সাংবাদিক রোজিনা ন্যায়বিচার পাবেন: কাদের

১৯ মে ২০২১

রোজিনা ইসলাম ইস্যুতে সাংবাদিক সমাজের প্রতি ধৈর্য্য ধারণ এবং দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

যেহেতু মামলা হয়েছে এবং বিষয়টি বিচারাধীন, তাই সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক ন্যায়বিচার পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকদের প্রতি কোন অবিচার হলে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ।

তিনি আজ সকালে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে শেখ হাসিনার “‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ৪ দশকে মানবতার আলোকবর্তিকা দেশরত্ন শেখ হাসিনা”‘ শীর্ষক আলোচনা সভা এবং ৪টি হাসপাতালে ৪টি হাই-ফ্লো নজেল ক্যানোলা ও ৪টি অটিস্টিক সংগঠনে শিক্ষা সহায়তা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

ওবায়দুল কাদের তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

ঘটনার দিন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল কেউ বিষয়টি সাংবাদিকদের ব্রিফ করলে এমন ভুলবোঝাবুঝির সৃষ্টি নাও হতে পারতো উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন যেহেতু বিষয়টি বিচারাধীন তাই সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক নিরাপরাধ হলে আদালতে ন্যায়বিচার পাবেন।

সরকার মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন দেশের গণমাধ্যমের প্রতি সরকারের কোন ধরনের চাপ নেই।
তিনি আরো জানান প্রতিনিয়ত দেশের গণমাধ্যম দুর্নীতি, অপরাধসহ নানান বিষয়ে প্রতিবেদন প্রচার ও প্রকাশ করছে।

এ দেশের গণতন্ত্রের বিকাশ, লালন,মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে গণমাধ্যম অতন্দ্র প্রহরী বলে মনে করেন তিনি।

দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশের জন্য সরকার দমন-পীড়ন চালাচ্ছে, এমন বক্তব্য যারা দিচ্ছেন তাদের বক্তব্য আদৌ সত্য নয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান স্পষ্ট ও কঠোর।।

বিএনপি প্রতিটি ইস্যু নিয়ে রাজনীতি করার অপচেষ্টা করে কিন্তু তাদের সে অপচেষ্টা হালে পানি পায় না বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন আওয়ামী লীগের এক সংকটময় কালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা মাত্র ৩৪ বছর বয়সে দলের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

তিনি আরো বলেন সুনিপুণ সাংগঠনিক দক্ষতা ও দূরদর্শী নেতৃত্বের গুণে জাতির পিতার এই সংগঠনকে শত প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও সুদৃঢ় ভিত্তির উপরে দাড় করান শেখ হাসিনা।

১৯৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর পর দেশী-বিদেশী সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে জনগণের বিপুল সমর্থন নিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করেন বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি আরো জানান বর্তমানে একটানা তৃতীয়বারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করে চলেছেন শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা সাত দশক বয়সী আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন চার দশক ধরে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরো বলেন পৃথিবীর খুব কম রাজনীতিবিদের ভাগ্যেই এমনটি ঘটেছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা সংকটের এই ক্লান্তিকালেও বঙ্গবন্ধু কন্যা জনগণের জীবন ও জীবিকার সুরক্ষা নিশ্চিত করতে নিঃস্বার্থভাবে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বলে জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আরো বক্তব্য রাখেন সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ডক্টর আবদুর রাজ্জাক ও আবদুর রহমান, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য ডাক্তার মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আবদুল আউয়াল শামীম, পারভীন জাহান কল্পনা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি অধ্যাপক ডাক্তার শরফুদ্দীন আহমেদ এবং অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল।

পরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়।