full screen background image
Search
,
  • :
  • :

ভুতের দখলে স্কুল শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে

কলাপাড়া হাজীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভুত আতংকে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে ছাত্র-ছাত্রীরা। শিক্ষকরা গেলেও অলস সময় কাটাচ্ছেন। বৃস্পতিবার ওই স্কুলে গিয়ে দেখা গেছে এমন চিত্র। ৩০৩ ছাত্র-ছাত্রীর একজনও ক্লাসে আসেনি। দুপুর একটা পর্যন্ত শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে উপস্থিত চিলেনে। ছাত্র-ছাত্রীরা জানিয়েছে বিদ্যালয়ে ভুত ও জ্বীন আতংকে তারা ক্লাসে যেতে ভয় পাচ্ছে। এ বিদ্যালয়ের নয় ছাত্র-ছাত্রী অজ্ঞাত রোগে গত এক মাস ধরে অসুস্থ্য থাকায় একং অস্বাভাবিক আচরন করায় অভিভাবকরাও আতংকে তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে সাহস পাচ্ছেন না।


স্থানীয়রা ও শিক্ষকরা জানান, গত ১৯ আগষ্ট কয়েক ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়ে। গত মঙ্গলবার হাজীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের আরও দুই ছাত্রী অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। তাদের কলাপাড়া ও বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হলেও এখনও সুস্থ্য হয়ে উঠেনি তারা। তাছাড়া কি রোগে তারা আক্রান্ত কিংবা রোগের কারন বের করতে পারেননি চিকিৎসকরা।

অসুস্থ্য ৬ষ্ঠ শ্রেনীর ছাত্রী মর্জিনার মা আমেনা বেগম জানান, “তার মেয়ে দুই দিন ধইর‌্যা কথা কয় না। হারাদিন হুইয়া থাহে। ল্যাহাপড়া বন্ধ হইয়া গ্যাছে। মানুষ আইলে ফ্যাল ফ্যাল কইরা খালি চায়। মাঝে মধ্যে শুধু পানি চায়। একমাস ধইর‌্যা এইভাবে বিছানায় হুইয়া থাহে। মাঝে মধ্যে খিচ দিয়া ওডে। খালি ছটফট করে ও ডাক চিৎকার দেয়। এ সময় সামনে যে আয় হেরেও মারধর করে।”

মর্জিনা কথা না বলতে পারলেও সে লিখে জানায় “তাকে “রামায়ন” নামে একজন ধরছে। স্কুলের সামনে আমড়া গাছে সে থাকে। রোজ দুইবার তাকে এসে মারধর করে। আর খালি ছাগল জবাই দিতে বলে। আর ওই আমড়া গাছটা কেটে ফেলতে হবে। তারমতো অন্যদেরও একই অবস্থা বলে অসুস্থ্য ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা জানান।

একাধিক গ্রামবাসী জানান, বরিশাল থেকে প্রথম অসুস্থ্য ছয় জন ফিরে আসার পরই এলাকায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে তাদের ভুত ও জ্বীনে ধরেছে। এজন্য বিদ্যালয়ের সামনে প্রায় ২৫ বছরের পুরনো বিশাল একটি আমড়া গাছ আছে। ওই গাছটি কেটে তার গোড়ায় একটি ছাগল পুতে দিতে হবে। এছাড়াও ছয়টি ছাগল জবাই করে তার মাংস বিলিয়ে দিতে হবে। অসুস্থ্য ছাত্র-ছাত্রীদের স্বপ্নে এসে জ্বীন ও ভুতেরা এ নির্দেশ দিয়ে গেছে বলে তারা জানান।


বিদ্যালয় সংলগ্ন ৰুদ্র ব্যবসায়ী নুর ইসলাম হাওলাদার (৮০) জানান, তিনি স্কুলের পাশে প্রায় আট বছর ধরে ব্যবসা করছেন। এবারের মতো ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আর আতংক দেখেন নি। ভয়ে কেউ স্কুলেই আসে না।


প্রধান শিক্ষক মো. জালাল উদ্দিন জানান, তিনি জরুরী কাজে বাইরে আছেন। তবে কোন হুজুরের কাছে গিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে কোন সদুত্তর দিতে পারেন নি।এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কাজী রুহুল আমিন জানান, তিনি শুনেছেন স্কুলে একজনও ছাত্র-ছাত্রী আসেনি। এটা সত্যিই এখন তাদের উদ্বিগ্ন করেছে। স্কুলের বর্তমান সমস্যা নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

বাংলা আওয়ার :বিএমএন/







Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *