full screen background image
Search
,
  • :
  • :

শাসন বনাম আত্মহত্যা !

পৃথিবীর সব মা-বাবা চায় তার সন্তান হোক শ্রেষ্ঠ সন্তান।জ্ঞান বিজ্ঞান ও সঠিক আদর্শে বেড়ে উঠুক সমাজের উচ্চ মর্যাদায়।যে সন্তানকে নিয়ে গর্ব করবে মা-বাবা,শিক্ষকসহ গুরুজনরা।তা্ইতো একজন বাবা অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে, মাস শেষে যে টাকা পায় তার বেশিরভাগ করে সন্তানদের পড়াশুনার পিছনে।কোন কারনে নির্দিষ্ট সময়ে বাবা বেতন পেতে বিলম্ব হলে, সহকর্মীর থেকে মেনেজ করে হলেও ছেলে-মেয়েদের স্কুল,কোচিং ও প্রাইভেট টিচারের বেতন পরিশোধ করেন।শুধু এজন্যই যে, ছেলে-মেয়েদের প্রতি যেন শিক্ষক খুশি থাকেন।

যদি ঢাকা শহর কিংবা জেলা শহরে বাসা-বাড়ীতে থাকতে হয়, তাহলে বাড়ি ভাড়া থেকে শুরু করে পারিবারিক অন্যান্য খরচ মেটাতে কি রকম হিমশিম খেতে হয় তা একজন বাবা ভালই জানেন।এতো গেল একজন বাবার জীবন সংগ্রামের কাহিনী।কিন্তু আরেকজন মানুষের কথা না বললেই নয়।যিনি প্রত্যেক সন্তানের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক।সত্যিকারে নোভেল প্রাইজ পাওয়ার যোগ্যতা রাখে।এক স্কুল থেকে অন্য স্কুল ছোটাছুটি করতে করতে কখন যে দুপুর হয়ে যায় তা নিজেও জানেন না।দুপুরের রান্না যে কখন করেন তা তিনিই জানেন।কারন নির্দিষ্ট সময়ে রান্না না হলে সাহেবের পক্ষ থেকেও কিছু উচ্ছ বাচ্য শুনতে হবে।শুধু সাহেবের কাছ থেকে যে শুনেন তা নয়, মাঝে মধ্যে ছেলে-মেয়েরা স্কুলে কোন রকম শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে,গার্ডিয়ান হিসেবে শিক্ষকদের কটু কথা নীরবে দাড়িয়ে  ‍শুনতে হয় মা নামক মানুষটাকে।শিক্ষকদের কটু কথা শুনার পরও সন্তানদের পক্ষ থেকে ‘সরি’ নামক শব্দটা বলে আসতে হয় তাকে ।তিনি চাইলে শিক্ষকদের দু-একটা কথা বলতে পারতেন, কিন্তু তা করেন না,শুধু সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে।

যে মা-বাবা নিজের সুখ-দুংখ,ইচ্ছা-অনিচ্ছাকে প্রাধান্য না দিয়ে শুধু মাত্র সন্তানদের পিছনে অর্থ,শ্রম মেধা বিকিয়ে দেন। সবশেষ কি পান তারা ? হয়তো কোন সন্তান তার মা-বাবার ইচ্ছার প্রতিপ্রলন ঘটায়।মানুষের মত মানুষ হয়ে নিজেকে নিয়ে গেছে উচ্ছ কোন আসনে,সাথে মা-বাবাকেও।কিন্তু বর্তমান সমাজ ব্যবস্থায় এমন দৃশ্য খুবই বিরল।যদি নিজের হাতে গড়া সন্তান চেয়ে বসে আমাকে R-15 মডেলের একটা বাইক কিনে দিতে হবে, না হয় ছয় তলা বিল্ডিং থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করবো ! আমরা যাদের মানুষ গড়ার কারিগর বলি সেই শিক্ষক ছাত্র/ছাত্রীকে তার ভুলত্রুটির জন্য একটু বকা দেয়, তাতেই যদি আত্মহত্যা করতে হয়,তাহলে বলতে হয় মা-বাবা ও শিক্ষক হয়ে কি তারা ভুল করলেন ? সন্তানদের কাছে মা-বাবা আর ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে তাদের শিক্ষক কি জিম্মি ?

স্কুল-কলেজে শিক্ষকরা সর্বোচ্ছ চেষ্টা করেন তাদের ছাত্র-ছাত্রী ভাল ফলাফল করে দেশের সর্বোচ্ছ বিদ্যাপীঠ হিসেবে সুনাম কুড়িয়ে আনবে।ভাল ফলাফলের জন্য যত রকম আইন-কানুন এবং শৃঙ্খলা আছে তা প্রয়োগ করবেন।পরীক্ষা শেষে যখন ভাল ফলাফল অর্জিত হয় তখন ঠিক শিক্ষকের পা চুঁয়ে সালাম করে মিষ্ঠি মুখ করায় তারই প্রিয় ছাত্র/ছাত্রী।কিন্তু এ শিক্ষক নামের মানুষটা একদিন আগেও ভাল ছিলেন না,কারন তিনি বকাবকি করেন ! এখন আপত্তি হল এখানে, যে শিক্ষক ছাত্র/ছাত্রীর ভালো রেজাল্টের জন্য একটু শাসন করবেন তার বিপরীতে এমন শাসন ছাত্র কিংবা ছাত্রীর অপমানবোধ হবে অবশেষে আত্মহত্যা ! মা তার সন্তানদের পরীক্ষা খারাপ হয়েছে কেন তার উত্তর জানতে চেয়ে একটু শাসন করবে স্বাভাবিক ।তার জন্য  ক্লাস ফাইভের ছা্ত্রীও আত্মহত্যা করবে ? কেন ? উত্তরটাও আছে।

 কারন আমাদের সামাজিক অবক্ষয় এমন অবস্থায় পৌছে গেছে তার থেকে বের হয়ে আসা মুশকিল হয়ে পড়েছে। পারিবারিক বন্ধনহীনতা, নৈতিক শিক্ষার অভাব,মা-বাবার প্রতি সন্তানের শ্রদ্ধা,ভক্তি ভালবাসা ও শিক্ষদের প্রতি তার ছাত্র/ছাত্রীদের অসন্মান এক রকম অনিয়ম প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে।শুধু যে ছাত্র/ছাত্রীদের দোষ তা নয়।তার দায়বার মা-বাবার যেমন রয়েছে,তেমনটা শিক্ষকদেরও রয়েছে। এমন অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের সমাজ ব্যবস্থা পরিবর্তন করতে হবে।পরিবর্তন করতে হবে আমাদের মানসিকতা।

যুগে যুগে নজরুল,রবীন্দ্রনাথ কিংবা শায়েখ আজিজুল হকের মত ব্যক্তিরা বিখ্যাত হয়েছিলেন গুরুজনের প্রতি শ্রদ্ধা,ভক্তি আর ভালবাসার প্রয়াসে।মা-বাবার শাসন আর শিক্ষকের বেতের বাড়ি তাদের পথচলার পাথেয় হয়েছিল।যেখানে মা-বাবার প্রতি ছিল অগাত ভালবাসা এবং শিক্ষকের প্রতি ছিল বিনম্র শ্রদ্ধা।আজ তেমন আদর্শবান শিক্ষক থাকলেও নামধারী শিক্ষকদের ভিড়ে তাদের খুজে পাওয়া যায় না।কবি বলেছিলেন,যে দেশে জ্ঞানীদের কদর নেই, সে দেশে জ্ঞানী জন্মায় না।এদেশেও জ্ঞানী জন্মাবে যদি রাষ্ট্র দ্বারা ঘোষিত একটা সুন্দর সমাজ,দেশ এবং শিক্ষা ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়।যেখানে থাকবে পারস্পরিক শ্রদ্ধা,ভক্তি আর ভালবাসা। প্রতিটি ছাত্র/ছাত্রী নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত হযে সমাজ ও রাষ্ট্রেকে আলোকিত করবে।যেখানে থাকবেনা হতাশা ও আত্মহত্যার মত হিংশ্র সিন্দান্তের প্রতিফলন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *