full screen background image

ঘরেই হবে বিশুদ্ধ পানির ফিলটার

পানির মাধ্যমে ডায়েরিয়া, আমাশয়, পেটের পীড়া, পেটের ব্যথা, কিডনি সমস্যাসহ বিভিন্ন ধরনের রোগ হয়ে থাকে। তাই সুস্থ থাকলে হলে বিশুদ্ধ পানির বিকল্প নেই।আমরা সাধারণত বাইরে বের হলে পানি কিনে খেয়ে থাকি।তবে ঘরেও কিন্তু খাবার পানির প্রয়োজন।পানির দাম নেহাত কম নয়।

বাজারে যেসব আধুনিক ফিলটার পাওয়া যায় তা বেশিদিন টেকসই হয় না।মাটির ফিলটার দীর্ঘদিন ব্যবহারের জন্য ভালো।

পুষ্টিবিদ শম্পা নাসরিন বলেন, সুস্থ জীবনযাপনের জন্য নিরাপদ পানির বিকল্প নেই।আমরা অনেকে মনে করি, পানি পরিষ্কার মানে বিশুদ্ধ। এ ধারণা মোটেও ঠিক নয়। পরিচ্ছন্ন ও বিশুদ্ধ পানি কিন্তু এক কথা নয়।

কোনো পানিকে যদি বিশুদ্ধ করতে হয় তবে, ময়লা ও রোগজীবাণু মিশে পানিকে দূষিত করতে হবে। তাছাড়া পানিতে ভাসমান ময়লা, বিষাক্ত গ্যাস ও রোগজীবাণু সম্পূর্ণভাবে অপসারণ করার বিকল্প নেই।

তাই শুধু পানি কিনে খেলেই হবে না। আপনি চাইলে খুব কম খরচে ঘরেই তৈরি করতে পারেন মাটির ফিলটার। এই ফিলটার বানানোর উপকরণগুলো হাতের কাছেই পাওয়া যায়।মাটির ফিলটারের পানি বিশুদ্ধ, ঠাণ্ডা ও স্বাদযুক্ত।

আসুন চেনে নেই কীভাবে তৈরি করবেন মাটির ফিলটার।

উপকরণ

বাঁশ বা কাঠ, বালু, ইট বা পাথরের খোয়া, মাটির পাতিল বা চাড়ি, প্লাস্টিকের বস্তা,সুতি কাপড়।

যেভাবে তৈরি করবেন

প্রথমে দুটো পাতিলের মাঝ বরাবর একটি ফুটো করেন ও ফুটোয় দুটি সুতি কাপড় দিয়ে দড়ির মতো পেঁচিয়ে বাইরের অংশে কিছুটা ঝুলিয়ে রাখুন।পরে কাঠ দিয়ে তিন তাকের একটি চোঙ্গা তৈরি করুন। যার ওপরে পাতিল বসবে। মাটির পাতিলে প্রথমে প্লাস্টিকের বস্তা কেটে বিছিয়ে তার ওপরে বালু দিন পাতিলের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী। এরপর তার ওপরে প্লাস্টিকের বস্তা কেটে আবারও খোয়া দিন। এভাবে মাটির পাতিল দুটো তৈরি করুন। এরপর একটি পাতিলকে প্রথম তাকে বাসার আর আরেকটি পাতিলকে দ্বিতীয় তাকে বসান নিচে একটি বালতি দেন।

প্রথম পাতিলে পানি দিয়ে ভর্তি করুন।এরপর ঘণ্টাখানেকের মতো অপেক্ষা করুন। দেখবেন দড়ির মতো পেঁচানো ন্যাকড়া বেড়ে ধীরে ধীরে পানি পড়ছে।এক ফোঁটা দুফোঁটা করে একসময় বালতি ভরে যাবে। এই পানি বিশুদ্ধ ও স্বাস্থসম্মত।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *