full screen background image
Search
,
  • :
  • :

পেক্ষাপট ’নির্বাচন ও গণতন্ত্র’

সংখ্যাগরিষ্ঠতার মাধ্যমে নির্বাচিত সরকার ব্যবস্থা হল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রকিন্তু দুঃখের বিষয় হল গণতন্ত্রের এই সংঙ্গা শুধু বই খাতা কিংবা লাইব্রেরীতে সীমাবদ্ধএকটা পরাধীন শাষকগোষ্ঠি থেকে নিজেদের বাক স্বাধীনতা রক্ষার জন্য প্রথম  ৫২ ভাষা আন্দোলনে প্রাণ দেয় সালাম,বরকত,রফিক,জব্বারসহ অনেকেগনতন্ত্রের মূল স্লোগান শুরু হয় মূলত তখন থেকেই

তারই ধারাবাহিকতায় আসে ১৯৭১ স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রে নিজের অধিকার গণতান্ত্রিক পদ্ধতি প্রতিষ্ঠায় অকাতরে জীবন দেয় ৩০ লক্ষ তাজা প্রাণ।কিন্তু দুংখের বিষয়, দেশ স্বাধীন হয়েছে সত্য।স্বাধীন সার্বভৌম এক ভুখন্ডও পেয়েছে,যার নাম বাংলাদেশ।যে গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত সেই দেশে গনতন্ত্র হোচট খেয়েছে বার বার

স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশের গনতন্ত্রের যে চর্চা তা মূল গনতন্ত্রের সংঙ্গার সাথে বৈরি সম্পর্ক বিরাজ করে।গনতন্ত্রের জনক এরিষ্টেটল বেচেঁ থাকলে হয়তো বাংলাদেশের মত গনতান্ত্রিক দেশসমুহকে গনতান্ত্রিক রাষ্ট্র পরিচয়ে পরিচয় না দিতে পরামর্শ  দিতেন।গনতন্ত্রের সংঙ্গা দিতে আব্রাহাম লিংকন বলেছিলেন,জনগণের দ্বারা গঠিত, জনগণের জন্য এবং জনগণের সরকার’ (government by the people, for the people, of the people) এই লাইনটি যদি হয় গণতন্ত্রের সর্বজনীন এবং সর্বাধিক সমর্থিত গ্রহণযোগ্য সংজ্ঞা, তাহলে বাংলাদেশে এমন গনতন্ত্রীক রাষ্ট্রে এই সংঙ্গাটি শুধু পরিক্ষার প্রশ্নের উত্তর হিসেবে লিখে ভাল নাম্বার পাওয়ায় প্রযোজ্য

বাংলাদেশে রাষ্ট্র পরিচালনায় সেনা সমর্থিত শাসন ব্যতিত আওযামী লীগ বিএনপি দেশ পরিচলনায় বেশি সুযোগ পেয়েছে এবং এখনো পাচ্ছে।১৯৯০ সালের গণঅভ্যুর্থানের পর ১৯৯১ সালে প্রথম জনগনের ভোটে নির্বাচিত সরকার ব্যবস্থা চালু হয় বাংলাদেশে।নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করে বিএনপি।জনগনের বহুল প্রত্যাশিত গনতন্ত্রের সঠিক ব্যবহার হওয়ার একটা সুযোগ পায়।কিন্তু মুখথুবড়ে পড়েছে গনতন্ত্র নামক শব্দটির সঠিক প্রয়োগে।একটা শ্রেনী কিংবা একটা মহল সকল সুযোগ সুবিধা গ্রহন করছে আর বাকিসব কচ্ছপ গতিতে।দিন যায়,রাত যায়,সময়ও যায় ফুরিয়ে।পাঁচ বছর ক্ষমতার পালাবদলে ১৯৯৬ সালে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।কিন্তু ঐযে কথায় আছে যে লাউ সে কদু।গনতন্ত্র ফেরিউয়ালা হয়ে গুরছে এবাড়ি ওবাড়ি, যায়গা হয় না কোন বাড়ি।তারই ধারাবাহিকতায় ২০০১ এ বিএনপি।এরপর মাঝখানে দুই বছর তত্ববধায়ক সরকার মঈন উদ্দীন,ফখরদ্দীন সরকার ব্যবস্থা।ঐসময় যে খুব বেশি গনতন্ত্র চর্চা হয়েছে তা নয়।তবে বিগত সরকারগুলো থেকে ভাল কিছু করার চেষ্টা ছিল।অবশেষে ২০০৮ এ নির্বাচনে আবারো ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ।একটা অলিখিত নিয়ম হয়ে দাড়িয়েছিল পাঁচ বছর পর পর সরকার পরিবর্তন।কিন্তু এমন অলিখিত নিয়ম যেন লিখিত নিয়মের মধ্যে আড়ষ্ট করে পেলে আওয়ামী লীগ সরকার।২০১৪ সালে নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্টু ও নিরপেক্ষতার অভাবের কারন দেখিয়ে বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহন করেনি।জাতীয় পার্টিকে বিরোধীদল বানিয়ে অনুষ্ঠিত হয় নির্বাচন।১৫৩ জন বিনা ভোটে জয় লাভ করে সরকার গঠন করে ইতিহাস গড়লো আওয়ামী লীগ।

বাংলাদেশের ইতিহাসে ভিন্ন প্রেক্ষাপটে অনষ্ঠিত হতে যাচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮।।বর্তমান সরকার,মন্ত্রীসভা ও সংসদ চলমান অবস্থায় থেকেও অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নির্বাচন।বিএনপি এমন নির্বাচনে অংশ নিবে না বললেও অবশেষে ঐক্যফ্রন্ট্রের সাথে এক হয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।বিএনপির নেত্রীসহ দলের হেবিওয়েট নেতারা নির্বাচনে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা কমে আসলেও নির্বাচনে জয়ের মাধ্যমেই গ্রনতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও নেত্রীর মুক্তির লক্ষ্যে এগুচ্ছে তারা।এদিকে আওয়ামী লীগ বলছে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারও নৌকার জয় হবে এমনটাই তাদের বিশ্বাস।

এমন টালমাটাল অবস্থায় গনতান্ত্রীক প্রক্রিয়ার সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার মাধ্যমেই হোক গনতন্ত্রের বিজয়।সাড়ে ১০ কোটি ভোটারের সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে গঠিত হোক গনতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থা।৩০ লক্ষ শহীদের আত্বত্যাগের বিনিময়ে যে গনতন্ত্র পাওয়ার আকাঙ্কা ছিল তা স্বার্থক হবে যদি সকল দিক থেকে সমধিকার পায় ১৭ কোটি বাঙ্গালী।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *