খালেদা জিয়ার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে ‘ক্ষুব্ধ ও হতাশ’ বিএনপি

খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিতসার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে ‘ক্ষুব্ধ ও হতাশ’ বিএনপি।

রাতে এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘‘ সরকারের এই সিদ্ধান্তে আমরা নিসন্দেহে অত্যন্ত হতাশ ও ক্ষুব্ধ। এই কথা অত্যন্ত সত্য কথা যে, একটা মিথ্যা মামলা সাজিয়ে তাকে সাজা দেয়া হয়েছে। এর মূল উদ্দেশ্যটা ছিলো বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া। এটা আজকে নয়, ১/১১ থেকে এটা শুরু হয়েছে,….।

‘‘ এটা তো খুব পরিস্কার সরকার ১/১১ এর ধারাবাহিকতা বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিতে চান। তারই ফলোশ্রুতিতে আজকে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

দুপুরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘‘ খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার আবেদনে অনুমতি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। একবার যখন একটা সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে, ৪০১ ধারায় কার্যক্রম শেষ হয়ে গেছে। সেজন্য এটাকে আরেকবার রিওপেন করার সুযোগ নেই। সেক্ষেত্রে বিদেশে যাওয়ার আবেদনে অনুমতি দেওয়ার সুযোগ নেই।’’

পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের ভিত্তিতে এই সংক্রান্ত(শামীম ইস্কান্দার) আবেদন মঞ্জুর করা গেলো না। ”

গত ৬ মে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার তার বোনকে উন্নত চিকিতসার জন্য বিদেশে নিতে অনুমতি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বরাবরে লিখিত আবেদন করেন। পরদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সেই আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠিয়ে দেন মতামতাদের জন্য।

সরকারের সিদ্ধান্তে কোনো যুক্তি নেই দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘‘ আমরা মনে করি যে, এই সিদ্ধান্তের কোনো যুক্তি থাকতে পারে না। তারা (সরকার) যে কথা বলেছেন যে, কোনো নজির নেই। নজির তো সরকার সৃষ্টি করেছে অসংখ্য।”

‘‘ এই বিষয়টা তো শুধু মানবিক কারণে নয়, রাজনৈতিক কারণেও জরুরী এজন্যে যে, সি ওয়াজ এক্স প্রাইম মিস্টার ফর থ্রি টার্মস, সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা, স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত তার যে অবদান তার অস্বীকার করবার কোনো উপায় নেই। দুর্ভাগ্য আমাদের সরকারের যে প্রতিহিংসামূলক রাজনীতি সেই রাজনীতিকে চরিতার্থ করতেই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।”

তিনি বলেন, ‘‘ দেখুন যে ধারাতে দেশনেত্রীর সাজা স্থগিত করেছে ওই ধারাতেই কিন্তু তাকে বিদেশে যাওয়া বা একেবারেই সাজা-দন্ড মওকুফ করার যথেষ্ট পরিমান সুযোগে সেই আইনের মধ্যে দেয়া আছে।”

‘‘ তারা(সরকার) মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত খুনের আসামীকে বাইরে পাঠিয়ে দিতে পারেন, মাফ করে দিতে পারেন। কিন্তু একজন পপ্যুলার পলিটিক্যাল লিডার এবং এদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ও গণতন্ত্রের যুদ্ধের সঙ্গে যিনি অগ্রনী ভুমিকা পালন করেছেন তার জন্য তাদের কোনো মানবতা কাজ করে না। তাদের কোনো শিষ্ঠাচার কাজ করে না, তাদের কোনো মূল্যবোধই কাজ করে না।”

খালেদা জিয়া কী রাজনীতির শিকার হলেন শেষ পর্যন্ত – এরকম প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘‘ অবশ্যই। এখনো তিনি রাজনীতির শিকার হয়েই আছেন। শেষ পর্যন্ত বলছেন কেনো? তিনি তো রাজনীতির শিকার হয়েই কারাগারে আছেন এবং এখন অন্তরীনই আছেন বলা যেতে পারে।”

উন্নত চিকিতসার জন্য বিদেশে যাওয়ার আবেদন নাকচ হওয়ার পর পরবর্তি পদক্ষেপ কী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘ আমরা তো পার্টির তরফ থেকে তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য তখনও আবেদন করেনি, এখনো আবেদন করেনি। তার পরিবার যেটা ভালো মনে করবেন সেটাই করবেন। পরিবারই ডিসাইড করবে তারা কী করবে?’’

বিকালে সরকারের সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমে প্রকাশের পর সন্ধ্যায় বিএনপি মহাসচিব এভারকেয়ার হাসপাতালে যান এবং দলের চেয়ারপারসনের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে চিকিতসকদের নিয়ে কথা বলেন। পরে তিনি হাসপাতালের বাইরে সাংবাদিকদের সামনে কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘ আমি তাকে দূর থেকে দেখতে গিয়েছিলাম। দেখলাম যে, আমার কাছে বেটার মনে হলো। আপনারা ইতিমধ্যে জেনেছেন যে, তার কিছু কিছু প্যারামিটার বেটারে এবং তিনি এখন অক্সিজেন ছাড়ায় শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছেন এবং সেখানে তার ‍খুব একটা অসুবিধা হচ্ছে না। কিন্তু এখনো তার যে লাংক ও পেটে পানি আসছিলো সেটার জন্য কিন্তু টিউব লাগানো আছে এবং সেটা ডাক্তাররা বলেছেন যে, পোস্ট কোবিড যে কমপ্লিকেশন সেই কমপ্লিকেশনগুলো তার পুরো মাত্রাই আছে।”

‘‘ তবে আল্লাহর কাছে অশেষ রহমত যে, এখন তিন সি সাইনিংস আর ইম্প্রুভমেন্ট। উন্নতির লক্ষন দেখা যাচ্ছে।”

গত ২৭ এপ্রিল থেকে বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি আছেন খালেদা জিয়া। গিত ৩ মে তিনি শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে তাকে করোনারী কেয়ার ইউনিট(সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়।

হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের অধীনে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিতসা কার্য্ক্রম চলছে।