ঢাকা, ২১ জুলাই ২০২৪, রবিবার, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

জাতিকে ধ্বংস করতেই পাঠ্যপুস্তকে ভারতীয় আধিপত্যবাদ স্থান পেয়েছে- মিলন

শিক্ষা | নিজস্ব প্রতিবেদক

(১ বছর আগে) ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, শনিবার, ৫:৩৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৬:২৬ অপরাহ্ন

banglahour

ঢাকা: জাতিকে ধর্মহীন নাস্তিক করার জন্য মুসলমাদের ধর্ম বিশ্বাসকে পাঠ্যপুস্তক থেকে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে বাদ দেওয়া হয়েছে। আমার ধর্মীয় বিশ্বাসের শিক্ষা আমার অধিকার এটা থেকে সরকার বঞ্চিত করতে পারে না। সরকার সাম্প্রদায়িক, পৌত্তলিক ও নাস্তিকবাদী অবৈজ্ঞানিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালুর মাধ্যমে আমাদের মুসলমানদের ঈমান ও আকিদায় হাত দিয়েছে। ডারউইনের বিবর্তনবাদ শিক্ষা দিয়ে আমাদের কোমলপ্রাণ সন্তানদের ব্রেইনওয়াশ করে ধর্মহীন করার অপচেষ্টা করেছে। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে সরকার ধ্বংস করে দিয়েছে।  পাঠ্যপুস্তকে বৃটিশ হয়ে ভারতীয় আধিপত্যবাদ স্থান পেয়েছে। পাঠ্যপুস্তক সংশোধন নয় বরং তা বাতিল করতে হবে।

আজ শনিবার ৪ ফেব্রুয়ারী শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় ইতিহাস-ঐতিহ্য বিরোধী পাঠ্যপুস্তক সংশোধন ও শিক্ষায় মৌলিক সংস্কার শীর্ষক জাতীয় সেমিনারের বক্তারা একথা বলেন। 

ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আব্দুর রবের সভাপতিত্বে জাতীয় সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী অনুষদের সাবেক ডীন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর চৌধুরী মাহমুদ হাসান, প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ড. আ ন ম এহসানুল হক মিলন। সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যক্ষ সৈয়দ আব্দুল আজীজ। শিক্ষা ও গবেষনা সংসদ ঢাকার পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ নুরন্নবীর পরিচালনায় জাতীয় সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক আব্দুল লতিফ মাসুম, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইসলামিক থট (বি.আই.আই.টি) এর পরিচালক ড. এম আব্দুল আজিজ, তামিরুল মিল্লাত মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল ড. খলিলুর রহমান মাদানী, ইঞ্জিনিয়ার শেখ আল আমিন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, এছাড়াও সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন দেশবরেণ্য শিক্ষাবীদ, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, কলামিস্ট সহ বিশিষ্ট ব্যক্তির্বগ। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী অনুষদের সাবেক ডীন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর চৌধুরী মাহমুদ হাসান বলেন, জাতিকে ধর্মহীন করার জন্যই পাঠ্যপুস্তক থেকে মুসলমাদের ধর্ম বিশ্বাস ও ইসলামী চেতনা সংশ্লিষ্ট লেখা বাদ দেওয়া হয়েছে। পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের সাথে যারা জড়িত তারা পরিকল্পিতভাবে এটা করেছে। যারা শিক্ষা নীতি প্রণয়ন করেছে তারা তাদের আদর্শের আলোকে করেছে। আত্মপরিচয়ের নামে অবাদ যৌনবিকৃতিকে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হয়েছে বইগুলোতে। ট্রান্সজেন্ডার মতবাদ হলো মানসিক অসুস্থতাও যৌন বিকৃতি অথচ বইতে এটাকে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হয়েছে হয়তো প্রধানমন্ত্রীও এটি ভালোভাবে জানেন না। কারণ আমরা মনে করি তিনিও ইসলামী চেতনায় বিশ্বাস করেন।  

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ড. আ ন ম এহসানুল হক মিলন বলেন,  জাতিকে ধ্বংস করতেই দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। পাঠ্যপুস্তকে বৃটিশ হয়ে ভারতীয় আধিপত্যবাদ স্থান পেয়েছে। পাঠ্যপুস্তক সংশোধন নয় বরং তা বাতিল করতে হবে। ইসলামসহ সব ধর্মেই নৈতিক শিক্ষার কথা বলা হয়েছে। বাংলাদেশে ইসলাম ধর্মের অনুসারীরা সংখ্যাগরিষ্ট। অথচ সরকার ইসলাম ধর্মের বিরোধী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রণয়ন করেছে। মুসলমানদের ধর্ম বিশ্বাস পাঠ্যপুস্তক থেকে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে বাদ দেওয়া হয়েছে। আমি সকল পাঠ্যপুস্তককে ইসলামাইজেশন করতে বলি না, তবে সংখ্যাগরিষ্টের ধর্মের বিষয় পাঠ্যপুস্তকে থাকলে সমস্যা কোথায়? 

সভাপতির বক্তব্যে  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আব্দুর রব বলেন, নীতি নৈতিকতা বিহীন শিক্ষা ব্যবস্থা পাঠ্যপুস্তকে দিয়েছে। কালচারাল আগ্রাসনের পাশাপাশি এখন শিক্ষা ব্যবস্থায় আগ্রাসন চালানো হচ্ছে। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে উন্নত জাতি গঠন সম্ভব নয়। শিক্ষাব্যবস্থা ও পাঠ্যবই প্রনয়ণ কমিটিতে ইসলামিক স্কলারদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ৯০ ভাগ মুসলমানদের দেশে পাঠ্যবইয়ে বলা হচ্ছে বানর থেকে মানুষ হয়েছে অথচ প্রত্যেক মানুষ আদম ও হাওয়ার সন্তান।  সাহিত্য গল্প কবিতায় ইসলামের চেতনা মূল্যবোধের বিষয় গুলো অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। মেজরিটি মানুষ এদেশে মুসলমান তাই মুসলমানদের ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী শিক্ষা ব্যবস্থা পাঠ্যপুস্তকে চালু করতে হবে।  

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন

সর্বশেষ

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com