full screen background image
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

শাহনাজের বাইক উদ্ধার হয়,কিন্তু আমাদের বাইক উদ্ধার হয় না, কেন ?

শাহনাজ আক্তার পুতুল, পাঠাও অ্যাপস ভিত্তিক একজন মোটর বাইক রাইডার। সম্প্রতি পুরো বাংলাদেশে তাকে নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে আলোড়ন। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে। মহিলা হয়েও রাইডার হিসেবে কাজ করছেন জীবিকার তাগিতে। এটি যেন পুরো বাংলাদেশের নারী সমাজকে আরও একবার নড়েচড়ে বসতে মনে করিয়ে দিল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার সাহসিকতা ও পরিশ্রমের বন্দনার যেন শেষ নেই। কিন্তু এরই মধ্যে সৃষ্টি হয় আরেকটি আলোডন,তবে এইবার শাহনাজকে নিয়ে নয়।আলোডন হল তার স্কুটি নিয়ে।

গত ১৫ জানুয়ারি শাহনাজ এক প্রতারণার শিকার হয।চুরি হয়ে যায় তার বেঁচে থাকার অবলম্বন স্কুটি। একমাত্র আয়ের উৎস হারিয়ে নিংস্ব হয়ে পড়েন শাহনাজ। সন্তানদের পড়াশুনা ও মুখে দু বেলা খাওয়ার তুলে দেয়ার মাধ্যম ছিল এই স্কুটিটা। হাওমাও করে কান্নাকাটি করতে করতে শেষ আশ্রয় হিসেবে শেরে বাংলা নগর থানায় আসেন। পুলিশদের কাছে সবকিছু বলে মামলাও করেন । তবে এ মামলার যে ফল এত দ্রুত পাবে পুতুল হয়তো ভাবতেও পারেননি।মাত্র ১২ ঘন্টা সময়ের ব্যবধানে পুলিশ স্কুটি উদ্ধার করে। নারায়নগঞ্জ,রঘুনাথপুর থেকে পুলিশ তার স্কুটি উদ্ধার করে। গ্রেফতার হয স্কুটি নিয়ে যাওয়া জাবেদ নামের সেই লোক।

পুলিশের এমন অভিযানে পুরো বাংলাদেশের মানুষ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বাহবা দিচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফে্ইসবুকে পুলিশের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। এত দ্রুত সময় পুলিশের অভিযান সফল হওয়া সত্যি প্রশংসার যোগ্য। বাংলাদেশের মানুষ পুলিশের এমন সেবামুলক আচরণ ও দায়িত্বে সত্যি অনেক খুশি। এদেশের মানুষ চায় বাহিরের দেশগুলোর মতো পুলিশকে ডাকার আগেই পুলিশ এসে জিঙ্গেস করুক হোয়াটস প্রবলেম ? 

বাংলাদেশ পুলিশ শাহনাজের স্কুটি উদ্ধারে যেমন প্রশংসায় হাওয়ায় ভাসছে, তেমনি ভাসছে সন্দেহের আকাশে। বাংলাদেশে প্রতিদিন কারো না কারো মটর সাইকেল চুরি হচ্ছেই। সব কাগজপত্র নিয়ে থানায় গিয়ে মামলা করলেও কখনো পুতুলের মতো মুখে হাঁসি ফুটেনি। দিনের পর দিন যায় কিন্তু শখের বাইকটি আর পাওয়া যায় না। কত যুবকের কষ্ট করে সঞ্চয়ের পয়সা দিয়ে কেনা শখের মোটর বাইকটির দেখা আর মিলে না। একটা মোটর সাইকেল হতে পারে কারও জীবিকার উৎস,বেঁচে থাকার প্রেরণা। সন্তানদের পড়াশুনা এবংতাদের মুখে হাঁসি ফোটানোর একমাত্র অবলম্বন।যখন সেই বাইকটি চুরি হয়ে যায় তখন ওই লোকটির মাথায় যেন পুরো আকাশ ভেঙ্গে পড়ার অবস্থা হয় !  যেমনটা হয়েছে শাহনাজের।

পুলিশ চাইলে যে কোন চুরি হয়ে যাওয়া মোটর সাইকেল উদ্ধার করতে পারে, প্রয়োজন শুধু আন্তরিকতার এমনটাই বলছেন একজন বাইক হারানো ব্যক্তি।আরেকজনতো বলেই ফেললেন,শাহনাজের বাইক উদ্ধার হয় কিন্তু আমাদেরগুলা উদ্ধার হয় না কেন ? প্রশ্নের জবাব হয়তো আমাদের কারোই জানা নেই !

আমরা আশা করি বাংলাদেশে পুলিশের বিচক্ষনতা ও দূরদর্শি মনোভাব এবং ভালবাসা দিয়ে জয় করে নিবে এদেশের ১৭ কোটি মানুষের মন।যে কোন অপরাধ কিংবা অপরাধ সংগঠিত হওয়ার পূর্বেই পুলিশ সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিবে। এমন একটি সংস্কৃতি তৈরি হবে যে রাস্তাঘাটে বিপদে পড়লে পুলিশ এসে বলবে,কেন আই হেলপ ইউ ? একটি মুচকি হেঁসে আমরা বলবো নো,থেনকস !




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *