full screen background image
Search
,
  • :
  • :
শিরোনাম

যে কারনে জামায়াত বিরোধী পাপিয়া (ভিডিও)

সম্প্রতি বিএনপির নেত্রী এ্যাডভোকেট আসিফা আশরাফি পাপিয়া জামায়াতকে ‘ইসলামের অপব্যবহারকারী’ উল্লেখ করে বলেছেন, জামায়াতের নাম থেকে ‘ইসলাম’ শব্দ তুলে দেয়া উচিত । এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ক্লিপকে ঘিরে বেশ আলোচনা হচ্ছে। আর সেটাকেই অনেকে ফলাও করে প্রচার করেছেন। যাতে পাপিয়ার জামায়াত বিরোধী মনোভাবটা বেশ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এর আগেও তারেক রহমানের শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে ‘তারেক তো ম্যাট্রিক পাস’ মন্তব্য করে ব্যাপক চাপের মধ্যে পড়েছিলেন।
আসিফা আশরাফি পাপিয়া যে নতুন করে জামায়াত বিরোধী অবস্থান নিয়েছেন, বিষয়টা এমন নয়। তার রাজনৈতিক জীবনে সবসময় জামায়াত শিবির তার প্রতিদ্বন্দ্বি ছিল। ফলে জামায়াতের পক্ষে কথা বলার মত কোন অবস্থা পাপিয়ার কখনোই হয়নি। তার স্বামী রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক হারুনুর রশিদ চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের বিএনপির প্রার্থী। ওই আসনে তাকে কখনোই জোটের প্রার্থী হিসেবে মেনে নেয়নি জামায়াত। ফলে জামায়াত ২ দফায় আলাদাভাবে প্রার্থী দিয়েছিল। ১৯৮৬ এবং ১৯৯১ এ জামায়াত থেকে লতিফুর রহমান দ’দুইবার এমপি নির্বাচিত হওয়ায় এবং দলের শক্ত অবস্থান ধরে রাখতে সঙ্গত কারণেই হারুনকে মেনে নিতে পারছেনা বলে দলের সূত্রে বলা হয়ে থাকে। পাপিয়া জামায়াতের উপর ক্ষুব্ধ সেখান থেকেই।
পাপিয়া নিজে দীর্ঘদিন ধরে দলের কাছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনে প্রার্থীতা চেয়ে হতাশ হয়েছেন। শেষ পর্যন্ত দশম সংসদ নির্বাচনের আগে নাটোরে এক জনসভায় আসাদুল হাবিব দুলুর আসনে নিজে প্রার্থী হওয়ার অভিপ্রায় প্রকাশ করায় দল থেকে শোকজ করা হয়েছিল পাপিয়াকে। দীর্ঘদিন দল থেকে কোনঠাসা হয়েছিলেন তিনি।
প্রসঙ্গত, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের বর্তমান এমপি আওয়ামীলীগ প্রার্থী আব্দুল ওয়াদুদ। যিনি পাপিয়ার স্বামী হারুনের চাচাত ভাই। আব্দুল ওয়াদুদ একসময় বিএনপি করতেন এবং হারুনকে নির্বাচনে জয়ী করানোর জন্য তার তৎপরতা ছিল উল্লেখ করার মত। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা শেষ করে ১৯৯৬ সালেই প্রথম এমপি নমিনেশন পান হারুনুর রশিদ। ওই সময় এলাকায় তরুণমুখ হিসেবে সবার কাছে ভালো সাড়া ফেলতে সক্ষম হন তিনি। ১৯৯৬ এ জামায়াতের দু’বারের এমপি লতিফুর রহমানকে হারিয়ে জয়ী হন হারুন। পরে ২০০১ এ তৎকালীন ৪ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে নমিনেশন পান তিনি। জামায়াত তাকে মেনে না দিয়ে দলীয় প্রার্থী হিসেবে বিএনপি এবং জামায়াতের আলাদা প্রার্থী এবং আলাদাভাবে দলীয় প্রতীক বরাদ্দের দাবি করে। তবে জেলা জামায়াত তাদের প্রভাব ধরে রাখতে দলীয় প্রতীক দাঁড়িপাল্লা ধরে রাখতে না পারলেও হারুনকে ছাড় দেয়নি। ফলে দেয়াল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লতিফুর রহমানকে প্রার্থী দাঁড় করায়। ২০০৮ এর নির্বাচনেও একই ঘটনা ঘটে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ এবং ২ আসনে। ফলে সঙ্গত কারণেই জামায়াতই প্রধান শত্রু হিসেবে দাঁড়ায় পাপিয়ার।
কিন্তু ২০০৮ এর নির্বাচনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসন প্রথমবারের মত আওয়ামীলীগের হাতে চলে যায়। আর এজন্য পাপিয়াকে দায়ী করেন জেলা বিএনপির নেতারা। পাপিয়ার কারণেই হারুন জনপ্রিয়তা হারায় বলে এলাকায় জনশ্রুতি রয়েছে। বিভিন্ন চাকরিতে লোক নিয়োগের বিষয়ে দলের লোকজনকে অগ্রাধিকার না দিয়ে টাকা যার চাকরি তার এই নীতিতে অটল থাকায় স্থানীয় বিএনপিও ক্ষুব্ধ পাপিয়ার উপর। বিশেষ করে এলাকার মুরুব্বীরা পাপিয়ার ঔদ্ধত্য আচরণে ক্ষুব্ধ। যার কারণে হারুনের চাচাতো ভাই আব্দুল ওয়াদুদ বিএনপি থেকে একটা বড় অংশ নিয়ে বের হয়ে যান। ফলে হারুনের পায়ের নিচের মাটি সরে যায়। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জয়ী না হওয়া আব্দুল ওয়াদুদ আওয়ামীলীগ থেকে নমিনেশন নিয়ে এবার জয়লাভ করেন এমপি পদে। ফলে সব রাগ ক্ষোভ আবারও গিয়ে পড়ে জামায়াতের উপর।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও পাপিয়ার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বি ছিল ইসলামী ছাত্রশিবির। পাপিয়া প্রায়ই বলে থাকেন, ‘আমার তো বিএনপি করার কথা ছিলনা। ভার্সিটিতে ছাত্রলীগে যোগ দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু কেন যেন ছাত্রদলে চলে আসলাম’। সুতরাং পাপিয়ার রাজনৈতিক পরিচয় বিএনপি হলেও আওয়ামীলীগের প্রতি দুর্বলতা নিজেই স্বীকার করে আসছেন। ফলে পাপিয়ার জামায়াত বিরোধীতায় আশ্চর্যের কিছু নেই।

সূত্র: আমাদের সময়.কম





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *