full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

ঘিরে রাখা বাড়িটিতে অভিযান শেষ-অস্ত্র-গুলি এবং বিপুল বিস্ফোরক উদ্ধারের দাবি পুলিশের

ফের 'উগ্র্রবাদী আস্তানার' সন্ধান পাওয়ার দাবি পুলিশের। সোমবার রাতে যশোর শহরতলীর পাগলাদহে ঘিরে রাখা বাড়িটিতে অভিযান শেষ করার ঘোষণা দিয়েছে পুলিশ। বাড়িটি থেকে অস্ত্র-গুলি এবং বিপুল বিস্ফোরক উদ্ধারের দাবি করছে পুলিশ। রাত দশটায় পুলিশ সুপার উপস্থিত সংবাদকর্মীদের এই তথ্য দেন। সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে উগ্রবাদী আস্তানা হিসেবে শহরতলীর পাগলাদহ এলাকার বাড়িটি ঘিরে রাখে পুলিশ।

বাড়িটির মালিক মোজাফফরকে আটক করার কথা নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান বলেন, 'তাকে নিয়ে বাড়িটিতে ঢোকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সেখান থেকে একটি পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি, তিনটি ম্যাগজিন, ৫০ডঁ গ্রেনেডের বডি, বিপুল পরিমাণ জেল, তিনটি চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।'
'মোজাফফর নব্য জেএমবির আঞ্চলিক সংগঠক। তার বাড়িতে নিয়মিত উগ্রবাদীদের বৈঠক হতো। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে মোজাফফরকে যশোর শহর থেকে আটক করা হয়। তাকে নিয়ে বাড়িটিতে ঢুকে উল্লিখিত অস্ত্র-গোলাবারুদ উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী,' ব্রিফিংয়ে বলছিলেন এসপি।
এর আগে সন্ধ্যারাতে যশোর শহরতলীর পাগলাদহ এলাকার একটি বাড়ি ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য। বাড়িটি যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম) কলেজের পুরনো ছাত্রাবাস মসজিদের ইমাম মোজাফফরের। স্ত্রী ও দুই মেয়েকে নিয়ে তিনি বাড়িটিতে বসবাস করতেন। তার বড় মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট দুই মেয়ে স্কুলে পড়ে। স্ত্রী বাড়িতে দর্জির কাজ করেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মীরা বলছেন, রাত সাড়ে নয়টার দিকে মোজাফফরকে নিয়ে পুলিশের একটি টিম ঘিরে রাখা বাড়িটিতে ঢোকে। রাত দশটার দিকে তাকে নিয়ে পুলিশ টিম বেরিয়ে যায়। 
আর বাড়ি ঘিরে রাখার খবর পেয়ে আশপাশের বিপুলসংখ্যক মানুষ সেখানে জড়ো হয়।
মোজাফফরের প্রতিবেশী সাইদুর রহমান জানান, বাড়িটির মালিক মোজাফফার হোমেস টিনসেডের তিনটি কক্ষের বাড়িতে স্ত্রী ও তিন মেয়ে নিয়ে প্রায় ১৪ বছর ধরে থাকেন। বাড়িতে কোনো ভাড়াটিয়া নেই। মোজাফফর এমএম কলেজ পুরাতন ছাত্রাবাস মসজিদে ৭-৮ বছর ধরে ইমামতি করেন। তার স্ত্রী রাজিয়া বেগম বাড়িতে বসেই দর্জির কাজ করেন। বড় মেয়ে হাবিবা (১৮) বিয়ের পর ম্বামীর বাড়িতে থাকেন। স্ত্রী ও অপর দুই মেয়ে ফারজানা (১৪) ও নাইমাকে (১২) নিয়ে এই বাড়িতে অবস্থান করছেন।
প্রতিবেশীরা জানান, তাদের উগ্রবাদী কার্যক্রম বা সন্দেহজনক কোনো আচরণের তথ্য তাদের জানা ছিল না। এর আগে গত ৯ অক্টোবর যশোর শহরের ঘোপ এলাকার একটি বাড়িতে (উ্রগ্রবাদী আস্তানা) অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানের প্রায় ১৭ ঘন্টা পর তিন শিশু সন্তানসহ আত্মসমর্পণ করেন ঢাকার হলি আর্টিজান হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী বন্ধুকযুদ্ধে নিহত ‘উগ্রাদী নেতা’মারজানের বোন খাদিজা আক্তার।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *