full screen background image
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ০৮:৪০ অপরাহ্ন

নিমতলী থেকে বনানী,আমাদের প্রযুক্তি ও প্রস্তুতি।

দিনের আলোটা প্রতিদিনের মতোই সবার কাছে পরিচিত ছিল,নির্দিষ্ট সময়ে অফিসে আসা,  বেলা শেষে ক্লান্ত শরীরে বাসায় ‍ফিরে যাওয়া।দরজায় কলিং বেইল চাপলেই, হাঁসিমুখে সন্তান কিংবা মা দরজা খুলে দেয়া। এই ছিল এফ আর টাওয়ারে কর্মরত অধিকাংশ কর্মকর্তার দৈনিক রুটিন। কিন্তু মার্চের ২৮ তারিখ বৃহস্পতিবার দিনের শুরুটা ছিলো আগের মতোই, ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস, দিনের শেষ বেলাটা আর আগের দিনগুলোর মতো ছিলনা।ঠিক সময়ে হয়তো সবাই বাসায় ফিরে গেছে, তবে আজ আর কেউ কলিং বেইল চাপেনি।পিতা আজ এমন চেহারায় বাড়িতে প্রবেশ করেছে দুই বছরের শিশুটা আর লাফ দিয়ে বাবার কোলে উঠেনি , তার চোখেমুখে ভয়, হয়তো অবুঝ শিশুটা নীরবে প্রশ্ন করছে আমার বাবা এমন কেন ! তারই বা দোষ কিসের, এমন অনেক বাবা যে ওইদিন এফ আর টাওয়ারের আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে।আগুনে পুড়ে হয়তো একজন বাবার শরীর অঙ্গার হয়ে গেছে,তার সাথে অঙ্গার হয়ে গেছে মা-বাবা, স্ত্রী ও সন্তানদের স্বপ্নও !

৩ জুন ২০১০, নিমতলী ট্রাজ্যেডি নামে পরিচিত।পুরান ঢাকার নিমতলীতে রাসায়ানিক গুদামের অগ্নিকান্ডের ঘটনায় প্রাণ গেল ১১৭ জনের।আবাসিক এলাকায় রাসায়ানিক কারখানার অবৈধ অনুমোদন, অপরিকল্পিত ভবন নির্মান,ঘিঞ্জি এলাকার কারণে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন কাজ করতে না পারাসহ নানা অসামঞ্জস্যতা উঠে আসে তদন্ত প্রতিবেদনে।মনে করা হল আমরা এমন দূর্ঘটনা থেকে এক রকম শিক্ষা নিয়ে নিলাম।সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এমন অনিয়মের বিরুদ্ধে একশানে যাবেন।কিন্তু সরকার ও আনশৃৃ্ঙ্খলা বাহিনী যে এসব ব্যাপারে উদাসীন, তা বুঝা গেল একই রকম ঘটনা যখন আবার ঘটলো।

২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯,চকবাজারের চুড়িহাট্টায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় মনে করিয়ে দিল নিমতলী ট্রাজ্যেডির কথা।আবারো আবাসিক এলাকায় রাসায়ানিক গুদামের দায়।যে কোনভাবে আগুনের সূত্রপাত হলেও মুহূর্তের মধ্যে তা মৃত্যুপুরী এলাকা হিসেবে রুপ নেয়।তারই ধারাবাহিকতায় ৮৫ টা তাজা প্রাণ আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেল।আবার সেই পুরোনো কাহিনী, তদন্ত কমিটি ঘটন,তারপর তদন্ত প্রতিবেদন জমা ও আমাদের ভুলে যাওয়া।কাজের কাজ কিছুই হয় না।একটি ঘটনা ঘটলে কয়দিন আমরা মনে রাখি, এরপর যখন আরেকটা ঘটনা চোঁখে পড়ে তখন পিছনের ঘটনা মনে করি।এইভাবে সরকারি উদাসীনতা আর আমাদের ভুলে যাওয়া হয়তো একদিন আমার আর আপনার জীবন বলি দিয়ে তার দায় এড়াতে হবে ! 

পুরান ঢাকার নিমতলীতে আর চকবাজারে না হয় রাসায়ানিক ক্যামিকেলের কারণে আগুন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে।ঘিঞ্জি এলাকার কারণে ফায়ার সার্ভিসের লোকজনের চেষ্টার পরেও এত মানুষের জীবন দিতে হলো।কিন্তু বনানীর মতো যায়গায় কিসের অভাব ছিল  ?

২৮ মার্চ ২০১৯, বনানীর এফ আর টাওয়ারে আগুন ! যদিও নিমতলী এবং চকবাজারের অগ্নিকান্ডের ঘটনা থেকে একটু ব্যতিক্রম।ওখানে রাসায়ানিক দ্রব্যে আগুন দ্রত ছড়িয়ে পড়ার কারণে ফায়াস সার্ভিস আগুন নেভাতে বিলম্ব হয়, এতে করে জীবন দিতে হয় অনেক স্বপ্নের।কিন্তু বনানীর মতো যায়গায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় চোঁখের সামনে থেকে দেখতে হয়েছে লাফ দিয়ে পড়ে নিজের জীবন রক্ষার বৃথা চেষ্টার।ফায়ার সার্ভিসের লোকজনের অসহায়ত্ব আত্বসমর্পন আমাদের বেঁচে থাকার আশা হারিয়েছে।প্রযুক্তির দিক দিয়ে আমরা কতটুকু পিছিয়ে আছি তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিল এফ আর টাওয়ারের ঘটনা। এক বিদেশীসহ ২৬ জন মানুষ প্রাণ দিল,এটি আমাদের সাধারণ মানুষকে অনেক ভাবিয়ে তুলেছে।কথা হল আমাদের ভাবনায় কি আসে যায়, যাদের ভাবনায় আমাদের মতো নিরীহ মানুষের কল্যাণে কিছু করা য়ায়,তারা ভাবলেই আমরা ধন্য।

রাগে হোক কিংবা ক্ষোভে হোক অনেকেতো এমনও বলছেন, বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তিতে এত এগিয়েছে,নিজস্ব স্যাটেলাইট হয়েছে কিন্তু ২৩ তলা বিল্ডিংয়ে লোকজন ‍উদ্বারে কোন সরাঞ্জম নেই।হোক বিল্ডিংটায় ২৩ তলা করার জন্য রাজউকের অনুমোদন ছিল না।কিন্তু আমাদের দেশেতো রাজউকের অনুমোদিত ৩৭ তলা বিল্ডিংও আছে।কতটুকু প্রস্তুত আমরা এত বড় বিল্ডিংয়ের দূর্ঘটনা এড়াতে  ?

বসবাসের উপযুক্ত নয় এমন শহরের তালিকায় ঢাকা দ্বিতীয়, ভয়াবহ বিষাক্ত সীসার দূষণের তালিকায় ঢাকা দ্বিতীয়, দিনে দিনে ঢাকার মতো ৪০০ (চার শত বছরের) ঐতিহ্যবাহী শহরকে আমরা মৃত্যুপুরিতে রূপান্তর করছি। এ যেন এক মৃতপ্রায় ঢাকা। তার দায় কী কেবল সরকারের ! পুরোনো ঢাকার ঘিঞ্জি পরিবেশে যেখানে মানুষের চলাচল কষ্টদায়ক সেখানে কী করে এতগুলো রাসায়নিক কারখানার গুদাম থাকে তা সত্যি বোঝা অসাধ্য।দেশ এগিয়ে যাচ্ছে ঠিক,  কিন্তু রাজধানী ঢাকাকে বসবাসের যোগ্য করার জন্য দরকার মহাপরিকল্পনার যা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। যে সমস্ত প্রতিষ্ঠান অনুসন্ধান, তদারকি, পরিকল্পনা এবং অনুমোদন ইত্যাদি কাজের সাথে যুক্ত তাদের প্রক্রিয়াগুলোর মধ্যে অবশ্যই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।তবেই হয়তো নিশ্চিত করতে পারবে বসবাসযোগ্য নিরাপদ ঢাকা শহর।

সাব্বির আহাম্মদ পলাশ

রিপোর্টার

বাংলা আওয়ার।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *