ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২৪, শনিবার, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

যুব সমাজকে পরিকল্পিতভাবে বিকলাঙ্গ করার জন্য সীমান্ত দিয়ে মাদক ঢুকছে

অপরাধ | নিজস্ব প্রতিবেদক

(১ বছর আগে) ২৪ জুন ২০২৩, শনিবার, ১০:৩৬ অপরাহ্ন

banglahour

আন্তর্জাতিক মাদক বিরোধী দিবস উপলক্ষ্যে যুব উন্নয়ন সংসদ ঢাকার উদ্যোগে আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা বলেন, আমাদের প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারত গত ১৫ বছরে নতুন করে ৫শত ফেনসিডিল কারখানা স্থাপন করে। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারতের কয়েক হাজার মাদকদ্রব্য উৎপাদনের কারখানা আছে। 

দেশের যুব সমাজকে পরিকল্পিতভাবে বুদ্ধিবৃত্তিক বিকলাঙ্গ করার জন্যই সীমান্ত দিয়ে মাদক ঢুকছে। এই অবস্থায় দেশের যুবসমাজকে বাঁচাতে পারে আল কুরআন ও রাসুলে সা. এর সুন্নাহর আলোকে নৈতিক শিক্ষা। একমাত্র আল কুরআনের ছায়ায় আমাদেরকে মাদকের ভয়াবহ ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। বাংলাদেশ থেকে মাদকের কারণে প্রতিবছর পাচার হয়ে যায় ৪৮১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা প্রায় ৫ হাজার ১৪৭ কোটি টাকা। আর মাদক কেনাবেচা করে অর্থ পাচারের দিক থেকে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে পঞ্চম। এশিয়ার দেশগুলো বিবেচনায় নিলে মাদকের মাধ্যমে টাকা পাচারের ঘটনায় বাংলাদেশ একেবারে শীর্ষে রয়েছে।

আজ ২৪ জুন শনিবার বিকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে "সমৃদ্ধ ও স্থিতিশীল বাংলাদেশ গড়তে প্রয়োজন মাদকমুক্ত সমাজ" শীর্ষক সেমিনার বক্তারা এইসব কথা বলেন। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিচারপতি মু. শহিদুল ইসলাম। বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মোয়াজ্জেম হোসেনের সভাপতিত্বে ও যুব উন্নয়ন সংসদ, ঢাকার চীফ কো-অর্ডিনেটর কামাল হোসাইনের সঞ্চালনায় সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. ফয়সাল রাহাত। 

সেমিনারে আরও বক্তব্য প্রদান করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট এস এম কামাল উদ্দিন, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী এডভোকেট ড. গোলাম রহমান ভুইয়া, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মু. শহীদুল ইসলাম, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সহঃ সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সাইফুর রহমান, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক নুরুন্নবী মানিক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. আব্দুল মান্নান, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. আতিয়ার রহমান, ডা. দেওয়ান মোহাম্মদ সাজ্জাদ। আরও উপস্থিত ছিলেন ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ এর প্রাক্তন সহ-সেক্রেটারি জেনারেল ইঞ্জিঃ শেখ আল আমিন, বিশিষ্ট জাগরণী গণসঙ্গীত শিল্পী লিটন হাফিজ চৌধুরী, যুবনেতা আব্দুস সাত্তার সুমন, এডভোকেট মাহফুজুর রহমান সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বিচারপতি মু. শহিদুল ইসলাম বলেন, এখন সমাজের সব জায়গায় মাদক পাওয়া যায়। দেশের যুব সমাজকে পরিকল্পিতভাবে বুদ্ধিবৃত্তিক বিকলাঙ্গ করার জন্য সীমান্ত দিয়ে মাদক ঢুকছে। মাদককে ঘৃণা করতে হবে। আমাদের দেশের পাঠ্য বইয়ের মাধ্যমে মাদকের প্রতি ঘৃণা তৈরি করতে হবে। দেশের শিক্ষামন্ত্রীকে আমি অনুরোধ করছি আমাদের পাঠ্য পুস্তকের মধ্যে সুরা বনি ইসরাইল ও সুরা লোকমান অন্তভুক্ত করার জন্য। এই দুটি সুরার নির্দেশনা অনুসরণ করতে পারলেই সমাজ মাদকমুক্ত হবে, দেশের যুব সমাজ তথা গোটা জাতি উপকৃত হবে।

সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপক করেন বিশিষ্ট ডা. ফয়সাল রাহাত বলেন, মাদক গ্রহণের ফলে ব্যক্তির মস্তিষ্কের রসায়ন পরিবর্তন হয়ে যায়। ফলে তা সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং আবেগ নিয়ন্ত্রণকে প্রভাবিত করে। নৈতিক বিবেচনাবোধের ক্ষমতা হ্রাস করে এবং অন্যদের প্রতি সহানুভূতি কমে যায়। 

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ডিপ্রেশন, দুশ্চিন্তা জনিত রোগ, ব্যক্তিত্বের রোগ, ম্যানিয়া, ও সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হয়। এর ফলে সম্পর্কের টানাপোড়েন শুরু হয়, নৈতিক বন্ধন ও মূল্যবোধ দুর্বল হয়ে যায়, চুরি জালিয়াতি সহ অবৈধ কার্যকলাপে জড়িত হয়ে পড়ে। প্রিয়জন ও সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। মাদকাসক্ত ব্যক্তিরা প্রায় অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়ে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায় যে যৌন নিপীড়নকারীদের প্রায় ৬০-৬৫% মাদক গ্রহণ করে থাকে। পারিবারিক সহিংসতায় জড়িত পুরুষদের মধ্যেও প্রায় ৫০% মাদক গ্রহণ করে থাকে। খুন বা হত্যার সাথে সম্পৃক্ত প্রায় ৪৪% মানুষও মাদক গ্রহণ করে থাকে।

সভাপতির বক্তব্যে ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, সমাজে আকিমুদ দ্বীন যখন আকিমুস সালাতের মতো পালন হবে তখনই সমাজ মাদকমুক্ত হবে। সুন্নাতে রাসুলকে ধারণ করতে পারলে, রাসুল সা. নৈতিক শিক্ষা ধারণ করতে পারলে সমাজ মাদক মুক্ত হবে। জাতিসংঘ বলছে দেশে ৬৫ লাখ মাদকসেবী আর সরকারী সংস্থা বলছে ৭৫ লাখ মাদকসেবী।

ড. আব্দুল মান্নান, মাদকমুক্ত হতে হলে কুরআনের ছায়াতলে আসতে হবে। মাদকমুক্ত সমাজ করতে হলে কুরআনের সমাজ প্রতিষ্ঠা করবে হবে। ইসলামি রাষ্ট্র ব্যবস্থা কায়েম ছাড়া মাদকমুক্ত করা সম্ভব নয়।  

ডা. দেওয়ান মোহাম্মদ সাজ্জাদ বলেন, সীমান্ত দিয়ে পরিকল্পিত ভাবে মাদক ঢুকছে দেশের যুবসমাজকে বিকলাঙ্গ করে দিচ্ছে। সমাজের সর্বত্র মাদকে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আমাদের প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারত গত ১৫ বছরে নতুন করে ৫শত ফেনসিডিল কারখানা স্থাপন করে। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারতের কয়েক হাজার মাদকদ্রব্য উৎপাদনের কারখানা আছে।

অধ্যাপক নুরুন্নবী মানিক বলেন, মাদককের ভয়াবহতার হাত থেকে দেশের যুব সমাজকে বাঁচাতে রাষ্ট্রীয় সিন্ধান্ত নিতে হবে।  মাদক উৎপাদনকারী দেশ না হলেও বাংলাদেশ ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে মাদকের সর্বাত্মক আগ্রাসনের শিকারে পরিণত হয়েছে। 

মাদকের স্বর্গরাজ্য গোল্ডেন ক্রিসেন্ট আমাদের দেশের উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত এবং আন্তর্জাতিক মাদকদ্রব্য উৎপাদনকারী অঞ্চল মিয়ানমার, লাওস এবং থাইল্যান্ডের সমন্বয়ে গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গলের দক্ষিণ-পূর্ব কোনে অবস্থিত। এসব দেশ থেকে আন্তর্জাতিকভাবে মাদক পাচারের জন্য দেশের অভ্যন্তরীণ ট্রানজিট ব্যবহার করার কারণে মাদকের বিস্তার রোধ করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট এস এম কামাল উদ্দিন বলেন, ২৫০০ ফেনসিডিল কারখানা আছে ভারতের সীমান্তবর্তী জেলা গুলোতে। দেশকে ধ্বংস করতে মাদকই যথেষ্ট। ৫১ ধরনের মাদক আছে দেশে। ৮২ ভাগ মামলা মাদকের আর ৮-৯% মামলার পারিবারিক।  মাদকের সাথে সরকারি দলের নেতারা এবং প্রশাসনের লোকজন জড়িত বলেই আজ মাদক নির্মূল করা যাচ্ছে না। যার কারণে দেশের যুব সমাজ ধ্বংস হচ্ছে।

সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী এডভোকেট ড. গোলাম রহমান ভুইয়া বলেন, মাদক ক্যান্সারের মতো।  মাদকের ভয়াবহতা সমাজে ছড়িয়ে পড়েছে। সারাবিশ্বে ২৫ লাখ মানুষ মারা যায়। সড়ক দুর্ঘটনায় বড় কারণ মাদক। 

বাংলাদেশে প্রায় ৭.৫ মিলিয়ন মানুষ মাদকাসক্ত। দেশের বেকার জনসংখ্যারও বেশ বড় অংশ মাদকাসক্ত। মোট মাদকাসক্তদের ৪৮ শতাংশ শিক্ষিত এবং ৪০ শতাংশ অশিক্ষিত। মাদকাসক্তদের প্রায় ৫৭ শতাংশ যৌন অপরাধী, যাদের ৭ শতাংশ হলো এইচআইভি ভাইরাস দ্বারা সংক্রামিত। সারা দেশে প্রায় এক লাখ ৬০ হাজার মাদক ব্যবসায়ী তাঁদের ব্যবসা পরিচালনা করছেন, যাঁদের মধ্যে ২৭ হাজার ৩০০ জন মহিলা।

মু. শহীদুল ইসলাম বলেন, ২০২২ সালে দু’শত বাবা-মা খুন হয় মাদকসেবী সন্তানের হাতে। মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।  

বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. আতিয়ার রহমান বলেন, বাংলাদেশে ১২ থেকে ১৮ বছরের শিশুরা মাদকসেবন করছে। সমাজ সম্ভাবনা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে মাদকের কারনে। ব্রেইন থেকে শুরু করে শরীরের বিভিন্ন অর্গান ধ্বংস করছে। মাদক ক্ষতি হওয়ার কারণে আল্লাহ মদকে হারাম করে দিয়েছেন। ইসলামের নৈতিক শিক্ষা পারে আমাদের মাদকমুক্ত রাখতে।  

সেমিনারে বক্তারা বলেন, মাদক গ্রহন একধরনের মানসিক রোগ। এই রোগের বৈজ্ঞানিক চিকিৎসা আছে। মাদক নিরাময় যোগ্য নয়। বরং চিকিৎসা ও নিয়ন্ত্রণযোগ্য অসুখ। মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে রোগী পরিবার সমাজ এবং রাষ্ট্র সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে। মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে মাদকের সরবরাহ বন্ধ করতে হবে, সকল প্রকার মাদকের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করতে হবে, স্বাস্থ্য শিক্ষা প্রদান করতে হবে এবং সর্বোপরি ধর্মীয় ও নৈতিক অনুশাসন মেনে চলতে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। যথাযথ পদক্ষেপ নিলে মাদকের ভয়াবহ ক্ষতি থেকে দেশ ও সমাজকে রক্ষা করা সম্ভব।

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com