full screen background image

নবীন ও প্রবীণ মন্ত্রিপরিষদের সমন্বয়ে কেমন বাংলাদেশ দেখতে চাই ?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পুর্ন।সংসদ সদস্যদের শপথ গ্রহনও শেষ।শপথ শেষ করেছে মন্ত্রিপরিষদও।বহু কাঙ্খিত মন্ত্রিসভা কাদের নিয়ে গঠিত হচ্ছে সে কৌতুহল ছিল সংবাদ মাধ্যম থেকে শুরু করে খেটে খাওয়া মানুষের মাঝেও।কারন ১৭ কোটি মানুষের নেতেৃত্বে যারা থাকবেন তাদের প্রতি একটু বেশি কৌতুহল থাকাটা স্বাভাবিকই বটে।অবশেষে ঘোষণা হল মন্ত্রিসভার সদস্যদের নাম।নবীনের উদ্দীপনায় উদ্দীপত্ব পুরো মন্ত্রিসভা।এ এক মহা চমক ও বলছেন অনেকে।কারন গতানুগতিক দেখা যায় প্রবীণ বয়সী অথ্যাৎ দাদার বয়সী হেভিওয়েট নেতাদের মন্ত্রিত্ব দেয়া হয়,যাদের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শেষ পর্যায়ে।প্রবীণদের যে একদমই মন্ত্রিসভায় রাখা হয়নি, তা কিন্তু নয়।কারন প্রবীণদের অভিঙ্গতাও নবীনদের উদ্দীপনার পাথেয় হতে পারে।

অবশ্য এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটাও বলেছেন,নবীনরা মন্ত্রিপরিষদে বেশি স্থান পেয়েছে তার মানে এই নয় যে, প্রবীণরা ব্যর্থ ছিল।বরং নবীনদের উপর কড়া নজরদারি রাখা হবে।৪৬ জন মন্ত্রী নিয়ে এক দূর্ঘম পথ পাড়ি দিতে চলছেন শেখ হাসিনা। এ পথ কতটুকু কুসুমাস্তিন্ন হয় তা দেখার জন্য নতুন মন্ত্রীদের প্রয়োজন সময়ের।মন্ত্রিপরিষদে নবীনদের পদচারণাই বলে দেয় বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে এ এক নতুন অভিযান।যে যাত্রার দিশারী হলেন বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনা।এমন এক ব্যতিক্রমধর্মী মন্ত্রিপরিষদ কতটুকু সফলতা বয়ে আনবে তা অনেকের মধ্যে কৌতুহল কাজ করলেও দৃড়পত্যয় ও সময়োপযগি পদক্ষেপ নিতে ভুল করেন না প্রধানমন্ত্রী।সারা বিশ্বের সাথে তথ্য- প্রযুক্তি,জ্ঞান বিজ্ঞান ও অর্থনীতিতে তাল মিলিয়ে চলতে পয়োজন এক ঝাক তরুন মেধাবী সৈনিক।যাদের দিয়ে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বানানো যাবে,স্বপ্নের পদ্মা সেতু তৈরিতে যোগান দিতে উচ্চ মোনবল।সোনার বাংলা গড়তে যে কোন ঝুকি নিতে একটুও পিছপা হবে না।

টানা তিনবারসহ মোট চারবার সরকার গঠন করে বিশ্বের বুঁকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।ইতিহাসের পাতায় বঙ্গকন্যার নাম কখন লিখা হয়ে গেছে তা হয়তো খোদ প্রধানমন্ত্রীও জানেন না।জানার সময়ও বা কোথায় ? যার দিকে তাকিয়ে আছে ১৭ কোটি মানুষ।যাদের স্বপ্ন পূরণে বিভোর শেখ হাসিনা তার কি এত রেকর্ডের দিকে তাকানোর সময় থাকে ?১৯৭১ সালে যার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নিজের জীবন বাজি রেখে দেশ স্বাধীন করেছেন।এতটুকু নামডাক বা ক্ষমতার মোহ ছিল না।সে বাবার কন্যা হয়ে উনারও ক্ষমতার মোহ থাকার কথা নয়।তাইতো ক্ষুদা,দারদ্র্যতা ও দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে ছুটে চলছেন প্রান্ত থেকে প্রান্তরে।

আজ অর্থনীতিতে উন্নত বিশ্বের দিকে ধাবিত হচ্ছে বাংলাদেশ।তাইতো কৌতুহলী মানুষের জানার ইচ্ছেরও শেষ নেই।নবীন প্রবীণের সমন্বয়ে কেমন বাংলাদেশ দেখতে চাই ? তার উত্তর জানতে পিছনের ১০ বছরের দিকে একটু নজর দিলেই বুঝা যায়।তারপরও একজন কমান্ডার হয়ে প্রধানমন্ত্রী  ৪৬ জন নাবিক সম্বলিত তরী নিয়ে কোথায় ভিড়বে তা দেখার জন্য অপেক্ষায় এ দেশের ১৭ কোটি মানুষ।

সাব্বির আহাম্মদ পলাশ

রিপোর্টার,বাংলা আওয়ার।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *