ঢাকা, ২১ এপ্রিল ২০২৪, রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

থামেনি কারসাজি, বেশি দামে সহজেই মিলছে ট্রেনের টিকিট

অনুসন্ধান | অনলাইন ডেস্ক

(৩ সপ্তাহ আগে) ৩০ মার্চ ২০২৪, শনিবার, ৭:১১ অপরাহ্ন

banglahour

ঈদযাত্রায় ৭ ও ৮ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি শেষ হওয়ার পর এখনো বিভিন্ন রুটের অনেক টিকিট কালোবাজারে পাওয়া যাচ্ছে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে কালোবাজারে টিকিট কারবার করেন এমন এক ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই দুদিনের সাতটি টিকিট চাইলে বলা হয়, দেওয়া যাবে। এজন্য বাড়তি দিতে হবে প্রায় ৪ হাজার টাকা।

বাবু নামে একজন যাত্রী জানান, দিনাজপুরগামী ট্রেনে সকাল ৮টা থেকে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরুর পর সর্বোচ্চ ৫ সেকেন্ডের মধ্যে একাধিক ফোন থেকে চেষ্টা করেও ট্রেনের টিকিট পাওয়া যায়নি। আসন ফাঁকা দেখালেও টিকিট কাটতে গেলেই দেখাচ্ছে বুকড (বিক্রি হয়ে গেছে)। ব্যর্থ হয়ে এক কালোবাজারিকে ফোন করে দুটি টিকিট চাইলে আধা ঘণ্টার মধ্যে পাঠিয়ে দিল। ১ হাজার ৬০০ টাকার দুটি টিকিটের দাম দিতে হলো ৩ হাজার টাকা।


বাবু ৬ এপ্রিলের টিকিট সংগ্রহ করেছেন গতকাল শুক্রবার। অথচ নিয়ম অনুযায়ী এটি বিক্রি শেষ হয়েছে গত বুধবার।
ওই সূত্র ধরে ফোন নম্বর সংগ্রহ করে যাত্রী পরিচয় দিয়ে যোগাযোগ করা হয় দিনাজপুরের ফুলবাড়িয়ার টিকিট কালোবাজারি রাজুর সঙ্গে। তার কাছে ঢাকা থেকে দিনাজপুরের ফুলবাড়িয়া যেতে ৭ এপ্রিলের চারটি ও ৮ এপ্রিলের তিনটি ট্রেনের টিকিট চাইলে তিনি বলেন, ‘একটু অপেক্ষা করেন, খোঁজ নিয়ে জানাচ্ছি।’ ১৫ মিনিটের মধ্যে রাজু ফোন করে আশ্বস্ত করলেন যে দেওয়া যাবে।

দাম কত জানতে চাইলে রাজু জানান, ৭ এপ্রিল একতা এক্সপ্রেসের চারটি এবং ৮ এপ্রিল চিলাহাটি এক্সপ্রেসের তিনটি টিকিট হবে। ভাড়া পড়বে ৭ হাজার টাকা। অথচ ঢাকা থেকে ফুলবাড়ী পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনের শোভন চেয়ারে প্রকৃত ভাড়া ৪২৫ টাকা হিসাবে মোট ভাড়া ২ হাজার ৯৭৫ টাকা।

রেলওয়ের সময়সূচি অনুযায়ী, ৭ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি শেষ হয়েছে গত বৃহস্পতিবার আর ৮ এপ্রিলের টিকিট বিক্রি হয়েছে শুক্রবার সকালে। অথচ গতকাল বিকেল পর্যন্ত তার কাছে ওইদিনের একাধিক টিকিট রয়ে গেছে।

টাকা কিছুটা কম নেওয়ার কথা বললে রাজুর জবাব, ‘কম নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কারণ টিকিট আমি আরেকজনের কাছ থেকে নিই। টিকিটের অনেক চাপ। ফাও কথা বলার সময় নেই।’ নিজের দুটি নম্বর (০১৭৩৮০২৭৩৫৩ ও ০১৭০৪৩৫৫৮৫৭) দিয়ে রাজু বললেন, ‘এখানে বিকাশ, নগদ সব অ্যাকাউন্ট আছে। দ্রুত টাকা পাঠান, না হলে পরে কিন্তু টিকিট পাবেন না।’

তার দেওয়া দ্বিতীয় নম্বরটি হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর এবং সেটি আরিফ নামে নিবন্ধন করা আছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, রাজু একসময় ফুলবাড়িয়া স্টেশনে পান, সিগারেটের ব্যবসা করতেন। দীর্ঘদিন ধরে ওই ব্যবসা করার সুবাদে টিকিট কালোবাজারির সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। এখন তিনি তার পানের ব্যবসা বন্ধ করে টিকিটের কালোবাজারি করেন ফুলবাড়িয়াতে বসেই।

সূত্র জানায়, পুলিশের হাতে একবার ধরাও পড়েছিলেন তিনি। কিছুদিনের মাথায় ছাড়া পেয়ে আবারও এ কালোবাজারি শুরু করেছেন।

ট্রেনের টিকিট বিক্রিতে কালোবাজারি বন্ধে গত বছর ১ মার্চ থেকে ‘টিকিট যার, ভ্রমণ তার’ এমন স্লোগান সামনে রেখে অনলাইনে ও অফলাইনে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়ে নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

পাশাপাশি এবার ঈদ উপলক্ষে এবারই প্রথম মোবাইলে ওটিপি (ওয়ানটাইম পাসওয়ার্ড) সিস্টেম চালু করা হয়েছে। এর ফলে একটি মোবাইল নম্বর দিয়ে সর্বোচ্চ চারটি টিকিট সংগ্রহ করা যাবে। এভাবে ঈদযাত্রার টিকিটে সর্বোচ্চ দুবার (যাওয়া-আসা) একজন টিকিট কিনতে পারবেন।

অনলাইনে রেলের টিকিট বিক্রির দায়িত্বে থাকা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান সহজ ডট কম ও রেলওয়ের অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী কালোবাজারির সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে।

এবার ঈদযাত্রার টিকিট বিক্রি শুরুর আগে রেলওয়ের কর্মকর্তারা আশা করেছিলেন ওটিপি পাঠানোর এ পদ্ধতি নতুন চালু হওয়ায় টিকিট নিয়ে কারসাজি অনেকটা কমবে। কিন্তু বাস্তবে তা কমেনি।

যাত্রীদের অভিযোগ টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার পর মুহূর্তেই টিকিট শেষ হয়ে যাচ্ছে। আবার অনলাইনে আসন ফাঁকা দেখালেও টিকিট কিনতে গেলে সেটি বিক্রি দেখাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সহজ ডট কমের প্রযুক্তিগত জালিয়াতির পাশাপাশি নানা কৌশলে কালোবাজারি চক্র বিভিন্ন রুটের টিকিট আগে থেকেই সংগ্রহ করে রাখছে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ।

তবে কালোবাজারি চক্রের হোতা রাজু এ প্রতিবেদককে জানান, টিকিট তারা সংগ্রহ করলেও ইচ্ছেমতো পরিচয়পত্র দিয়ে টিকিট কাটা যাবে। ট্রেনের ভেতর কোনো সমস্যা হবে না।

ঈদযাত্রার টিকিট বিক্রি শুরুর আগে রেলপথমন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম জানিয়েছিলেন টিকিট বিক্রির কালোবাজারি বন্ধে নানা উদ্যোগ নেওয়ার ফলে এবার ঈদে যাত্রীদের টিকিট নিয়ে ভোগান্তি বন্ধ হবে।

তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেছিলেন, ‘টিকিট বিক্রি শুরুর পর ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মধ্যেই শেষ হয়ে যায়। সার্ভার ডাউনের কারণে সাইটে প্রবেশ করা যায় না। এগুলো সব সত্যি। এই টিকিট কালোবাজারির সঙ্গে একটি সিন্ডিকেট জড়িত। যাদের সঙ্গে সহজের লোক এবং আমাদের রেলের লোকও জড়িত। ইতিমধ্যে আমরা দুটি সিন্ডিকেটকে ধরে আইনের আওতায় এনেছি। ঠিকমতো টিকেটিং ব্যবস্থা চালু রাখার জন্য সহজকে কঠোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া টিকিট কালোবাজারি বন্ধে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও রেলের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে কোনোরকম ছাড় দেওয়া হবে না। আশা করছি ঈদের আগে আরও ভালো ফল দিতে পারব।’

দেশব্যাপী ট্রেনের টিকিট কালোবাজারির অভিযোগে সম্প্রতি সহজ ডট কমের কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে গত ২৬ জানুয়ারি ১৪ জনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১ হাজার ২২৪টি টিকিট জব্দ করা হয়। তারা প্রতিদিন কালোবাজারির মাধ্যমে পাঁচ শতাধিক টিকিট সংগ্রহ করে বেশি দামে বিক্রি করত।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা রেলস্টেশনে কর্মরত অসাধু কর্মচারী, সহজ ডটকমের অসাধু কর্মকর্তা এবং সার্ভার রুম ও আইটি শাখার কর্মীদের সহযোগিতায় ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি করত বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

টিকিট কালোবাজারির অভিযোগে গত ফেব্রুয়ারি মাসে ১০ দিনে রেলওয়ের তিনজন বুকিং সহকারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। টিকিট কাটার জন্য তারা কালোবাজারি ও দালালদের সরবরাহ করা অজ্ঞাতপরিচয় নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র ও মোবাইল ফোন নম্বর ব্যবহার করত। এ ছাড়া স্টেশনের টিকিট কাটতে আসা যাত্রীদের জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও মোবাইল ফোন নম্বর ডায়েরিতে টুকে রাখত। তারপর সময় সুযোগমতো সেসব পরিচয়পত্রের নম্বর ও মোবাইল ফোন নম্বর দিয়ে টিকিট কেটে কালোবাজারিদের হাতে তুলে দিত।

এসব অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য জানতে সহজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মালিহা এম কাদির এবং জনসংযোগ কর্মকর্তা ফারহাত আহমেদের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

টিকিট কালোবাজারির পাশাপাশি জাল টিকিট বিক্রিরও প্রমাণ মিলছে সাম্প্রতিক সময়ে। কম্পিউটারের দোকান থেকে অনলাইনে টিকিট কাটার পর পিডিএফ কপি রেখে দেওয়া হয়। এ কপি এডিট (সম্পাদনা) করে নতুন আসন বসানো হয়। এমনকি কাউন্টার থেকে কাটা টিকিট স্ক্যান করে সম্পাদনার মাধ্যমে ইচ্ছেমতো আসনও বসানো হয়। এভাবেই ট্রেনের জাল টিকিট বিক্রির ডিজিটাল অপরাধী চক্র এখন সক্রিয়। এতে সাধারণ যাত্রীরা প্রতারণার শিকার হওয়ার পাশাপাশি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের আর্থিক জরিমানা ও কারাদণ্ডের মুখোমুখি হন।

কালোবাজারি চক্র এখন নতুন পদ্ধতি হিসেবে টিকিট রিফান্ড (ফেরত দিয়ে নতুন টিকিট সংগ্রহ) করে ফের টিকিট নিয়ে তা বিক্রি করছে। অর্থাৎ তারা আগেই টিকিট কেটে রাখে। এরপর যাত্রী জোগাড় করে কোনো এক ফাঁকে কাউন্টারে গিয়ে টিকিট রিফান্ড করেই সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীর এনআইডি, নাম ও মোবাইল ফোন নম্বর দিয়ে টিকিট করে দিচ্ছে। ফলে ট্রেনে যাত্রীর টিকিট পরীক্ষা করলেও তা যে কালোবাজারিদের কাছ থেকে কেনার তা আর ধরার উপায় থাকে না।

টিকিট বিক্রিতে রেকর্ড হিট : রেলের অগ্রিম টিকিটের জন্য গতকাল ৮ এপ্রিল ঈদযাত্রার জন্য সর্বাধিক মানুষ চেষ্টা চালিয়েছেন। সকাল ৮টায় পশ্চিমাঞ্চলের টিকিট বিক্রি শুরুর প্রথম ৩০ মিনিটে রেকর্ড ১ কোটি ৩০ লাখ বার টিকিট কাটার জন্য ওয়েবসাইটে চেষ্টা (হিট) চালানো হয়েছে। প্রথম এক ঘণ্টায় প্রায় ২ কোটি ২০ লাখ হিট হয়েছে।

সকালে পশ্চিমাঞ্চলের (রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের জন্য) ১৫ হাজার ৮৯০টি টিকিট ছাড়া হলে প্রথম ১৫ মিনিটে ৭ হাজার ১৯৪টি টিকিট বিক্রি হয়ে যায়। আধা ঘণ্টায় বিক্রি হয় ১২ হাজার ৭৮৩টি টিকিট। সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যে নির্ধারিত প্রায় সব টিকিট বিক্রি হয়ে যায়।

দুপুর ২টা থেকে রেলের পূর্বাঞ্চলের (ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট) টিকিট বিক্রি শুরুর পর সেখানেও টিকিটের জন্য মানুষের চাপ দেখা যায়। তবে তা পশ্চিমাঞ্চলের চেয়ে কিছুটা কম। এ অঞ্চলের জন্য টিকিট ছাড়া হয় ১৬ হাজার ৬৯৬টি। আজ সর্বশেষ দিন ৯ এপ্রিলের আগাম টিকিট বিক্রি করা হবে।

সূত্র: দেশ রূপান্তর 

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com