Thursday, June 30, 2022
Home Blog

বিএনপির অবস্থা এখন পথহারা পথিকের মতো দিশেহারা: ওবায়দুল কাদের

0

নেতিবাচক ও ধ্বংসাত্মক রাজনীতির জন্য বিএনপিকে আর জনগণ চায় না,এটা বুঝতে পেরেই তারা জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আজ সকালে সচিবালয়ে তাঁর দপ্তরে ব্রিফিংকালে একথা বলেন। জনগণ শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন ও অর্জনে খুশি তাই তারা আগামী জাতীয় নির্বাচনেও আওয়ামী লীগকেই বেছে নিবে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন তাই বিএনপি এখন থেকেই নির্বাচন প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে ষড়যন্ত্র আর মিথ্যাচার করছে। তিনি বলেন দেখে শুনে মনে হয় বিএনপির অবস্থা এখন পথহারা পথিকের মতো দিশেহারা, তারা কখন যে কি বলে সেটা তারা নিজেরাও জানে না। আওয়ামী লীগ সরকার নাকি জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, – বিএনপি মহাসচিবের এমন কাল্পনিক অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন আসলে আওয়ামী লীগ নয়,জনগণ থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়ে বিএনপিই এখন জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। আওয়ামী লীগ নাকি নির্বাচন নির্বাচন খেলা খেলে আবার আগামী জাতীয় নির্বাচনের বৈতরণী পার হতে চায়,- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ ধরনের বক্তব্য হাস্যকর মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন দেশের মানুষ জানে আওয়ামী লীগ জনগণের জন্য রাজনীতি করে, আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে জনগণের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য, নিজেদের পকেট ভারী করার জন্য নয়। শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বের কারণেই বাংলাদেশ আজ বিশ্বে মর্যাদাশীল রাষ্ট্রে পরিচিতি পেয়েছে এমনটা জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন জনগণের উপর আমাদের আস্থা শতভাগ, কাজেই নির্বাচন নিয়ে খেলার প্রয়োজন নেই। তিনি আবারও স্পষ্ট করে বলেন সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং তা হবে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে। আসলে নির্বাচন নির্বাচন খেলা বিএনপিই ভালো বুঝে, তারা নিজেরা যা ভাবে অন্যের বেলায়ও তা মনে করে এমন দাবি করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন নির্বাচন নির্বাচন খেলা তো বিএনপি ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারী খেলেছিলো। মাগুরা ও ঢাকা-১০ এ খেলেছিলো,- বিএনপি ভুলে গেলেও দেশের মানুষ এখনো তা ভুলোনি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে বলেন গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া এবং জনগণের উপর আস্থা রাখুন,নির্বাচনে আসুন।ক্ষমতার মালিক জনগণ, জনগণ যাকে চাইবে সেই ক্ষমতায় আসবে। এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্ব ব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন। এসময় মার্সি টেম্বন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অর্থনীতিতে যে ইতিবাচক অগ্রগতি ও অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে তার ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন বাংলাদেশকে নিয়ে বিশ্ব ব্যাংক গর্বিত। সাক্ষাৎকালে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বিশ্ব ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় সড়কের নিরাপত্তার জন্য যে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে, তা দ্রুত বাস্তবায়নের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

চন্দ্রিমায় জিয়ার লাশ থাকার কোনো প্রমাণ কোথাও নেই : তথ্যমন্ত্রী

0

চন্দ্রিমায় জিয়ার লাশ থাকার কোনো প্রমাণ কোথাও নেই-তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১:
তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, চন্দ্রিমায় জিয়ার লাশ থাকার কোনো প্রমাণ কোথাও নেই।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীতে সরকারি বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে সংসদে এবিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্য সম্পর্কে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যথার্থই বলেছেন, জিয়ার লাশ কেউ দেখেননি।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি রাঙ্গুনিয়ার মানুষ, যেখানে জিয়াকে প্রথম সমাহিত করা হয় বলে বিএনপি দাবি করে। রাঙ্গুনিয়া উপজেলার তখনকার চেয়ারম্যান জহির সাহেব এখনো জীবিত। তিনি বলেছেন, তিনটি লাশ সেখান থেকে তোলা হয়েছিল, তার মধ্যে জিয়াউর রহমানের লাশ ছিলো না। এরশাদ সাহেব এবং জিয়াউর রহমানের ঘনিষ্ঠজন মীর শওকত দু’জনেই বলেছেন, তারা কেউ জিয়ার লাশ দেখেননি।’

চন্দ্রিমা থেকে কবরটি সরিয়ে ফেলার বিষয়ে প্রশ্ন করলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, লাশ ছাড়া কবর দাবি করা যেমন জনগণের সাথে প্রতারণা, তেমনি ইসলামের নিয়ম-নীতিবিরুদ্ধ। লাশ ছাড়া কবর রাখার কোনো কারণ আছে কি না, সেটিই জনগ্ণের প্রশ্ন।

এসময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মন্তব্য ‘আওয়ামী লীগ চিরস্থায়ী ক্ষমতার জন্য বিএনপির ওপর নির্যাতন করছে’ এর জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘আওয়ামী লীগ জনগণের ক্ষমতায় বিশ্বাসী, জনগণ যতদিন চাইবে ততদিন আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনা করবে, এর একদিনও বেশি নয়। গত ১৩ বছরে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেভাবে দেশ এগিয়েছে, প্রতিটি নাগরিকের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়েছে, তাতে মানুষ বঙ্গবন্ধুকন্যা ও আওয়ামী লীগের ওপর সন্তুষ্ট। পেট্রোলবোমা দিয়ে জীবন্ত, ঘুমন্ত মানুষ পুড়িয়ে হত্যাকারী, অবরোধের নামে মানুষকে অবরুদ্ধকারী বিএনপির সাথে তো জনগণের থাকার কথা নয়। বিএনপি নিজেরাই জনগণের প্রতিপক্ষ হয়ে নানা কর্মসূচি দিয়ে জনগণের কাছ থেকে অনেক দূরে সরে গেছে।’

‘বিরোধীদল দমনেও আওয়ামী লীগ বিশ্বাসী নয়’ উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘সন্ত্রাসী, পেট্রোলবোমা নিক্ষেপকারী বা ফৌজদারি অপরাধের আসামীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে যদি বিএনপি অপরাধীদের পক্ষ নেয়, তাহলে তো দেশে কোনো ফৌজদারি আইনই কার্যকর করা যাবে না, বিচারও থাকবে না। সুতরাং বিএনপির এসমস্ত কথা হাস্যকর।’

মেক্সিকোর স্বাধীনতার ২০০ বছর উপলক্ষে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি সমন্বিত প্যারেড কন্টিনজেন্টের অংশগ্রহণ

0

মেক্সিকোর স্বাধীনতার ২০০ বছর উদযাপন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত প্যারেডে
বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি সমন্বিত প্যারেড কন্টিনজেন্টের অংশগ্রহণ

ঢাকা, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ঃ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোঃ সোলাইমান, এসইউপি, পিএসসি এর নেতৃত্বে সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর চৌকস প্যারেড কন্টিনজেন্ট ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ স্থানীয় সময় সকালে মেক্সিকো সিটিতে আয়োজিত প্যারেডে সম্মানিত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত মেক্সিকোর মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে সালাম প্রদর্শন করে।

উক্ত প্যারেডে অংশগ্রহণকারী ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট কন্টিনজেন্ট এর মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দুইজন অফিসার, তিনজন জেসিও, অন্যান্য পদবীর ১৬ জন সহ ২১ জন, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একজন অফিসার, একজন জেসিও, অন্যান্য পদবির ছয়জন সহ আটজন, বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর একজন অফিসার, একজন জেসিও, অন্যান্য পদবির ছয়জন সহ আটজন এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ হতে দুইজন অফিসার রয়েছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে এ অনুষ্ঠানের সার্বিক দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে মেক্সিকোর স্বাধীনতার ২০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত বিশেষ কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণের জন্য মেক্সিকো সরকারের আমন্ত্রণে বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সমন্বয়ে সশস্ত্র বাহিনীর ৩৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি সামরিক কন্টিনজেন্ট মেক্সিকো গমণ করে।

নিজের অফিসে গাড়ি কেনার টাকা স্বাস্থ্য সেবায় দিলেন প্রধানমন্ত্রী

0

নিজের অফিসে গাড়ি কেনা বাতিল করে ১৫ কোটি টাকা সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় খরচ করতে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঢাকা: নিজের অফিসের গাড়ি কেনা বাতিল করে সেই টাকা সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় খরচের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম ইহসানুল করিম জানান, ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুকূলে মোটরযান ক্রয় খাতে ১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এই টাকা মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় খরচ করতে দেওয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে মানুষের স্বাস্থ্যের বিষয়টি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী তাঁর নিজের কার্যালয়ের জন্য গাড়ি কেনা বাতিল করে সেই টাকা মানুষের স্বাস্থ্য সেবায় খরচ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

ইহসানুল করিম আরও বলেন, করোনাকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রী ডাক্তার, স্বাস্থ্য কর্মী নিয়োগ থেকে শুরু করে, স্বাস্থ্যের অবকাঠামো ও সরঞ্জাম সুবিধা বাড়ানো, আইসিও বৃদ্ধি, হাসপাতালের সক্ষমতা বাড়ানো, স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রণোদনা, বিনামূল্যে করোনা টিকা সরবরাহসহ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে বহু পদক্ষেপ নিয়েছেন। মানুষের স্বাস্থ্য সেবার জন্য তিনি বিশেষ বরাদ্দের ব্যবস্থা করেছেন। নিয়মিত সেসব ব্যবস্থার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর কার‌্যালয়ের গাড়ি কেনা এ টাকা স্বাস্থ্য সেবায় ব্যয়ের মাধ্যমে আরও বহু মানুষ উপকৃত হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) সংশ্লিষ্টদের চিঠি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মো. আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি।

আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গাড়ি কেনার ১৫ কোটি টাকা স্বাস্থ্য সেবার কাজে দিয়ে মিতব্যয়ীতার নজির স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জনগণের আস্থাহীনতার আরেক নাম বিএনপি : ওবায়দুল কাদের

0

৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

জনগণের আস্থাহীনতার আরেক নাম বিএনপি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি আজ সকালে তাঁর বাসভবনে ব্রিফিংকালে একথা বলেন।

সরকার নাকি তাবেদার সরকারে পরিণত হয়েছে, – বিএনপি নেতাদের এমন উদ্ভট ও কাল্পনিক অভিযোগ প্রসংগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন প্রকৃতপক্ষে তাবেদারি তাদেরই হাতিয়ার, যারা জনগণের সমর্থনের তোয়াক্কা না করে অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় যাওয়ার অলি-গলি খোঁজে।

ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপিই তাবেদারি-বান্ধব দল, যারা নিজেরাই নিজেদের গঠনতন্ত্র মানে না।

তিনি বলেন যারা কথায় কথায় বিদেশিদের কাছে ধর্না দেয়, জনগণের কাছে যেতে সাহস পায় না তারাই হচ্ছে তাবেদার।

আওয়ামী লীগ এদেশকে আত্মমর্যাদাশীল এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি সমৃদ্ধ রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তুলতে চায় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপি বাংলাদেশকে তাবেদার ও একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়।

বিএনপির আন্দোলনের হাঁকডাক আসলে আন্দোলন-বিলাস মাত্র বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন বিএনপির এসব ভাবনা কথামালায় সীমাবদ্ধ শব্দবোমা ছাড়া আর কিছু নয়।

বিএনপি নেতারা সারাদেশে সংকট দেখতে পান কিন্তু তারা নিজেদের রাজনীতিতে কোন সংকট দেখতে পায় না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রশ্ন রেখে বলেন হাতের তালু দিয়ে কি আকাশ ঢাকা যায়? বিএনপি নেতারা খন্ডিত -দৃষ্টি দিয়ে দেখছে সবকিছু।

তিনি বলেন জনগণকে দূরে ঠেলে দিয়ে নেতৃত্ব তোষণ নীতিই এখন বিএনপির রাজনীতি। তারা সাদাকে সাদা যেমন বলতে পারেনা তেমনি পারেনা কালোকে কালো বলতে।

অপরাজনীতি বিএনপিকে গভীর খাদের কিনারে পৌঁছে দিয়েছে, তাই তারা এ বাস্তবতা এখনো উপলব্ধি করতে পারছে না দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন কর্মিদের চাঙা রাখতে নানা মুখরোচক বক্তব্য দেন, যা অন্তঃসারশূন্য।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে অদম্য অগ্রযাত্রায়, দেশের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির চলমান ধারায় সংকটের কোনো ছায়া পড়েনি, বরং উন্নয়নে যাদের গাত্রদাহ তারাই ঈর্ষার আগুনে জ্বলছে।

বিএনপির রাজনীতি আজ জননিন্দিত উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরো বলেন জনগণের মনের ভাষা, চোখের ভাষা যারা বুঝতে পারে না তারাই ক্রমশ জনগণের আস্থার কেন্দ্র থেকে ছিটকে পড়ছে।

দুর্নীতি নাকি দেশের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছে,- বিএনপি নেতাদের এমন কথা শুনলে জনগণ নিরবে হাসে।কারা কী বলছেন ! আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতাদের মুখে দুর্নীতির কথা বলা প্রসঙ্গে বলেন দুর্নীতি ছিলো তাদের শিরায় শিরায়, যা থেকে এখনো তারা বেরিয়ে আসতে পারেনি।
দুর্নীতিকে যারা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিলো, লুটপাট আর অনিয়মের কন্ট্রোল রুম হিসেবে যারা হাওয়া ভবন তৈরি করেছিলো, পর পর পাঁচবার দুর্নীতিতে দেশকে বিশ্বচ্যাম্পিয়নের কলংকতিলক পরিয়েছিলো,- তারাই এখন দুর্নীতির কথা বলেন! এসব বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন চোখে পর্দা না থাকলে, নির্লজ্জ হলেই কেবল এমন কথা বলা যায়।

দুর্নীতিবাজ নেতৃত্ব তোষণকে বিএনপি রীতিমতো শিল্পে পরিণত করেছে, মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জানান শেখ হাসিনা সরকার বিভিন্ন খাতে নিজ উদ্যোগে পরিচালনা করছে শুদ্ধি অভিযান, অনিয়মকারিদের আনা হচ্ছে প্রশাসনিক, আইনগত এবং সাংগঠনিক শাস্তির আওতায়।
এ সাহস একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যাই দেখাতে পেরেছেন, জানিয়ে ওবায়দুল কাদের প্রশ্ন রেখে বলেন বিএনপি কি একটি নজির দেখাতে পারবে? তাদের সময়কালে কোনো একজন দুর্নীতিবাজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে?

নগদ নিয়ে এতো ক্যাচাল !!

0

ভেবেছিলাম নগদ নিয়ে বুঝি সবাই ফাজলামি করছে কিন্তু নগদ যে আমাদের সাথে ফাজলামি করছে সেটা গতকাল শেলীর (আমার ওয়াইফ) নগদ একাউন্ট এর ব্যালেন্স চেক করতে গিয়ে বুঝলাম।

শেলীর নগদ একাউন্টটা ওপেন করা হয় মুলত আমার ছোট ছেলের উপবৃত্তির টাকা আসবে সে কারণে এবং জুলাই মাসে উপবৃত্তির ৪৫০ টাকাও আসে এবং আমি তখন চেক করেছিলাম টাকা ব্যালেন্স আছে। ৪৫০টাকা আর উঠানো হয়নি একাউন্টই ছিলো।

নগদ নগদ নিয়ে এতো ক্যাচাল দেখে গতকাল যখন ব্যালেন্স চেক করার জন্য *১৬৭# দিয়ে কল বাটনে চাপ দেই; দেখি নতুন পিন নাম্বার সেট করতে বলছে; তখনই বুঝেছি “ডাল মে কুচ কালা হ্যায়”। সত্যি সত্যিই কালা হয়ে গেলো আমার মুখ যখন ব্যালেন্স চেক করতে গিয়ে দেখি ব্যালেন্স “জিরো”

সাথে সাথেই নগদে ফোন দিলাম জিজ্ঞাসা করলাম কারণ কি? উনারা আমাকে আমার স্টেটমেন্ট চেক করতে বলেন। আমি যতই বলি আমার স্টেটম্যান চেক করার কিছু নেই কেননা আমার ট্রানজেকশন মাত্র একটাই হয়েছে; তখন শেষমেশ কাস্টমার কেয়ার ম্যানেজার একটু রূহ স্বরেই বললেন আগে চেক করেন তারপর ফোন দেন। কথা না বাড়িয়ে ফোনটা রেখেই দিলাম।

চেক করতে বলেছে তাই চেক করে দেখিই না কি আছে; দেখলাম! আগস্ট মাসে ৪৫০টাকা ক্যাশ আউট দেখাচ্ছে স্টেটম্যান্টে অথচ ক্যাশ আউট করিনি আমি বা শেলী কেউই। সত্য বলতে শেলী জানেও না কিভাবে নগদ ওপেন করতে হয় এবং পিন নাম্বার কত ছিলো আর আমি ক্যাশ আউট করতে হলে ওর ফোন নিয়ে আমাকে যেতে হবে দোকানে; আমি ওর ফোন নিয়ে কখনো বাইরে যাইনি। শেলীর বিকাশ থেকে যদি আমার কখনো টাকা উঠানোর প্রয়োজন পড়লে সেটা আমি আমার ফোনে সেন্ড মানি করে তবেই উঠাই। নগদেও যদি ভুলে করে থাকতাম সেটা আমার নগদে সেন্ড করেই করতাম, সেটা ক্যাশ আউট হতো না।

শেলি যেহেতু প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক তাই ওর কাছে কিছুদিন ধরেই এমন অনেক অভিযোগ এসেছে নগদের টাকা নাই; ও ভেবেছে গ্রামের মানুষ হয়ত নগদের দোকানদার উঠিয়ে নিয়েছে বা কিভাবে নগদ থেকে ব্যালেন্স চেক করতে হবে বুঝতেছে না তাই তেমন গুরুত্ব দেয়নি। বাংলাদেশের প্রতিটি “উপবৃত্তি”র টাকা নগদের মাধ্যমে আছে; এমন অনেকে আছে যারা টাকা তুলেও নাই কিংবা বুঝেও না টাকা কিভাবে উঠাতে হয় বা ভাবে পরে একসাথে উঠাবে। সে টাকাগুলোও যদি লোপাট করে দেয় নগদ তাহলে সেটা কত হতে পারে ভাবাই যায় না!!!

আসলে দেশে হচ্ছে টা কি? একটা ফাইনান্সিয়াল কোম্পানি দীর্ঘদিন ধরে মার্কেটে ব্যবসা করছে আর তখন যদি বাংলাদেশ ব্যাংক বলে আমরা নগদকে অনুমোদন দেইনি তখন এই দায় কার!

আমিনুর রহমান জেসন ভাইর ফেইসবুক থেকে…..

https://www.facebook.com/algolbd

জার্মানীতে ই -পাসপোর্ট কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

0

বাংলাদেশ দূতাবাস
বার্লিন, জার্মানি

তারিখ ০৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিঃ

বাংলাদেশ দূতাবাস, বার্লিন, জার্মানী ই -পাসপোর্ট কার্যক্রম এর শুভ উদ্বোধন করলেন মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আজ ০৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিঃ বাংলাদেশ দূতাবাস, বার্লিন, জার্মানিতে ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করলেন মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি।

উদ্বোধনের সময় বাংলাদেশ দূতাবাসে অনুষ্ঠিত সভায় মাননীয় মন্ত্রী বলেন, ‘মাননীয় প্রধামন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি মোতাবেক মুজিববর্ষে ই-পাসপোর্ট সাধারণ জনগণের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। ২০১০ সালে বাংলাদেশ সরকার মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (MRP) এবং বাংলাদেশ ভ্রমণেচ্ছু বিদেশি নাগরিকগণকে মেশিন রিডেবল ভিসা (MRV) প্রদান করে। বর্তমানে ৭৩ টি বিদেশী মিশনে এমআরপি ও এমআরভি সেবা চালু রয়েছে। প্রবর্তনের পর অদ্যাবধি তিন কোটি ১১ লাখ ১০ হাজার এমআরপি ইস্যু করা হয় এবং ১৬ লক্ষ ১৯ হাজার এমআরভি ইস্যু করা হয়।’

‘এমআরপি ও এমআরভি’র প্রবর্তন করে সরকার এই সেবার আধুনিকায়ন বন্ধ করেনি। গত ২২ জানুয়ারি, ২০২০ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বর্তমান বিশ্বের সর্বাধুনিক ই- পাসপোর্ট এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করে বলেন, “ই-পাসপোর্ট বাংলাদেশের জনগণের জন্য মুজিববর্ষের উপহার।”

‘যুগের চাহিদা ও উন্নত দেশের সাথে তাল মিলিয়ে জাতীয় অবস্থান, মর্যাদা সুসংহত করার লক্ষ্যে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট প্রবর্তন ও চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশের সকল পাসপোর্ট অফিস থেকে ই- পাসপোর্ট প্রদান করা হচ্ছে। বিমানবন্দরে ই-গেইট স্থাপন করা হয়েছে যা দক্ষিণ এশিয়ায় প্রথম এমনকি উন্নত দেশগুলির স্বল্পসংখ্যক দেশে স্থাপিত হয়েছে। এর মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী চিন্তার সফল বাস্তবায়ন সম্ভব হলো।’

‘বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের মধ্যে জার্মানির বার্লিনে প্রথম ই-পাসপোর্টের roll-out আজ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সব দূতাবাসে ই-পাসপোর্টের কার্যক্রম শুরু হবে। ইতোমধ্যে প্রায় ১৫ লাখ আবেদন জমা হয়েছে ই- পাসপোর্ট এর জন্য। প্রায় ১০ লক্ষ ই- পাসপোর্ট বিতরণ করা হয়েছ।’

সভাপতির বক্তব্যে পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আইয়ূব চৌধুরী বলেন, ‘বতর্মানে দেশের ৬৪ টি জেলার ৬৯ টি অফিস থেকে ই-পাসপোর্ট দেয়া হচ্ছে। শিগগিরই দেশের ৮০ টি মিশনে এর কার্যকারিতা শুরু হবে।’

অনুষ্ঠানে জার্মানিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোঃ মোশারফ হোসেন ভূইয়া বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও নেতৃত্বের গুণাবলি ধারণ করে তাঁর সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ স্থিতিশীলতা নিশ্চিতকরণের পাশাপশি বলিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ কূটনীতির মাধ্যমে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আইয়ূব চৌধুরী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাস জার্মানির মান‍্যবর রাষ্ট্রদূত মোঃ মোশারফ হোসেন ভূইঁয়া; স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আব্দুল্লা আল মাসুদ চৌধুরী; জার্মান Veridos কোম্পানির CEO Mr. Andreas Raschmeir; জার্মান অবস্থানরত বাংলাদেশী প্রবাসীবৃন্দ প্রমুখ।

বিএনপির গণআন্দোলনের ডাক হাস্যকর : তথ্যমন্ত্রী

0

বিএনপির গণআন্দোলনের ডাক হাস্যকর -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শনিবার ৪ সেপ্টেম্বর ২০২১:
তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘মির্জা ফখরুল সাহেবের কথায় তার দলের নেতাকর্মীরাই সাড়া দেয় না। তার মুখে গণআন্দোলনের ডাক শোভা পায় না।’

তিনি আজ রাজধানীর তথ্য ভবনে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’ সেমিনার ও প্রেস কাউন্সিল পদক প্রদান অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন।

বিএনপিনেতা মির্জা ফখরুলের গণঅভ্যুত্থানের ডাক সম্পর্কে প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ফখরুল সাহেব যুবদল ও ছাত্রদলের কয়েকশ নেতাকর্মী আর কিছু টোকাই নিয়ে যে গণঅভ্যুত্থানের ডাক দিয়েছেন, তা হাস্যকর। এবং এইকথা তারা গত সাড়ে ১২ বছর ধরে বলে আসছেন। আসল কথা হচ্ছে, মির্জা ফখরুল সাহেবদের কথায় এখন কর্মীরাও সাড়া দেয় না।’

‘আওয়ামী লীগ ছদ্মবেশে বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছে’ বিএনপির এমন্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং দেশে বহুদলীয় বহুমাত্রিক গণতন্ত্র বিদ্যমান। জাতীয় সংসদে বিএনপিসহ বহুদলের প্রতিনিধিত্ব রয়েছে। মির্জা ফখরুল সাহেব নিজেই সকাল-বিকাল সরকারের বিরুদ্ধে যথেচ্ছ সমালোচনা করছেন। এ থেকে প্রমাণ হয় দেশে গণতন্ত্র রয়েছে, বাকস্বাধীনতাও রয়েছে।’

এর আগে অনুষ্ঠানে বক্তব্যে সংবাদকর্মী, সংবাদপত্র এবং পাঠকসমাজের অধিকার রক্ষায় প্রেস কাউন্সিলের ভূমিকাকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বর্ণনা করে মন্ত্রী জানান, প্রেস কাউন্সিলকে আরো শক্তিশালী করতে প্রেস কাউন্সিল আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের প্যানেল চেয়ারম্যান এডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসান এবং সচিব মোঃ মকবুল হোসেন বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি নুরুল হুদা স্বাগত বক্তা ও প্রেস কাউন্সিলে সদস্য ইকবাল সোবহান চৌধুরী এবং নঈম নিজাম আমন্ত্রিত বক্তার বক্তব্য দেন। ‘বাঙালির সব সাহসের উচ্চারণ বঙ্গবন্ধু’ শিরোনামে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা।

পদক প্রদান অনুষ্ঠানে এবছরের ১০ এপ্রিল প্রয়াত সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ারকে প্রেস কাউন্সিলের আজীবন সম্মাননা পদক (মরণোত্তর), দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকাকে প্রাতিষ্ঠানিক সম্মাননা, চট্টগ্রামের দৈনিক পূর্বকোণকে আঞ্চলিক প্রাতিষ্ঠানিক সম্মাননা, গ্রামীণ সাংবাদিকতায় বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাবেক সিনিয়র সাংবাদিক নিজামুল হক বিপুল, উন্নয়ন সাংবাদিকতায় দি নিউজ টুডে’র সিনিয়র সাংবাদিক মাযহারুল ইসলাম মিচেল, নারী সাংবাদিকতায় দি ডেইলি অবজারভারের বনানী মল্লিক ও ফটোসাংবাদিকতায় বাংলা ট্রিবিউন অনলাইন পত্রিকার মোঃ সাজ্জাদ হোসেনের হাতে পদক তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধানের সরকারী সফরে ভারত গমন

0

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধানের সরকারী সফরে ভারত গমন

ঢাকা, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ (শনিবার)ঃ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি ০৩ দিনের সরকারী সফরে আজ (০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১) সকালে ভারতের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর উড়োজাহাজে ঢাকা ত্যাগ করেন।

সফরকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ০৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিবেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। এই সফরে ভারতের জাতীয় প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ, সেনাবাহিনী প্রধান, নৌ বাহিনী প্রধান, বিমান বাহিনী প্রধান, প্রতিরক্ষা সচিব এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তাগণের সাথে সাক্ষাৎ করবেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান।

সাক্ষাৎকালে তিনি দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এবং পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করবেন। এসময় তিনি ভারতের বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা এবং ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ পরিদর্শন করবেন।

এছাড়াও সফরকালে তিনি ভারতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাই কমিশনার এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। সফর শেষে আগামী ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ সেনাবাহিনী প্রধান দেশে প্রত্যাবর্তন করবেন।

৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বিদেশি টিভি’র ক্লিন ফিড

0

৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বিদেশি টিভি’র ক্লিন ফিড

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২ সেপ্টেম্বর ২০২১:
৩০ সেপ্টেম্বর থেকে বিদেশি টিভি চ্যানেলগুলোর বিজ্ঞাপনমুক্ত (ক্লিন ফিড) সম্প্রচার বাস্তবায়নের কথা জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। পাশাপাশি ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকা এবং চট্টগ্রাম শহর এবং ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে সকল বিভাগীয় ও মেট্রোপলিটন শহর এবং দিনাজপুর, বগুড়া, কুুষ্টিয়া, কুমিল্লা, রাঙ্গামাটি ও কক্সবাজারে টেলিভিশন ক্যাবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনার সিদ্ধান্তও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এসোসিয়েশন অভ টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স-এটকো, ক্যাবল অপারেটরস এসোসিয়েশন অভ বাংলাদেশ-কোয়াব, স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল ডিস্ট্রিবিউটর এবং ডাইরেক্ট টু হোম-ডিটিএইচ সেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের একথা জানান। প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসান এবং সচিব মো: মকবুল হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এদিনের আলোচনাকে অত্যন্ত ফলপ্রসূ বর্ণনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আইন অনুযায়ী আমাদের দেশে সকল বিদেশি টিভি চ্যানেলগুলোর বিজ্ঞাপনমুক্ত (ক্লিন ফিড) সম্প্রচারের নিয়ম পালন, টিভি ক্যাবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনা এবং সংশ্লিষ্ট অসংগতি দূর করার উদ্দেশ্যে আমরা করোনা মহামারি শুরুর আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। যেহেতু দেশে স্রষ্টার কৃপায় এবং প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় গণটিকার কার্যক্রমে ধীরে ধীরে করোনার প্রকোপ কমছে, সেই প্রেক্ষাপটে আজকে আমরা আগের সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়ন এবং বর্তমান প্রেক্ষিত নিয়ে পুরো বিষয়টা আলোচনার জন্য বসেছি।

ড. হাছান জানান, ক্লিন ফিড বাস্তবায়নে আইন প্রয়োগের পাশাপাশি ক্যাবল নেটওয়ার্ককে ডিজিটাল পদ্ধতির আওতায় আনার জন্য গ্রাহকদের অবহিত করার ব্যবস্থা নেয়া হবে। কারণ দেশ ডিজিটাল হয়েছে কিন্তু এই ক্ষেত্রে যে অগ্রগতি হওয়ার প্রয়োজন ছিল সেটি হয়নি, সেটি হতে হবে।

এছাড়া, ইন্টারনেটে ভিডিও স্ট্রিমের মাধ্যমে অনুমোদনহীন টিভি দেখানো, অবৈধ ডিটিএইচ সংযোগ, ক্যাবল নেটওয়ার্কে অবৈধ সিনেমা বা বিজ্ঞাপন প্রচার, একজনের এলাকার মধ্যে আরেকজনের অনুপ্রবেশ, লাইসেন্স ছাড়া ক্যাবল নেটওয়ার্ক পরিচালনা এ ধরণের অপরাধের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যেই পরপর দু’বছর নবায়ন না করায় ১২০০ কেবল অপারেটিং এবং ফিড লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার) মো: মিজান-উল-আলম, এটকোর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোজাম্মেল হক বাবু, জাদু ভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাভিদুল হক, ন্যাশনওয়াইড মিডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ফখরুদ্দিন মিয়া, কোয়াব প্রশাসক মোহাম্মদ মোস্তফা জামাল হায়দার, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব রুজিনা সুলতানা, আইন কর্মকর্তা মো: সাইদুর রহমান গাজী, ক্যাবল অপারেটরদের প্রতিনিধি এস এম আনোয়ার পারভেজ, এ বি এম সাইফুল হোসেন, এম ওমর ফারুক, মোহাম্মদ নাজমুদ্দোহা, বেক্সিমকো কমিউনিকেশনের প্রতিনিধি মো. মুসা আমিন, মো. মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ বৈঠকে অংশ নেন।

‘দেশের ইতিহাসে জিয়ার নাম বিশ্বাসঘাতক হিসেবেই থাকবে’

তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এদিন বিএনপিনেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মন্তব্য ‘দেশের সকল অর্জনের সাথে জিয়ার নাম জড়িত’ এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসের সাথে জিয়াউর রহমানের নাম সবসময় বিশ্বাসঘাতক ও খুনী হিসেবেই জড়িত থাকবে।

‘এজ এ ট্রেইটর, বিট্রেয়ার এন্ড কিলার’ হিসেবেই বাংলাদেশের ইতিহাসে সবসময় জিয়ার নাম জড়িত থাকবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘যে পরিমাণ বিশ্বাসঘাতকতা, হঠকারিতা ও খুনের রাজনীতি জিয়াউর রহমান করেছেন, তা বাদ দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস হবে না। মির্জা ফখরুল সাহেব কথাটা সেভাবে বললে সঠিক হতো।’

বিএনপি মহাসচিবের অপর মন্তব্য ‘দেশে এখন গণতন্ত্র নেই, গণতন্ত্র উদ্ধার করাই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিএনপির প্রধান কাজ’ এর জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘হরণ করা গণতন্ত্র জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই পুণরায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ’৯১ সালে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন না, যদি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আন্দোলনের মাধ্যমে এরশাদ সাহেবের আধাসামরিক সরকারের পতন না হতো। আওয়ামী লীগের উদ্যোগেই রাষ্ট্রপতি পদ্ধতি সংশোধন করে পার্লামেন্টে বিল পাস করা হয়, না হলে সেসময় খালেদা জিয়া ক্ষমতাহীন প্রধানমন্ত্রী থাকতেন।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘জিয়াউর রহমানই দেশে গণতন্ত্র হরণ করেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সাথে যুক্ত জিয়া সামরিকতন্ত্র এবং পরে মার্শাল ডেমোক্রেসি চালু করেছিলেন। জিয়ার দলকারীরা যখন একথা বলেন, তখন তারা কিভাবে সংসদে আছেন, সেটা প্রশ্ন। আর মির্জা ফখরুল যে প্রতিদিন সকাল দুপুর বিকাল তিনবেলা উঁচু গলায় গণতন্ত্র নাই, গণতন্ত্র নাই বলেন আর অহেতুক সমালোচনা করেন, সেটাই তো প্রমাণ করে দেশে গণতন্ত্রও আছে বাকস্বাধীনতাও আছে।’

সংসদ সদস্য হাসিবুর রহমান স্বপনের ইন্তেকালে তথ্যমন্ত্রীর শোক

সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিল্প উপমন্ত্রী ও শাহজাদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মো. হাসিবুর রহমান স্বপনের ইন্তেকালে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) ভোরে তুরস্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের সংবাদে শোকাহত তথ্যমন্ত্রী প্রয়াতের আত্মার শান্তিকামনা করেন এবং তার শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

তথ্যমন্ত্রী তার শোকবার্তায় বলেন, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে আজীবন ধারণকারী মো. হাসিবুর রহমান স্বপনের দেশের জন্য অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

সিরিজের ১ম ম্যাচে জয়ে অভিনন্দন প্রধানমন্ত্রীর

0

প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন বার্তা:

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের টি-২০ সিরিজের ১ম ম্যাচে জয় লাভ করায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়, কোচ ও ম্যানেজারসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিএনপিকে সুস্থ ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

0

বিএনপিকে সুস্থ ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

ঢাকা, বুধবার ১ সেপ্টেম্বর ২০২১:
বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তাদেরকে সুস্থ ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার দুপুরে রাজধানীতে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি-ডিআরইউ মিলনায়তনে ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন অভ বাংলাদেশ-ক্র্যাব এর অনলাইন পোর্টাল ক্র্যাবনিউজবিডিডটকম উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বিএনপি’র প্রতি এ আহ্বান জানান।

ক্র্যাব সভাপতি মিজান মালিকের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন আরিফের সঞ্চালনায় বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ বিশেষ অতিথি হিসেবে এবং ডিআরইউ সভাপতি মুরসালিন নোমানী, ক্র্যাবের প্রধান উপদেষ্টা শংকর কুমার দে, জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, খায়রুজ্জামান কামাল, মোতাহার হোসেন প্রমুখ আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে সভায় বক্তব্য রাখেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমি তাদের অভিনন্দন জানাই। তাদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে বিএনপি এতদিন ধরে যে যুদ্ধাপরাধীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয়া, জঙ্গি-সন্ত্রাসী, পেট্রোল বোমার রাজনীতি করে আসছিল, সেই অপরাজনীতি থেকে বেরিয়ে সুস্থ ধারার রাজনীতিতে ফিরে আসবে। তাহলে দেশ এবং রাজনীতি উপকৃত হবে।’

এর আগে বক্তৃতায় ড. হাছান বলেন, ‘অপরাধ বিষয়ক সাংবাদিকতার বিট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সমাজে অনেক অনেক অপরাধের বিচার হয় আবার বহু অপরাধ ঢাকা পড়ে যায়। বিশেষ করে বিত্তশালী-ক্ষমতাশালীদের অপরাধ অনেক সময় ঢাকা পড়ে যায়। আমি মনে করি সেই অপরাধগুলোকে জনসম্মুখে তুলে আনার ক্ষেত্রে ক্রাইম বিটের সাংবাদিকরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। শুধুমাত্র ফৌজদারি নয়, অর্থনৈতিক অপরাধও প্রকাশ হওয়া উচিত। পাশাপাশি সমাজের ভাষাহীন মানুষের বেদনা প্রকাশের দায়িত্বও সাংবাদিকদের ওপর বর্তায়।’

সভায় সাংবাদিকদের উত্থাপিত বিভিন্ন বিষয়ে আলোকপাত করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, অনলাইন পত্রিকা এবং আইপি টিভি এখন যুগের বাস্তবতা। অনলাইন পত্রিকা থাকবে, আইপি টিভিও থাকবে। কিন্তু অপরিকল্পিতভাবে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা পোর্টালের প্রয়োজন নেই। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, এ আইন বাংলাদেশের সমস্ত মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তার জন্য। যখন ডিজিটাল বিষয়টা ছিল না তখন এ ধরণের আইনের প্রয়োজন ছিল না, এখন ডিজিটাল যুগে এ ধরণের আইনের প্রয়োজন এবং প্রায় সব দেশে এ ধরণের আইন রয়েছে। তবে এ আইনের যাতে অপপ্রয়োগ না হয় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

অন্যান্য দেশের মতো দাপ্তরিক গোপনীয়তার আইন এখানেও কার্যকর আছে কিন্তু পাশাপাশি আমাদের সরকার তথ্য অধিকার আইন প্রণয়ন করেছে, তথ্য কমিশন গঠন করেছে, বলেন ড. হাছান। ২০১৪ সালে কমিশন গঠন হওয়ার পর ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত ১ লাখ ১৯ হাজার ৮শ’ ৩১টি আবেদন নিষ্পত্তি করা হয়েছে, জানান তিনি।

চট্টগ্রামে এফডিসি’র শাখার জন্য জমি দিলো বিটিভি

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন-বিএফডিসি’র চট্টগ্রাম শাখা স্থাপনের জন্য ১ একর জমি ব্যবহারিক ভিত্তিতে তাদের কাছে হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ। বুধবার সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বিটিভি’র মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন এবং বিএফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন এ বিষয়ক দলিলে স্বাক্ষর করেন। মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসান এবং মো: মকবুল হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বিটিভি চট্টগ্রামের ১০ একরের মধ্যে ১ একর জমি এফডিসিকে ব্যবহারিক কাজে দেবার জন্য বিটিভিকে ধন্যবাদ জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরী চট্টগ্রামে এফডিসির একটি স্থাপনা সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জন্য আনন্দ ও উৎসাহের। চলচ্চিত্রের শ্যুটিং স্পট এবং অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণে পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষা এবং নান্দনিকতার ওপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন মন্ত্রী।

আর এই জমি হস্তান্তরের উদ্দেশ্য সফল করতে সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করার আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসান।

বরিশালের ঘটনা পুঁজি করে কাউকে পানি ঘোলা করতে দেয়া হবে না : তথ্যমন্ত্রী

0

বরিশালের ঘটনা পুঁজি করে কাউকে পানি ঘোলা করতে দেয়া হবে না -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০২১:
বরিশালের ঘটনাকে পুঁজি করে কাউকে পানি ঘোলা করতে দেয়া হবে না বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তদন্তে সত্য উদঘাটিত হবার আগে এনিয়ে অতিমাত্রায় কথা বলা বা কিছু করাও সমীচীন হবে না, বলেন তিনি।

শুক্রবার বিকেলে শের-ই-বাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একাডেমি প্রাঙ্গণে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তরের ২৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি একথা বলেন।

বরিশাল সদরের উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসায় বুধবারের রাতের হামলার বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘বরিশালের ঘটনাটি অনভিপ্রেত ও অত্যন্ত দু:খজনক। আমাদের দলের অবস্থান অত্যন্ত পরিস্কার। আমাদের দলের কথা বলে বা দলেরই কেউ কোনো অপকর্মে লিপ্ত হলে আমাদের নেত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সবসময়ই সেবিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছেন।’

বরিশালের ঘটনাটি এখনো তদন্তাধীন, দু’টি মামলা হয়েছে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘স্থানীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ৬০ জন গুলিবিদ্ধ ও অনেকের আহত হবার কথা বলা হয়েছে, সেটিও দেখা হচ্ছে। তদন্তাধীন বিষয়ে বেশি কথা বলতে চাই না, তদন্তের ভিত্তিতে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

‘প্রশাসন ক্যাডার ইতোমধ্যেই এনিয়ে বিবৃতি দিয়েছে এবং সেখানে বরিশালের মেয়র ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন বলা হয়েছে, তদন্তাধীন বিষয়ে এমন বিবৃতি দেয়া যৌক্তিক কি না, বা তারা এটা করতে পারে কি না’ এ প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি দেখেছি প্রশাসন ক্যাডারের পক্ষ থেকে তড়িঘড়ি করে একটি বিবৃতি দেয়া হয়েছে। তদন্তে বেরিয়ে আসবে আসলে কি ঘটনা ঘটেছে। একইসাথে স্থানীয় আওয়ামী লীগের অভিযোগের বিষয়ও তদন্তে বেরিয়ে আসবে। তবে এই ঘটনাকে পুঁজি করে কাউকে পানি ঘোলা করতে দেয়া হবে না। এবং আমি মনে করি তদন্তের মাধ্যমে সত্য উদঘাটিত হবার আগে এনিয়ে কারো অতিমাত্রায় কথা বলা বা কিছু করা সমীচীন হবে না।’

এর আগে সভায় ড. হাছান মাহমুদ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিহত সকল শহীদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ‘আগস্ট মাস বাঙালির শোকের মাস। এই আগস্টেই আমরা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু মুজিবকে হারিয়েছি, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামকেও এ মাসেই হারিয়েছি।’

বঙ্গবন্ধু যেভাবে মানুষকে উদ্দীপ্ত করেছিলেন, তাতে মানুষের সবচেয়ে প্রিয় যে নিজের প্রাণ, তা হাতের মুঠোয় নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য ছিনিয়ে এনেছে বাঙালিরা, এজন্যই বঙ্গবন্ধু সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক।

ঢাকা উত্তরের ২৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব মোহা: ফোরকান হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি প্রমুখ তাদের বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধুর জীবন, কর্ম ও ১৫ আগস্টের ওপর আলোকপাত করেন। সভাশেষে উপস্থিত মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন অতিথিরা।

দীর্ঘ বিরতির পর আজ থেকে উন্মুক্ত কুয়াকাটা

0

দীর্ঘ বিরতির পর আজ থেকে উন্মুক্ত কুয়াকাটা

স্বপ্নীল দাস,পটুয়াখালী :

টানা ১৩৯ দিন বন্ধ থাকার পর আজ ১৯ আগষ্ট কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতের দ্বার খুলেছে। পহেলা এপ্রিল থেকে বন্ধ থাকা পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ায় সূর্যোদয়-সূর্যাস্তের অবলোকনের সাগর সৈকত কুয়াকাটার পর্যটন ব্যবসায়ীদের মাঝে প্রাণের সঞ্চার হয়েছে।

গতকালকেই আবাসিক হোটেল-মোটেল, রেস্তোরাঁ ট্যুরিস্ট বোট গুলো পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ শেষ হয়েছে।কুয়াকাটাকে স্বরূপে ফেরাতে নতুন করে প্রস্তুতি নিয়েছে সকলে।

শুঁটকি ব্যবসায়ী, শামুক-ঝিনুকের দোকানদার, বাণিজ্যিক ফটোগ্রাফার, মোটরসাইকেল– ভ্যান– অটোচালক, সৈকতের ছাতা-বেঞ্চ ব্যবসায়ী, চা-পানের দোকানদার, চটপটি বিক্রেতা, ট্যুর অপারেটরসহ পর্যটনকেন্দ্রিক সব ব্যবসায়ীরাও নিজ নিজ ব্যবসাকে নতুন করে সাজাতে শুরু করেছেন।

করোনা পরিস্থিতির কারণে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন গত ১ এপ্রিল থেকে কুয়াকাটা পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করে। শুন্য হয়ে পড়ে এখানকার প্রায় দেড়শ আবাসিক হোটেল-মোটেল। বন্ধ হয়ে যায় পর্যটনকেন্দ্রিক সব ব্যবসা-বাণিজ্য। শুন্যতা নেমে আসে কুয়াকাটার ১৮ কিলোমিটার দীর্ঘ সৈকতে কোটি কোটি টাকা লোকসান গুনতে হেেয়ছে। দেশের সকল সেক্টরে অনুদান থাকলেও এই ট্যুরিজম সেক্টরে কোন অনুদান না থাকায় অসহায় হয়ে পরছেন অনেক ব্যবসায়ীরা।

কুয়াকাটার জিরো পয়েন্ট এলাকার ঝিনুক ব্যবসায়ী নুরজামাল বলেন, ‘এ রকম একটা পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হবে তা বুঝতে পারিনি। করোনার কারণে পর্যটনকেন্দ্র বন্ধ হলে গত কয়েক মাস ধরে দোকানের মালামাল যে অবস্থায় ছিল সে অবস্থায়ই পড়ে আছে। এখন দোকান নতুন করে সাজাচ্ছি।

খাবার হোটেল রাজধানীর মালিক জয়নাল বলেন, তাঁর হোটেলে দৈনিক ২০-২৫ হাজার টাকার বেচাকেনা হতো। হোটেল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কর্মচারীদের ছুটি দিয়েছিলাম। কর্মচারীরা করোনাকালে অন্য কাজে সম্পৃক্ত হয়ে পড়েছে। এখন হোটেল চালানোর জন্য কর্মচারী সংকটে পড়তে হচ্ছে। তারপরেও প্রস্তুতি নিয়েছি।

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট বোট মালিক সমিতি‘র সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া জাহিদ বলেন, মহামারিতে আমাদের অনেক লোকসান হয়েছে যার কোন হিসেব নেই মাঝে মাঝে আশার বানী পেয়েও আমরা পাইনি সরকার হতে কোন প্রনোদনার কোন প্যাকেজ সব চেয়ে অসহায় এই সেক্টরটি যার কোন অবিভাবক নাই ।

কুয়াকাটা ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন অব (কুটুম) সভাপতি নাসির উদ্দিন বিপ্লব বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে ব্যবসা-বাণিজ্য একেবারে মুখ থুবড়ে পড়েছে। বেচাকেনা না থাকায় অনেক মালিককে দোকানপাট ছেড়ে দিতে হয়েছে। এখন পর্যটনের দ্বার খোলায় সবাই যে যার মতো করে গুছিয়ে ব্যবসা চাঙা করার পরিকল্পনা করছেন।

কুয়াকাটায় ১৬০টির মতো আবাসিক হোটেল–মোটেল রয়েছে। হোটেল-মেটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, প্রতিটি হোটেলের মালিকই বড় রকমের আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়েছেন। টাকার অঙ্কে হিসাব করলে গত দেড় বছরে হোটেল ব্যবসায় কমপক্ষে ২০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। পর্যটনকেন্দ্রিক সব ব্যবসা মিলিয়ে কমপক্ষে দুই হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ‘করোনাকালের পর পর্যটনের দ্বার উম্মুক্ত হলো এখন আমরা আমরা আশা করছি কুয়াকাটা স্বরূপে ফিরবে, সে আশায় বুক বেঁধে আছি’।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট ও বিনোদনকেন্দ্র আসন সংখ্যার ৫০ শতাংশ ব্যবহার করে চালু করতে পারবে না। করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। রাত ৮ পরে সীবিচে কেউ ঘোরাঘুরি করতে পারবে না। এর ব্যত্যয় যাঁরা করবেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হঠাৎ বিএনপির কর্মসূচি, ডাল মে কুচ কালা হে : নানক

0

মাঠ উত্তপ্ত করে লাভ হবে না হুঁশিয়ারি নানকের

নিজস্ব প্রতিবেদক

হঠাৎ করে বিএনপির কর্মসূচি পালন এবং পুলিশের উপর অতর্কিত হামলাকে ‘ডাল মে কুচ কালা হে’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের হঠাৎ করে একটি আকস্মিক কর্মসূচি দিলেন। তাদের হঠাৎ এই কর্মসূচির খবর শুনে বুঝতে পারলাম ডাল মে কুচ কালা হে। আফগানিস্তানে তালেবানের ক্ষমতা দখলের কথা শুনেই পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে বিএনপি জানান দিয়েছে তারা মাঠে আছে। আসলে শোকের মাস আগস্ট বড় ধরনের নতুন চক্রান্ত করতেই কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি। তারই অংশ হিসেবে প্রশাসনের ২৭ কর্মকর্তার উপর হামলা এবং বহু গাড়ি ভাঙচুর করেছেন।

আজ বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিরপুরে একটি কমিউনিটি সেন্টারে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা এবং খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দারুস সালাম থানা আওয়ামী লীগ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বিএনপির মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এক বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে নানক বলেন, বিএনপির কর্মসূচি ঠেকাতে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের যদি মোতায়েন করা হতো, তাহলে চন্দ্রিমা উদ্যানে তারা কর্মসূচি পালন করা তো দূরের কথা রাজধানীতে দাঁড়াতেই পারত না। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নিলে তারা তেজগাঁওয়ে ডিসি-এডিসির উপর হামলা চালাতে পারতো না। এতগুলো গাড়ি ভাঙচুর করতে পারত না। তারা এই হামলার মাধ্যমে কি বোঝাতে চেয়েছেন? নিজেদের অবস্থা জানান দিতে চান? কিন্তু তাদের মনে রাখতে হবে এটা বঙ্গবন্ধুর দেশ। প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ তাদের এ ধরনের চক্রান্ত কখনোই সফল হবেনা।

এদেশে মৌলবাদীরা কোন ধরনের ষড়যন্ত্র করলে তার দাঁত ভাঙ্গা জবাব দেওয়া হবে হুঁশিয়ারি দিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বলেন, আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম শেষ হলেও মুক্তির সংগ্রাম কিন্তু এখনো চলছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে যখনই এদেশের মুক্তির সংগ্রামের দ্বারপ্রান্তে এসেছে দেশ, ঠিক তখনই ওই পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। যার মূল হোতা ছিল পাকিস্তানের এজেন্ট হয়ে কাজ করা ওই জিয়াউর রহমান। ওই জিয়াউর রহমানের সৃষ্টি করা দল বিএনপির মধ্যে আবার ওই সাম্প্রদায়িক মৌলবাদীর হাওয়া বইতে শুরু করেছে। বিএনপি-জামায়াত সাম্প্রদায়িক অপশক্তির যদি আবার নতুন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় তাহলে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা এর সমুচিত জবাব দিবে।

সভায় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম বলেন, আমরা হয়তো বিএনপিকে মাঠে মোকাবেলা করতে পারব। কিন্তু ওই হেফাজত ইসলামের মতো মৌলবাদী সংগঠন গুলোকে আমরা মোকাবেলা করতে হলে দলের ত্যাগী এবং যোগ্য নেতাকর্মীকে দলীয় পদে স্থান করে দিতে হবে। তিনি বলেন, নতুন পৃথিবীতে নতুন মৌলবাদীরা যোগ দিয়েছে। বাংলাদেশের মৌলবাদীরা ও হেফাজতের প্রধান তারগেট আওয়ামী লীগ। তারা সুযোগ পেলেই আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও তাদের পরিবারের উপর হামলা চালাতে চেষ্টা করবে। আমাদের সকলকে মৌলবাদের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে।

এখন মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজার আনামের সভাপতিত্বে দারুস সালাম থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদুর রহমান হ্যাপির সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি, মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ ইব্রাহিম সহ মিরপুরের স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা।

বাঙালির শোকের দিন আজ

0

আজ জাতীয় শোক দিবস-পনেরোই আগস্ট; বাংলার ইতিহাসে কলঙ্কিত দিন। দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে ১৯৭৫ সালের এই দিনে সপরিবারে হত্যা করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। বাঙালির অধিকার আদায়ে আজীবন সংগ্রাম করা; হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান শেখ মুজিবকে রাতের অন্ধকারে হত্যা করে ঘাতকেরা।

নিরাপত্তার ঘেরাটোপে ছিল না ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িটি। বঙ্গবন্ধুর বিশ্বাস, নিজের দেশের মানুষ তার কোনো ক্ষতি করবে না। রাষ্ট্রপতি হয়েও তাই, বঙ্গভবনে না উঠে সাধারণ মধ্যবিত্তের মতো সপরিবারে থাকতেন এখানেই।

সে উদারতাই কাল হল। পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট ভোররাতে আচমকা বৃষ্টির মতো গুলি।ঘুম ভাঙা চোখে নিচে নেমে আসেন বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামাল। ক্যাপ্টেন বজলুল হুদার গুলিতে ঝাঝরা হয়ে যায় তার বুক।

এরপর সঙ্গীদের নিয়ে বাড়ির ভেতরে ঢুকে পড়েন ল্যান্সার মহিউদ্দিন। দোতলায় ওঠার সিঁড়িতে সাহসের প্রতিমূর্তি হয়ে সামনে দাঁড়ান শেখ মুজিব। অবিচল বঙ্গবন্ধুকে দেখে ভড়কে যান মহিউদ্দিন। তখন স্টেনগান থেকে গুলি ছোড়ে বজলুল হুদা ও নূর চৌধুরী। ঝরে পড়ে বাংলার ৫৫ বছরের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র।

তখন ভোর পাঁচটা বেজে চল্লিশ, সিঁড়িতেই লুটিয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু। ঘাতকদের মিশন তখনও শেষ হয়নি। আজিজ পাশা আর মুসলেহ উদ্দীন শোবার ঘরে গিয়ে হত্যা করেন বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেসা মুজিব, শেখ জামাল, সদ্য বিবাহিতা রোজী জামাল, সুলতানা কামাল ও বঙ্গবন্ধুর ছোট ভাই শেখ নাসেরকে।

আর শিশু রাসেলকে খুনিরা বসিয়ে রেখেছিলো গেটের পাশে পাহারাদারের চৌকিতে। রাসেল মায়ের কাছে যেতে চাইলে দোতলায় নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর শিশুপুত্রকে। সেদিন দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে যান, বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে ভূমি মন্ত্রণালয়

0

যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস ও স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন করেছে ভূমি মন্ত্রণালয়। জাতীয় শোক দিবস ও স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে

আজ রবিবার ভূমি সচিব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, পিএএ-এর নেতৃত্বে ভূমি মন্ত্রণালয় ও এর আওতাভুক্ত দপ্তর/সংস্থার কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ রাজধানীর ইস্কাটনে অবস্থিত বিয়াম ফাউন্ডেশন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করা করেন।

এরপর একইদিনে নীলক্ষেতে অবস্থিত ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে (এলএটিসি) জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে ভূমি সচিব সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

উপর্যুক্ত দুই কর্মসূচিতে আরও উপস্থিত ছিলেন ভূমি আপীল বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ মশিউর রহমান ও ভূমি সংস্কার বোর্ডের চেয়ারম্যান মোঃ এহছানে এলাহী-সহ ভূমি মন্ত্রণালয় ও এর আওতাভুক্ত দপ্তর/সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।


–এসএইচ

মৌলভীবাজার হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও বড়লেখায় নগদ অর্থ প্রদান পরিবেশমন্ত্রীর

0

মৌলভীবাজার হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও বড়লেখায় নগদ অর্থ প্রদান পরিবেশমন্ত্রীর

ঢাকা, ১১ জুলাইঃ
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এর ব্যক্তিগত উদ্যোগে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ১৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করা হয়েছে ।

আজ রবিবার (১১ জুলাই) সকালে পরিবেশমন্ত্রীর পক্ষে মৌলভীবাজার জেলার সিভিল সার্জন ডা: চৌধুরী জালাল উদ্দিন মুর্শেদ ও মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র মোঃ ফজলুর রহমান মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ বিনেন্দু ভৌমিকের কাছে ১৫ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার হস্তান্তর করেন। এসময় জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আজমল হোসেন, মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক পান্না দত্ত-সহ আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকবৃন্দ উপস্হিত ছিলেন।

এছাড়াও, পরিবেশমন্ত্রী বড়লেখায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মৃত ব্যক্তিদের দাফন কাফনের কাজের জন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “টিম ফর কোভিড ডেথ” কে নগদ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন। টিম লিডার পরিবেশমন্ত্রীর নগদ আর্থিক অনুদান তাদের কজের আরো উ‌ৎসাহ যোগাবে বলে জানান।

খাদ্যপণ্যসহ করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেছে আওয়ামী লীগ

0

অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটর, সিলিন্ডার, খাদ্যপণ্যসহ করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেছে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি

স্টাফ রিপোর্টার :
অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটর, সিলিন্ডার, খাদ্যপণ্যসহ করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেছে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি। আজ রবিবার ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এই কর্মসূচির ভার্চুয়ালিযুক্ত হয়ে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফি, সাধারণ সম্পাদক, হুমায়ুন কবির অন্যরা।
এসয়ম আরও উপস্থিত ছিলেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির সদস্য ডা. হেদায়েতুল ইসলাম বাদল, আখলাকুর রহমান মাইনু, মোজাফফর হোসেন জমাদার, মাহফুজুর রহমান মিঠু, বেলাল আহমেদ নূরী, মিজানুর রহমান খান বিদ্যুৎ, আমিনুর রশীদ দুলাল, আকাশ জয় জয়েন্ত, শাহ মোস্তফা আলমগীর, রফিকুল ইসলাম রনি, মো. রাসেল,আবুল কাশেম সিমান্ত, নুরুল হক সজিব, আব্দুল বারেক, মাহবুব রশিদ, রাশেদুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল মামুন, জান মো. রাসেল , ইমরান সোনা প্রমুখ।
৩ টি অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেটর, ৩০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার, ১ লাখ ২০ হাজার উন্নত মানের মাস্ক,দাঁতের মাজন, এন্টি সেপটিক সাবান, হ্যান্ডওয়াস পিপিই-৩০০ ছাড়াও ১২’শ খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট (খাদ্যপণ্যের মধ্যে রয়েছে, চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজ)। অক্সিজেন সিলিন্ডার ও কন্সেন্টটর দেয়া হয়েছে, ঝিনাইদহ জেনারেল হাসপাতাল, নড়াইল জেনারেলের হাসপাতাল, মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল, মুন্সিগঞ্জের সিরাজদী খান ও টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, খুলনা সদরসহ, কয়রা, পাইকগাছা, দীঘলিয়া, যশোরের চৌগাছা, সিআরপি সাভার, সুনামগঞ্জের ধর্মশালা, মধ্যনগর, জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, শেরপুরের নলিতাবাড়ি, ঝিনাইগাতি, শ্রীবর্দী, নীলফামারীর টিমলা, সাতক্ষীরা কলারোয়া, টাঙ্গাইলের মধুপুর, কিশোরগঞ্জের সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এছাড়াও যশোরের যুবসমাজের উদ্যোগে গঠিত শেখ ফজলুল হক মণি-আরজু মণি অক্সিজেন ব্যাংক।
খাদ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে,
মহিলা শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী মটরচালক লীগ, বাস্তুহারা লীগ, যুব মহিলা লীগ, আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলাম, আমরা ঢাকাবাসী সংগঠন, সামাজিক সংগঠন ন্যাশনাল ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি, ঋষিমণি সম্প্রদায়, জাতীয় দাফন কমিটি, জাতীয় মহাশ্মসান কমিটি, ডিজিটাল প্লাস ফাউন্ডেশন, উদীয়মান নারী ও শিশু কল্যাণ সংস্থা, আশ্রায়ন প্রকল্প শ্যামপুর, বিরুলিয়া, স্পেশাল চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন, আদমজী চালু সংগ্রাম পরিষদ।
সভাপতির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সফলভাবে করোনা মোকাবিলা করছি। মানুষকে সেবা করা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের শিখিয়ে গেছেন। মানুষের জন্য রাজনীতি করাও এক ধরনের ইবাদত। পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টিকে উন্নত জীবনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাও ইবাদত। আজকে সারা বিশ্ব করোনায় আক্রান্ত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা কাজ করছি। তিনি বলে, একটি দল আছে, যাদের টাকা পয়সা আছে, ওষুধ কোম্পানি আছেন। তারা হাত গুটিয়ে থাকেন। তারা ফটোসেশন করেন। আর সরকারকে গালিগালাজ করেন। তারা কখনো মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন সে ইতিহাস নেই। ৯১ সালে বিএনপির ক্ষমতার সময়েও ঘূর্নিঝড়ের সময় আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা টলারে ছুটে গেছেন দক্ষিনবঙ্গে। আর সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া সংসদে বলেছিলেন যত মরার কথা ছিল তত মরেনি। তখন বিরোধী দলীয় নেত্রী আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন , “কত মরলে আপনার তত হবে”। মতিয়া চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় মানুষের পাশে ছিল। এখনো আছে, আগামীতেও থাকবে।
আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাবা মা হারানোর বেদনা বেড়ান। আবার অন্যদিকে এমন একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন যার কথায় দলের নেতাকর্মীরা জীবন দিতে প্রস্তুত। সারাদেশে করোনায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। ছাত্রলীগ, যুবলীগ , স্বেচ্চাসেবক লীগ, কৃষক লীগ কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে। খাদ্য বিতরন, সবজি বিতরন, এম্বেলেন্স তৈরি করে রাখা, মৃত্যু ব্যক্তির দাফন কাফন করেছে। শেখ হাসিনা ৪০ বছরের রাজনীতিতে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। শেখ হাসিনা যতদিন বেঁচে আছে, দলের নেতাকর্মী যতদিন বেঁচে আছে ততদিন এই দলের ক্ষয় নেই।
আওয়ামী লীগ সব সময় মানবিক কাজ করে যাচ্ছে। একামাত্র আওয়ামী লীগই করোনার শুরু থেকে মাঠে ছিল। আগামীতেও থাকবে। সুজিত রায় নন্দীর মতো মানবিক নেতা আওয়ামী পরিবারের ঘরে ঘরে হোক। তিনি বলেন, আমরা মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবো।
আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, মানবতার মা উন্নয়ন মাতা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নেতারা যে কোন দূর্যোগে মানুষের পাশে ছিল। করোনার শুরু থেকেই মাঠে আছে। যতদিন করোনা থাকবে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মটার মাঠে থাকবে।
সুজিত রায় নন্দী বলেন , প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আমরা শুরু থেকেই জনগনের পাশে ছিলাম। করোনা সুরক্ষা সামগ্রীসহ খাদ্য সামগ্রী বিতরন করছি। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। আর একটি দল আছে যেখানে ঘরে বসে মিথ্যাচার ও মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। আমরা মানুষের কল্যানে রাজনীতি করি। মানুষের সেবাই আমাদের লক্ষ্য।

নিজের দলে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করুন : বিএনপিকে তথ্যমন্ত্রী

0

নিজের দলে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করুন -বিএনপিকে তথ্যমন্ত্রী

চট্টগ্রাম, শনিবার ২৯ মে ২০২১:
তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বিএনপি ও তার মিত্রদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন ‘আপনারা সবসময় সবদলকে ঐক্যবদ্ধ হবার কথা বলেন, কিন্তু নিজের দলের মধ্যেই ঐক্য নেই। বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো সবদলের ঐক্য নয়, আগে নিজের দলে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করুন।’

শনিবার (২৯ মে) বিকেলে চট্টগ্রামে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপির নেতারা নাকি বলেছেন অগণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে সবদলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। যে বিএনপির জন্মটাই অগণতান্ত্রিক অবৈধভাবে, যেটা হাইকোর্টের রায়েও বলা হয়েছে, তারা আবার অপরের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে, এটি সত্যিই হাস্যকর।’

নিজ উপজেলার উদাহরণ দিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের রাঙ্গুনিয়াতেও দেখুন, বিএনপি তিনভাগে বিভক্ত। কেন্দ্রীয়ভাবেও বিএনপির এক নেতা এক কথা বলে, কিছুক্ষণ পর আরেক নেতা আরেক কথা বলেন, এইভাবে তাদের নিজেদের মধ্যেও ঐক্য নাই। আবার তারা সবদলের ঐক্যের কথা বলে।’

তিনি বলেন, ‘তাদের জোটভুক্ত একটি দল আছে যার নাম তারা দিয়েছে ‘ঐক্য প্রক্রিয়া’। অর্থাৎ ঐক্য নাই বলে ঐক্য প্রক্রিয়া চালাতে চান তারা। সুতরাং বিএনপি ও তার মিত্রদের এসমস্ত বক্তব্য হাস্যকর। বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো আগে নিজের দলের ঐক্য প্রতিষ্ঠা করুন, আমরাও চাই আপনারা ঐক্যবদ্ধ থাকুন, এবং আমাদের বস্তুনিষ্ট সমালোচনাও করুন।’

‘জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বদলে গেছে’ উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘দেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ে উন্নীত হয়েছে, খাদ্যঘাটতির দেশ থেকে খাদ্যউদ্বৃত্তের দেশ হয়েছে; একইসাথে এই করোনাকালেও দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে, পাকিস্তানকে অনেক আগেই ছাড়িয়ে এখন আমাদের মাথাপিছু আয় ভারতকেও ছাড়িয়ে গেছে ২ হাজার ২২৭ মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এর জন্য বিএনপিসহ তার মিত্ররা সরকারকে ধন্যবাদ জানাতে লজ্জা লাগলেও দেশ ও দেশের জনগণকে অভিনন্দন জানাতে পারতেন, তারা সেটিও করেননি।’

রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মোনাফ সিকদারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদারের সঞ্চালনায় সভায় চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামী লীগ নেতা উপজেলা চেয়ারম্যান স্বজন কুমার তালুকদার, পৌরসভার মেয়র মো. শাহজাহান সিকদার, উত্তর জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

প্রতিবন্ধিদের মোবাইলের মাধ্যমে ভাতা প্রদানের বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মান

0

সমাজকল্যান মন্ত্রণালয়ের অধিনে সমাজসেবা অধিদপ্তরের বয়স্ক বিধবা প্রতিবন্ধিদের মোবাইলের মাধ্যমে ভাতা প্রদানের (জিটুপি) একটি বিজ্ঞাপন চিত্র সম্প্রতি বিভিন্ন টেলিভিশনে প্রচারিত হচ্ছে। এটি নির্দেশনা দিয়েছেন আমিনুর লিটন, পরিকল্পনা ও চিত্রনাট্য রুহুল আমিন তুহিন এবং উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন মাইনুল ইসলাম। বিজ্ঞাপনচিত্রে অভিনয় করেছেন মোমেনা চৌধুরী সহ অনেকে। আরশিনগর মিডিয়ার ব্যানারে বিজ্ঞাপনটি নির্মান করা হয়েছে। বিজ্ঞাপনটির নির্মানের পেছনে কাজ করেছেন একঝাক মেধাবী তরুন প্রজন্ম। বিজ্ঞাপনটি নির্মান কৌশলে আনা হয়েছে নতুনত্ব। কিভাবে সহজেই বিধবারা ভাতা পাবে সেই বিষয়টিকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। একই সাথে প্রতিবন্ধিরাও যে সমাজসেবা অধিদপ্তরের ভাতা দ্রুত কিভাবে মোবাইলে পাবে তা খুব সহজেই প্রতন্ত অঞ্চলের মানুষ বুঝতে পারবে সহজেই। বিজ্ঞাপনটি নির্মানে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে আধুনিক প্রযুক্তিকে। যেন ডিজিটাল বাংলাদেশে প্রতিটি প্রান্তে এ তথ্য মানুষের হাতে হাতে পৌছে যায় খুব সহজেই। যারা এখনো মোবাইলে ভাতা পান না তারা যেন সহজেই বুঝে এই ভাতার আওতায় চলে আসতে পারেন সে কৌশলই উপস্থাপন করা হয়েছে বিজ্ঞাপনটিতে। বিজ্ঞাপনটি দেখলে বয়স্ক বিধবা কিংবা প্রতিবন্ধিরা খুব সহজেই বুঝবেন কি করে দ্রুত সমাজকল্যান মন্ত্রণালয়ের অধিনে সমাজসেবা অধিদপ্তরের ভাতা মোবাইলে পেতে পারেন। নির্মান কাজের পেছনে যারা কাজ করেছের তারাও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ও সৃষ্টিশীল কাজে নিজেদের দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন বারে বার। নির্দেশনা দেয়া আমিনুর ইসলাম ইতিমধ্যে নির্মান করেছেন বেশ কয়েকটি শর্ট ফিল্ম সহ টিভি নাটক। আর বিজ্ঞাপন চিত্রে তার পদচারনা সেই বিশ^বিদ্যালয় জীবন থেকেই। পরিকল্পনায় রুহুল আমিন তুহিন একজন সফল চিত্রনাট্যকার। সৃজনশীল বিজ্ঞাপন নির্মানে তার প্রশংসা রয়েছে সর্বত্র। এছাড়া বিজ্ঞাপনটি নির্মানে প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন মাইনুল ইসলাম। তিনি একাধারে সাংবাদিক, লেখক, উপস্থাপক এবং বিশ্ববিদ্যালয় গবেষক।

বেগম জিয়া কেনো কালোটাকা সাদা করেছিলেন : প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর

0

বেগম জিয়া কেনো কালোটাকা সাদা করেছিলেন -প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর

ঢাকা, শুক্রবার, ২৮ মে ২০২১:
‘বেগম জিয়া কেনো কালোটাকা সাদা করেছিলেন’ প্রশ্ন রেখেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির পক্ষ থেকে করোনাসুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা দেন তিনি। এসময় আসন্ন বাজেটে কালোটাকা সাদা করার সুযোগ থাকা নিয়ে বিএনপির সমালোচনার জবাবে মন্ত্রী তাদের উদ্দেশে এ পাল্টা প্রশ্ন করেন।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবের কাছে আমার সবিনয়ে প্রশ্ন, বিএনপিনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যে নিজে কালোটাকা সাদা করেছিলেন, তার কি জবাব আছে! আর প্রয়াত সাইফুর রহমান যিনি আব্দুস সাত্তার, জিয়াউর রহমান এবং খালেদা জিয়া- সবার আমলেই অর্থমন্ত্রী ছিলেন, তিনিও কালোটাকা সাদা করেছিলেন, তারই বা কি জবাব!’

আগে নিজেদের কালোটাকা সাদা করার জবাব দিন, তারপর সরকারের সমালোচনা করুন নয়তো সমালোচনার নৈতিক অধিকারই থাকেনা, বিএনপিকে স্মরণ করিয়ে দেন মন্ত্রী।

অর্থনীতির স্বার্থে ইউরোপ, আমেরিকা, ভারত, পাকিস্তানসহ পৃথিবীর বহুদেশেই অপ্রদর্শিত অর্থ বৈধ করার এ সুযোগ রাখা হয় উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি যে এটিকে সবসময়ের জন্য পুরোপুরি সমর্থন করি তা নয়, কিন্তু আমাদের দ্রুত বর্ধনশীল, উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশে এ সুযোগ রাখা হয়েছে অর্থনীতির স্বার্থেই।’

মন্ত্রী ড. হাছান বলেন, ‘বিএনপির বরং উচিত ছিলো, এই করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের জিডিপি বেড়েছে এবং মানুষের মাথাপিছু আয় ভারতকে ছাড়িয়ে গেছে, তার প্রশংসা করা। রাত বারোটার পর যারা টেলিভিশনের পর্দা ফাটান, সরকারকে নানা পরামর্শ দেন, তাদেরকেও এবিষয়ে অভিনন্দন দিতে দেখলাম না। দেশ ও মানুষের উন্নতি কি তাদের পছন্দ নয়!’

আওয়ামী লীগ দুর্যোগ দুর্বিপাকসহ সবসময় জনগণের পাশে আছে, থাকবে উল্লেখ করে ড. হাছান আক্ষেপের সুরে বলেন, ‘অন্যদিকে, করোনার প্রথম দফায় বিএনপি মাঝেমধ্যে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ভান করে যে লোকদেখানো ফটোসেশন করতো, এখন তাও করেনা, তারা শুধু সরকারের সমালোচনাতেই ব্যস্ত।’

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীর সভাপতিত্বে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, দলের ত্রাণ উপকমিটির সদস্য ও সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি মো: শাহজালাল, বিএফইউজের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো: আব্দুল মজিদ প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। অতিথিরা ভারত সীমান্তবর্তী চাঁপাইনবাবগঞ্জ, শেরপুর, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা জেলা ও মোড়লগঞ্জ এলাকার প্রতিনিধিদের হাতে করোনাসুরক্ষা সামগ্রী তুলে দেন।

দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নয়, ভেঙে পড়েছে বিএনপি

0

২৪ মে ২০২১

সাম্প্রতিক সব নির্বাচনে পরাজিত হয়ে বিএনপি এখন নির্বাচনে অংশ গ্রহণের আগ্রহই হারিয়ে ফেলছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নাকি সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা নয়, ভেঙে পড়েছে বিএনপি।

তিনি আজ সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এখন সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের উপর দায় চাপাচ্ছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন নির্বাচন কমিশন একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান এবং এই প্রতিষ্ঠান এখন স্বাধীন, কর্তৃত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপি নির্বাচনে আসে নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচন ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে।

তিনি আরও বলেন জনগণ বিএনপির এসব বুঝতে পেরেছে বলেই তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

বিএনপির কারচুপির যে অতীত ইতিহাস সেই রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারবে না মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন তারাই এখন নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে?

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিনের বিষয়টিকে ফরমায়েশি রায় বলে বিএনপি মহাসচিবের স্বভাবসুলভ নেতিবাচক বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের জানতে চান কে ফরমায়েশ দিয়েছে?, কোথা থেকে দিয়েছে?

তিনি মির্জা ফখরুলের কাছে কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য আছে কিনা তাও জানতে চান?

এধরনের কাল্পনিক অভিযোগ শুধু বিএনপিকেই প্রশ্নবিদ্ধ করছে না, দেশের স্বাধীন বিচার বিভাগকেও বিএনপি হেয় করছে বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি জানান বিএনপির অপরাজনীতি আর মিথ্যাচার ছিলো এতদিন সরকারের বিরুদ্ধে, এখন আদালতের বিরুদ্ধে তারা বক্তব্য দিচ্ছে যা প্রকারান্তরে আদালত অবমাননার শামিল।

পাসপোর্ট একান্তই একটি ট্টাবেল ডকুমেন্ট এবং আইডেন্টিটি, অন্য কিছু নয়,এটি ফরেন পলিসি বা ভূ-রাজনৈতিক বই নয়।পাসপোর্টের সাথে বিশ্ব রাজনীতির কোন সম্পর্ক নেই,বিশ্বব্যাপী এখন ই-পাসপোর্ট সমাদৃত।

পাসপোর্ট এবং বৈদেশিক সম্পর্ক নিয়ে মির্জা ফখরুল হঠাৎ এরূপ কাল্পনিক মনগড়া অভিযোগ কেন করছেন সেটা বোধগম্য নয় জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, মির্জা ফখরুলের এই মন্তব্যের পিছনে কোন দুর্ভিসন্ধি থাকতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন বলেও জানান।

ভূয়া এবং অনিবন্ধিত একটি সংগঠন দীর্ঘদিন ধরে সড়ক দুর্ঘটনা এবং আহত-নিহতের সংখ্যা নিয়ে অতিরঞ্জিত, মনগড়া প্রতিবেদন দিয়েছে যা সত্য নয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন বিআরটিএ ও ঈদ পরবর্তী ছুটির পরে পত্র পত্রিকাগুলোর রিপোর্ট অনুযায়ী সারা বাংলাদেশে গত ৯ মে থেকে ১৬ মে ২০২১ পর্যন্ত ৩৬ থেকে ৫৬টি সড়ক দুর্ঘটনা নিহত এবং ১০৭, জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

মন্ত্রী বলেন সড়কে দুর্ঘটনা হয় অস্বীকার করার কিছু নেই কিন্তু এ ধরনের কল্পিত, মনগড়া প্রতিবেদন কোথা থেকে আসে সেটাই প্রশ্ন।

এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেন।

সাংবাদিক রোজিনা ন্যায়বিচার পাবেন: কাদের

0

১৯ মে ২০২১

রোজিনা ইসলাম ইস্যুতে সাংবাদিক সমাজের প্রতি ধৈর্য্য ধারণ এবং দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহবান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

যেহেতু মামলা হয়েছে এবং বিষয়টি বিচারাধীন, তাই সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক ন্যায়বিচার পাবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকদের প্রতি কোন অবিচার হলে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ।

তিনি আজ সকালে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে শেখ হাসিনার “‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ৪ দশকে মানবতার আলোকবর্তিকা দেশরত্ন শেখ হাসিনা”‘ শীর্ষক আলোচনা সভা এবং ৪টি হাসপাতালে ৪টি হাই-ফ্লো নজেল ক্যানোলা ও ৪টি অটিস্টিক সংগঠনে শিক্ষা সহায়তা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

ওবায়দুল কাদের তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

ঘটনার দিন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল কেউ বিষয়টি সাংবাদিকদের ব্রিফ করলে এমন ভুলবোঝাবুঝির সৃষ্টি নাও হতে পারতো উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন যেহেতু বিষয়টি বিচারাধীন তাই সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক নিরাপরাধ হলে আদালতে ন্যায়বিচার পাবেন।

সরকার মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন দেশের গণমাধ্যমের প্রতি সরকারের কোন ধরনের চাপ নেই।
তিনি আরো জানান প্রতিনিয়ত দেশের গণমাধ্যম দুর্নীতি, অপরাধসহ নানান বিষয়ে প্রতিবেদন প্রচার ও প্রকাশ করছে।

এ দেশের গণতন্ত্রের বিকাশ, লালন,মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে গণমাধ্যম অতন্দ্র প্রহরী বলে মনে করেন তিনি।

দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশের জন্য সরকার দমন-পীড়ন চালাচ্ছে, এমন বক্তব্য যারা দিচ্ছেন তাদের বক্তব্য আদৌ সত্য নয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান স্পষ্ট ও কঠোর।।

বিএনপি প্রতিটি ইস্যু নিয়ে রাজনীতি করার অপচেষ্টা করে কিন্তু তাদের সে অপচেষ্টা হালে পানি পায় না বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের বলেন আওয়ামী লীগের এক সংকটময় কালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা মাত্র ৩৪ বছর বয়সে দলের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

তিনি আরো বলেন সুনিপুণ সাংগঠনিক দক্ষতা ও দূরদর্শী নেতৃত্বের গুণে জাতির পিতার এই সংগঠনকে শত প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও সুদৃঢ় ভিত্তির উপরে দাড় করান শেখ হাসিনা।

১৯৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর পর দেশী-বিদেশী সকল ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে জনগণের বিপুল সমর্থন নিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করেন বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি আরো জানান বর্তমানে একটানা তৃতীয়বারের মতো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করে চলেছেন শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা সাত দশক বয়সী আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন চার দশক ধরে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের আরো বলেন পৃথিবীর খুব কম রাজনীতিবিদের ভাগ্যেই এমনটি ঘটেছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা সংকটের এই ক্লান্তিকালেও বঙ্গবন্ধু কন্যা জনগণের জীবন ও জীবিকার সুরক্ষা নিশ্চিত করতে নিঃস্বার্থভাবে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বলে জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আরো বক্তব্য রাখেন সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ডক্টর আবদুর রাজ্জাক ও আবদুর রহমান, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কার্যকরী সদস্য ডাক্তার মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আবদুল আউয়াল শামীম, পারভীন জাহান কল্পনা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি অধ্যাপক ডাক্তার শরফুদ্দীন আহমেদ এবং অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুল।

পরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

উপ-সচিব আবুল খায়ের মোহাম্মদ মারুফ হাসানের পরিবারকে ২৫ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদান প্রধানমন্ত্রীর

0

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী উপ-সচিব আবুল খায়ের মোহাম্মদ মারুফ হাসানের পরিবারকে ২৫ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উভ/প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার কার্যালয়ের সচিব মোঃ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া আজ উপসচিব মারুফ হাসানের স্ত্রী ফাতেমা নাহারীন নীরা এবং মাতা মাহফুজা আক্তার বানুর নামে এই অর্থের দুটি আলাদা পারিবারিক সঞ্চয়পত্র হস্তান্তর করেন।

ফাতেমা নাহারীন নীরা তার নামে দেয়া ২০ লক্ষ টাকার এবং মাহফুজা আক্তার বানুর নামে দেয়া ৫ লক্ষ টাকার পারিবারিক সঞ্চয় পত্রদুটি গ্রহণ করেন।

প্রয়াত উপসচিব মারুফ হাসানের গৃহিণী স্ত্রী, ছোট দুই সন্তান এবং বৃদ্ধা মায়ের পারিবারিক ব্যয় নির্বাহের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে আর্থিক অনুদান হিসেবে পারিবারিক সঞ্চয় পত্র দেয়া হয়।

উল্লেখ্য বিসিএস ২২ তম ব্যাচের প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মারুফ হাসান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ১৫ই এপ্রিল ইন্তেকাল করেন।

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদকের ড্রয়িং-ডিজাইন আহবান

0

“বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদকের ড্রয়িং-ডিজাইন আহবান”

ঢাকা, বুধবার, ১৯ মে, ২০২১ :

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে রাজনীতি, অর্থনীতি, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া, সমাজসেবা, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ, গবেষণা এবং কৃষি ও পল্লিউন্নয়ন এ বিশেষ অবদানের জন্য নারীদের সর্বোচ্চ জাতীয় স্বীকৃতিস্বরূপ ০৫ (পাঁচ) জন বাংলাদেশী নারীকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক-২০২১’ প্রদান করা হবে। বঙমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদকের পরিমাপ ও ডিজাইন মতে উক্ত পদকের ডিজাইন প্রস্তুতের জন্য এ বিষয়ে অভিজ্ঞ ডিজাইনারদের নিকট হতে ডিজাইন আহবান করা যাচ্ছে । শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত ডিজাইনারকে উপযুক্ত সম্মানী প্রদান করা হবে।

পদকের সম্মুখভাগের উপর বঙমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক এবং নিচে বাংলাদেশ শব্দ স্পষ্ট আকারে লেখা থাকবে। মধ্যাংশে পানিতে ভাসমান জাতীয় ফুল শাপলা, শাপলার দুই পাশে দুইটি ধানের শীষ ও উপরে সংযুক্ত ৩ টি পাট পাতা ও পাট পাতার দুই পাশে দুইটি করে চারটি তারকা থাকবে। পদকের পিছনের অংশে উপরে ছোট বৃত্তে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর প্রতিকৃতি, প্রতিকৃতির বামপার্শ্বে খৃষ্টাব্দ এবং ডান পার্শ্বে বঙাব্দ গ্রথিত থাকবে। এর নিচে পদকের জন্য মনোনীত নারীর নাম এবং অবদানের ক্ষেত্র গ্রথিত থাকবে। পদকের রেপ্লিকার সামনে ও পিছনে পদকের অনুরুপ লেখা, ডিজাইন ও প্রতিকৃতি থাকবে।

মূল স্বর্ণপদকের পরিধি হবে ৪৫ (পয়তাল্লিশ) মিলিমিটার এবং রিং এর মাপ হবে ৩০ (ত্রিশ) মিলিমিটার। রেপ্লিকার পরিধি হবে ৩৫ (পয়ত্রিশ) মিলিমিটার ও রিং এর মাপ হবে ২৫ (পচিশ) মিলিমিটার।

আগ্রহী ডিজাইনারগণকে বঙমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদকের নমুনাসহ বিস্তারিত ড্রয়িং-ডিজাইন সীলমোহরকৃত আগামী ৩১ মে, ২০২১ তারিখের মধ্যে নির্বাহী পরিচালক, জাতীয় মহিলা সংস্থা, ১৪৫ নিউ বেইলি রোড, ঢাকা এর কার্যালয়ে দাখিলের জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজও মুখোমুখি এক অদৃশ্য ঝড়ের : নানক

0

বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রনায়ক শেখ হাসিনা-নানক

শেখ হাসিনাকে ঘিরেই সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ-নানক

ঢাকা: আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সেদিন ফিরে এসেছিলেন বলেই এই করোনা সংকটেও বাংলাদেশে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রনায়ক শেখ হাসিনা। তাকে ঘিরে সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ।

সোমবার (১৭মে) দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, এই দিনটি বাঙালি জাতি তথা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনুসারি ও স্বাধীনতার স্বপক্ষ শক্তি আপামর জনতার জন্য একটি বিশেষ দিন। কারণ বাংলাদেশের ইতিহাসে এই দিনটি যদি না আসত তাহলে বঙ্গবন্ধু মুজিবের নাম এদেশের ইতিহাস থেকে মুছে ফেলা হত। স্বাধীনতা বিরোধী চিহ্নিত রাজাকার আলবদর ও ধর্মীয় উগ্রবাদীরা জাতীয় পতাকা গাড়িতে উড়িয়ে ঘুরে বেড়াত।

১৫ আগস্ট নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনা স্মরণ করে নানক বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট মদদে দেশীয় সামরিক ও সাম্রাজ্যবাদের বেসামরিক চক্রের ষড়যন্ত্রে সামরিক বাহিনীর কতিপয় উচ্ছৃংখল সদস্য স্বাধীনতা আন্দোলনের একক নেতা আমাদের প্রিয় জন্মভ’মির জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে। এই হত্যাকান্ডে বঙ্গববন্ধুর আদর্শের অনুসারি নেতা-কর্মীরাসহ সমগ্র জাতি কিংকর্তব্যবিমুঢ় ও হতবিহ্বল হয়ে পড়ে। ফলে কোন রকম প্রতিরোধ-প্রতিবাদ বা বিভক্তিহীন পরিবেশের মধ্যে ষড়যন্ত্রকারী চক্রটি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখল করে নেয়।

বিদেশে অবস্থান করার কারণে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার বেঁচে থাকার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে নানক বলেন, জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ কন্যা আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাত্র ২৭বছর ১০মাস ১৭দিন বয়সে পিতা-মাতা ভ্রাতৃবধু একমাত্র চাচাসহ পরিবারের ১৭জন আপনজনকে হারিয়ে বেঁচে থাকার একমাত্র ছোট বোন শেখ রেহানা, স্বামী ও দুই সন্তানকে নিয়ে নানা প্রতিক’লতার মধ্যে প্রবাসে নির্বাসিত জীবন-যাপন করতে থাকে। তিনি নীরবে মাতৃভ’মির রাজনৈতিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে থাকে। বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশে জগদ্দল পাথরের মতো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় চেপে বসা সামরিক স্বৈরশাসকদের মামলা-হামলা নির্যাতন নিপীড়নে দিশেহারা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও স্বাধীনতার স্বপক্ষের মানুষ প্রত্যক্ষ করতে থাকে নানা গোষ্ঠী দ্বন্দে বিভক্ত নেতৃত্ব, নেতৃত্বশূন্য দলে ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের দ্বন্দ ও প্রতিযোগিতার অশুভ কার্যক্রম।

ঠিক এমনি এক পরিবেশে ১৯৮১ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনে বহুধা বিভক্ত দলকে ঐক্যবদ্ধ করতে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা পূরণে ৩৩ বছর চার মাস ১৭দিন বয়সে দেশের সর্ববৃহৎ এবং প্রাচীনতম রাজনৈতিক দলটির সভাপতি নির্বাচিত হন জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা। মানবতার জননী, নির্ভীক জননী আজকের প্রধানমন্ত্রী সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। সভাপতি নির্বাচতি হওয়ার তিন মাস একদিন পর ১৯৮১ সালের ১৭ই মে সম্পর্ণ প্রতিক’ল পরিবেশ জেনেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পিতামাতা ভাইবোন বিহীন দেশের জনগণের টানে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন।

দেশে ফেরার পর চার দশকে শেখ হাসিনার লড়াই-সংগ্রাম, আন্দোলন ও রাষ্ট্র পরিচালনার অগ্রযাত্রার অপ্রতিরোধ্য পথচলার প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আজকে প্রত্যাবর্তনের চার দশকে ব্যক্তি শেখ হাসিনাকে বরাবরেই দেখা গেছে কল্যাণমুখী মানসিকতায় যেকোন দুর্যোগ পরিস্থিতিতে সব সামলিয়ে নেয়ার বলিষ্ট নেতৃত্বের ভূমিকায়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের জন্য সুকৌশলে তিনি নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন। প্রাকৃতিক আর মনুষ্যসৃষ্ট সব বাধা বিপত্তির বিপরীতে পিতৃহারা শেখ হাসিনা যখন ঢাকায় ফিরছিলেন, সেই সময়টাতেও প্রকৃতি ছিল এক রুদ্ধমূর্তির বাতাবরণে। কালবৈশাখীর ঝড় সামলিয়ে চলা শুরু হত তো সেই থেকেই।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার চতুর্থবারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজও মুখোমুখি এক অদৃশ্য ঝড়ের। নানান সূচকে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছিল, সতিকারের সোনার বাংলা হয়ে উঠতে। ঠিক তখনি বৈশ্বিক মহামারির বাধা এসে হাজির। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই এখন পুরো জাতি। এর মধ্যেও থেমে নেই এর করালগ্রাস থেকে উত্তরণের চেষ্টা। যার নেতৃত্ব দিচ্ছে আমাদের সেই নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। আর এই সবকিছুই সম্ভব হয়েছে যার নেতৃত্বে তিনি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ১৯৮১ সালের এই দিনে তিনি ফিরে এসেছিলেন প্রিয় মাতৃভূমিতে ফলে তিনিই অসহায় মানুষের ত্রাণকর্তা। তিনি দিকনির্দেশক, অর্থনৈতিক মুক্তির অগ্রযাত্রার বিপ্লবে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

ভয়কে জয় করে সেদিন তিনি ফিরে এসেছিলেন বলেই বাংলাদেশ আজ এই করোনা সংকটেও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রনায়ক তিনি। তাকে ঘিরে সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ।

আলোচনা সভার প্রধান অতিথি তার সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাদেক খান। বঙ্গবন্ধু এভিনিউ প্রান্তে বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম,বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিয়ষক সম্পাদক আব্দুস সবুর, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য আনোয়ার হোসেন, শাহাবুদ্দীন ফরাজী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচিসহ অনেকে। সভা পরিচালনা করেন মহানগর উত্তরের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।

মানবিকতা আছে বলেই শেখ হাসিনা বেগম জিয়ার সাজা স্থগিত করে মুক্তি দিয়েছেন

0

১৭ মে ২০২১

আপন কর্মমহিমায় শেখ হাসিনা হয়ে উঠেছেন বাংলাদেশের নতুন ইতিহাসের নির্মাতা,হিমাদ্রি শিখর সফলতার মূর্ত-স্মারক,উন্নয়নের কান্ডারি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আজ সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে করোনা সংকট মোকাবিলা করে বাংলাদেশ আজ কাঙ্খিত উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির অভিযাত্রায় দুর্বার গতিতে এগিয়ে যেতে সক্ষম হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

৭৫ পরবর্তী বাংলাদেশে সবচেয়ে সৎ,সাহসী ও মানবিক নেতা শেখ হাসিনা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ আজ শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে বিশ্বের বিস্ময়।

আওয়ামী লীগের ঐক্যের প্রতিক হিসেবে শেখ হাসিনা গত চার দশক ধরে দলকে সফলভাবে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন শেখ হাসিনা দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে ধ্বংসস্তুুপের উপর দাঁড়িয়ে বারবার জীবনের জয়গান গেয়েছেন।

বঙ্গবন্ধু রাজনীতির রেল মডেল, আর উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে শেখ হাসিনার নাম চির ভাস্বর হয়ে থাকবে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন শেখ হাসিনার মত দুরদর্শি নেতৃত্ব আছে বলেই বাংলাদেশ আজ সঠিক পথে এগিয়ে চলছে।

তিনি আরো বলেন আপোষহীন কান্ডারি হিসেবে উন্নয়নের মহাসড়ক ধরে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে নিয়ে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার অভিমুখে।

ওবায়দুল কাদের বলেন শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন বলেই ঢাকায় আজ তরুণ প্রজন্মের মেট্রোরেল, নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণাধীন পদ্মাসেতুর কাজ এখন শেষ পর্যায়ে, সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৮৫ ভাগ।

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে আবারও বলেন আগামী বছর জুনে এই সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন বলেই বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন এটা শেখ হাসিনার সাফল্যের মুকুটে যুক্ত আরো একটি সোনালী পালক।

বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি নেতাদের বিভিন্ন বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন
মানবিকতা আছে বলেই শেখ হাসিনা বেগম জিয়ার সাজা স্থগিত করে মুক্তি দিয়েছেন।

তিনি বিএনপি নেতাদের প্রশ্ন রেখে বলেন এটা কি মানবিকতা নয়?

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন এই মানবিকতার একটা প্রশংসাও বিএনপি নেতারা করেননি।

১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর হত্যা দিবসে কেক কেটে খালেদা জিয়ার ভূয়া জন্মদিন পালন করে প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে বিএনপি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন এই রেকর্ড আর কারো নেই,যা বিএনপি সৃষ্টি করেছে।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সাদেক খানের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু এভিনিউও প্রান্তে আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য এড.জাহাঙ্গীর কবির নানক,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম,প্রকৌশলী আবদুস সবুর,ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচি অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

সরকারের সঠিক পদক্ষেপের ফলে করোনায় দেশ এখনো নিরাপদ রয়েছে” : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

0

“সরকারের সঠিক পদক্ষেপের কারণেই
করোনায় দেশ এখনো নিরাপদ রয়েছে”
-স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, এমপি।

ঢাকা: ১৭ মে, ২০২১ খ্রি.
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক, এমপি বলেছেন, “সরকারের সময় মতো সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের ফলেই করোনায় এখনো বাংলাদেশ অনেকটাই নিরাপদ রয়েছে। পাশর্^বর্তী দেশ ভারতে দিনে গড়ে প্রায় ৪ হাজার মানুষ করোনায় মারা যাচ্ছে এবং দৈনিক ৩ থেকে ৪ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। অথচ ভারতের এত নিকটবর্তী দেশ হয়েও আমাদের দেশে বর্তমানে সংক্রমন দিনে ৩০০ জনের কাছাকাছি নেমে গেছে। ভারতীয় নতুন ভ্যারিয়েন্ট দেশে চলে এলেও তাদেরকে সঠিকভাবে কন্ট্রাক্ট ট্রেসিং করার ফলে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টটি দেশে এখনো ছড়িয়ে পড়তে পারেনি। তবে, আগামী কিছুদিন আমাদেরকে আরো বেশি সতর্ক থাকতে হবে। ঈদ শেষে মানুষ যেন আগামী কিছুদিন ঢাকায় ফিরতে না পারে সে ব্যাপারে সরকারকে সচেষ্ট থাকতে হবে। পাশর্^বর্তী দেশ ভারতের কোভিড পরিস্থিতি স্বাভাবিক পর্যায়ে না আসা পর্যন্ত ভারতের সাথে সব রকম সীমান্ত বন্ধ রাখতে হবে।”

আজ দুপুরে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে ঈদ পরবর্তী আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, এমপি।

ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, রাশিয়া, চীন, ইউকেসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশের সাথে সরকারের ফলপ্রসু আলোচনা চলছে। খুব শীঘ্রই হয়তো এ বিষয়ে সুখবর দেয়া সম্ভব হবে। ভ্যাকসিন ক্রয়ের পাশাপাশি দেশেই ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে চায় সরকার, বিষয়টি উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, “ভ্যাকসিন ক্রয়ের পাশাপাশি দেশেই ভ্যাকসিন উৎপাদন করতে কাজ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানগুলিকে কেন্দ্রীয় ঔষধ প্রশাসন কর্তৃক অনুমোদন নিতে হবে। কেন্দ্রীয় ঔষধ প্রশাসন সব ধরণের উৎপাদন ক্ষমতা যাচাই-বাছাই করে কিছু নাম সুপারিশ করলে তখন সেগুলি থেকে নির্দিষ্ট করে উপযুক্ত কোন এক বা একাধিক কোম্পানীকে উৎপাদন ক্ষমতা দেয়া যেতে পারে। এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোন কোম্পানীকে অনুমোদন দেয়া হয়নি।”

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় স্বাস্থ্যসেবা সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলী নূর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, যুগ্মসচিবগণ এসময়ে উপস্থিত ছিলেন। 

বাংলাদেশ টেলিভিশন দেখার সুবিধা নিয়ে এলো বিটিভি অ্যাপ

0

বিটিভি অ্যাপ উদ্বোধন
ঢাকা, বুধবার ১২ মে ২০২১:
মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে বাংলাদেশ টেলিভিশন দেখার সুবিধা নিয়ে এলো বিটিভি অ্যাপ। গুগল প্লে স্টোর থেকে এন্ড্রয়েড মোবাইলে এবং অ্যাপ স্টোর থেকে আইাফোনে বিনামূল্যে অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে। বিটিভি, বিটিভি ওয়ার্ল্ড, বিটিভি চট্টগ্রাম এবং সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশন -চারটি চ্যানেলই এই অ্যাপের মাধ্যমে দেখা যাবে ।

বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অ্যাপটি উদ্বোধনকালে বলেন, অ্যাপের মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে মোবাইলে বাংলাদেশ টেলিভিশন দেখার এই সুবিধা দেশের রাষ্ট্রীয় সম্প্রচার মাধ্যমের জন্য নতুন যুগের সূচনা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের আরেকটি গণমুখী দৃষ্টান্ত।

বাংলাদেশ টেলিভিশন-বিটিভি’র মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন, সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক আবেদা আখতার, বিটিভি’র উপমহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) ড. সৈয়দা তাসমিনা আহমেদসহ মন্ত্রণালয় ও বিটিভি’র কর্মকর্তাবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

ড. হাছান বলেন, ‘আজকে ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যম সমাজের চিত্র তুলে ধরা, মানুষের মনন তৈরি এবং আমাদের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য লালনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে যার যাত্রা শুরু হয়েছিল বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতেই। ১৯৯৬ সালে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বগ্রহণের পর তার নেতৃত্বেই দেশে বেসরকারি টেলিভিশনের যাত্রা। সেই থেকে আজ পর্যন্ত ৩৪টি স্যাটেলাইট চ্যানেল সম্প্রচারে আছে, অপেক্ষায় আছে আরো ১১টি।’

টেলিভিশনগুলোর সম্প্রচারের ফলে গণমাধ্যম জগতে বিরাট পরিবর্তন ঘটেছে, বিশাল কর্মক্ষেত্রও তৈরি হয়েছে উল্লেখ করে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত হয়ে কয়েক লাখ মানুষ তাদের জীবিকা নির্বাহ করছে। দেশের অর্থনীতিতেও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলগুলো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। আমাদের নতুন প্রজন্ম যেন মেধা, মূল্যবোধ, মমত্ব, দেশাত্মবোধের সমন্বয়ে প্রত্যয়ী হয়ে গড়ে উঠতে পারে, সেই লক্ষ্য নিয়েই যেন সকল অনুষ্ঠান তৈরি হয়, সকল টেলিভিশনের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।

এসময় রাষ্ট্রায়ত্ব বিটিভি’র পাশাপাশি বর্তমানে বিটিভি ওয়ার্ল্ড, বিটিভি চট্টগ্রাম এবং সংসদ বিটিভি সম্প্রচারে রয়েছে উল্লেখ করে আগামী দু’বছরের মধ্যে দেশের বাকি ৬টি বিভাগীয় শহরে বিটিভি’র আরো ৬টি কেন্দ্র স্থাপনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসময় বলেন, ‘সবসময় লকডাউন না থাকলেও আমরা যদি সবসময় ঠিকভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি, তবে করোনাকে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভবপর হবে বলে আমার বিশ্বাস।

বেগম জিয়াকে মানবিক কারণে মুক্তি দিয়েছেন, বিএনপির আন্দোলনে নয়: কাদের

0

১২ মে ২০২১

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যাপারে সরকার নিষ্ঠুর ও অমানবিক আচরণ করেছেন, বিএনপি মহাসচিবের এই বক্তব্যকে প্রত্যাখ্যান করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা মানবিক বলেই দন্ডপ্রাপ্ত আসামি বেগম জিয়াকে জেলের বাইরে এনে মুক্ত ভাবে সুচিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন।

তিনি আজ সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে একথা বলেন।

বিএনপির রাজনীতি যে কতটা প্রতিহিংসাপরায়ণ, বিদ্বেষপূর্ণ তা বলার অপেক্ষা রাখে না, কারণ জাতির পিতার হত্যা দিবসে বেগম জিয়ার ভূয়া জন্মদিন পালনই তার প্রমাণ বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

যারা ১৫ আগস্ট স্বপরিবারে জাতির পিতা,অবলা নারী ও শিশু হত্যার জঘন্য ঘটনাকে বিদ্রুপ করে ভূয়া জন্মদিন পালন করে তারা কোন ধরনের মানবিকতা লালন করেন, বিএনপি নেতাদের কাছে প্রশ্ন রাখেন ওবায়দুল কাদের।

চিকিৎসার নামে লন্ডনে গিয়ে সরকার বিরোধী অপকর্ম করার সুযোগ না পাওয়ায় বিএনপি নেতারা এখন সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

১৯৯১ সাল থেকে বিএনপি নেতারা বেগম জিয়ার ভূয়া জন্মদিন পালন করে জাতিকে বিভ্রান্ত করে আসছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন জাতির পিতার হত্যা দিবসে কেক কেটে জন্মদিনের উৎসব পালন করার পরামর্শ বেগম জিয়াকে আপনাদের দলের কে বা কারা দিয়েছিলেন, কারাই বা তাঁর উপদেষ্টা সে প্রশ্নের জবাব এখনো পায়নি , মির্জা ফখরুলের কাছে প্রশ্ন রেখে ওবায়দুল কাদের আরো বলেন এ কোন রাজনীতি বাংলাদেশে চলছে?

তিনি বলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হৃদয় আছে বলেই বেগম জিয়াকে মানবিক কারণে মুক্তি দিয়েছেন, বিএনপির আন্দোলনে নয়।

মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজের সার্বিক গড় অগ্রগতি ৬৩ দশমিক দুই ছয় ভাগ

0

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, বাংলাদেশের প্রথম মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজের সার্বিক গড় অগ্রগতি ৬৩ দশমিক দুই ছয় ভাগ।প্রথম পর্যায়ের নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব হতে আগারগাঁও অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি ৮৪ দশমিক সাত নয় ভাগ।

তিনি আরও জানান দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের পূর্ত কাজের অগ্রগতি ৫৯ দশমিক সাত আট ভাগ এবং ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম, রোলিং স্টক ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ কাজের সমন্বিত অগ্রগতি ৫৪ দশমিক চার শূন্য ভাগ।

গাছ যেন কম কাটা হয়, সে চেষ্টা করা হবে : আ ক ম মোজাম্মেল হক

0

সবার সাথে আলোচনা করে গাছ যেন কম কাটা হয়, সে চেষ্টা করা হবে- আ ক ম মোজাম্মেল হক

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যত গাছ কাটা হয়েছে, তার দশগুন গাছ লাগানো হবে। উদ্ভিদবিদ/উদ্যানতত্ববিদের সমন্বয়ে কমিটি করা হয়েছে।- আ ক ম মোজাম্মেল হক।

৫০ টা গাছ কাটা হয়েছে। আর ৫০ টা কাটার পরিকল্পনা ছিল। তবে গাছ কাটা কত কমানো যায় সে বিষয়ে পরিবেশবিদের দিয়ে একটি কমিটি করা হয়েছে। যত কম সংখ্যক গাছ কাটা যায় তাই করা হবে।

খালেদা জিয়ার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে ‘ক্ষুব্ধ ও হতাশ’ বিএনপি

0

খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিতসার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তে ‘ক্ষুব্ধ ও হতাশ’ বিএনপি।

রাতে এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘‘ সরকারের এই সিদ্ধান্তে আমরা নিসন্দেহে অত্যন্ত হতাশ ও ক্ষুব্ধ। এই কথা অত্যন্ত সত্য কথা যে, একটা মিথ্যা মামলা সাজিয়ে তাকে সাজা দেয়া হয়েছে। এর মূল উদ্দেশ্যটা ছিলো বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দেয়া। এটা আজকে নয়, ১/১১ থেকে এটা শুরু হয়েছে,….।

‘‘ এটা তো খুব পরিস্কার সরকার ১/১১ এর ধারাবাহিকতা বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিতে চান। তারই ফলোশ্রুতিতে আজকে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

দুপুরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘‘ খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার আবেদনে অনুমতি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। একবার যখন একটা সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে, ৪০১ ধারায় কার্যক্রম শেষ হয়ে গেছে। সেজন্য এটাকে আরেকবার রিওপেন করার সুযোগ নেই। সেক্ষেত্রে বিদেশে যাওয়ার আবেদনে অনুমতি দেওয়ার সুযোগ নেই।’’

পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ আইন মন্ত্রণালয়ের মতামতের ভিত্তিতে এই সংক্রান্ত(শামীম ইস্কান্দার) আবেদন মঞ্জুর করা গেলো না। ”

গত ৬ মে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার তার বোনকে উন্নত চিকিতসার জন্য বিদেশে নিতে অনুমতি চেয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বরাবরে লিখিত আবেদন করেন। পরদিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সেই আবেদনটি আইন মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠিয়ে দেন মতামতাদের জন্য।

সরকারের সিদ্ধান্তে কোনো যুক্তি নেই দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘‘ আমরা মনে করি যে, এই সিদ্ধান্তের কোনো যুক্তি থাকতে পারে না। তারা (সরকার) যে কথা বলেছেন যে, কোনো নজির নেই। নজির তো সরকার সৃষ্টি করেছে অসংখ্য।”

‘‘ এই বিষয়টা তো শুধু মানবিক কারণে নয়, রাজনৈতিক কারণেও জরুরী এজন্যে যে, সি ওয়াজ এক্স প্রাইম মিস্টার ফর থ্রি টার্মস, সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা, স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত তার যে অবদান তার অস্বীকার করবার কোনো উপায় নেই। দুর্ভাগ্য আমাদের সরকারের যে প্রতিহিংসামূলক রাজনীতি সেই রাজনীতিকে চরিতার্থ করতেই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।”

তিনি বলেন, ‘‘ দেখুন যে ধারাতে দেশনেত্রীর সাজা স্থগিত করেছে ওই ধারাতেই কিন্তু তাকে বিদেশে যাওয়া বা একেবারেই সাজা-দন্ড মওকুফ করার যথেষ্ট পরিমান সুযোগে সেই আইনের মধ্যে দেয়া আছে।”

‘‘ তারা(সরকার) মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত খুনের আসামীকে বাইরে পাঠিয়ে দিতে পারেন, মাফ করে দিতে পারেন। কিন্তু একজন পপ্যুলার পলিটিক্যাল লিডার এবং এদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ও গণতন্ত্রের যুদ্ধের সঙ্গে যিনি অগ্রনী ভুমিকা পালন করেছেন তার জন্য তাদের কোনো মানবতা কাজ করে না। তাদের কোনো শিষ্ঠাচার কাজ করে না, তাদের কোনো মূল্যবোধই কাজ করে না।”

খালেদা জিয়া কী রাজনীতির শিকার হলেন শেষ পর্যন্ত – এরকম প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘‘ অবশ্যই। এখনো তিনি রাজনীতির শিকার হয়েই আছেন। শেষ পর্যন্ত বলছেন কেনো? তিনি তো রাজনীতির শিকার হয়েই কারাগারে আছেন এবং এখন অন্তরীনই আছেন বলা যেতে পারে।”

উন্নত চিকিতসার জন্য বিদেশে যাওয়ার আবেদন নাকচ হওয়ার পর পরবর্তি পদক্ষেপ কী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘ আমরা তো পার্টির তরফ থেকে তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য তখনও আবেদন করেনি, এখনো আবেদন করেনি। তার পরিবার যেটা ভালো মনে করবেন সেটাই করবেন। পরিবারই ডিসাইড করবে তারা কী করবে?’’

বিকালে সরকারের সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমে প্রকাশের পর সন্ধ্যায় বিএনপি মহাসচিব এভারকেয়ার হাসপাতালে যান এবং দলের চেয়ারপারসনের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে চিকিতসকদের নিয়ে কথা বলেন। পরে তিনি হাসপাতালের বাইরে সাংবাদিকদের সামনে কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘‘ আমি তাকে দূর থেকে দেখতে গিয়েছিলাম। দেখলাম যে, আমার কাছে বেটার মনে হলো। আপনারা ইতিমধ্যে জেনেছেন যে, তার কিছু কিছু প্যারামিটার বেটারে এবং তিনি এখন অক্সিজেন ছাড়ায় শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছেন এবং সেখানে তার ‍খুব একটা অসুবিধা হচ্ছে না। কিন্তু এখনো তার যে লাংক ও পেটে পানি আসছিলো সেটার জন্য কিন্তু টিউব লাগানো আছে এবং সেটা ডাক্তাররা বলেছেন যে, পোস্ট কোবিড যে কমপ্লিকেশন সেই কমপ্লিকেশনগুলো তার পুরো মাত্রাই আছে।”

‘‘ তবে আল্লাহর কাছে অশেষ রহমত যে, এখন তিন সি সাইনিংস আর ইম্প্রুভমেন্ট। উন্নতির লক্ষন দেখা যাচ্ছে।”

গত ২৭ এপ্রিল থেকে বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি আছেন খালেদা জিয়া। গিত ৩ মে তিনি শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে তাকে করোনারী কেয়ার ইউনিট(সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়।

হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের অধীনে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিতসা কার্য্ক্রম চলছে।

বিপুল পরিমাণ চোলাই মদ উদ্ধার

0

চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া থানাধীন দূর্গম পাহাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ চোলাই মদ উদ্ধারসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম।

১। র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মাদক উদ্ধার, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

২। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া থানাধীন ত্রিপুরা সুন্দরী ভরনছড়ি বড় খোলার দূর্গম পাহাড়ে একটি শক্তিশালী মাদক সিন্ডিকেট বিপুল পরিমান চোলাই মদ বিভিন্ন এলাকায় সাপ্লাই করার জন্য মদের ভান্ডারসহ অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে গত ০৮ মে ২০২১ তারিখ বিকাল ১৩০৫ ঘটিকায় র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম এর একটি আভিযানিক দল বর্ণিত দূর্গম এলাকায় দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক চক্রের সংঘবদ্ধ দলটি দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে মাদক ব্যবসায়ী ১। লিয়াকত (২৪), ২। মোঃ আজগর আলী(২০), উভয় পিতা-আহমদ ছফা, ৩। নুর হোসেন (২১), পিতা-মৃত নবীর হোসেন এবং ৪। রমজান আলী (১৯), পিতা-আব্দুর রহমান, সর্বসাং-মুসুবাম, পদুয়া, ৪নং ওয়ার্ড, থানা-রাঙ্গুনিয়া, জেলা- চট্টগ্রামদের আটক করে। র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম দীর্ঘ ১০ ঘন্টা অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন স্থান হতে মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে থাকা ১২,৮৫০ লিটার দেশীয় চোলাই মদ উদ্ধার করেন। আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, তারা দীর্ঘ দিন যাবৎ লোক চক্ষুর অন্তরালে গহীন পাহাড়ী অরণ্যে দেশীয় মদ তৈরী করে আসছিল এবং তা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করে থাকে। দূর্গম পাহাড়ী অরণ্যে পরিবহন দুরুহ ও কষ্ট সাধ্য হওয়ায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী বিপুল পরিমান চোলাই মদ ধ্বংস করে নমুনাসহ আসামীদের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া মডেল থানায় হস্থান্তর করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ৩৮ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকা।

৩। মাদক উদ্ধারের ঘটনায় চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া মডেল থানায় মামলা রুজু হয়।

মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন মন্ত্রীর পদমর্যাদায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যোগদান

0

অবসরপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন মন্ত্রীর পদমর্যাদায় অ্যাম্বাসেডর-অ্যাট-লার্জ পদে আজ সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যোগদান করেছেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং কার্যালয়ের সচিব মোঃ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া তাঁকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

একটা ঈদে নিজের ঘরে থাকতে কী ক্ষতিটা হয়?

0

করোনার ভারতীয় ধরন আরও ভয়ংকর উল্লেখ করে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার (৯ মে) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে পূর্বাচল প্রকল্পে ‘মূল অধিবাসী ও সাধারণ ক্ষতিগ্রস্ত’ এ দুটি ক্যাটাগরিতে মোট ১ হাজার ৪৪০টি প্লট বরাদ্দপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারির সময় আপনারা মাস্ক পরে থাকবেন, সাবধানে থাকবেন। কারণ নতুন একটা ভাইরাস এসেছে, এটা আরও বেশি ক্ষতিকর, যাকে ধরে সঙ্গে সঙ্গে তার মৃত্যু হয়।

যারা বিক্ষিপ্তভাবে ঈদে বাড়ি ফিরছেন তারা গ্রামে থাকা স্বজনদের মৃত্যুঝুঁকিতে ফেলতে যাচ্ছেন মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, জানি ঈদের সময় মানুষ পাগল হয়ে গ্রামে ছুটছেন, এই যে, আপনারা একসঙ্গে বাড়ি ‍যাচ্ছেন, চলার পথে- ফেরিতে হোক বা গাড়িতে হোক, আর লঞ্চে হোক কার যে করোনাভাইরাস আছে আপনি জানেন না। সুতরাং আপনি সেটা বয়ে নিয়ে যাচ্ছেন আপনার পরিবারের কাছে। মা-বাবা, দাদা-দাদি ও ভাইবোন যারাই থাকুক বাড়িতে আপনি কিন্তু তাদের সংক্রমতি করবেন। তাদের জীবনটাও মৃত্যুঝুঁকিতে ফেলে দেবেন আপনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা ঈদে নিজের ঘরে থাকতে কী ক্ষতিটা হয়? কাজেই ছোটাছুটি না করে যে যেখানে আছেন, সেখানে থাকেন। সেখানেই নিজের মতো করে ঈদটা উদযাপন করেন। আমাদের প্রতিবেশী দেশে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে। কাজেই আগে থেকে আমাদের সুরক্ষিত থাকতে হবে। আমাদের সেভাবেই চলতে হবে যেন আমরা সবাই করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে বেঁচে থাকতে পারি।

অবশেষে ভারত মহাসাগরে পড়ল চীনা রকেটের ধ্বংসাবশেষ

0

চীনা রকেটের নিয়ন্ত্রণহীন ধ্বংসাবশেষ অবশেষে ভারত মহাসাগরে পড়েছে বলে দাবি করেছে বেইজিং। আজ রোববার (০৯ মে) বেইজিং এর স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ২৪ মিনিটে ধ্বংসাবশেষ ভারত মহাসাগরে পড়ে। খবর সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

এর আগে ভূমধ্যসাগরে রকেটটি পড়তে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছিল চীন।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ডেইলি মেইল জানিয়েছে, বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে আটটার দিকে রকেটটির ধ্বংসাবশেষ মালদ্বীপের ওপর দিয়ে পৃথিবীতে পুনরায় প্রবেশ করে। এরপর সেটি ভারত সাগরে গিয়ে আছড়ে পড়ে।

এর আগে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাইক হাওয়ার্ড জানান, ৮ মে পৃথিবীর কক্ষপথে ফিরে আসতে পারে চীনা রকেটটি। তিনি আরও জানান, বিষয়টি মার্কিন সামরিক বাহিনীর স্পেস কমান্ড নজরদারি করছে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বেশকিছু গণমাধ্যম জানিয়েছিল রকেটটির ধ্বংসাবশেষ ইতালির রাজধানী রোমসহ দেশটির মধ্য ও দক্ষিণাঞ্চলের ১০টি বিভাগের যে কোনো স্থানে আছড়ে পড়তে পারে। এ নিয়ে জরুরি সতর্কতা জারি করেছে ইতালি সরকার। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার পর আতঙ্কে রয়েছেন ইতালির নাগরিকরা।

চীনা মহাকাশ স্টেশন স্থাপনের জন্য ‘লং মার্চ ৫বি রকেট’টি গত ২৯ এপ্রিল উৎক্ষেপণ করা হয়। রকেটটিকে সফলভাবে তিয়ানহে স্পেস স্টেশনের মডিউলকে কক্ষপথে স্থাপন করা গেলেও পরে সেটির ওপর থেকে নিয়ন্ত্রণ হারায় গ্রাউন্ড স্টেশন। এরপর থেকেই পৃথিবীর কক্ষপথে ঘুরে চলেছে চীনা রকেটটি। তবে, এর ভিতরের ১০০ ফুট লম্বা (৩০ মিটার) একটি অংশ রকেট থেকে আলাদা হয়ে ক্রমশ পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে ঢুকে পড়ছে। যে কোন মুহুর্তে পৃথিবীতে আছড়ে পড়তে পারে।

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার আবেদন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত : ড. হাছান

0

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার আবেদন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত -ড. হাছান

ঢাকা, রোববার ৯ মে, ২০২১:
‘দেশে সর্বোচ্চ চিকিৎসাসুবিধা সত্ত্বেও খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার আবেদন বিএনপির রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ বলেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রোববার দুপুরে ঢাকার মিন্টু রোডে সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে সায়েদাবাদের আর কে চৌধুরী ডিগ্রি কলেজ প্রাঙ্গণে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের এসংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন।

‘বেগম খালেদা জিয়া সুস্থ হোন, সেটিই আমরা চাই এবং এজন্য মহান স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করি’ উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, আজ বিএনপি সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছে বেগম জিয়া দ্রুত আরোগ্যলাভ করছেন, এটি অত্যন্ত সুখবর।

মন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া দেশের সর্বোচ্চ চিকিৎসাসুবিধা পাচ্ছেন এবং এটি নিশ্চিত করতে সরকার বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট সকলকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন। সর্বোচ্চ চিকিৎসাসুবিধার ফলে ইতোমধ্যেই তার করোনা নেগেটিভ এসেছে। এজন্য চিকিৎসকদেরও ধন্যবাদ জানাই।’

‘কিন্তু এরপরও বেগম জিয়াকে বিদেশে নেয়ার জন্য বিএনপির আবেদন-নিবেদনের হেতু বোধগম্য নয়, এর পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য কাজ করছে, কারণ তিনি এখানে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে উঠছেন’ উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী।

হাছান মাহমুদ বলেন, করোনা পজিটিভ কোনো রোগীকে অন্য কোনো দেশ নিচ্ছেনা এবং নেগেটিভ হবার পরও বেশ কিছুদিন যে নানা শারিরীক সমস্যা থাকে, তা আমার করোনা হয়েছিল বলে আমি জানি, এগুলো স্বাভাবিক। বেগম জিয়াকে এখন বিদেশে নয়, দেশেই তার সেবা-শুশ্রুষা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। সেকারণে বেগম জিয়াকে তাদের (বিএনপির) বিদেশে নিয়ে যাবার আবেদনের উদ্দেশ্য চিকিৎসা নয়, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বলেই আমার মনে হয়।’

স্বাধীনতা পরিষদের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার সোহরাব খান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো: শাহাদত হোসেন টয়েলের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বিশেষ অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট বলরাম পোদ্দার, এম এ করিম, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবদুল গণি ও স্বাধীনতা পরিষদের সভাপতি জিন্নাত আলী খান জিন্নাহ । স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠানে প্রায় পাঁচশত পরিবারের হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত আরো ২ লক্ষ খামারিকে ২৯২ কোটি টাকা প্রণোদনা দেওয়া হবে

0

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত আরো ২ লক্ষ খামারিকে ২৯২ কোটি টাকা প্রণোদনা দেওয়া হবে

-মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

ঢাকা, ০৯ মে ২০২১ (রবিবার)

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, “করোনাকালে মাছ, মাংস, দুধ, ডিম মানুষের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। মানুষের পুষ্টি ও আমিষের প্রয়োজন মেটাতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও আওতাধীন দপ্তর কাজ করছে। কোভিড-১৯ মহামারির প্রথম পর্যায়ে খামারিদের উৎপাদিত দুধ, ডিম, মাছ, মাংস তাদের মাধ্যমে, গ্রুপভিত্তিক ভ্রাম্যমান টিম গঠন করে এবং ক্ষেত্র বিশেষে মন্ত্রণালয়াধীন দপ্তর-সংস্থার মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে। দেশের ৫০ বছরের ইতিহাসে এ জাতীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। গতবছর প্রায় ৯ হাজার ২০০ কোটি টাকার পণ্য ভ্রাম্যমান ব্যবস্থায় বিক্রয় করা হয়েছে। এতে উৎপাদক ও খামারি এবং একইসাখে ভোক্তারা উপকৃত হয়েছে। এছাড়া করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের ক্ষতিগ্রস্ত ৪ লক্ষ খামারিকে ৫৫৪ কোটি টাকা নগদ আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আরো ২ লক্ষ খামারিকে ২৯২ কোটি টাকা প্রণোদনা দেওয়া হবে। এটি যাচাই-বাছাই চলছে। এটি ঋণ নয়। ছোট ছোট প্রান্তিক খামারিরা যাতে ঘুরে দাঁড়াতে পারে সে জন্য এ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।”

রবিবার (০৯ মে) রাজধানীর সচিবালয়ে নিজ দপ্তর কক্ষে করোনা সংকটে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় গৃহীত কাযর্ক্রম ও সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, “করোনায় সরকার ঘোষিত চলমান বিধি-নিষেধের মধ্যে অনেক দপ্তরের কাজ বন্ধ থাকলেও এসময় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন মৎস্য অধিদপ্তর ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরে খামারিদের উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে কন্ট্রোল রুম চালু করা হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তর-সংস্থার কার্যক্রম বিশেষ করে সম্প্রসারণ, কৃত্রিম প্রজনন, টিকাদান, চিকিৎসা, পরামর্শ সেবা প্রদান এবং সরকারি খামারে রেনু-পোনা উৎপাদন ও সরবরাহ, হাঁস-মুরগী ও গবাদিপশুর বাচ্চা উৎপাদন ও বন্টন অব্যাহত রাখা হয়েছে।অনলাইন-এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে খামারিকে সেবা প্রদান এবং অনলাইনে আমদানি-রপ্তানির জন্য এনওসি এর আবেদন গ্রহণ ও অনুমোদন করে ওয়েবসাইটে প্রদান করা হচ্ছে। প্রাণিজ পণ্য আমদানি-রপ্তানি সচল রাখার জন্য এ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সকল ল্যাব চালু রাখাসহ সকল প্রকার পরীক্ষা ও পরিদর্শন কার্যক্রম চালু রাখা হয়েছে।”

তিনি আরো বলেন, “মন্ত্রণালয় গত ০৫ এপ্রিল ২০২১ তারিখ থেকে মাছ, মাংস, দুধ, ডিম এবং এগুলোর উৎপাদন সামগ্রীর সাপ্লাই চেইন নিরবচ্ছিন্ন রাখার জন্য সমন্বয়ক হিসেবে কাজ শুরু করেছে। একারণে দেশের কোথাও দুধ, ডিম, মাছ, মাংসের সরবরাহে কোন ঘাটতি নেই। এবছরও ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। এসব বিক্রয় কেন্দ্রে বাজার দামের চেয়ে কম দামে ন্যায্যমূলে দুধ, ডিম, মাছ, মাংস বিক্রি হচ্ছে। এসব পণ্য কিনতে অসাধু ব্যক্তি বা মধ্যস্বত্ত্বভোগীদের হাতে যাতে মানুষ জিম্মি হয়ে না পড়ে। ভ্রাম্যমান বিক্রয় ব্যবস্থায় গরুর মাংস প্রতি কেজি ৫০০ টাকা, খাসীর মাংস প্রতি কেজি ৭০০ টাকা, সোনালী মুরগী প্রতি কেজি ২১০ টাকা, ব্রয়লার মুরগী প্রতি কেজি ১২০ টাকা, ডিম প্রতিটি ৬ টাকা এবং প্যাকেট দুধ প্রতি লিটার ৬০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। এ ব্যবস্থায় সারাদেশে এ পর্যন্ত ২২৩ কোটি ৮৮ লক্ষ টাকার পণ্য বিক্রয় হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বিশেষভাবে প্রণীত কর্মপরিকল্পনা এবং এর সফল বাস্তবায়নের ফলে করোনার এ অতিমারির মধ্যেও মাছ, মাংস, দুধ, ডিম এর উৎপাদন, সরবরাহ, বিপণন অব্যাহত রয়েছে এবং এগুলোর বাজারমূল্য স্থিতিশীল রয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিষম্পদ খাতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ৮০ লক্ষ মানুষ জড়িত। সে মানুষগুলো যাতে করোনায় কোনভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, বেকার হয়ে না পড়ে সেজন্য মন্ত্রণালয় এসব কাজ বাস্তবায়ন করছে।”

করোনা ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে এ সময় মন্ত্রী বলেন, “ভ্যাকসিনের সাময়িক সমস্যা হলেও ইতোমধ্যে সরকার যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে থেকে ভ্যাকসিন আনার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। এসব দেশ থেকে আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে করোনা ভ্যাকসিন পেয়ে যাবো। আশা করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাদুকরী নেতৃত্ব ও সেরা কূটনীতির কারণে বাংলাদেশের একজন মানুষও করোনার ভ্যাকসিনহীন থাকবে না।”

এসময় করোনা সংকটেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তথ্যের অবাধ প্রবাহকে সকল মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান মন্ত্রী।

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করুন : নানক

0

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করুন- নানক

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে রাজনীতি ও লুকোচুরি না করাতে বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক।
তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া এই দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তার অসুস্থতা নিয়ে লুকোচুরি খেলার কোনো কারণ নেই মির্জা ফখরুল ইসলাম সাহেব। কারণ বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক কি তা জানার অধিকার দেশবাসীর রয়েছে।
শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উদ্দ্যেগে বনানীতে এক হাজার পরিবারের মাঝে করোনাকালীন বস্ত্র ও খাবার বিতরণকালে তিনি এসব কথা বলেন।
নানক বলেন, এই খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেত্রী শেখ হাসিনার উপর গ্রেনেড হামলা করে হত্যা করতে চেয়েছিল। তারপরেও আমাদের মমতাময়ী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসুস্থ খালেদাকে সর্বোচ্চ চিকিৎসা দেওয়ার নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রী নিজস্ব নির্বাহী ক্ষমতার বলে খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিনের মাধ্যমে তার নিজের বাড়িতে থাকার সুযোগ করে দিয়েছেন।
তার পরেও খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপির নেতারা রাজনীতি শুরু করেছে। দলটির নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম একবার বলেন, খালেদা জিয়া করোনা হয়েছে আবার বলে তার করানো হয়নি। দয়া করে তার শারীরিক সুস্থতা নিয়ে এ ধরনের লুকোচুরি বন্ধ করার অহ্বান জানান জাহাঙ্গির কবির নানক।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচিসহ মহানগর উত্তরের নেতাকর্মীরা।

খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেয়ার প্রয়োজন আছে কি না প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর

0

খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেয়ার প্রয়োজন আছে কি না প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর

চট্টগ্রাম, শনিবার ৮ মে ২০২১:
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে আদৌ বিদেশ নিয়ে যাবার প্রয়োজন আছে কি না সেটিই এখন বড় প্রশ্ন।’

শনিবার (৮ মে) দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে বিশ্ব রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট দিবস-২০২১ উপলক্ষে সংস্থাটির চট্টগ্রাম জেলা ও সিটি ইউনিটের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সভা ও রক্তদান কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি কেন যে তাকে বিদেশ নিয়ে যেতে চায় সেটি বোধগম্য নয়। কারণ দেশেই তো বেগম খালেদা জিয়া সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা পাচ্ছেন।’

‘দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ বেগম খালেদা জিয়া আমার কাছে একজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব’ উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, তিনি এখন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি দ্রুত আরোগ্য লাভ করুন এটিই মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা, এটিই আমাদের কাম্য। বেগম খালেদা জিয়া যাতে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা পান সেটির জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমস্ত নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি সর্বোচ্চ চিকিৎসা সুবিধা এখন বাংলাদেশে পাচ্ছেন।

‘কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি, তাকে বিদেশ নিয়ে যাবার জন্য এখন বিএনপি ও পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার তাকে যে সমস্ত দেশে নিয়ে যাবার কথা বলা হচ্ছে, বিশেষ করে ইংল্যান্ডে, সেখানে করোনা মহামারিতে হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে’ উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী।

ড. হাছান বলেন, ‘ইদানিং দেখতে পাচ্ছি বিএনপি সমগ্র দেশের মানুষের স্বাস্থ্য নিয়ে মেটেও উদ্বিগ্ন নয়, এনিয়ে তাদের কোন চিন্তা নাই। তাদের সমস্ত চিন্তা এখন কেন্দ্রীভূত বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে। বেগম খালেদা জিয়ার তাপমাত্রা আছে কি নাই, এটি কত ডিগ্রি আছে, হাঁটুর ব্যথা আছে কি নাই এটার মধ্যেই বিএনপির রাজনীতিটা এখন সীমাবদ্ধ।
বিএনপিকে অনুরোধ জানাবো, আপনাদের চিন্তাটা শুধুমাত্র বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের মধ্যে নিমগ্ন না রেখে জনগণের পাশে দাঁড়ান। যেভাবে মানুষের দোড়গোড়ায় আওয়ামী লীগ খাদ্য সহায়তাসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী দিচ্ছে, সেভাবে আপনারাও মাঠে এসে জনগণের কাছে বিতরণ করুন। তারপর আমাদের ভুলত্রুটি যদি থাকে, সেটার সমালোচনা করার অধিকার আপনাদের তৈরি হবে।’

‘বিএনপি ও তাদের মিত্ররা যারা শুধু সরকারের সমালোচনা করে এবং যারা রাত বারোটার পর টেলিভিশনের পর্দা গরম করে, তাদের দূরবীন দিয়েও দেশের কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘তারা কেউ ত্রাণ বিতরণের মধ্যে নেই, শুধু সমালোচনার মধ্যে আছে। আমরা কি কাজ করছি সেটির সমালোচনা করা ছাড়া তাদের কোন কাজ নেই।’

প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শিতা ও সময়োপযোগী পদক্ষেপে গত ১৪ মাসে করোনার মধ্যে কেউ অনাহারে মৃত্যুবরণ করেনি উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আজকের পরিস্থিতি হচ্ছে, দেশে করোনার চিকিৎসার জন্য যে ১২ হাজারেরও বেশি বেড রয়েছে তার ৭০ ভাগ বেড খালি আছে, অনেক আইসিইউ বেডও খালি আছে। করোনাকে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপগুলো অত্যন্ত সফলভাবে কাজ করেছে। কিন্তু সমালোচকদের সমালোচনা থেমে নেই।’

আর্ত-মানবতার পাশে দাঁড়িয়ে রেড ক্রিসেন্টের সদস্যদের কাজকে সমাজের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত বর্ণনা করে তিনি বলেন, আমাদের এই দেশ দুর্যোগ-দুর্বিপাকের দেশ। সমস্ত দুর্যোগ-দুর্বিপাকে রেড ক্রিসেন্টর অকুতোভয় সদস্যরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেবা দিয়েছেন। স্বাধীনতা অর্জনের পর গত পঞ্চাশ বছরের পথচলায় কোটি কোটি মানুষ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি কর্তৃক উপকৃত হয়েছে। করোনা মহামারির মধ্যে ত্রাণ বিতরণসহ টিকাদানের ক্ষেত্রে রেড ক্রিসেন্টের সদস্যরা যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, সেটি অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার।

রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ডা. শেখ শফিউল আজমের সভাপতিত্বে ও যুব রেড ক্রিসেন্টের যুব প্রধান গাজী ইফতেখার হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির নবনিযুক্ত ট্রেজারার এম এ ছালাম, জেলা ইউনিটের সেক্রেটারি মো. আসলাম খাঁন, সিটি ইউনিটের সেক্রেটারি আবদুল জব্বার প্রমুখ। বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির নবনিযুক্ত ট্রেজারার এম এ ছালামসহ করোনাকালে বিশেষ ভূমিকা রাখা রেড ক্রিসেন্ট কর্মীদের সভায় সংবর্ধনা দেয়া হয়।

দেশের রপ্তানি পণ্য সম্প্রসারণের বিকল্প নেই

0

আইসিএবি’র ওয়েবিনারে বাণিজ্যমন্ত্রী
রপ্তানি থেমে নেই কোভিড-১৯ এর পর দেশ
আবার রপ্তানি বৃদ্ধির ধারায় ফিরবে
ঢাকা ঃ ২৫ বৈশাখ (০৮ মে,২০২১) ঃ
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এমপি বলেছেন, দেশের রপ্তানি পণ্য সংখ্যা ও বাজার সম্প্রসারণের বিকল্প নেই। শুধু তৈরী পোশাকের উপর নির্ভর করে থাকলে চলবে না। তাই দেশের সম্ভাবনাময় ১৯টি রপ্তানি পণ্যকে টার্গেট করে সরকার কাজ করছে। রপ্তানি পণ্যকে অধিক গুরুত্ব দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী প্রতি বছর একটি সম্ভাবনাময় রপ্তানি পণ্যকে ‘প্রোডাক্ট অফ দি ইয়ার’ ঘোষণা করেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় ইসিফোরজে নামে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে লেদার গুড্স, প্লাস্টিক, ইনফরমেশন টেকনোলজি এবং লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং এ চারটি রপ্তানি পণ্যের সেক্টরকে যোগ্য করে পরিকল্পিত ভাবে গড়ে তোলার জন্য কাজ করছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ইতোমধ্যে ভূমি বরাদ্দ পাওয়া গেছে, নির্মাণ প্রক্রিয়া চলছে। এখানে দেশের শিক্ষিত যুবসমাজকে প্রশিক্ষণ প্রদান, হাতে কলমে শিক্ষা প্রদান, ডিজাইনে বৈচিত্র আনা এবং পণ্যের গুণগত মান নিশ্চিত করতে কাজ করা হবে। প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ব বাণিজ্যে এগিয়ে যাবার জন্য দক্ষতা অর্জন করতে হবে। একটি পণ্যের কাচাঁমাল থেকে শুরু করে প্যাকেটিং পর্যন্ত আন্তর্জাতিক মানের করার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা প্রয়োজন। বাংলাদেশের রপ্তানি দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছিল, কোভিড-১৯ এর কারনে কিছুটা বাধাগ্রস্থ হয়েছে। এর মাঝেও রপ্তানি মুখি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো চলছে, আমাদেরর রপ্তানি থেমে নেই। কোভিড-১৯ পরবর্তিতে বাংলাদেশ আবার রপ্তানি বৃদ্ধির ধারায় ফিরে আসবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ (০৮ মে) ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আইসিএবি আয়োজিত ‘ডাইভারসিফিকেশন অফ বাংলাদেশ এক্সপোর্ট বাসকেট ঃ অপারচ্যুনিটিস এন্ড চ্যালেঞ্জেস শীর্ষক ওয়েবিনারে (ডবনরহধৎ) এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এলডিসি গ্রাজুয়েশনের পর বাংলাদেশকে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। এজন্য সরকার কাজ করছে। বাণিজ্য সুবিধা আদায়ের জন্য পিটিএ বা এফটিএ এর মতো বাণিজ্য চুক্তি করার জন্য সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ভুটানের সাথে পিটিএ স্বাক্ষর করা হয়েছে, আরও বেশ কিছু দেশের সাথে বাণিজ্য চুক্তি করার জন্য আলোচনা চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ১০০ টি স্পেশাল ইকনোমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে, কয়েকটির কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। এখানে দেশি-বিদেশী বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগের জন্য এগিয়ে এসেছে। সরকার বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বেশকিছু সুযোগ-সুবিধা ঘোষণা করেছে। ফলে বিদেশী বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ স্থান হয়েছে।

আইসিএবি’র সাবেক প্রেসিডেন্ট আজিজ এইচ খান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিষয়ের উপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইসিএবি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাবেক সিনিয়র সচিব শুভাশীষ বসু। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন, বিসিক এর চেয়ারম্যান মোস্তাক হোসেন, বিজিএমই এর প্রেসিডেন্ট ফারুক হাসান, লেদার গুডস এন্ড ফুট ওয়্যার ম্যান্যুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোটটার্স এ্যাসোসিয়েশন এর প্রেসিডেন্ট এবং শিপ বিল্ডার্স এ্যাসোসিয়েশন এর ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. সাইফুল ইসলাম, বাংলাদেশ হ্যান্ডিক্রাপ্ট ম্যান্যুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টটার্স এ্যাসোসিয়েশন এর প্রেসিডেন্ট গোলাম আহসান, বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশন অফ সফ্টওয়্যার এন্ড ইনফরমেশন সার্ভিস(বেসিস) এর প্রেসিডেন্ট সৈয়দ আলমাস কবীর, বাংলাদেশ জুট গুডস এক্সপোর্টটার্স এ্যাসোসিয়েশন এর পরিচালক মারুফ হোসেন, বাংলাদেশ এগ্রো-প্রোসেসরস এ্যাসোসিয়েশন এর ভাইস প্রেসিডেন্ট সঈদ মো. সোহরাব হাসান এবং আইসিএবি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট মারিয়া হাওলাদার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইসিএবি’র প্রেসিডেন্ট মাহমুদুল হাসান খসরু।

স্বাধীনতা স্মৃতিচিহ্ন মুছে জিয়া শিশু পার্ক তৈরি সময় বুদ্ধিজীবীরা চুপ ছিলেন: নানক

0

স্বাধীনতা স্মৃতিচিহ্ন মুছে জিয়া শিশু পার্ক তৈরি সময় বুদ্ধিজীবীরা চুপ ছিলেন-নানক
নিজস্ব প্রতিবেদক
ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে স্মৃতি তুলে ধরার জন্যই এক বিশাল প্রকল্প নেয়া হয়েছে দাবি করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, যখন জিয়াউর রহমান শিশু পার্ক তৈরি করে স্মৃতিচিহ্নগুলি মুছে ফেলল তখন কিন্তু পরিবেশবাদী বা বুদ্ধিজীবীরা সেদিন বিরোধীতা করে করে নাই। এটি দুঃখজনক এবং দুভার্গ্যজনক।
শনিবার (৮ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপ কমিটি উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেসক্লাব কর্মচারী ইউনিয়ন ও ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির কর্মচারীদের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।
জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, পাকিস্তানি আমলের রেসকোর্স ময়দান, সেই রেসকোর্স একদিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণে স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়ার মধ্য দিয়ে সেদিন স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পরিণত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু মুজিব তার স্বদেশে ফিরে এসে তার জন্মভ’মিতে ফিরে এসে সেই উদ্যানকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খ্যাত করলেন এবং সেখানে বৃক্ষরোপণ করলেন।
তিনি আরও বলেন, আজকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের যে জায়গাটিতে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব তার ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ দিয়েছিলেন সেই স্থলটি এবং শক্তিশালি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে পরাজিত করার পর তাদের স্যারেন্ডার যেখানে হয়েছিল আনুষ্ঠানিকভাবে সেই জায়গাটি নষ্ট করা করে দিয়েছিলেন?
‘‘সেদিন জোর করে ক্ষমতা দখলকারী, বন্দুকের নল দিয়ে জোর করে ক্ষমতাদখলকারী জিয়াউর রহমান সাহেবই তো সেদিন ওই শিশু পার্ক করার মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মূল ঐতিহাসিক স্মৃতিচিহ্নগুলি মুছে ফেলার চেষ্টা করেছিলেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
নানক বলেন, ‘‘আজকে সেই জায়গাটিতে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে প্রজন্মের পর প্রজন্মের কাছে সেই স্মৃতি তুলে ধরার জন্যই, তুলে রাখার জন্যই সেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এক বিশাল প্রকল্প নেয়া হয়েছে।
‘‘‘সেই বিশাল প্রকল্পে জলাধার রয়েছে, ঐতিহাসিক যে ভাষণ যে জায়গায় যে মঞ্চ থেকে দিয়েছিলেন, সেই মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে, যে জায়গায় স্যারেন্ডার হয়েছে, সেই স্যারেন্ডারকৃত স্থানটিকে সংরক্ষণ করা এবং সমগ্র সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে একটি ছোট্ট শিশু ঢুকলে সে তার স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস; এই গেট থেকে ঢুকে ওই যে গিট দিয়ে বেরোবে, সেরকম একটি বিশাল প্রকল্প নেয়া হয়েছে।
‘‘কিন্তু যখন ওই শিশু পার্ক তৈরি করে যখন স্মৃতিচিহ্নগুলি মুছে ফেলা হল তখন কিন্তু পরিবেশবাদীদেরকে দেখা গেল না? পরিবেশবাদীরা বা বুদ্ধিজীবীরা কিন্তু সেদিন বিরোধীতা করল না? প্রতিবাদ করল না, এটি দুঃখজনক এবং দুভার্গ্যজনক।”
অসহায় দুঃস্থ মানুষের মাঝে সহায়তার এগিয়ে আসার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘আসুন, সমস্ত্র ধনীক শ্রেণীর মানুষেরা, অর্থশালী মানুষেরা মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ান। আপনার যাকাত দিয়ে দুস্থ গরীব মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ান। মানুষ তো মানুষের তরে। মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসুন।
ত্রান ও সমাজকল্যাণ উপ-কমিটির চেয়ারম্যান এ কে এম রহমুতুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আবদুল জলিল ভুঁইয়া, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী, ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান খান।
অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং উপ-কমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী।

আগে জীবন পরে জীবিকা,এই মূহুর্তে বেঁচে থাকাটাই জরুরি

0

৮ মে ২০২১

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সারেন্ডার করার জায়গা দর্শনীয় করে তোলার জন্য প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে,যে কাজগুলোকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছিলো বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আজ সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

রেসকোর্স ময়দানে প্রথম গাছ লাগিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন এটিকে উদ্যান হিসেবে বঙ্গবন্ধুই সৃষ্টি করেছিলেন।

তিনি বলেন ৭ মার্চের ভাষনের স্থান ও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সারেন্ডার করার স্মৃতি মুছে ফেলার জন্য জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে রাষ্ট্রপতি হয়ে এই উদ্যানের অধিকাংশ জায়গা জুড়ে শিশুমার্ক করেছিলো।

পরিবেশবাদীরা তখন প্রশ্ন তোলেন নাই কেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তা জানতে চেয়ে বলেন কারো মুখে একটা কথাও সেদিন আমরা শুনতে পায়নি।

তিনি বলেন সৌন্দর্য বর্ধনের নামে এই ঢাকা শহরে রাস্তার পাশ থেকে কত সুন্দর সুন্দর গাছ কেটে ফেলা হয়েছিলো,উজাড় করে ফেলা হয়েছিলো এই নগরীর সৌন্দর্য।

ওবায়দুল কাদের এ বিষয়ে উদ্বিগ্ন না হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন সরকার এ ব্যাপারে যথেষ্ট সজাগ রয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাস্তব সম্মত উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঢাকা সড়ক জোন, বিআরটিসি ও বিআরটিএ’র কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

এসময় মন্ত্রী ঈদকে সামনে রেখে পরিবহন ও যাত্রীদের চাপ থাকায় ঢাকার প্রবেশমুখ গুলোতে চাপ বেড়ে যায়,তাই ট্রাফিক ম্যানেজমেন্টের বিষয়টি সমন্বয় করে জনভোগান্তি লাঘবে পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান জানান।

সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বর্ষার আগেই রাস্তা মেরামতের কাজগুলে করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়ে বলেন চলমান গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের কাজগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শেষ করতে হবে।

মন্ত্রী পুরাতন কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নতুন কোন প্রকল্প হাতে না নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টের নির্দেশনা দেন।

তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর নির্মাণকাজ ধীর গতিতে এগুচ্ছে, ওবায়দুল কাদের এই সেতুর কাজের গতি বাড়াতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেন।

বিআরটিসিকে লাভের ধারায় ফিরে আসতে হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন বারবার লোকসানের কথা আর শুনতে চাই না।

তিনি বিআরটিসির কর্মচারীদের বেতন ভাতা পরিশোধ করতে সংশ্লিষ্ট বিভাগের চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের গত কয়দিনে ফেরিঘাটে ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভীড় প্রসঙ্গে বলেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উদাসীনতা লক্ষ্য করা গেছে,শপিংমল মার্কেটগুলোতেও একই অবস্থা।

ওবায়দুল কাদের এধরণের পরিস্থিতি গত কয়দিনে করোনা সংক্রমণ হারের যে নিম্নমুখী প্রবনতা সেটাকে আবারও বাড়িয়ে দিতে পারে বলে মনে করেন।

তিনি আবারও স্মরণ করে দিয়ে বলেন আগে জীবন পরে জীবিকা,এই মূহুর্তে বেঁচে থাকাটাই জরুরি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন বেঁচে থাকলে ভবিষ্যতে অনেক আনন্দ উৎসব করা যাবে, কাজেই এবার অন্তত সকলেমিলে ত্যাগ স্বীকার করি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবানে যার যার অবস্থানে থেকে ঈদ উদযাপন করতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন আসুন সকলে মিলে প্রাণঘাতী এই করোনাকে প্রতিরোধ করি।

পরিযায়ী পাখি রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে

0

পরিযায়ী পাখি রক্ষায় সকলের সহযোগিতা চাই।
— বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবসের আলোচনা সভায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী

ঢাকা, ২৫ বৈশাখ (৮ মে):
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেছেন, প্রতি বছর শীত মৌসুমে সুদূর সাইবেরিয়া এবং ইউরোপ থেকে বাঁচার তাগিদে বিভিন্ন প্রজাতির পরিযায়ী পাখি এসে আমাদের প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্যকে সমৃদ্ধ করছে। এসকল পরিযায়ী পাখি সংরক্ষণে সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে পাখি নিধন কমেছে। মন্ত্রী এসময় প্রতিবেশ রক্ষায় অনন্য ভূমিকা পালন করা পাখিদের আবাসস্থল রক্ষায় দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, পাখি নিধন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করতে সকলের সহযোগিতা চাই।

আজ বিশ্ব পরিযায়ী পাখি দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে “Sing, Fly, Soar – Like a bird!” (‘পাখির মত গান গাই, উড়ে যাই সুউচ্চ দিগন্তে!) প্রতিপাদ্যে বন অধিদপ্তর আয়োজিত অনলাইন আলোচনা সভায় সরকারি বাসভবন হতে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক মোঃ আমীর হোসাইন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপ-মন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব জিয়াউল হাসান এনডিসি; প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ইনাম আল হক এবং বাংলাদেশ বায়োডাইভারসিটি কনজারভেশন ফেডারেশন এর সভাপতি ড. এস এম ইকবাল প্রমুখ।

পাখি সংরক্ষণে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের উল্লেখ করে পরিবেশ মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আবাসিক ও পরিযায়ী পাখিসহ প্রায় ৭১০ প্রজাতির পাখির মধ্যে বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের তফসীলে ৬৫০ প্রজাতির পাখি রক্ষিত প্রাণী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। পরিযায়ী পাখি শিকার/ হত্যার জন্য সর্বোচ্চ ১ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা সর্বোচ্চ ১ (এক) লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। পরিযায়ী পাখি সংরক্ষণের লক্ষ্যে বাংলাদেশের সোনাদিয়া, নিঝুম দ্বীপ, টাংগুয়ার হাওর, হাকালুকি হাওর, হাইল হাওর এবং গাঙগুইরার চর ইস্ট এশিয়ান অস্ট্রেলেশিয়ান ফ্লাইওয়ে সাইট হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, পরিযায়ী জলচর পাখির পরিযায়ন পথ বিষয়ক গবেষণার উদ্দেশ্যে পাখি শুমারি ও পাখির গায়ে রিং পরানো এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিপিএস স্যাটেলাইট ট্যাগিং করা হচ্ছে, যার মাধ্যমে পরিযায়ী পাখির পরিযায়ন সম্পর্কিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-উপাত্ত পাওয়া যাচ্ছে।

বনমন্ত্রী বলেন, দেশব্যাপী অবৈধভাবে পাখি শিকার ও বাণিজ্য বন্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অপরাধীকে হাতনাতে ধৃত ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড করা হচ্ছে। যার ফলশ্রুতিতে বর্তমানে এ সংক্রান্ত অপরাধ বহুলাংশে হ্রাস পেয়েছে। পরিযায়ী পাখি সংরক্ষণে স্থানীয় জনগণকে সচেতন করার লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন পথসভা, র‌্যালি, আলোচনা সভা ও প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার শামুকখোল পাখির কলোনীর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া পরিবারের মাঝে ৩ লক্ষ ১৮ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন ,পাখি সহ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে সরকার পুরস্কার প্রণোদনা প্রদান করে থাকে।

বনমন্ত্রী বলেন, ‘মহাবিপন্ন’ প্রাণী শকুনের জন্য মরণঘাতী ওষুধ ডাইক্লোফেনাক উৎপাদন ও বিক্রি সারাদেশে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং সুন্দরবন ও সিলেটে দুটি ভালচার সেভ জোন ঘোষণা করা হয়েছে। অসুস্থ ও আহত শকুনদের উদ্ধার ও পুনর্বাসন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য দিনাজপুরের সিংড়ায় একটি শকুন উদ্ধার ও পরির্চযা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া ২০২১ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভায় শকুন রক্ষায় ক্ষতিকর ‘কিটোপ্রোফেন’ ওষুধের উৎপাদন বন্ধের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, জনগণের সহযোগিতা নিয়ে বর্তমান সরকার পাখিসহ বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে সফল হবে।

অনলাইন আলোচনা সভায় আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু, বাংলাদেশ বার্ড ক্লাব এর প্রতিষ্ঠাতা ইনাম আল হক, বাংলাদেশ বায়োডাইভার্সিটি কনজারভেশন ফাউন্ডেশন এর সভাপতি ড এস এম ইকবাল । প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বন অধিদপ্তরের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো এবং ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অভ নেচার এর সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার এ বি এম সারোয়ার আলম প্রমুখ। আলোচকবৃন্দ পাখি শিকার বন্ধে সচেতনতা সৃষ্টির আহবান জানান।

শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন গণতন্ত্রের অগ্নিবীণার দেশে ফেরা : তথ্যমন্ত্রী

0


ভিডিও লিংক-

https://youtu.be/yaNj8VCPrKw

শেখ হাসিনার প্রত্যাবর্তন গণতন্ত্রের অগ্নিবীণার দেশে ফেরা -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, শুক্রবার ৭ মে, ২০২১:
‘৭ মে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন গণতন্ত্রের অগ্নিবীণার দেশে ফিরে আসা’ বলেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সীমিত পরিসরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি একথা বলেন।

২০০৭ সালের এই দিনে জননেত্রী শেখ হাসিনা তৎকালীন সরকারের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে যুক্তরাষ্ট্র থেকে যুক্তরাজ্য হয়ে দেশে ফিরে আসেন উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আপনারা জানেন, ২০০৭ সালে দেশে যে সেনাসমর্থিত সরকার এসেছিলো, তারা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বিদেশে চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলো। শুধু তাই নয়, সকল এয়ারলাইন্সকে তারা সেই নিষেধাজ্ঞার চিঠি দিয়েছিলো এবং জননেত্রীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করেছিলো।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তখন বলেছিলেন, তিনি সেইসব মামলা আদালতে আইনগতভাবে মোকাবিলা কর‍তে চান এবং নিজের দেশে ফেরার ওপর নিষেধাজ্ঞা কখনও গ্রহণযোগ্য নয়, জানান তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, এই প্রত্যাবর্তনের ফলে যে জননেত্রীর ওপর আক্রমণ হতে পারে, নিষেধাজ্ঞাকারীরা যে কোনো কিছু করার চেষ্টা কর‍তে পারে, সেই সমস্ত ঝুঁকি মাথায় নিয়েই বঙ্গবন্ধুকন্যা ফিরে এসেছিলেন। আর তার ফিরে আসার মধ্য দিয়েই লড়াই-সংগ্রামে দেশে গণতন্ত্র পুণঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো।

এরপরই ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোট ধস নামানো বিজয় অর্জন করেছিলো এবং সেই পথ ধরেই বাংলাদেশে গণতন্ত্রের অভিযাত্রা এবং এর পাশাপাশি উন্নয়নের অগ্রযাত্রাও অব্যাহত রয়েছে, উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, সেকারণেই বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন হচ্ছে গণতন্ত্রের অগ্নিবীণার দেশে ফিরে আসা।

আগামী বছর জুনের মধ্যেই পদ্মাসেতুর কাজ সমাপ্ত হবে : সেতুমন্ত্রী

0

আহ ঐতিহাসিক ৭ মে।বাংলাদেশের গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষের কাছে একটি স্মরণীয় দিন।
২০০৭ সালের এই দিনে তৎকালীন তত্বাধায়ক সরকার ঘোষিত জরুরী অবস্থা চলাকালীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা শেষে শত প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে দিশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আজ বিকেলে তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে আজকের এই দিনটি স্মরণ করে এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা কোন অন্যায় করেনি বলে বুকে ছিলো তাঁর অসীম সাহস উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন এদেশের মাটি ও মানুষই শেখ হাসিনার রাজনীতির মূল শক্তি। তাইতো কোন ষড়যন্ত্রই দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে সেদিন ঠেকিয়ে রাখতে পারেনি।

শেখ হাসিনা রাজনৈতিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন বলেই প্রত্যক্ষ করেছেন ইতিহাসের নানান বাঁকবদল জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন পিতা মুজিব শেখ হাসিনার রাজনীতির গুরু। পিতার মতই ভালবাসেন দেশের মানুষকে।

তিনি বলেন তাইতো গণতন্ত্রকে শৃঙ্খলমুক্ত করতে শত বাঁধা পেরিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশে এসেছিলেন বলেই সেদিন জনগণের চাপে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাধ্য হয়েছিল নির্বাচন দিয়ে সরে যেতে।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট নিরংকুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে সরকার গঠন করে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন দ্বিতীয় বারের মত প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে শেখ হাসিনা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

তিনি বলেন দায়িত্ব গ্রহণের পর দেশরত্ন শেখ হাসিনা শুরু করেন সংকটের আবর্তে নিমজ্জমান অবস্থা থেকে দেশকে পুনরুদ্ধার করে একটি সুখী সমৃদ্ধ ও উন্নত রাষ্ট্র গড়ে তোলার সংগ্রাম।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচারের রায় ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে জাতিকে করেন পাপমুক্ত উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন শেখ হাসিনার হাত ধরেই এসেছে সমুদ্র বিজয়,দীর্ঘদিনের সীমান্ত সমস্যার সমাধান তাঁর অসামান্য কূটনৈতিক দক্ষতারই পরিচায়ক।

ওবায়দুল কাদের বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে দিনবদলের অভিযাত্রায় উন্নয়নের মহাসড়কে অদম্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে আজ বাংলাদেশ।

তিনি বলেন শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট প্রেরণের মাধ্যমে স্বপ্নের সীমানাকে পৌঁছে দিয়েছেন মহাকাশে।নিজস্ব অর্থায়নে আমাদের সক্ষমতা ও
গর্বের প্রতিক পদ্মাসেতুর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে, দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে স্বপ্নের কর্ণফুলী টানেল এবং তরুণ প্রজন্মের স্বপ্নের মেট্রোরেল।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আরো বলেন শেখ হাসিনার সাহসী ও বিচক্ষণ নেতৃত্বের কারনে বাংলাদেশে করোনার প্রথম ঢেউ মোকাবেলা করে দেশ- বিদেশে প্রশংসিত হয়েছে।
বিশ্বের অনেক উন্নত দেশ যেখানে করোনা মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে সেখানে শেখ হাসিনার সাহসী ও বিচক্ষণ নেতৃত্বে জীবন ও জীবিকার মাঝে সমন্বয় করে করোনা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রাম এবং উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি অর্জনের ইতিহাসে ৭ মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের দিন উপলক্ষে প্রতিবছর বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয় কিন্তু এবছর বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে সৃষ্ট সংকটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে কর্মসূচি পরিহার করা হয়েছে।
তবে বাঙ্গালির চিরঞ্জীব আশা ও অনন্ত অনুপ্রেরণার উৎস দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে ঘরে বসেই দোয়া করার জন্য দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও দেশবাসীর প্রতি আহবান জানান।

এছাড়াও ওবায়দুল কাদের আগামী ১৭ মে শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে মিলাদ মাহফিলের মাধ্যমে দিবসটি পালন করার আহবান জানিয়ে বলেন মসজিদ, মন্দির ও প্যাগোডায় বিশেষ প্রার্থনার জন্য অনুরোধ জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে করোনার কারণে পদ্মাসেতুর মেয়াদ আরো দুই বছর বাড়ানো হয়েছে বলে যে প্রতিবেদন করা হয়েছে তা সত্য নয়।

মন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন আগামী বছর জুনের মধ্যেই পদ্মাসেতুর কাজ সমাপ্ত হবে এবং যানচলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।

করোনাকালেও কেউ কেউ গুজব রটিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করে অপরাজনীতিতে ব্যস্ত : বাহাউদ্দিন নাছিম

0

৭ই মে গণতন্ত্র ও অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতি স্থায়ীকরণের জন্য তাৎপর্যপূর্ণঃ বাহাউদ্দিন নাছিম

আজ ৭ই মে গণতন্ত্র ও অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতি স্থায়ীকরণের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ, বলেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

আজ ৭ মে শুক্রবার বিকেলে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের পক্ষে ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রূপনগর মডেল স্কুল প্রাঙ্গনে ১০০০ পরিবারকে করোনাকালীন সময়ে বস্ত্র ও খাবার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, আজকের দিনটি আমাদের সবার কাছে, বাঙালি জাতির কাছে তাৎপর্যপূর্ণ। শেখ হাসিনা চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরতে চাইলে এ দিন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নামধারী সামরিক সরকার তাকে দেশে ফিরতে বাধা প্রদান করে। সেদিন বঙ্গবন্ধু কন্যাকে গুলি করে হত্যার হুমকি, গ্রেফতারের হুমকি দেওয়া হয়েছিল। মঈন – ফখরুদ্দিন গংরা ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছিল। তাদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সেদিন লাখো মানুষ বিমানবন্দরে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলো, স্বাগত জানিয়েছিলো। যারা শেখ হাসিনাকে আটকানোর ধৃষ্টতা দেখানোর চেষ্টা করেছিল তাদের পরাভূত করে মানুষের ভালোবাসায় শেখ হাসিনা বীরের বেশে আজকের এ দিনে দেশে ফিরে এসেছিলেন। ১৪ বছর আগের এদিনটি তাই অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, সারাবিশ্ব করোনায় বিপর্যস্ত, আমরাও তার বাইরে নই। জীবনের চেয়ে বড় মূল্যবান কিছু নেই, একইসাথে জীবিকাও গুরুত্বপূর্ণ। যারা দিন আনে দিন খায় তাদের পাশে বর্তমান সরকার দাঁড়াচ্ছে। আওয়ামী লীগও দলীয়ভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে। এটাই মানবিক কার্যক্রম, এটাই আমাদের রাজনীতি। আমাদের সবাইকে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।

তিনি বলেন এই করোনাকালেও কেউ কেউ মিথ্যা ছড়িয়ে, গুজব রটিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করে অপরাজনীতিতে ব্যস্ত। করোনাকালে এরা নিজেদের কর্মীদেরই খোঁজ খবর রাখে না, পাশে দাড়ায় না, মানুষের খোঁজ খবর কি রাখবে। এরা মিথ্যার অপরাজনীতিতে নানা স্বপ্ন দেখে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকল শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে সত্যের পক্ষে কাজ করতে হবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর ৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী আবদুল হাই হারুন এর সভাপতিত্বে এবং ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তফাজ্জল হোসেন টেনুর ব্যবস্থাপনায় বস্ত্র ও খাবার প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোবাশ্বের চৌধুরী, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক রানা, মিজানুর রহমান মিজান, দপ্তর সম্পাদক উইলিয়াম প্রলয় সমাদ্দার বাপ্পি প্রমুখ।

কাজী শুভ-মিলন-শিপলু-দ্বীন ইসলামের ‘এলো খুশির ঈদ’

0

আসন্ন ঈদ উপলক্ষে এসেছে কণ্ঠশিল্পী কাজী শুভ, মিলন, শিপলু ও পুলিশ সার্জেন্ট দ্বীন ইসলামের গান ‘এলো খুশির ঈদ’। গানটি লিখেছেন সালাহউদ্দিন সাগর, সুর-সংগীত ও কম্পোজিশন করেছেন আহমেদ সজীব। ডিরেক্টর গাজী শাহজাহান। গানটি ‘ডি আই এন্টারটেইনমেন্ট’ ইউটিউব চ্যানেলে অবমুক্ত করা হয়েছে।

এলো খুশির ঈদ গানটির প্রসঙ্গে কাজী শুভ-মিলন ও শিপলু বলেন, খুবই চমৎকার হয়েছে গানটি। সেই সঙ্গে তালমিলিয়ে মিউজিক ভিডিও করা হয়েছে। গাজীপুরের বিভিন্ন লোকেশনে দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে। আশা করি গানটি সারাজীবন মানুষের মনে স্থান নিয়ে থাকবে।

এ প্রসঙ্গে পুলিশ সার্জেন্ট ও সংগীতশিল্পী দ্বীন ইসলাম বলেন, ‘এলো খুশির ঈদ’ গানটি আমার অন্যতম সেরা একটি গান। ঈদ যেভাবে মানুষের মনে খুশির বার্তা নিয়ে আসে আমার এই গানটিও মানুষের মনে ঈদের আনন্দ নিয়ে মনকে উদ্বেলিত করবে।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশ পুলিশ থিম সংয়ের পর ট্রাফিক পুলিশ থিম সংয়ের কাজ চলছে। পাশাপাশি একটি দেশের গানের কাজ ও শেষ হয়েছে। গান দুটি ঈদের পর শুটিং শুরু হবে। পাশাপাশি ১টি ফোকসহ রোমান্টিক ও ডুয়েট গানের কাজসহ বিভিন্ন জনপ্রিয় শিল্পীদের গান ও আসছে আমার এই- ডি আই এন্টারটেইনমেন্ট ইউটিউব চ্যানেল থেকে।

সরকারের সমালোচক দু:স্থ সাংবাদিকের জন্যও সহায়তা : তথ্যমন্ত্রী

0

সরকারের সমালোচক দু:স্থ সাংবাদিকের জন্যও সহায়তা -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, রোববার ২ মে, ২০২১:
সরকারের সমালোচনাকারী সাংবাদিক যদি দু:স্থ হন, তার জন্যও কল্যাণ ট্রাস্টের সহায়তা উন্মুক্ত বলেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কাকরাইলে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাষ্ট হতে ২০২০-২১ অর্থবছরের সহায়তা চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাফর ওয়াজেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, সচিব খাজা মিয়া বক্তব্য রাখেন। আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে সভাপতি মোল্লা জালাল, যুগ্ম মহাসচিব আব্দুল মজিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু।

সাংবাদিকবান্ধব আওয়ামী লীগ সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও বিকাশ নিশ্চিত করেছে ও তা অব্যাহত আছে উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশের গণমাধ্যম যে অবাধ স্বাধীনতা ভোগ করে, উন্নয়নশীল দেশের জন্য তা নজিরবিহীন। দেশের স্বার্থে, বহুমাত্রিক সমাজ ব্যবস্থাকে এগিয়ে নেয়া ও রাষ্ট্রের বিকাশের স্বার্থে এটি প্রয়োজন, সে বিশ্বাস নিয়েই আমরা কাজ করছি।’

যে সমস্ত সাংবাদিক আমাদের বিরোধিতা ও সমালোচনা করেন, তাদের জন্যও এই ট্রাস্টের সহায়তা উন্মুক্ত, বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্র সবার জন্য। যিনি আওয়ামী লীগ সরকারের সমালোচনা করেন, তিনি যদি দু:স্থ হন, আমাদের নীতিমালার মধ্যে পড়েন, এই সহায়তা তার জন্যও উন্মুক্ত এবং এটি আমরা বাস্তবায়ন করেছি।’

তথ্যমন্ত্রী এসময় তার উদ্যোগে রমজানের পূর্বে# দেয়া করোনাকালীন বিশেষ বরাদ্দ ২ কোটি টাকা ঈদের আগে সাংবাদিকদের মাঝে বিতরণের জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানান।

গণমাধ্যম নিয়ে বিএনপি’র অবস্থান প্রসঙ্গে ড. হাছান বলেন, ‘বিএনপি’র পক্ষ থেকে নানা সমালোচনা করা হয়, কেউ কেউ বিবৃতি দেয় আবার কেউ কেউ জাতিসংঘের কাছে চিঠি লেখে। সেই চিঠি লেখা আর বিএনপি’র বিবৃতি আসলে একসূত্রে গাঁথা ও এগুলো বৃহত্তর রাজনীতির একটা অংশ ছাড়া কিছু নয়।’

বিএনপিনেত্রী খালেদা জিয়ার করোনা চিকিৎসা প্রসঙ্গে মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, একজন জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ, আমি তার দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। করোনাকে পরাভুত করে তিনি আবার সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরে যান, এটিই মহান স্রষ্টার কাছে আমার প্রার্থনা।’

একইসাথে বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে ড. হাছান বলেন, করোনার চিকিৎসা সব দেশে একইরকম এবং আমাদের দেশের চিকিৎসা অনেক ভালো। তাই করোনার চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার বিষয়টি আমার বোধগম্য নয়।

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান তার বক্তৃতায় সাংবাদিকদের কল্যাণে আওয়ামী লীগ সরকারের একাগ্রতার কথা তুলে ধরেন। সচিব খাজা মিয়া এ আয়োজনের জন্য সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টকে ধন্যবাদ জানান।

এদিন সহায়তাপ্রাপ্তদের মধ্যে ৩০ জনের হাতে চেক হস্তান্তর করেন অতিথিবৃন্দ। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে ২০০ জন সাংবাদিক ও সাংবাদিক পরিবারের সদস্যকে ২ কোটি ৮ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা অনুদান প্রদানের কার্যক্রম চলছে বলে জানিয়েছে ট্রাস্ট কর্তৃপক্ষ।

২০১৪ সালের ৮ জুলাই গেজেটে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০১৪’ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের আওতায় ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৯৬ জন সাংবাদিক ও সাংবাদিক পরিবারের সদস্যকে ১কোটি ৪০ লক্ষ টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১ কোটি ৯৮ লক্ষ টাকা ২৩১ জনকে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২ কোটি ৬৯ লক্ষ টাকা ৩০৩ জনকে, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা ৩৩৯ জনকে ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১ কোটি ৬৯ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা ১৯৯ জনকে দেয়া হয়েছে। এছাড়া ২০১৯-২০ অর্থবছরে করোনাকালীন বিশেষ অনুদান হিসেবে ৩ হাজার ৩৩৫ জনকে ১০ হাজার করে ৩ কোটি ৩৫ লক্ষ টাকা দেয়া হয়। সবমিলে গত অর্থবছর পর্যন্ত ট্রাস্ট ৪ হাজার ৬৪০ জন সাংবাদিক ও সাংবাদিক পরিবারকে ১৪ কোটি ৭ লক্ষ টাকা দেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের তহবিলে সীডমানি হিসেবে জমা হয়েছে ৪৩ কোটি ৮ লক্ষ ২৭ হাজার ৮১ টাকা। এছাড়াও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সাংবাদিকদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ট্রাস্টকে ১০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছেন।

‘বই বিশেষজ্ঞ’

0

বাংলাদেশে বিভিন্ন বিষয়ে ‘স্পেশালিস্ট’ বা বিশেষজ্ঞ আছেন অনেকেই। কিন্তু বই বিষয়ে বিশেষজ্ঞের কথা এই সমাজে খুব একটা শুনি না। না শোনার কারণও আছে। আমাদের এই সমাজ এখনও তো বইকে খুব গুরুত্বপূর্ণ কিছু মনেই করে না। যেখানে বইকেই গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হয় না, সেখানে ‘বই বিশেষজ্ঞ’ থাকবেন কোত্থেকে?
পশ্চিমা সমাজে ‘বুক স্পেশালিস্ট’ বা ‘বই বিশেষজ্ঞ’ ব্যাপারটা খুব প্রচলিত। সেখানকার পুস্তক বিক্রয়কেন্দ্র কিংবা লাইব্রেরিগুলোতে এই ধরনের বিশেষজ্ঞ দেখা যায়। সেখানে এটি একটি পদ হিসেবেও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোতে প্রচলিত।
বাংলাদেশেও এমন একজন আছেন, যাকে আমরা ‘বই বিশেষজ্ঞ’ বলতে পারি। তিনি আমাদের আরিফ ভাই, কাজী মুহাম্মদ আরিফ। সত্তরের কাছাকাছি বয়স, পাকা চুল, একহারা গড়নের আরিফ ভাই বইপুস্তকের ব্যাপারে এখনও দিব্বি তরুণ। নতুন কোনো বই চোখে পড়লেই এখনও তিনি ওই বইয়ের প্রচ্ছদ, ফ্ল্যাপ, ভূমিকা, ভেতরের কয়েক পাতা পড়ে নেবেন। এখনও অনেক পাঠক বই কেনার ব্যাপারে আরিফ ভাইয়ের ওপর নির্ভরশীল। ফোনে কিংবা সরাসরি তারা আরিফ ভাইয়ের কাছে জেনে নেন কোন বিষয়ে কী কী ভালো বই আছে। বয়সের কারণে তরুণ পড়ুয়াদের সাথে তাঁর দূরত্ব তৈরি হয়নি। তরুণরাও তাঁর সঙ্গ উপভোগ করেন।
আরিফ ভাই সম্ভবত ‘বই বিশেষজ্ঞ’ বা ‘পুস্তক বিশেষজ্ঞে’র চেয়েও বেশিকিছু। বই বিক্রয়ের সঙ্গে তিনি আছেন প্রায় চল্লিশ বছর। ঢাকার বইমেলা, ঢাকার বইয়ের ক্রেতাবিক্রেতা, ঢাকায় বইয়ের পাঠক বা পড়ুয়া সমাজ, ঢাকার প্রকাশক, লেখক— সবাইকে নিয়েই তিনি। এসব বিষয়ে কত হাজার গল্প যে আছে আরিফ ভাইয়ের ঝুলিতে তা হয়তো তিনি নিজেও জানেন না। কোন কোন লেখক বই চুরিতে পটু ছিলেন সেসব গল্পও একেবারে কম নেই তাঁর স্মৃতিতে।
ঢাকার বইয়ের সংস্কৃতি নিয়ে কথা বলার জন্য আরিফ ভাইকে লাগবে। তো সেই প্রয়োজনের চিন্তা থেকে আমি অন্তত দুবার আরিফ ভাইয়ের সাক্ষাৎকার নিতে চেয়েছি। একেবার ভিডিও ফরমেটে সাক্ষাৎকার নিতে চাইলাম, আরিফ ভাই রাজি হয়েও শেষপর্যন্ত রাজি হলেন না। আরেকবার টেক্সট ফরমেটে নিতে চাইলাম, সেবারও তিনি ফসকে গেলেন। জানি না এটা কি আমার প্রতি অভিমান নাকি বিনয় ও সংকোচ। আমি অবশ্য এখনও আশা ছাড়িনি। তিনিও আশা করি আরও অনেকদিন বাঁচবেন।

[ভেবেছিলাম তাঁকে নিয়ে কিছু বলব না, কিন্তু এখন মনে হচ্ছে না বলাটা অন্যায় হয়ে যাবে। ‘না বলা’টা না বলাই রয়ে যাবে এবং শেষে হয়তো অনেক দেরিই হয়ে যাবে। অনেকেই তো এ ব্যাপারে, এসব ব্যাপারে, কিছু বলেন না, তাই বলতে বসলাম। এমন না যে আরিফ ভাইকে শুধু আমিই চিনি, আমার চেনাজানার আগে থেকেও তাঁকে অনেকে চেনেন। ঢাকার পাঠাপাঠের সংস্কৃতির প্রয়োজনেই আরিফ ভাইকে নিয়ে সামান্য এইটুকু বলে রাখলাম।]

ষড়ৈশ্বর্য মুহম্মদ

ভাইর ফেইসবুক থেকে

টিভির পর্দায় আছেন তারা, জনগণের পাশে নেই- ড. হাছান

0

টিভির পর্দায় আছেন তারা, জনগণের পাশে নেই- ড. হাছান

চট্টগ্রাম, শনিবার ১ মে ২০২১:
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘বিএনপি ও তাদের মিত্রদের টেলিভিশনের পর্দায় দেখা গেলেও জনগণের পাশে তারা নেই। তারা নিজেরা কোনো কাজ করে না শুধু অন্যের ভুল ধরাই তাদের কাজ, তাই আমি তাদের নাম দিয়েছি ‘ভুল ধরা পার্টি’।’

শনিবার দুপুরে মন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় মরহুম এডভোকেট নুরুচ্ছফা তালুকদার অডিটোরিয়ামে ড. হাছান মাহমুদের পারিবারিক প্রতিষ্ঠান এনএনকে ফাউন্ডেশনের চলমান করোনাকালীন উদ্যোগে দিনমজুর ও দরিদ্রদের মাঝে খাদ্র্যসামগ্রী বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

ড. হাছান বলেন, ‘মাঝে মধ্যে তাদের (বিএনপি ও মিত্রদের) ঢাকা শহরে প্রেসক্লাবের সামনে, সংবাদ সম্মেলন করার জন্যে নয়াপল্টনে অথবা বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে দেখা যায় নতুবা ঘর থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে সরকারের সমালোরচনা করেন তারা। এছাড়া তাদেরকে সমগ্র বাংলাদেশের কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা।’

‘আমরা যে কাজ করছি, সেটাতে কোনো ভুল আছে কিনা, শুধু সেটাই তারা খুঁজে বেড়ায়, নিজেরা কোনো কাজ করে না, তাই আমি তাদের নাম দিয়েছি- ভুল ধরা পার্টি’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই ধরণের ভুল ধরা পার্টি রাঙ্গুনিয়ায়ও আছে, তাদেরকে এখন দেখা যাচ্ছে না, ভোটের সময় দেখা যাবে। তখন তাদের জিজ্ঞেস করতে হবে, এতদিন তারা কোথায় ছিল?’

প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে করোনার প্রথম ঢেউয়ে সরকারের পক্ষ থেক সাত কোটির বেশি মানুষকে ত্রাণ দেয়া হয়েছিল, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ১ কোটি ২৫ লাখ মানুষকে ত্রাণ দেয়া হয়েছিল, এর বাইরেও অনেকে ব্যক্তিগতভাবে ত্রাণ দিয়েছিল, জানান ড. হাছান। তিনি বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়েও মেহনতি মানুষের দল আওয়ামী লীগ গরীব মানুষের পাশে আছে, ত্রাণ দিচ্ছে, কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে।

এনএনকে ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী আবদুর রউফ মাষ্টারের সভাপতিত্বে ও এমরুল করিম রাশেদের সঞ্চালনয়ায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান স্বজন কুমার তালুকদার, ইউএনও মাসুদুর রহমান এবং মেয়র শাহজাহান সিকদার ।

এদিন রাঙ্গুনিয়া পৌরসভা, চন্দ্রঘোনা, মরিয়মনগর, পদুয়া ও শ্রীপুর-খরন্ধীপ ইউনিয়নের দুই হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। ক্রমান্বয়ে দশ হাজার পরিবারে এসহায়তা পৌঁছে দেয়া হবে বলে জানান এনএনকে ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা।

এর পরপরই তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ সভায় বক্তব্য রাখেন, কৃষকদের হাতে কম্বাইন্ড হার্ভেস্টারের চাবি তুলে দেন ও গুমাইবিলে বোরো ধানকাটা উদ্বোধন করেন। এসময় সরকারি-বেসরকারি সকল সহায়তা দরিদ্র মানুষের কাছে পৌঁছে দেবার জন্য দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

শুধু পাঠ্যবই নয়, অন্য বইও পড়তে দিন শিক্ষার্থীদের: শিক্ষামন্ত্রী

0

ঢাকা, ১ মে, ২০২১

শুধু পাঠ্যবই নয়, অন্য বইও পড়তে দিন শিক্ষার্থীদের: শিক্ষামন্ত্রী

ভালো ফলাফল করতে শুধু পাঠ্য বই পড়া চাপিয়ে না দিয়ে শিক্ষার্থীদের মানবিক মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি শিল্প-সাহিত্য, বিজ্ঞান ও ইতিহাসহ অন্য সকল বই পড়ার সুযোগ করে দিতে অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি আজ মেহেরপুর জেলা প্রশাসন আয়োজিত মুজিব শতবর্ষে মেহেরপুর জেলার শিক্ষার্থীদের মাঝে ‘শততথ্যে জাতির পিতা’ শীর্ষক প্রকাশনা বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান ।

দুপুরে ভার্চুয়াল এ অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন,
বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে শিক্ষার্থীদের সোনার মানুষ হতে হবে। শিক্ষার্থীদের সোনার মানুষ হওয়ার জন্য আমি একটি বিষয়ে জোর দিতে চাই সেটা হলো বই পড়তে হবে। বই পড়া মানে শুধু ক্লাসের বই পড়া নয়। আমাদের সকল পর্যায়েরে শিক্ষার্থীকে আহ্বান জানতে চাই ক্লাসের বই ছাড়াও যত রকমের বই পড়া যায় পড়তে হবে। ’
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘অন্য বই (পাঠ্যবই ছাড়া) পড়তে গেলে অনেক সময় অনেক বাবা-মা বলেন, পড়া (ক্লাসের পড়া) নষ্ট হচ্ছে। আমি বিনীতভাবে অনুরোধ করছি এটি করবেন না। আপনার সন্তান ক্লাসের বই ছাড়াও যত বই পড়তে পারে পড়তে দিন। সাহিত্য বা জ্ঞান বিজ্ঞান হোক, ভ্রমন কাহিনী, জীবনী আইসিটির বই পড়তে দিন। পৃথিবীতে যত মানুষ সফল হয়েছে তাদের সবার ডিগ্রি আছে তা কিন্তু নয়। কিন্তু তারা অনেক বই পড়েছেন। পাঠ্যবইয়ের বাইরেও অনেক বই পড়েছেন। তাই প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হলে আমাদের অনেক বই পড়তে হবে, শুধু পাঠ বই নয়, নানা বিষয়ের বই।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্যদিয়ে একুশ বছর পর যখন শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতা পান, তখন থেকে একাত্তরে জন্ম হওয়া বাংলাদেশের মূল্যবোধ ধারণ করে এগিয়ে যাওয়া শুরু করি আমরা। তখন থেকেই আমরা শিক্ষা ব্যবস্থাকে সঠিক জায়গায় নেওয়ার চেষ্টা করি। বর্তমানে আমরা—কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার ওপর জোর দিচ্ছি। একইসঙ্গে চাই—আমাদের শিক্ষার্থীরা দক্ষতা যোগ্যতা যেমন অর্জন করবে, তেমনি মানবিক মূল্যবোধ, সততা, আন্তরিকতা, পরমতসহিষ্ণুতা এসব মুল্যবোধ ধারণ করে বড় হবে। সেভাবেই আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাবার চেষ্টা করছি। ’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু যেমন রাজনৈতিক শিক্ষার কথা বলেছিলেন, সেখানে অর্থনৈতিক মুক্তি, সামাজিক-সাংস্কৃতিক মুক্তি, ক্ষুধা-দারিদ্র্য থেকে উত্তরণ ঘটিয়ে মুক্তির কথা বলেছিলেন। বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে আমরা সেই বাংলাদেশ করার জন্য অঙ্গিকারাবদ্ধ। বঙ্গবন্ধু কন্যা ২০২১ সালের মধ্যে আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। সে বাংলাদেশ আমরা অর্জন করেছি। তিনি আমাদের ২০৪১ সালের উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিছেন। ২০৩০ সালেও আমাদের একটি লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সেটি হচ্ছে—টেকসই উন্নয়ন। তিনি আমাদের ২১০০ সালের ব-দ্বীপ পরিকল্পনাও দিয়েছেন। আমরা তার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছি। আমরা অভিষ্ট লক্ষ্য অর্জন করবো। ‘

মেহেরপুরের জেলা প্রশাসন ড. মো মনসুর আলম খানের সভাপতিত্বে
অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় দলের ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা, মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার ইসমাইল হোসেন।
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি বলেন, বঙ্গবন্ধুর দুটি স্বপ্ন ছিল- একটি হচ্ছে এই জাতিকে মুক্তির স্বাদ দেয়া, আর অন্যটি হচ্ছে এ দেশকে উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরা। এদেশকে দ্রুত সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিতে হলে আমাদেরকে জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে কাজ করে যেতে হবে। এজন্য তরুণ প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতে হবে।

শিক্ষাকে সভ্যতার বিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে : মোস্তাফা জব্বার

0

শিক্ষার বদৌলতে সভ্যতার বিবর্তন হয়েছে, এখন শিক্ষাকে

সভ্যতার বিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে

: মোস্তাফা জব্বার

ঢাকা ১ মে:

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, সারা দুনিয়ায় এগিয়ে যাওয়ার বাহন হচ্ছে শিক্ষা । শিক্ষার বদৌলতে সভ্যতার বিবর্তন হয়েছে । এখন শিক্ষাকে সভ্যতার বিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। ডিজিটাল সভ্যতা বা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য ডিজিটাল শিক্ষায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। ডিজিটাল শিক্ষা প্রসারে সুযোগের প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। আজকের ডিজিটাল শিল্প বিপ্লবে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার জাদুটি হচ্ছে ২০০৮ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি।এরই ধারাবাহিকতায় গত ১২ বছরে বাংলাদেশ ডিজিটাইজেসনসহ সকল ক্ষেত্রে পৃথিবীর অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছে।

মন্ত্রী আজ ঢাকায় ময়মনসিংহ জেলা প্রতিষ্ঠার ২৩৩তম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বৃহ্ত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সমাজ কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু, সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ, অধ্যাপক যতীন সরকার ,বৃহত্তর ময়মনসিংহ কর্মজীবী সমিতির সভাপতি সাজ্জাদুল হাসান, বস্ত্র ও পাট সচিব মো: আবদুল মান্নান, আইএমইডি সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের সমন্বয়ক আবদুস সামাদ এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ম. হামিদ প্রমূখ বক্তৃতা করেন।সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল হাসান শেলী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সভাপতি জনাব মোস্তাফা জব্বার বৃহত্তর ময়মনসিংহের ইতিহাস ঐতিহ্য এবং ২৩৩ বছর আগে জেলা প্রতিষ্ঠার ঘটনা প্রবাহ তুলে ধরে বলেন. বৃহত্তর ময়মনসিংহ পলিমাটি দিয়ে গড়া, এটি একটি বৃহৎ শস্য ও মৎস্যসহ অন্যান্য সম্পদ সমৃদ্ধ জনপদ।তিনি বৃহ্ত্তর ময়মনসিংহের সব জেলাতে শিক্ষা বিস্তারে বিশেষ করে ডিজিটাল শিক্ষার প্রসারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, আমার গ্রামে স্বাধীনতার পর ৭২ সালে বিশেষ করে হাওরে প্রাথমিক শিক্ষার পর হাইস্কুলে পড়ারও সুযোগ ছিল না, সেই হাওরের মানুষ এখন সেখানে মাস্টার ডিগ্রি পড়ার সুযোগ পাচ্ছে। হাওরের প্রতিটি গ্রামের পাশ দিয়ে এখন সাব মার্জেবল রাস্তা হয়েছে। ডিজিটাল সুপার হাইওয়ে তৈরি হয়েছে। হাওর এলাকায় আছে টেলিটক নেটওয়ার্ক। গড়ে ওঠছে ১২ হাজার ওয়াইফাই জোন। নেত্রকোণায় আইটি ট্রেনিং সেন্টার, বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিক্যাল কলেজ, জামালপুর, ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইলে হাইটেক পার্ক ও জেলায় জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হচ্ছে। বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম গর্ব করে যে ত্রিশালের কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলো যেখানে এখন সাড়ে সাত হাজার ছেলে মেয়ে পড়াশোনা করে। মন্ত্রী মেধা ও সৃজনশীলতার দিক থেকে ময়মনসিংহের মানুষদের ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য মেধা ও সৃজনশীলতার খুবই প্রয়োজন। মন্ত্রী পরিকল্পিত উপায়ে আড়াই হাজার বর্গমাইলের বিস্তীর্ণ হাওরে পরিকল্পিত উপায়ে দেশি মাছের চাষ করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন , শস্য সম্পদের মতো হাওরের মৎস্য সম্পদ দেশের মাছের চাহিদা মিটিয়েও রপ্তানিতে ভূমিকা রাখতে পারে।

উল্লেখ্য ১৭৮৭ খ্রিস্টাব্দের ১লা মে ময়মনসিংহ জেলা সৃষ্টি হয়। এই জেলার আকার সময় সময় পরিবর্তিত হয়েছে। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে ময়মনসিংহ জেলা থেকে টাঙ্গাইল মহকুমাকে এবং ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দে জামালপুর মহুকুমাকে পৃথক করে জেলায় উন্নীত করা হয়। ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে ময়মনসিংহ জেলা থেকে শেরপুর, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ মহকুমাকে পৃথক পৃথক জেলায় উন্নীত করা হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বৃহত্তর ময়মনসিংহের ইতিহাস ঐতিহ্য তুলে ধরে বিস্তারিত আলোকপাত করেন।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ২৮ টি স্বর্ণবার আটক

0

আজ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর কর্তৃক মোট ২৮ টি স্বর্ণবার আটক যার ওজন ৩.২৪৮ কেজি …..

