full screen background image
Search
,
  • :
  • :

ভাবনায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

দরজার সামনে কড়া নাড়ছে আসন্ন ’একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন’। ২০১৮ ডিসেম্বর ৩০, কি ভাবছে ১৭ কোটি মানুষ, ১০ কোটি ভোটার ? নতুন এক চ্যালেন্জের মুখে নির্বাচন কমিশন। স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন জনগনকে উপহার দিতে না পারলে জনগনের কাঠগড়ায় দাড়াতে হতে পারে নির্বাচন কমিশন।

বাংলাদেশে এ যাবৎকালে প্রথম হতে যাচ্ছে এমন এক নির্বাচন।দলীয় সংসদ চলমান অবস্থায় এর আগে কখনো নির্বাচন হয় নি।এ নিয়ে বিরোধী দলের নানা অভিযোগ থাকলেও অবশেষে নির্বাচনে অংশগ্রহন করতে যাচ্ছে বিএনপি।যদিও বিএনপি দাবি করেছিল সংসদ ভেঙ্গে দেয়া, সরকার ও মন্ত্রীসভার সদস্যদের পদত্যাগ করে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করতে।এমন প্রশ্নের উত্তরে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,আমি পদত্যাগ করে ক্ষমতা কাকে দিবো ? আবার ওয়ান এলেভেনের মত পরিবেশ তৈরি হোক তা আমরা চাইনা।তাছাড়া দেশের যে উন্নয়ন তা ধারাবহিকভাবে চলমান না রাখলে উন্নয়নে বাধাগ্রস্থ হবে।আমরা কথা দিচ্ছি একটা সুন্দর ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিব।

এমন আশ্বাসে বিএনপি,যুক্তফ্রন্ট,নাগরিক ঐ্ক্য ও গণফোরাম নির্বাচনে অংশগ্রহন করতে প্রস্তুতি নেয়।নতুন করে গঠন করা হয় একটি জোট,নাম তার ঐক্যফ্রন্ট।যদিও এ ফ্রন্টে নানা টালমাটাল আর হিসাব নিকাশ শেষে যুক্তফ্রন্ট এ জোট থেকে সরে যায়।বিএনপি ২০ দলীয় জোট, সেহেতু ঐক্যফ্রন্টের সাথে কি জোটের অন্যান্য সদস্যরা রয়েছেন কিনা এমন প্রশ্ন করা হলে,মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন,ঐক্যফ্রন্টের সাথে শুধু বিএনপির জোট রয়েছে তবে জোটের কেউ ঐক্যফ্রন্টের সাথে আসতে চাইলে সেটা ভিন্ন ব্যাপার।এদিকে জামায়াত ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় জামায়াত কি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে যাবে কিনা তা এখনো পরিস্কার করেনি জামায়াত নেতৃবৃন্দ।

নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করার জন্য ঐক্যফ্রন্ট দাবি করে আসছে এখন পর্যন্ত।নেতাদের গুম,হত্যা ও মামলা দিয়ে অহেতুক হয়রানি বন্ধ করা এবং তফসিল ঘোষনার পরেও যেসব নেতা কর্র্মীদের নামে মামলা দেয়া হয়েছে তার একটি কপি ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে জমা দিয়েছে বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।নির্বাচন কমিশন এ অভিযোগ আমলে নিয়ে পুলিশ সদস্যদের নির্দেশনা দেয় যাতে অহেতুক কোন দলেন নেতা কর্মীদের হয়রানি না করে।  তবে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এসব মামলা তফসিল ঘোষনার আগে করা।যেহেতু বিভিন্ন মামলায় তারা আসামী তাদের বিরুদ্ধে যা করার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী করবে এখানে সরকারের কিছু করার এখতিয়ার নেই।

এমন পরিস্থিতে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের পথে।অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যে কতটুকু সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব এ নিয়ে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম শাখাওয়াত হোসেন বলেন,লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলতে যা বুঝায় তা এখনো তৈরি হয় নি।নির্বাচন কমিশন কতটুকু স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ ভুমিকা রাখতে পারবে তা দেখার বিষয়।

প্রধানমন্ত্রী আশ্বস্ত করেছেন যে ্একটা সুন্দর নির্বাচন উপহার দিবেন।এমন আশ্বাসে আশ্বস্ত হয়ে কেউ নির্বানী প্রচারনা শুরু করেছেন যদিও নির্বাচনী প্রচারনা শুরু হবে ডিসেম্বরের ১২ তারিখের পর থেকে অথ্যৎ নির্বাচনের ২১ দিন আগ থেকে।কিন্তু বিশ দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্ট অভিযোগ করে বলছে সরকার ও পুলিশ প্রশাসন নির্বাচনী কর্যক্রমে প্রভাব বিস্তার করছে।এমন অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে জনতার আদালতের কাঠগড়ায় কোন দল দাড়াবে তা দেখতে অপেক্ষা করতে হবে ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা পর্যন্ত।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *