full screen background image
Search
,
  • :
  • :

একটি সুপ্ত প্রতিভার অকাল প্রয়াণ ও সামাজিক অবক্ষয় !

একটি সমাজ তথা রাষ্ট্রের সুনির্ন্দিষ্ট কিছু নিয়ম নীতি ও সংস্কৃতি রয়েছ। রাষ্ট্র যে সিস্টেমে বা পদ্ধতি জুড়ে দেয় সেই পরিবেশে বেড়ে উঠে ওই দেশের মানুষ।যুগের পর যুগ তাই হয়েছে।জোর করে কোন সংস্কৃতি চাপিয়ে দিতে চাইলেও প্রতিহত করার রেকর্ড্ও রয়েছে বাংলাদেশীয় সংস্কৃতিতে।কিন্তু বিপত্তি ঘটে তখনই যখন স্বেচ্চায় নিজ সংস্কৃতি ভুলে গিয়ে ভিন্ন সংস্কৃতি চর্চায় অভ্যস্ত হওয়ার চেষ্টা করা হয়। তখনই দেখা দেয় মারাত্বক ব্যাধি।

সমাজ কিংবা পরিবারের দায়িত্ব হচ্ছে সন্তানকে সু-শৃঙ্খল ও নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করা।ভাল এবং খারাফ দুটি জিনিসের তফাৎ শিখানো।এটাও শিখানো যে কিভাবে কঠিন সময়ে ধৈর্য্ ধারন করে, ঝুকি মোকাবেলা করতে হয়।সামান্য কারনে হতাশ না হওয়া,প্রয়োজনে টমাস আলভা এডিসনের বৈদ্যতিক বাতি আবিস্কারের দীর্ঘ্ সময়ের কাহিনী আলোচনা করা।

সামাজিক অবক্ষয় যখন হয় তখন সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে গ্রাস করে।সন্তান যখন মায়ের মমতার বদলে কাজের ভুয়ার অবহেলায় বড় হয়,তখন ওই সন্তান থেকে ভাল কিছু আশা করা মানে, আম গাছে কাঠাল আশা করা। নৈতিক শিক্ষার বদলে মা যখন ভারতীয় সিরিয়ালে ব্যস্ত, সন্তান তখন সোফায় বসে ভারতীয় সিরিয়ালের টাপুর- টুপুর কিংবা পাখি সিরিয়ালের অশ্লিল সংস্কৃতি চর্চা লালন করতে শুরু করেছে।

সন্তান যখন পারিবারিক শিক্ষা,সংস্কৃতি ও কৃষ্টি থেকে বঞ্চিত হয়।তখনই তার মনে বাসা বাধে হতাশা নামক ব্যাধি।কখন কোন সিন্ধান্ত নিতে হবে সেই বোধগম্যতা তার থাকে না।সামান্য কারনে ভেঙ্গে পড়া,ভুল হলেও নিজের মত করে সিন্ধান্তে পৌছানে তার অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায়।

তেমনই একটা ঘটনা ভিকারুন্নেসা স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্রী ’অরিত্রী’ একটি ফুটন্ত গোলাপের অকাল প্রয়াণ।নবম শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষায় নকলের অভিযোগে বহিস্কার হয়।মা-বাবাকে নিয়ে শিক্ষকদের অনুরোধ করেও পার পাওয়া যায়নি।বলা হয়েছে মা-বাবাকে শিক্ষকদের করা অপমান চোখের সামনে দেখে সহ্য করতে পারে নি অরিত্রী।অবশেষে আত্মহত্যা!

অরিত্রীর এমন সিন্ধান্তের দায় কে নিবে ?দায় কি শিক্ষা ব্যবস্থার নাকি সমাজ ব্যবস্থার ? প্রতিষ্ঠান তার সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে এমন সিন্ধান্ত নিতেই পারেন।কিন্তু অরিত্রীর মত একটা ফুটন্ত গোলাপ কেনই বা নিজেকে অকাতরে বিলিয়ে দিবেন।নিজের মেধা ও শ্রম দিয়ে নিজেকে জয় করার অনেকতো মাধ্যম ছিল।তাহলে কেন এত সহজে এমন সিন্ধান্তের দিকে ধাবিত হল ?

পারিবারিক বন্ধনহীনতা ও নৈতিক শিক্ষার অভাবে আমাদের সমাজ ব্যবস্থা এমন অবস্থানে পৌছে যাচ্ছে যার থেকে নামতে হবে হাজার অরিত্রীর জীবনের বিনিময়ে।দেশের শাষকগোষ্ঠীর টনক এখনো যদি না নড়ে তবে একসময় এদেশের সংস্কৃতি খাতা কলমে লিখে জাদুঘরে রাখতে হবে।

যৌথ পরিবারের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া, প্রতিটি শিশুকে নৈতিক শিক্ষা দেয়া,সকাল বেলায় মুসলিম পরিবারে সন্তানদের আরবি পড়া দিয়ে দিন শুরু করা এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধা,ভক্তি আর ভালবাসাই পারে সামাজিক অবক্ষয় থেকে অরিত্রীর মত কোমলমতি শিশুদের বেড়ে ওঠা নিশিচত করতে।

সাব্বির আহাম্মদ পলাশ

রিপোর্টার,বাংলা আওয়ার।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *