাংলাদেশের স্কোর ৩ উইকেটে ৪৯। জিততে হলে করতে হবে আরো ৩৭৫ রান।

 

পঞ্চম দিন সকালে আবার ব্যাট হাতে নামবে বাংলাদেশ। ম্যাচ বাঁচাতে হলে ব্যাটিং করতে হবে পুরো ৩টি সেশন। টেস্টের হিসেবে যা খুবই কঠিন একটি কাজ, অসম্ভব বললেও ভুল হবে না।

 

 

৭ উইকেট নিয়ে পুরো একটি দিন ব্যাটিং করা দুরূহ কাজ, তার ওপর পঞ্চম দিন উইকেটও কথা বলবে বোলারদের হয়ে। তাই বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচ বাঁচানো যে কতটা কঠিন তা টেস্ট ম্যাচের দর্শক মাত্রই বুঝতে পারছেন। জয়ের আশা ইতিমধ্যেই শেষ হয়ে গেছে, টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ড্রর স্বপ্ন দেখাও কঠিন হয়ে উঠেছে।

 

সে জন্য চরম ধৈর্যের পরীক্ষা দিতে হবে টাইগার ব্যাটিং লাইনআপকে। ম্যাচ বাচাতে হলে ক্রিজ আকড়ে পড়ে থাকা ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই। গড়তে হবে একাধিক বড় পার্টনারশিপ।

 

শুরুতেই বিপদে বাংলাদেশ
বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে কোন রান তোলার আগেই বিদায় নিয়েছেন দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য দুই ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ও মুমিনুল হক। ইনিংসের প্রথম ওভারেই এই দুই ব্যাটসম্যানকে তুলে নিয়েছেন প্রোটিয়া পেসার মরনে মরকেল। এরপর মুশফিকুর রহীম ক্রিজে এসে ইমরুল কায়েসের সাথে জুটি বেধেছেন।

এর আগে মধ্যাহ্ন বিরতির পরপরই ইনিংস ঘোষণা করে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৬ উইকেটে ২৪৭ করে ডু প্লেসির দল যখন ইনিংস ঘোষণা করে টাইগারদের সামনে ততক্ষণে ৪২৪ রানের টার্গেট দাড়িয়েছে। চতুর্থ ইনিংসে এই রান তাড়া করে রেকর্ড টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে নেই। ম্যাচ ড্র করতে হলেও বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের খেলতে হবে আজকের অন্তত ৫০ ওভার ও আগামী কালকের পুরো তিনটি সেশন(অন্তত ৯০ ওভার)। আপাত দৃষ্টিতে যা অসম্ভব।

 

দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ইনিংসে সর্বোচ্চ ৮১ রান করেন অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি। টাইগারদের পক্ষে মমিনুল হক ৩টি ও মোস্তাফিজুর রহমান ২টি উইকেট নিয়েছেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *