‘বই বিশেষজ্ঞ’

বাংলাদেশে বিভিন্ন বিষয়ে ‘স্পেশালিস্ট’ বা বিশেষজ্ঞ আছেন অনেকেই। কিন্তু বই বিষয়ে বিশেষজ্ঞের কথা এই সমাজে খুব একটা শুনি না। না শোনার কারণও আছে। আমাদের এই সমাজ এখনও তো বইকে খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু মনেই করে না। যেখানে বইকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হয় না, সেখানে ‘বই বিশেষজ্ঞ’ থাকবেন কোত্থেকে?
পশ্চিমা সমাজে ‘বুক স্পেশালিস্ট’ বা ‘বই বিশেষজ্ঞ’ ব্যাপারটা খুব প্রচলিত। সেখানকার পুস্তক বিক্রয়কেন্দ্র কিংবা লাইব্রেরিগুলোতে এই ধরনের বিশেষজ্ঞ দেখা যায়। সেখানে এটি একটি পদ হিসেবেও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোতে প্রচলিত।
বাংলাদেশেও এমন একজন আছেন, যাকে আমরা ‘বই বিশেষজ্ঞ’ বলতে পারি। তিনি আমাদের আরিফ ভাই, কাজী মুহাম্মদ আরিফ। সত্তরের কাছাকাছি বয়স, পাকা চুল, একহারা গড়নের আরিফ ভাই বইপুস্তকের ব্যাপারে এখনও দিব্বি তরুণ। নতুন কোনো বই চোখে পড়লেই এখনও তিনি ওই বইয়ের প্রচ্ছদ, ফ্ল্যাপ, ভূমিকা, ভেতরের কয়েক পাতা পড়ে নেবেন। এখনও অনেক পাঠক বই কেনার ব্যাপারে আরিফ ভাইয়ের ওপর নির্ভরশীল। ফোনে কিংবা সরাসরি তারা আরিফ ভাইয়ের কাছে জেনে নেন কোন বিষয়ে কী কী ভালো বই আছে। বয়সের কারণে তরুণ পড়ুয়াদের সাথে তাঁর দূরত্ব তৈরি হয়নি। তরুণরাও তাঁর সঙ্গ উপভোগ করেন।
আরিফ ভাই সম্ভবত ‘বই বিশেষজ্ঞ’ বা ‘পুস্তক বিশেষজ্ঞে’র চেয়েও বেশিকিছু। বই বিক্রয়ের সঙ্গে তিনি আছেন প্রায় চল্লিশ বছর। ঢাকার বইমেলা, ঢাকার বইয়ের ক্রেতাবিক্রেতা, ঢাকায় বইয়ের পাঠক বা পড়ুয়া সমাজ, ঢাকার প্রকাশক, লেখক— সবাইকে নিয়েই তিনি। এসব বিষয়ে কত হাজার গল্প যে আছে আরিফ ভাইয়ের ঝুলিতে তা হয়তো তিনি নিজেও জানেন না। কোন কোন লেখক বই চুরিতে পটু ছিলেন সেসব গল্পও একেবারে কম নেই তাঁর স্মৃতিতে।
ঢাকার বইয়ের সংস্কৃতি নিয়ে কথা বলার জন্য আরিফ ভাইকে লাগবে। তো সেই প্রয়োজনের চিন্তা থেকে আমি অন্তত দুবার আরিফ ভাইয়ের সাক্ষাৎকার নিতে চেয়েছি। একেবার ভিডিও ফরমেটে সাক্ষাৎকার নিতে চাইলাম, আরিফ ভাই রাজি হয়েও শেষপর্যন্ত রাজি হলেন না। আরেকবার টেক্সট ফরমেটে নিতে চাইলাম, সেবারও তিনি ফসকে গেলেন। জানি না এটা কি আমার প্রতি অভিমান নাকি বিনয় ও সংকোচ। আমি অবশ্য এখনও আশা ছাড়িনি। তিনিও আশা করি আরও অনেকদিন বাঁচবেন।

[ভেবেছিলাম তাঁকে নিয়ে কিছু বলব না, কিন্তু এখন মনে হচ্ছে না বলাটা অন্যায় হয়ে যাবে। ‘না বলা’টা না বলাই রয়ে যাবে এবং শেষে হয়তো অনেক দেরিই হয়ে যাবে। অনেকেই তো এ ব্যাপারে, এসব ব্যাপারে, কিছু বলেন না, তাই বলতে বসলাম। এমন না যে আরিফ ভাইকে শুধু আমিই চিনি, আমার চেনাজানার আগে থেকেও তাঁকে অনেকে চেনেন। ঢাকার পাঠাপাঠের সংস্কৃতির প্রয়োজনেই আরিফ ভাইকে নিয়ে সামান্য এইটুকু বলে রাখলাম।]

ষড়ৈশ্বর্য মুহম্মদ

ভাইর ফেইসবুক থেকে