full screen background image
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন

আর কত লাশের মিছিল দেখলে রাষ্ট্রের টনক নড়বে ?

নতুন এক আতঙ্কের নাম হযে দাঁড়িয়েছে পুরান ঢাকা।বাড়ি,গাড়ি কিংবা রাস্তা কোনটিই আজ নিরাপদ নয়।ঠিক যেন মৃত্যুপুরী নগরী।নিমতলি থেকে চকবাজারের ঘটনাতো তাই বলে দেয়।

একের পর এক ঘটে যাচ্ছে অগ্নিকাণ্ড, বিনিময়ে শত তাজা প্রাণের আত্মহুতি।ঢাকা মেডিকেলের বার্ণ ইউনিটে কারো পড়ে আছে নিথর কয়লার দেহ,কেউবা জানাচ্ছে বেঁচে থাকার নিস্ফল আকুতি।রাষ্ট্রপতি,প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেতার শোক প্রকাশ।রাষ্ট্রীয়ভাবেও শোক প্রকাশের দিন ঘোষণা করা হয় সাথে সরকারীভাবে সকল চিকিৎসার খরচ বহন করার প্রতিশ্রুতি ও ক্ষতিপূরণ।কেউবা আবার কালো ব্যাজ ধারন করে কর্মসুচীও পালন করে।

অতঃপর যার চলে যায় সেই বুঝে হায়, বিচ্ছেদে কি যন্ত্রনা। মা তার একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ।উপার্জনের একমাত্র অবলম্বন আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে।যে সন্তানকে কাজ শেষে বাসায় গিয়ে বুকে নিত বাবা আজ সে বাবা কয়লায় পরিণত হয়েছে।সন্তান চিনেনা তার বাবা কোনটি।প্রিয় মানুষটিও অপেক্ষা করছে ডিএনএ টেস্টের জন্য।

নিমতলি অগ্নিকাণ্ড বা নিমতলি ট্র্যাজেডিও বলা হয়ে থাকে।২০১০ সালের তিন জুন রাত আনুমানিক ১০:৩০ মিনিট।সিলিণ্ডার বিস্ফোরিত হয়ে আগুনের সূত্রপাত হয়,সাথে সাথে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে আশে পাশের ভবনগুলোতে।ক্যামিকেলের দোকানগুলো আগুনের লেলিন শিখা দ্রুত প্রসারিত হতে সহযোগিতা করে।ভবনের উপর তলায় তখন বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল।দিকবিদিক ‍ছুটে চলার আগেই আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয় মোট ১২৪ জন মানুষের।হয়তো বিয়ের অনুষ্ঠান না হলে মৃত্যুর সংখ্যা আরো কম হতে পারতো।ফায়ারসার্ভিসের লোকজন ঠিকমত আসলেও সরু রাস্তা যেমন থামিয়ে দিয়েছিল তাদের কাজের গতি, তেমনি ক্যামিকেল কারখানাগুলো আগুনকে দ্রুত ছড়িয়ে দিতে সহযোগিতা করেছিল।এরপর ক্যামিকেল কারখানা বন্ধের নানা উদ্যোগ নিলেও দুদিন পর যে লাউ সে কদু।

নিমতলির সাথে চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার এক জায়গায় মিল রয়েছে, তা হল দুটি ঘটনাই রাত ১০:৩০ মিনিটে হয়েছে।যদিও নিমতলির ঘটনা মাত্র তিন ঘন্টায় আগুন নিভানো গেছে কিন্তু চকবাজারে যে অগ্নিকাণ্ড ঘটে তা নিভাতে লেগেছে প্রায় ১২ ঘন্টা।

গত বুধবার চকবাজার চুড়িহাট্টা মোড়ে একটা প্রাইভেটকার পিকআফ ভ্যানকে ধাক্কা দিলে তার মধ্যে থাকা সিলিণ্ডার বিস্ফোরণ হয়।এতে কারে পাশে খাওযার হোটেলে রান্নার কাজে ব্যবহৃত সিলিণ্ডারগুলাও বিস্ফোরিত হয়।মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে যায় ওয়াহেদ ভবনসহ বাকি ভবনগুলোতে।এখানেও ক্যামিকেল কারখানা ও পারফিউমের গুদামের কারনে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।কিছু বুঝে উঠার আগেই রাস্তার পথচারি যারা রিকসায়,ভ্যান,সাইকেল কিংবা গাড়িতে ছিল বেশিরভাগই আগুনের লেলিন শিখায় শিকার হয়। কিছু মানুষ গাড়ি থেকে নেমে বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে আবার কেউ বাড়ি থেকে নেমে রাস্তায় এসেছে বাঁচতে কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি কারোই।ভাবতে পারেনি কোথায় নিরাপদ হবে।বাড়ি,গাড়ি নাকি রাস্তা !

শুধু কি ক্যামিকেল কারখানা দূর্ঘ্টনার কারন ? অবিশ্যই না,তবে দূর্ঘটনার পরবর্তি যা হয় তার সহায়ক ক্যামিকেল কারখানা।আগুনতো বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্রেও লাগে।তাহলে ওখানে কি কোন ক্যামিকেল আছে ? কথা হল আবাসিক এলাকায় এসব বিস্ফোরক দ্রব্য ও দাহ্য পদার্থ্ নিয়ে ব্যাবসা করার জন্য রাজউক কিংবা সিটি করপোরেশনের কোন অনুমোদন আছে কিনা।খবর নিয়ে জানা যায় দু-একটার অনুমোদন থাকলেও বেশিরভাগ কারখানায় অনুমোদন নেই।অবৈধভাবে করে যাচ্ছে এসব ব্যাবসা আর বাড়ীর মালিক অধিক ভাড়া পাওযার আশায় বৈধ-অবৈধ তোয়াক্কা করছেন না।

বাড়ীর মালিকরা সচেতন হলে এসব ক্যামিকেল কারখানা যে বন্ধ হয়ে যাবে তা নয়।কারন তারপরও কিছু অসাধু ব্যাবসায়ী লোভে পড়ে আবার এইসব ব্যাবসা শুরু করবে।কথা প্রসঙ্গে হোটেলে এক ভদ্রলোক বলেই পেললেন, সরকার কত মনিটরিং করতে পারবে, যতক্ষন আমরা সাধারণ মানুষ ঠিক না হতে পারি ? কথাটা আংশিক সত্য যে আমরা ঠিক না হলে কোন কিছু সমূলে দূর করা সম্ভব নয়।পাল্টা উত্তরে ভদ্রলোকের কাছে জানতে চাইলাম,আপনি কি চাইলে আগামীকাল পাশের মার্কেটে একটা অস্ত্রের দোকান দিতে পারবেন ? হ্যা, হয়তো পারবেন।কিন্তু এর জন্য আপনাকে সিটি করপোরেশনের ট্রেড লাইসেন্স থেকে শুরু করে আইনি অনেক জটিলতা মেনে করতে হবে।যা একটি ক্যামিকেল কারখানায় করা হয় না।কারন অস্ত্রের কারখানাকে যতটা বড় করে দেখা হয় ক্যামিকেল করাখানাকে ওভাবে দেখা হয় না।অথচ এই ক্যামিকেল কারখানা কত ভয়ানক হয তা আমরা নিমতলি ও চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দেখেছি।

কিছু অসাধু ব্যাক্তি আছে যারা সরকারী নিয়ম ভঙ্গ করে অবৈধভাবে কার্যক্রম চালিয়ে যায়।তাদের জন্যইতো রয়েছে প্রশাসন।অনুমোদনহীন অস্ত্রের ব্যাবসা করলে যদি অবৈধ হয়,তার জন্য জেল জরিমানা এবং ফাঁসিরও বিধান থাকে তাহলে অনুমোদনহীন ক্যামিকেল ব্যবসায় একই আইন হবে না কেন? কেন আমরা অনুমোদনহীন অস্ত্র ও ক্যামিকেল সমান চোঁখে দেখছিনা ? আর কত লাশের মিছিল দেখলে আমাদের সরকারী আমলা থেকে শুরু করে প্রশাসনের টনক নড়বে ?কত সন্তান তার অবুঝ চোঁখের অশ্রু ঝরালে সরকারের নীতিনির্ধারকদের হৃদয়স্পর্শ করবে ? দুর্নীতি দমন ও মাদক নির্মুলে সরকার যেভাবে কাজ করছে, আশা করি যেসব অনিয়ম প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে তারও নিয়মের মধ্যে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করবে।খুব কঠিন কিছু নয়,প্রয়োজন একটু সদিচ্ছার।

সাব্বির আহাম্মদ পলাশ

রিপোর্টার,বাংলা আওয়ার।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *