full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর জাতিগত নিধন বিশ্বের সবচেয়ে জঘন্যতম বর্বরতা-রানি রানিয়া

আজ উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন জর্ডানের রানি রানিয়া আল আব্দুল্লাহ। এসময় রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ ও লোমহর্ষক নির্যাতনের কথা শুনে রানি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ে। তিনি ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্মম নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানান। পাশাপাশি নিরীহ রোহিঙ্গাদের আশ্রয়, খাদ্য ও স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে বাংলাদেশ সরকার যে মানবিকতার পরিচয় দেখিয়েছে তারও ভূয়সী প্রশংসা করেন রানি রানিয়া। তিনি বলেন, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যেটা হয়েছে, সেটা জাতিগত নিধনের বহিঃপ্রকাশ। বিশ্ব সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।

আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে জর্ডানের রানি কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছলে সরকারি, বেসরকারি ও এনজিও সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে স্বাগত জানান। হাজার হাজার রোহিঙ্গা নর-নারী ও শিশু তাকে এক নজর দেখার জন্য রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভিড় জমান। এসময় তিনি রোহিঙ্গাদের হাত নেড়ে সৌহার্দ্যপূর্ণ আন্তরিকতা প্রকাশ করেন। পরে রোহিঙ্গা শিশুদের জন্য গড়ে তোলা জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআরের স্কুল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গা শিশুদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেন, খোঁজখবর নেন। পরে রানি রানিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে চলমান ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। রানি রানিয়া প্রায় ঘণ্টাব্যাপী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থান করেন।

ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে এক ব্রিফিংয়ে রানি রানিয়া আল আব্দুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর চলা হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ, জ্বালাও পোড়াও, লুটপাট ও নির্যাতনের বর্ণনা রোহিঙ্গাদের কাছে থেকে শুনেছেন। রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর জাতিগত নিধন বিশ্বের সবচেয়ে জঘন্যতম বর্বরতা। জর্ডান সরকার মিয়ানমারের এমন হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা জানায়।

রানি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে, তাদের পাশে দাঁড়িয়ে যে মানবিকার পরিচয় দিয়েছে তা রোহিঙ্গারা কোন দিন ভুলতে পারবে না। রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ যে ত্যাগ স্বীকার করেছে, তার জন্য বাংলাদেশকে জর্ডানের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ।’

রোহিঙ্গা ইস্যুতে জর্ডান ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করবে বলে রানি রানিয়া আল আব্দুল্লাহ আশ্বস্ত করেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *