ঢাকা, ১৩ জুলাই ২০২৪, শনিবার, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

মাঠের রাজনীতি চাঙ্গা হচ্ছে

মতামত | মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন

(১ বছর আগে) ১৪ জানুয়ারি ২০২৩, শনিবার, ৫:১১ অপরাহ্ন

banglahour

মাঠের রাজনীতি চাঙ্গা হচ্ছে। বাংলাদেশের জন্য একটি ইতিবাচক দিক। দেশের মানুষের মনে শান্তি স্বস্তি ফিরে আসবে। বাংলাদেশের মানুষ যে রাজনৈতিক কালচারে বড় হয়েছে সে কালচারের অনুপুস্থিতিতে মানুষ হতাশ হয়ে যায়। কি যেন একটা নাই এমন একটা ভাব সবার। 

সকাল বেলা ঘুম থেকে ওঠে চা দোকান কিংবা টং দোকানে বসে একটা বিস্কুট আর এক কাপ চা খেতে খেতে রাজনৈতিক আলোচনা সমালোচনা পর্যালোচনা দিয়ে দিন শুরু করে বাঙালি। গ্রাম-গঞ্জ-শহর-বন্দর সব খানে একই অবস্থা। রাজনৈতিক আলোচনা না করলে যেন পেটের ভাত হজম হয়না। সেই রাজনীতি প্রিয় মানুষগুলো যদি মনখোলে দুটি রাজতৈক কথা না বলতে পারে তাহলে কেমন যেন হাসফাস করে। 

মিটিং মিছিল ও আন্দোলন সংগ্রামতো মানুষের মজ্জাগত। কয়েক দিন এসবের বাইরে থাকলে যেন দম বন্ধ হয়ে আসে। রাজনৈতিক দলগুলোর নেতা-কর্মীদের অবস্থা আরো খারাপ। তারা ঘুমের ঘোরেও মিটিং মিছিল করে। কোনো কারণে যদি দেশে মিটিং মিছিল করা বন্ধ থাকে তাহলে শ্বাস বন্ধ হবার উপক্রম হয়। 

বাংলাদেশে অনেক বারই মিটিং মিছিল আন্দোলন সংগ্রামের ওপর অলিখিত নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে বিশেষ করে সামরিক সরকারের দিনগুলোতে। পাকিস্তান আমলে মিটিং মিছিল আন্দোলন সংগ্রাম পুরোপুরিই নিষিদ্ধ ছিলো। তারপরও অদম্য বাঙালি জাতিকে থামিয়ে রাখতে পারেনি। সামরিক জান্তার রক্তচক্ষু, রাইফেল স্টেনগান কামানের গুলি উপেক্ষা করে জীবন বাজি রেখে আন্দোলন সংগ্রাম করেছে বাঙালি। ছিনিয়ে এনেছে মাতৃভাষা বাংলা। অর্জন করেছে গৌরবময় স্বাধীনতা। 

অধিকার আদায়ের জন্য কখনো এতটুকু ছাড় দেয়নি বাঙালি জাতি। স্বৈরাচারী এরশাদ সরকারের দুঃশাসন, মঈন উদ্দিন ফখরুদ্দিনের শাসন সবই নীরবে সহ্য করেছে। সময় সুযোগে প্রতিবাদ প্রতিরোধ করে উৎখাত করেছে। যে বা যারা যখনই বাঙালি জাতির স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করেছে তাদেরকেই দাঁতভাঙ্গা জবাব দিয়েছে বাংলার মানুষ। দীর্ঘ ২৪ বছর লাগাতার আন্দোলন সংগ্রাম আর নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর বাঙালি ছিনিয়ে এনেছে মহান স্বাধীনতা। অর্জন করেছে লাল সবুজ পতাকা। এই পতাকার মান যে করেই হোক বাঙালি রাখবেই। 

এদেশের সাধারণ মানুষ সবই দেখে সবই বুঝে। তারা ছাড় দেয় কিন্তু ছেড়ে দেয়না। সময়ের প্রয়োজনে বাংলাদেশের মানুষ গড়ে তোলে প্রতিবাদ প্রতিরোধের পাহাড়। দেশের জনগণই সরকারকে ক্ষমতায় বসায় আবার তারাই ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়। তাই বলা হয় ‘জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস’। 

প্রকৃত অর্থে এই উৎসের হাতেই জিম্মি সকল রাজনীতিবিদ। রাজনীতিবিদদের মূল কাজ জনগণকে সাথে নিয়ে তাদের জন্য রাজনীতি করা। দেশের মানুষের সুবিধা অসুবিধার প্রতি লক্ষ্য রাখা। 
যখন কোনো রাজনীতিবিদ সাধারণ মানুষের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় তখন মানুষও তাকে চেনেনা। ভোটের সময় যথাযথ জবাব দেয়। ভোটে হেরে গিয়ে তখন রাস্তায় হাঁটেন আর আকাশের তারা কিংবা পাখি গুনেন। জনবিচ্ছিন্ন জননেতার পরিনতি এমনি হয়। ক্ষমতায় থাকার সময় সাধারণ মানুষকে যারা পাত্তা দেয়না সাধারণ মানুষও তাদেরকে ক্ষমা করেনা। 

বাংলাদেশের রাজনীতি বেশ ক’বছর ধরেই বলা যায় জনবিচ্ছিন্ন। যে কারণেই হোক রাজনৈতিক নেতারা সাধারণ মানুষের দরজায়, জনগণের বাড়ি বাড়ি যায়নি। সরকারি দল না হয় ক্ষমতায় থাকার কারণে সাধারণ মানুষের কাছে যাবার সময় কিংবা ফুরসত কোনটাই পায়না। বেসরকারি বা বিরোধী দলগুলো কি করেছে? তারাতো সাধারণ মানুষের খোঁজ খবর নিতে পারতো। 

বিশ্বমানবতার জন্য মহাবিপদ, মহা বিপর্যয়, অশনি সংকেত করোনা মহামারি গেছে। কোনো একটা দলের একজন নেতাকর্মীও সাধারণ মানুষ বা ভোটারদের খবর নেয়নি। টানা দুইটা বছর মানুষ কী খেয়েছে না খেয়েছে, বেঁচে আছে নাকি মরে গেছে কোনো খবর রাখেনি বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলো।

মহামারি প্রায় শেষ। নির্বাচন আসছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনকে কেন্দ্রকরে নেতানেত্রীরা মাঠে নামতে শুরু করেছে। আয়োজন করছে নানান সভা সমাবেশ। কদিন পর হয়তো ভোট চাওয়ার জন্য গণমানুষের ঘরে ঘরে যাবে। নানান প্রতিশ্রæতি দেবে। হেন করেঙ্গা তেন করেঙ্গা বলবে। নির্বাচনে জিতলে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দেবে বলে হাক ডাক ছাড়বে। যে করেই হোক ভোটারদের মন গলানোর চেষ্টা করবে। ইতোমধ্যে অনেকে শুরু করে দিয়েছে প্রচার প্রচারনা। চেষ্টা করছে সাধারণ মানুষের কাছে যেতে। 

মানুষ সবকিছু বুঝেও না বোঝার ভান করে। এতদিন দুঃসময়ে কারা পাশে ছিলো তা জনগণ সুক্ষভাবে বিচার বিশ্লেষণ করছে। কারা বসন্তের কোকিল আর কারা প্রকৃত বন্ধু তা বিচার করার ক্ষমতা বাংলার সাধারণ মানুষের আছে। সামনের দিনগুলোতে সে হিসাব নিকাশ করেই রাজনীতিবিদদের সাথে আচরণ করবেন।
যাই হোক মাঠের রাজনীতি মাঠে ফিরে আসছে দেখে মানুষ খুব খুশি। যে রাজনীতিবিদদেরকে তারা প্রায় ভুলতে বসেছিলো তাদের সাথে ইন্টারেকশন হবে ভেবে অনেকে আনন্দিত। 

সরকারি দল বিরোধী দল উভয়-ই বর্তমানে মাঠে। জনসভা পাল্টা জনসভা করছে। কোন দলের জনসভায় কত লোক হয়েছে তা নিয়েও চলছে বাক বিতন্ডা। টেলিভিশন টকশোতে চলছে গরম গরম রাজনৈতিক আলাপচারিতা। গরম গরম আলোচনা। তর্ক-বিতর্ক। দেশের মানুষ যে চরম বিপাকে আছে, জিনিসপত্রের আকাশচুম্বি দামের কারণে চ্যাপ্টা হবার উপক্রম তা নিয়ে সরকারি দল বিরোধী দল কোনো দলেরই মাথা ব্যথা আছে বলে মনে হয়না। সবাই আছে যার যার সুবিধা অসুবিধা চাওয়া পাওয়া নিয়ে। 

চিনির বাজারে আগুন লেগেছে তাতে কারো কিচ্ছু আসছে যাচ্ছেনা। সরকারি দল যেমন নির্বিকার তেমনি উদাসীন বিরোধী দলগুলো। সবার চিন্তা চেতনা ভাবনার কেন্দ্রবিন্দু একটাই আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজারে আগুন লেগে পুড়ে ছাড়খাড় হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের মানুষ চরম দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছে। বিষয়টা যেন স্বাভাবিক। রাজনৈতিক দলগুলোর আচরণে তাই মনে হচ্ছে। 
আসলে কিন্তু তা নয়। বাংলাদেশের মানুষের গায়ে আগুন লাগলে সে আগুনের আঁচ রাজনৈতিক দলগুলোর ওপরও লাগতে হবে। তা না হলে সাধারণ মানুষ, যারা আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটার তারা মনোক্ষুন্ন হবে। মনে চরম আঘাত পাবে। 
গণমানুষের বিপদে আপদে পাশে থাকা যে কোনো রাজনৈতিক দলের প্রথম এবং প্রধান কাজ। অথচ এই কাজটিই ঠিক ঠাক করেনা বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলো। দলের লোকেরা অধিকাংশ সময় ব্যস্ত থাকে নিজেদের সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে। তারা প্রায় সময়ই বলার জন্য বলে কিন্তু মনে প্রাণে বিশ্বাস করেনা। এর বড় প্রমাণ বেশ কয়েক মাস ধরে চলা দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি। 

নিত্য পন্যের দামের বিষয়টা দেখার যেন কোনো কর্তৃপক্ষ নেই। মাঠে ঘাটে হাটে আন্দোলন সংগ্রাম চলছে, হয়তো আরো চলবে কিন্তু সাধারণ মানুষ যে তিমিরে ছিল সে তিমিরেই রয়ে গেছে।
রাজনীতির মাঠে চলছে বক্তব্য পাল্টা বক্তব্য। এক একটা রাজনৈতিক দল তাদের মতো বক্তৃতা বিব্রিতি দিচ্ছে। জনগণের দিকে কারো তেমন কোনো নজর আছে বলে মনে হচ্ছেনা।
২৯ অক্টোবর ২০২২, শনিবার ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন ‘গাধা পানি ঘোলা করে খায়, বিএনপি ভোটে আসবে’। 

তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ভূত মাথা থেকে নামানোর কথা বলেছেন। একই দিন রংপুরে বিএনপির গণসমাবেশে দলটির  মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেনন ‘সর্বভুক সরকার দেশ শেষ করার পাঁয়তারা করছে’। 
এক দলের সাধারণ সম্পাদক ও অন্য দলের মহাসচিবের বক্তব্য পাল্টা বক্তব্য সাধারণ মানুষ শুনছে আর ভাবছে তাতে তাদের কী লাভ? মানুষের জীবন মান উন্নয়ন নিয়ে চিন্তা না করে রাজনৈতিক বক্তব্য দিলে বাংলাদেশের মানুষ এখন তা সহজে গ্রহণ করেনা। মানুষের কাছে পোঁছাতে হলে সব দলকেই তাদের কথা বলতে হবে। মানুষের জন্য ভাবতে হবে। 

রাজনৈতিক দলগুলো যদি ‘সাধারণ মানুষ’ নিয়ে ভাবনাটা বাড়াতে না পারে তাহলে অস্তিত্ব সংকটে পড়ার সমুহ আশঙ্কা আছে। 
‘জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস’ কথাটা শুধু মুখে বললেই হবেনা। বাস্তবে রূপদান করতে হবে। সাধারণ মানুষের কথা শুনতে হবে। তাদের কথা বলতে হবে। 
দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে বলতে হয় বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের কথা কেউ শোনেনা। কেউ বলেনা। সরকারি বেসরকারি সব দলই ব্যস্ত থাকে নিজেদের দেনা পাওনা নিয়ে। 
আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চ্যালেঞ্জটা হবে অন্যরকম। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে শক্ত হাতে। সাধারণ মানুষের সাথে যেসব দলের যোগাযোগ ভালো সেসব দলই সফলকাম হবে। ভোটারদের আস্থা অর্জন করতে পারবে। সে আস্থা অর্জনের ফলাফল হবে নির্বাচনে বিজয়। 

রাজনীতি বিশ্লেষকরা মনে করছেন বাংলাদেশের এবারের নির্বাচনটা হবে একটু অন্যরকম। গতানুগতিক নির্বাচনের চেয়ে আসন্ন নির্বাচনের প্রভাব হবে সুদূর প্রসারি। দেশি-বিদেশি সব পর্যবেক্ষকের কড়া নজর থাকবে বাংলাদেশের নির্বাচনের দিকে। নির্বাচন কেন্দ্রিক আলাপ আলোচনা তাই কূটনৈতিক পাড়াতেও শোনা যাচ্ছে। নির্বাচন যে হবে তার একটা ইশারা-ঈঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। রাজনৈতিক দলগুলোও এবার আটঘাট বেঁধে মাঠে নামবে বলে মনে হচ্ছে। কোনো কোনো দলতো প্রকাশ্যে জনসভা করছে। নির্বাচনের জন্য ভোটারের কাছে ভোট ও সহযোগিতা প্রার্থনা করছে। অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে মাঠের রাজনীতি চাঙ্গা হচ্ছে। 
[মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন]
সাংবাদিক ও লেখক     
 

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com