full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

ভালো হবেতো ঈদ যাত্রা !


আসছে ঈদুল-আজহা। আবার শুরু হবে নাড়ির টান। এই টানে শহরের মানুষ ছুটে যাব নিজ নিজ গ্রামের বাড়ি। মা-বাবা, ভাই-বোন দাদা-দাদির সাথে ঈদ উদযাপন করার জন্য ছুটবে শহরের ব্যস্ত মানুষ গুলো। একটাই উদ্দেশ্য যে কোনো মূল্যে বাড়ি পৌছাতেই হবে। আর এই উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য যেকোন ঝুকি নিতে আমরা এতটুকু চিন্তা করি না। তাই বারবার আমাদের কপালেই জোটে পিনাক-৬, এমভি মিরাজ-৪ এর মতো দূর্ঘটনা। আর দূর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার পরই আমরা আফ্সোস করি। ইস্ একটু যদি সচেতন হতাম ।

প্রতিবারই বালা হয় ঈদে যাত্রীদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তার ব্যাবস্থা করা হবে। যোগাযোগ মন্ত্রী, রেল মন্ত্রী ও নৌ মন্ত্রীরা নানা আশ্বাস দিয়ে আমাদের ভাসানোর চেষ্টা করেন। ঈদের সময়টাতে তারা বেশ সেলেব্রেটি হয়ে যান। টিভি খুললেই কোন না কোন চ্যানেলে দেখা যায় তাদের। দূর্ভোগ কমানোর আশ্বাসের ফেরি করে ঘুড়ে বেড়ান এক শহর থেকে অন্য শহরে। তাদের দেখার জন্য জড়ো হয় উৎসুক জনতা। টিভি চ্যানেল গুলোও নেমেপড়ে সরাসরি সম্প্রচারে। ভোগান্তি কমা তো দুরে থাক তাদের এই আনন্দ ভ্রমনের প্রভাব পড়ে ঐ অঞ্চলের যাত্রীদের। উৎসুক জনতা, মন্তীদের ব্যাপক নিরাপত্তা, সরকারি আমলা ও সাংবাদিকদের ভিড়ের কারনে উল্টো বেড়ে যায় যানযট।


লঞ্চের অবস্থা খুবই ভয়াবহ। প্রতি ঈদেই লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের উপর সরকারের পক্ষ থেকে কঠোর ব্যবস্থার কথা বলা হলে বাস্তবে এরুপ দৃষ্টান্ত দেখাযায় না। তাই প্রতি ঈদেই ঘটে যায় কোন না কোন দূর্ঘটনা। গত ঈদে পিনাক-৬ লঞ্চ ডুবির ঘটনায় কতজন  যাত্রী মারা গেছে এর সঠিক তথ্য এখন পর্যন্ত জানাযায়নি। কত মায়ের কোল খালি হয়েছে তার খবর মেলেনি। সরকার বলছে দেশ প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে অনেক উন্নত হচ্ছে। কিন্তু কোথায় এই উন্নয়ন। এতদিন জানতাম আমাদের তদন্ত কমিটি গুলোর প্রতিবেন পাওয়া যেতো না। এখনতো লঞ্চ ডুবলে তারই হদিস পাওয়া যাচ্ছেনা।

গত চার বছরে লঞ্চডুবির ঘটনায় তদন্ত কমিটি হয়েছে ৫৩টি। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো তদন্ত প্রতিবেদনই প্রকাশ করা হয়নি। এমনকি লঞ্চডুবির কারণে কোনো মালিক সাজা পেয়েছে কি না সে ব্যাপারেও কিছু জানা যায়নি।

এদিকে দিন দিন রেললাইনেও প্রাণহানির ঘটনা বাড়ছে। রেলেওয়ে সূত্র জানাযায়, গত বছরের মে থেকে চলতি বছরের মে পর্যন্ত চার শতাধিক রেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। তাছাড় গত পাঁচ বছরে ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে প্রায় দেড় হাজার বার। গত আট মাসে শুধু রাজধানীতে রেললাইনে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১৬০ জনের বেশি। এর মধ্যে পুরুষ ১৪৪ জন ও নারী ১৬ জন ।

প্রতি ঈদে রেলের উপরেও যাত্রীদের চাপ থাকে। এই চাপ সামালদিতে রেল কর্তৃপক্ষের হিমসিম খেতে হয়। রেলমন্ত্রীর শত আশ্বাসেও যাত্রীদের ভোগান্তি কমেনা। দেখাদেয় শিডিউল বিপর্যয়। তাছাড় দূর্ঘটনাতো আছেই।

রেলওয়ের এক প্রতিবেদন দুর্ঘটনার পাঁচটি মূল কারণকে চিহ্নিত করা হয়েছে। মেয়াদোত্তীর্ণ লোকমোটিভ ও কোচ, ওয়ার্কশপ সংকট ও যান্ত্রিক ত্রুটি, দক্ষ চালকের অভাব, রেললাইন রক্ষণাবেক্ষণে গাফিলতি এবং দুর্বল সিগন্যালিং ব্যবস্থা।

জানাগেছে সারাদেশে বিভিন্ন রুটে ৩৩৪টি ট্রেন চলছে। এই ট্রেনগুলোর ৮০ শতাংশ ইঞ্জিনই মেয়াদোত্তীর্ণ। ফলে বেড়েছে যান্ত্রিক ত্রুটি। ওয়ার্কশপে পর্যাপ্ত লোকবল নেই, রয়েছে অব্যবস্থাপনা।


সরকার আমাদের নিরাপত্তা ব্যাবস্থা করবে কি করবে না এটা চিন্তা করার সময় আর নেই। আসুন আমরাই নিজ উদ্দোগে সচেতন হই।  লঞ্চ ,ট্রেন ও বাসে অতিরিক্ত যাত্রী হয়ে আমাদেও জীবন ঝুঁকিতে না ফেলে নিরাপদে ঈদ যাত্রা করি। আমাদের ঈদকে আরো আনোন্দময় করে তুলি।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *