ঢাকা, ২১ জুলাই ২০২৪, রবিবার, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

ব্যয় মেটাতে হিমশিম বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের, চমক দেখাচ্ছে ইডিসিএল

অনুসন্ধান | নিজস্ব প্রতিবেদক

(১ বছর আগে) ১১ নভেম্বর ২০২২, শুক্রবার, ২:৩৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ২:৪৮ অপরাহ্ন

banglahour

ঢাকা: যখন রাষ্ট্রয়াত্ব বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান হিমশিম খাচ্ছে পরিচালনা ব্যয় মেটাতে। তখন চমক দেখাচ্ছে রাষ্ট্রয়াত্ব একমাত্র ঔষধ পস্তুুতকারক প্রতিষ্ঠান এসেন্সিয়াল ড্রাগস কোঃ লিঃ- ইডিসিএল। তাছাড়া সেবা প্রদান করা বিভিন্ন বিভাগ বা কতৃপক্ষ যখন ভর্তুকি নিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে তখন কি এমন চমকে বছরে উল্টো ১০০ কোটি টাকার বেশি লাভের মুখ দেখছে সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটি এমন প্রশ্ন থেকেই যায়।

মূলত সরকারের বিভিন্ন বিভাগের সাথে সমন্বয়, কর্মী বান্ধব কাজের পরিবেশসহ কর্মকর্তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এমনটি হয়েছে এবং বাড়ছে কাজের পরিধি এমটি বলছেন,  গোপালগঞ্জ প্লান্টের জেনারেল  ম্যানেজার ইমাম হাসান। তিনি বলছেন, শুধু ইডিসিএল নয় সরকারি সকল প্রতিষ্ঠানই লা়ভ নিয়ে পরিচালনা করতে পারে শুধু পরিকল্পনা ও কর্মকর্তা, কর্মীদের প্রতিষ্ঠানের প্রতি দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করা দরকার। আমারা সরকারি টার্গেটের বাহিরেও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সাথে যোগাযোগ করে উৎপাদন ও সেল বাড়ানোর চেষ্টা করছি সবসময়। যার কারনে আমাদের প্লাট বেড়েছে আর উৎপাদন স্বক্ষমতা বাড়ছে। আমাদের ঔষধের চাহিদা অনুযায়ী আমরা কাজের পরিধি বাড়িয়েছি সেটি ছিলো প্রতিষ্ঠান ঘুরে দাঁড়ানোর মূলমন্ত্র।  আর আমাদের বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক কর্মীদের জন্য নতুন পে- স্কেলসহ ইনসেন্টিভের ব্যবস্থা করেছন যা কাজের ক্ষেত্রে সকলের আগ্রহ ও উৎসাহ বাড়িয়েছে। 


এদিকে প্রতিষ্ঠানটির অপারেশন ডিরেক্টর সত্যিজিৎ দাস বলছেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানকে মডেল হিসেবে দেখতে পারে অন্য রাষ্ট্রয়াত্ব প্রতিষ্ঠান গুলো। আমাদের সরকারি চাহিদা মিটিয়েই লাভ হয় ১১০ কোটি টাকার মতো আর উৎপাদন হয় প্রায় ১১ শো কোটি টাকার বেশি পণ্য।  সেখানে সরকারি নিয়মে সর্বনিম্ন লাভ করেই আমাদের এমন প্রফিট হয়।  বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মতো লাভ ধরলে তা আরো কয়েকগুণ হতো। এমন করে অন্য।ন্য সরকারি প্রতিষ্ঠান লাভ করতে পারে ইচ্ছে থকলে। তিনি আরো বলেন, বর্তমান ব্যবস্থাপণা পরিচালকের যুগান্তকারী কিছু পদক্ষেপে আমাদের প্রতিষ্ঠান স্বাস্থ্য খাতে বিপ্লব তৈরি করেছে। আমরা দুই কোটি মানুষকে বিনামূল্যে ঔষধ দিয়ে থাকি, তাছাড়া করোনা কালীন সময়ে একদিনও বন্ধ হয়নি ইডিসিএল। দেশের সেবায় আমাদের প্রতিষ্ঠান যা করছে তা সত্যি অনন্য উদাহরণ। ইডিসিএল এই কর্মকর্তা উদাহরণ টেনে আরো বলেন,  সাধারণ কর্মীদের বাস সার্ভিস ব্যবস্থা করেছি আমরা সেখানে বিআরটিসি আমাদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের ব্যবসা বাড়াতে পারে, আবার সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান খাবারের জন্য চিনি কেনেন বাজার থেকে।সেখানে আমাদের সরকারি চিনিকল চিনি বিক্রি করে তাদের তাদের ব্যবসা বাড়াতে পারে। আমরা কিন্তু সেই কাজটিই করেছি। সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে সমন্বয়  করেই ধীরে ধীরে পরিসর বড় করছি। খুব শিগগিরই আমাদের গোপালগঞ্জ প্লান্ট পুরোদমে চালু হবে যাতে আমদের স্বক্ষমতা আরো বাড়বে। সাথে সাথে ভ্যাকসিন প্রজেক্ট আমরাই করছি যা এশিয়ার ভিতর অন্যরকম আলোড়ন তৈরি করবে।


ইডিসিএলের ৫ টি প্লান্টের ৩ টিতে বিভিন্ন ঔষধ আর দুটিতে জন্ম নিয়ন্ত্রণ সামগ্রী তৈরি হয় যা এসএমসির মতো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাছে বিক্রিও করছে সরকারি চাহিদা মিটিয়ে ইডিসিএল।  

প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. এহসানুল কবির জগলুল অবশ্য ভিন্ন ভাবে ব্যাখ্যা দিলেন, কর্মকর্তাদের দক্ষতা ও বাজার তৈরি, কর্মীদের নিরলস পরিশ্রম প্রতষ্ঠানটি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন ধীরে ধীরে ইডিসিএল পরিবার আরে বড় হবে। বর্তমানে ৬ হাজার কর্মীর এই প্রতিষ্ঠানটি নিজেদেরকে প্রমান করতে পেরেছে নানা প্রতিকুল অবস্থায়। এসময়ে তিনি তিনি বলেন ইডিসিএলের ঔষধ দেশের সীমানা পেরিয়ে বিদেশে যাচ্ছে মানুষের সেবায়। শেষ আমরা শ্রীলংকায় বিশ কোটি টাকার ঔষধ প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবেও পাঠিয়েছি। আমরা প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনায় ভ্যাকসিন উৎপাদন প্লান্টের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে যা দেশের জন্য অন্য রকম পাওয়া হবে।

অনিয়ম, দুর্নীতি বা নিয়োগ বাণিজ্যের কথা শোনা যায় এগুলো প্রতিরোধে কি পদক্ষেপ নিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ওপেন টেন্ডারিং ব্যবস্থাসহ সিন্ডিকেট ভেঙ্গেছেন যার কারনে আগের থেকে কম মূল্যে কাঁচামাল কিনতে পারছেন।  আর নিয়োগের ক্ষেত্রে কমিটির করে পরিক্ষা নিয়েই নিয়োগ দেওয়া হয় যা অনেকে গাত্রদাহ শুরু করেছে। ইডিসিএল এমডি আরো বলেন, ব্যবসা বাড়ছে ইডিসিএল এগিয়ে যাচ্ছে এটি একটি মহল ভালো নিবে না এটাই স্বাভাবিক।  তবে আমরা প্রধানমন্ত্রী সোনার বাংলাদেশ বির্নিমানে কাজ করে যাচ্ছি।  আমাদের কাজের ক্ষেত্রে কর্মী দরকার হয় নিয়োগ দেই যথাযথ নিয়ম মেনে।

একাধিক কর্মীরা বলেছেন, ব্যবসায়িক চাহিদা থাকায় কর্মক্ষেত্র বাড়ছে ইডিসিএলে। যেখানে অন্য প্রতিষ্ঠানে কর্মী ছাটাই হয় সেখানে আমাদের কর্মী প্রতি বছর বাড়ছে। আবদুর রহমান নামে এক কর্মী বলছেন, বর্তমান এমডি এইক্ষেত্রে বেশি প্রশংসার দাবিদার। কারণ মূল পরিবর্তন তার সময়ে হয়েছে। 

বিশেষ করে সেফালোস্পোরিন উৎপাদন কার্যক্রম ২০২০ সালে চালু করা, স্থবির হয়ে পরা গোপালগঞ্জ প্রকল্পের কাজ ২০১৪ সালে তিনি জয়েন করার পর পুরোদমে চালু করা, ২.৫ বিঘা জমিতে ঢাকায় নতুন ওয়ার হাউস স্থাপন করাসহ কর্মী বান্ধব পরিবেশ তৈরি করা অন্যতম। যার কারনে ইডিসিএল এমন ভাবে এগিয়ে যাচ্ছে।

একনেক পাশ হয়েছে ইডিসিএলের নতুন প্রকল্প।মানিকগঞ্জে ৩১.৫ একর জমির উপর নতুন আঙ্গিকে সাজানো হবো ৬২ বছরের পুরনো জরাজীর্ণ কারখানা। এই প্রকল্প আর গোপালগঞ্জের ভ্যাকসিন প্রজেক্ট হলে বিশ্বের বুকে ইডিসিএল জানান দিবে নতুন পরিসরে এমনটা বলছে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা কর্মচারিরা।

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com