মহাপরিচালক, কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর এর নিকট আসা এক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোরাচালান প্রতিরোধে কাস্টমস গোয়েন্দার কর্তব্যরত কর্মকর্তাগণ বিমান বন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করে নজরদারী করতে থাকে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আনুমানিক রাত ০১:৫৯ টায় বাংলাদেশ বিমানের দুবাই থেকে আগত ফ্লাইট নং-BG-5046 ফ্লাইটটি তল্লাশী করা হলে উক্ত ফ্লাইটের একটি সিটের নিচে অভিনব উপায়ে লুকানো ২৮ টি স্বর্ণবার পাওয়া যায়, যার মোট ওজন ৩.২৪৮ কেজি এবং আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ২ কোটি ০৬ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা।

আটককৃত স্বর্ণের বিষয়ে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এবং এ বিষয়ে একটি ফৌজদারী মামলা দায়েরের কার্যক্রম চলমান আছে।

হজ্বে গমনেচ্ছুরা অসাধু চক্র থেকে সাবধান থাকুন

0

হজ্ব গমনেচ্ছুদের প্রতি ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আহ্বান

অসাধু চক্র থেকে সাবধান থাকুন

ঢাকা, ১৬ বৈশাখ (২৯ এপ্রিল) :

      এবছর পবিত্র হজ পালনে হজ গমনেচ্ছুদের অন্তর্ভুক্ত করবেন বলে একটি অসাধু চক্রের অর্থ গ্রহণ সংক্রান্ত প্রতারণার ঘটনা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নজরে এসেছে। বিষয়টি অনভিপ্রেত এবং সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনার জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ বলে মনে করে মন্ত্রণালয়।

      ২০২১ সালের সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনে আগ্রহী প্রাকনিবন্ধিত ও নিবন্ধিত ব্যক্তিবর্গকে এই চক্রের প্রতারণা থেকে সাবধান থাকার জন্য মন্ত্রণালয় অনুরোধ করছে। পাশাপাশি পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত ২০২১ সালের হজের বিষয়ে কোন প্রকার আর্থিক লেনদেন না করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

      ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় আজ এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানায়।

#

চট্টগ্রামের বহিঃনোঙ্গরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে ডুবে যায় এমভি পিংকি

0

চট্টগ্রামের বহিঃনোঙ্গরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে ডুবে যাওয়া এমভি পিংকি বাল্কহেড থেকে ৫ জন ক্রুকে জীবিত উদ্ধার করেছে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড।

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) সকালে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড সদর দপ্তরের মিডিয়া কর্মকর্তা লেঃ কমান্ডার আমিরুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৩টায় এমভি পিংকি নামের একটি বাল্কহেড কর্ণফুলী নতুন ব্রিজ থেকে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্পের পাথর বোঝাই করে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রওনা করে।

আনুমানিক ভোর ৬টার সময় বহির্নোঙ্গরে ১ নং বয়া থেকে ১.৫ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণে গমনের পর তাদের ইঞ্জিন বিকল হয়ে ভাসতে ভাসতে একটি বানিজ্যিক জাহাজের সাথে ধাক্কা লাগে। বাল্কহেডটিতে ০৫ জন ক্রুর মধ্যে একজন সমুদ্রে লাফিয়ে পড়ে।

পরবর্তীতে এমভি নাফিজা জাহান এর কাছে সাহায্য চাইলে তারা পোর্ট কন্ট্রোলকে জানায়। পোর্ট কন্ট্রোল কোস্ট গার্ডকে অবগত কর‌লে ০৭৩০ ঘটিকায় বিসিজি আউটপোস্ট পতেঙ্গা থেকে উদ্ধারকারীদল ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং ০৫ জন ক্রুকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। সকাল ৮টার দিকে বাল্কহেডটি গহিরা থেকে ১ নটিক্যাল মাইল দক্ষিনে সম্পূর্ণরুপে ডুবে যায়।

তিনি আরও জানান, উদ্ধারকৃতদের কোস্ট গার্ড বেইস চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয়েছে এবং তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

বিষোদগার নয়, একসাথে মানুষের পাশে : তথ্যমন্ত্রী

0

বিষোদগার নয়, একসাথে মানুষের পাশে -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১:

বিষোদগারের রাজনীতি পরিহার করে সরকারের সাথে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিএনপি ও নাগরিক ঐক্যের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

ড. হাছান বলেন, ‘আমি মির্জা ফখরুল সাহেব এবং তার জোটের নেতৃবৃন্দকে অনুরোধ জানাবো, প্রতিদিন সরকারের প্রতি বিষোদগার না করে আওয়ামী লীগ যেভাবে জনগন ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়িয়েছে, আপনারাও সেভাবে জনগণের পাশে দাঁড়ান এবং আসুন আমরা একসাথে জনগণের জন্য কাজ করি। আমাদের দরজা খোলা আছে, আমরা একসাথে জনগণের জন্য কাজ করতে পারি। কিন্তু আপনারা জনগণের পাশে দাঁড়াবেন না আর প্রতিদিন মিথ্যাচার করবেন, গুজব রটাবেন এটা বরদাস্ত করা যাবে না, কারণ অসত্য কখনো গ্রহণযোগ্য নয়।’

‘আমাদের নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার খেটে খাওয়া মানুষের সরকার, আওয়ামী লীগ সরকার গরীব-মেহনতি মানুষের সরকার এবং সেই কারণে আওয়ামী লীগ সরকার এবং তার দল আজকে খেটে খাওয়া মেহনতি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়িয়েছে’ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, অন্যদিকে বিএনপি এবং তাদের কিছু মিত্র যারা কখনো ২০ দলীয় জোট আবার কখনো ঐক্যজোট- নানা নামে আবির্ভূত হয়, তাদের নিজেদের মধ্যে ঐক্য নাই তারা জনগণের পাশেও নাই।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আবার যারা নাগরিক ঐক্যের নামে পর্দার অন্তরালে থেকে ভার্চুয়ালি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন আর মাঝে মধ্যে ছিঁটেফোঁটা কয়েকজনকে নিয়ে প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন, তাদের মানববন্ধনে লোকসংখ্যা দেখে আমাদের লজ্জা লাগে, মনে হয়- ‘ছোট পরিবার, সুখী পরিবার’।

‘তাদের (নাগরিক ঐক্যের) মানববন্ধনে একশ’ লোক হয় না, সেখানে মানুষের জন্য এক ছটাক চাল নিয়েও তারা উপস্থিত হয় না, অথচ সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে’ দু:খপ্রকাশ করে ড. হাছান বলেন, যারা সরকারের বিরুদ্ধে অহেতুক সমালোচনা না করে আসুন জনগণের পাশে দাঁড়ান। জনগণকে সহায়তা করাই এখন একমাত্র রাজনীতি হওয়া বাঞ্ছনীয়।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মান্নাফীর সভাপতিত্বে এবং ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আজাহার আলীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, সহসভাপতি এডভোকেট নূরুল আমীন রুহুল, সহসভাপতি শরফুদ্দিন আহম্মেদ সেন্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুর্শেদ কামাল, প্রচার সম্পাদক আকতার হোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর মহিলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিতু আক্তার প্রমুখ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠানে দুই শতাধিক সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের হাতে ঈদ উপহার সামগ্রী তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

স্বাক্ষরিত/-
-মীর আকরাম উদ্দীন আহম্মদ/ পরিচালক-তথ্য ও জনসংযোগ

দ্রুত গণপরিবহন চালুর দাবি

0

ঈদ সামনে রেখে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে দ্রুত গণপরিবহন চালুর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন। আজ বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিকদের ঈদের বেতন-ভাতা পরিশোধে পাঁচ হাজার কোটি টাকা প্রণোদনা দেয়ার আহ্বানও জানায় সংগঠনটি।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সরকার জনসমাগম এড়াতে প্রথমে ৫ থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। পরে এ নিষেধাজ্ঞা আরও বাড়িয়ে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। তবে সে সময় সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিল্পকারখানা, গণপরিবহন চালু ছিল।

এরপর সরকার ১৪ এপ্রিল থেকে সর্বাত্মক লকডাউনে যায়, যাতে বন্ধ ছিল গণপরিবহন এবং দোকানপাট। সরকারের সর্বশেষ নির্দেশ অনুযায়ী, আগামী ৫ মে পর্যন্ত গণপরিবহন বন্ধ থাকছে।

বাংলাদেশ সিরিজের মধ্যেই লঙ্কান ক্রিকেটে লঙ্কাকাণ্ডের শঙ্কা

0

বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে খুশি মন নিয়ে খেলতে নামেননি শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটাররা। বেতন-ভাতা নিয়ে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) সাথে বড় ধরনের সমস্যা চলছে ক্রিকেটারদের। সমস্যার মাত্রা এমনই যে এভাবে চলতে থাকলে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে বড় ধরনের অচলাবস্থা দেখা দিতে পারে।

জানা গেছে, বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজ শুরু হওয়ার আগেই ক্রিকেটারদের নতুন কেন্দ্রীয় চুক্তিতে সই করতে বলা হয়েছিল। তবে নতুন চুক্তিতে তাদের বেতন কমে যাওয়ায় সেই চুক্তিতে সই করতে রাজি হননি ক্রিকেটাররা। গত জানুয়ারি মাস থেকে কেন্দ্রীয় চুক্তিহীন অবস্থায় আছেন শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটাররা।

নতুন যেই চুক্তিতে ক্রিকেটারদের সই করতে বলা হয়েছে, সেখানে বেতন কমে যাওয়ার ব্যাপারটিই শঙ্কা তৈরি করেছে ক্রিকেটারদের মধ্যে। আগের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে শ্রীলঙ্কার উঁচু সারির একজন ক্রিকেটার বেতন-ভাতা বাবদ বোর্ডের কাছ থেকে বছরে ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার আয় করতেন। তবে এখন সেটা প্রায় ৪৫ হাজার ডলারে নেমে আসতে পারে।

যে ক্রিকেটাররা কেবল একটি সংস্করণে জাতীয় দলের হয়ে খেলেন তারা ক্ষতির শিকার হবেন আরও বেশি। নতুন এই চুক্তিতে একজন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারের বেতন সব মিলিয়ে দাঁড়াবে ১ লাখ ডলার। তবে সুরঙ্গা লাকমলের মতো সেই সিনিয়র ক্রিকেটার যদি কেবল একটি সংস্করণে খেলেন, তাহলে তার বেতন কমে দাঁড়াবে ৪৫ হাজার ডলারে। তাই এটা কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না লঙ্কান ক্রিকেটাররা। তিন সংস্করণেই জাতীয় দলকে প্রতিনিধিত্ব করেন এমন ক্রিকেটাররাই কেবল লাখখানেকে ডলার আয় করতে পারবেন।

ইতোমধ্যেই খেলোয়াড়েরা সবাই নিজেদের আইনজীবীর সাথে আলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন। সে অনুযায়ী পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেবেন তারা।

সম্প্রতি এসএলসির ক্রিকেট পরিচালক টম মুডি এক টেলিকনফারেন্সে কেন্দ্রীয় আর্থিক চুক্তির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছেন। এ বিষয়ে নাম না প্রকাশ করে একজন লঙ্কান ক্রিকেটারকে উদ্ধৃত করেছে দ্য আইল্যান্ড পত্রিকা। ওই ক্রিকেটার বলেছেন, যদিও টম টেলিকনফারেন্সে এ চুক্তির বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছেন, তবে তিনিও এর বেশ কয়েকটি দিক ব্যাখ্যা করতে গিয়ে থমকে গেছেন। তিনি আমাদের অনেক প্রশ্নেরই উত্তর দিতে পারেননি। এর মানে এই যে চুক্তির খসড়াটা তিনি নিজে তৈরি করেননি, করেছে অন্য কেউ।

করোনার মধ্যেও ৬ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস

0

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কার মধ্যে বাংলাদেশের চলতি অর্থবছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৬ শতাংশের মধ্যে থাকবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক- এডিবি।

বুধবার সকালে বাংলাদেশ ইকোনমিক আউটলুক শীর্ষক অনলাইন ব্রিফিংয়ে এমন তথ্য দেয় উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাটি। এ সময় এডিবি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ বলেন, চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে এডিবি’র পূর্বাভাস ছিল ৬.০৮ শতাংশ। তবে, গেল কয়েক সপ্তাহ ধরে চলমান কঠোর বিধিনিষেধে অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ায় এডিবি মনে করছে, চলতি অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমবে।

এ সময় করোনাকালীন বাংলাদেশকে দেয়া এডিবি’র আর্থিক সহায়তার চিত্র তুলে ধরেন তিনি। মনমোহন প্রকাশ আরো জানান, সবার জন্য করোনা টিকা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের জন্য ৯ কোটি ৪০ লাখ ডলারের আর্থিক সহায়তা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ অর্থ দিয়ে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত করোনা টিকা কিনতে পারবে সরকার। এছাড়াও টিকা পরিবহণ, প্রয়োগ ও সংরক্ষণসহ টিকা ব্যবস্থাপনার উন্নয়নেও এ অর্থ ব্যয় করা যাবে।

মনমোহন প্রকাশ বলেন, দীর্ঘমেয়াদে সংকট দূর করতে এডিবি চায় বাংলাদেশেই টিকা উৎপাদন হোক। বিশ্বের অন্যদেশের সঙ্গে দেশীয় কোনো প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে টিকা উৎপাদন করতে চাইলে সেক্ষেত্রেও আর্থিক সহায়তা দেয়ার কথাও জানান তিনি।

ভারত মৃত্যুর সংখ্যা লুকাচ্ছে, সিএনএনের রিপোর্টে ভয়াবহ তথ্য

0

https://googleads.g.doubleclick.net/pagead/ads?client=ca-pub-8954153913727597&output=html&h=443&slotname=3828511678&adk=3497320867&adf=2380803404&pi=t.ma~as.3828511678&w=428&lmt=1619681845&rafmt=11&tp=site_kit&psa=1&format=428×443&url=https%3A%2F%2Fdainikanandabazar.com%2F%25e0%25a6%25ad%25e0%25a6%25be%25e0%25a6%25b0%25e0%25a6%25a4-%25e0%25a6%25ae%25e0%25a7%2583%25e0%25a6%25a4%25e0%25a7%258d%25e0%25a6%25af%25e0%25a7%2581%25e0%25a6%25b0-%25e0%25a6%25b8%25e0%25a6%2582%25e0%25a6%2596%25e0%25a7%258d%25e0%25a6%25af%25e0%25a6%25be-%25e0%25a6%25b2%25e0%25a7%2581%25e0%25a6%2595%25e0%25a6%25be%2F&flash=0&fwr=1&wgl=1&dt=1619681845214&bpp=2&bdt=771&idt=109&shv=r20210426&cbv=r20190131&ptt=9&saldr=aa&abxe=1&cookie=ID%3Dd4837f32e40fe2e7-22f65ae89bc70032%3AT%3D1619335605%3ART%3D1619335605%3AS%3DALNI_MaNoMoV4jmNuoI8og48JtdP-LFB6A&prev_fmts=0x0%2C428x356&nras=1&correlator=4158760536928&frm=20&pv=1&ga_vid=299919958.1619335605&ga_sid=1619681845&ga_hid=237578275&ga_fc=0&rplot=4&u_tz=360&u_his=19&u_java=0&u_h=926&u_w=428&u_ah=926&u_aw=428&u_cd=32&u_nplug=0&u_nmime=0&adx=0&ady=890&biw=428&bih=746&scr_x=0&scr_y=0&eid=42530672%2C182982000%2C182982200%2C44739991&oid=3&pvsid=2721650770715226&pem=673&ref=https%3A%2F%2Fdainikanandabazar.com%2F&eae=0&fc=1920&brdim=0%2C0%2C0%2C0%2C428%2C0%2C428%2C926%2C428%2C746&vis=1&rsz=%7C%7CeEbr%7C&abl=CS&pfx=0&fu=128&bc=31&ifi=3&uci=a!3&btvi=1&fsb=1&xpc=910BYsR9gm&p=https%3A//dainikanandabazar.com&dtd=123

প্রতিদিন ভারতে বিনা চিকিৎসায় করোনা রোগীর মৃত্যু ঘটছে। আর এ অবস্থার মধ্যেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সিএনএন-এ প্রকাশিত এক রিপোর্টে ভয়াবহ তথ্য উঠে এসেছে। যাতে বলা হয়েছে, প্রকৃত মৃত্যুর সংখ্যা নথিভুক্তের চেয়ে অনেক বেশি। আর আক্রান্তের সংখ্যাও ৫০ কোটির বেশি হতে পারে। করোনায় বিপর্যস্ত এই ভারত বিগত বছরগুলোতে সামরিক খাত, ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি আর আইপিএলে বাড়িয়েছে খরচ, যা নিয়েই এখন চলছে সমালোচনা।

হলিউডের পরই বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ইন্ডাস্ট্রি বলিউড। এখানে অহরহ হচ্ছে ৬০০ কোটি রুপির সিনেমা। আর একটি সিনেমার জন্য ৩০০ থেকে ৫০০ কোটি রুপি ব্যয় খুবই সাধারণ ব্যাপার। বলিউড ছাড়াও বিভিন্ন রাজ্যে আরও অনেক ইন্ডাস্ট্রি আছে সেগুলোর চলচ্চিত্রের ব্যয়ও আকাশচুম্বী।

আইপিএল, ভারতের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ক্রিকেট লিগ। এখানে প্রতিটি দলের খরচ, সুযোগ-সুবিধা কোনো অংশেই একটি জাতীয় ক্রিকেট দলের কম নয়। কয়েক হাজার কোটি রুপির ব্যয় প্রতিটি আসরে হয় থাকে।

গত ২০২০ সালে, ভারত বিশ্বে তৃতীয় দেশ যারা সামরিক খাতে সবচেয়ে বেশি খরচ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের পরই দক্ষিণ এশিয়ার এ দেশটির অবস্থান। তাই কে বলবে অর্থনৈতিক মন্দায় ভুগছে দেশটি!

চলচ্চিত্র, আইপিএল কিংবা সামরিক খাত কোথাও চোখ রাখলে বোঝার উপায় নেই ভারতের অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়টি। এসব খাতে কমেনি খরচ বরং বেড়েছে। অথচ মন্দার ছোঁয়া ঠিকই লেগেছে চিকিৎসা খাতে। এখন যেখানে রোজ সাড়ে তিন লাখের মতো রোগী শনাক্ত ও আড়াই হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে- এমন সময় সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে চিকিৎসাব্যবস্থা। নেই অক্সিজেনের যোগান, নেই আইসিইউ সুবিধা। বিনা চিকিৎসায় হাসপাতালের বাইরে রোগীর শেষ নিশ্বাস ত্যাগ নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাড়িতেও প্রাণ যাচ্ছে অনেক মানুষের।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, বাস্তবে পরিস্থিতি আরও খারাপ। আক্রান্তের হার প্রকৃত সংখ্যার চেয়ে ঢের বেশি। অন্যদিকে মৃত্যুর সংখ্যাও প্রকৃত সংখ্যার চেয়ে বেশি। সিএনএন-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে এমনটাই উঠে এসেছে।

এ অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভারতের ব্যয়বহুল বিভিন্ন আসরের সমালোচনা চলছে জোরেশোরে। বিশেষ করে এখনো আইপিএল কেন বন্ধ হচ্ছে না তা নিয়েই সমালোচনা তুঙ্গে। সামরিক খাতে বাজেট বাড়ানো আর বলিউডের ব্যয় নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। বিরোধীরা বলেছেন, ২০২০ সালের মহামারির আঁচ থেকে একটুও শিক্ষা নেয়নি নরেন্দ্র মোদি প্রশাসন। তাই চিকিৎসা খাতের কোনো উন্নয়নই করেনি তারা। আর তাই আজ নতুন ভ্যারিয়েন্টে মৃত্যু দুয়ারে দুয়ারে।

ভারতে চিকিৎসা সামগ্রী পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ

0

করোনায় বিপর্যস্ত ভারতে জরুরি ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথম দফায় ১০ হাজার ইনজেক্টেবল অ্যান্টি-ভাইরাল, ওরাল অ্যান্টি-ভাইরাল, ৩০ হাজার পিপিই কিটস এবং কয়েক হাজার জিংক, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-সি পাঠানো হবে। আজ বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনায় দিশেহারা ভারতে অক্সিজেন আর চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছে অসংখ্য মানুষ। বিপর্যস্ত ভারতের পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ফ্রান্স ও যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ। এরই মধ্যে কয়েক দিন আগে জরুরি ভিত্তিতে ৬ শ’র বেশি মেডিকেল ইকুইপমেন্ট, ৪৯৫টি অক্সিজেন সিলিন্ডার, ভেন্টিলেটরসহ বিভিন্ন সুরক্ষাসামগ্রী পাঠিয়েছে ব্রিটিশ সরকার।

ইতিমধ্যে সিঙ্গাপুরের পাঠানো মেডিকেল সহায়তা ভারতে পৌঁছেছে। করোনা মোকাবিলায় ভারতে সহায়তা পাঠাচ্ছে রাশিয়া। এক ফোনালাপে পাশে দাঁড়ানোয় রুশ প্রেসিডেন্টকে ভ্লাদিমির পুতিনকে এ জন্য ধন্যবাদও জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নিউজিল্যান্ড, ফ্রান্সসহ অন্যান্য দেশও ভারতের বিপদে পাশে দাঁড়াতে হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে।

পরিবর্তন হল ঢাবি ভর্তি পরীক্ষার তারিখ

0

করোনা প্রকোপের কারণে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সাধারণ ভর্তি কমিটির জরুরি সভায় (ভার্চুয়াল) এই সিদ্ধান্ত হয়।

কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ক-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৬ আগস্ট, খ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ৭ আগস্ট, গ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১৩ আগস্ট, ঘ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১৪ আগস্ট এবং চ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা (সাধারণ জ্ঞান) ৩১ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে। চ-ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা (অংকন)-এর তারিখ যথাসময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে।

সকল ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র আগামী ১০ জুলাই হতে পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট পূর্ব পর্যন্ত ডাউনলোড করা যাবে।

এ সময় সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, অনলাইন ভর্তি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, বিভিন্ন ইনস্টিটিউটের পরিচালক, প্রক্টর প্রমুখ।

খালেদা জিয়া এখন স্টেবল

0

বসুন্ধরার এভার কেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার চিকিতসার জন্য ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে।
রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা জানাতে গিয়ে তার ব্যক্তিগত চিকিতসক টিমের সদস্য অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘‘উনার(খালেদা জিয়া) যে চিকিতসা বাসায় চলছিলো সেই চিকিতসাসহ সেখানে আরো কিছু নতুন ঔষধ যুক্ত করা হয়েছে এবং যোগ করার পরিপ্রেক্ষিতে আলহামদুল্লিলাহ উনি (খালেদা জিয়া) এখন স্টেবল।”

‘‘ আজকে একটি মেডিকেল বোর্ড করা হয়ে্ছে। এভার কেয়ার হাসপাতালের ৭ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড। আর এই বোর্ডে ম্যাডামের ব্যক্তিগত চিকিতসক টিমের সদস্য অধ্যাপক এফএম সিদ্দিকী, আমি এবং অধ্যাপক মো. আল মামুনও আজকে ছিলেন। অর্থাত ১০ সদস্যের একটা মেডিকেল বোর্ড উনার্ এই পর্যন্ত যেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়েছে তার রিভিউ করেছেন। পরবর্তিকে উনাকে তারা পরীক্ষা করে আরো কিছু পরীক্ষার সুপারিশ করেছেন।”

অধ্যাপক জাহিদ বলেন, খালেদা জিয়ার অবস্থা স্টেবল। দেশবাসীসহ দলের নেতা-কর্মীদের কাছে আমি উনার জন্য দোয়া করার কথা বলছি। আমরা খুবই আশাবাদী। ইনশাল্লাহ ম্যাডাম খুব শিগগিরই উনার বাসায় ফিরে যাবেন।”

এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিতসাধীন খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত এই মেডিকেল বোর্ডের নেতৃত্বে রয়েছেন অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদার।

মঙ্গলবার রাতে খালেদা জিয়াকে এভার কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে গত রাতে তার সিটি স্ক্যান (চেস্ট), ইসিজি, ইকো প্রভৃতি হৃদরোগে পরীক্ষাগুলো করা হয়েছে।

কোবিড ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর খালেদা জিয়ার অবস্থা সম্পর্কে অধ্যাপক জাহিদ বলেন, ‘‘ আলহামদুলিল্লাহ গত ১৫ এপ্রিল ম্যাডামের সিটি স্ক্যান করা হয়েছিলো সেখানে আমরা রিপোর্ট দেখে বলেছিলাম ফুসফুসে উনার ‘মিনিমাম ইনভোলবমেন্ট’ আছে। গতকালকে যে চেস্টে সিটি স্ক্যান হয়েছে সেখানে বিন্দুমাত্র ‘ইনভোলবমেন্ট’ নেই। কাজেই আল্লাহ‘র কাছে শুকরিয়া এটা ভালো দিক।”

‘‘ উনার হৃদযন্ত্রেরও মধ্যে কোনো ধরনের কার্ডিও সমস্যা নেই। কালকে ডাক্তার সাহেবরা যে পরীক্ষার রিপোর্ট দিয়েছেন সেই রিপোর্টে নেই।”

‘খালেদা জিয়া নন করোনা ইউনিটে চিকিতসাধীন’
অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, ‘‘উনার কোনো করোনা উপসর্গ নেই। উনি কিন্তু এখন নন করোনা ইউনিটে চিকিতসাধীন আছেন। আন্তর্জাতিক চিকিতসার নিয়মই আছেই দুই সপ্তাহের পরে রোগীর কোনো সিম্ট্রম না থাকে তাহলে করোনা টেস্ট আর করানোরই প্রয়োজন নেই্। তখন ধরে নিতে হবে উনার কাছ থেকে করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর সুযোগ নেই।”

খালেদা জিয়া কবে বাসায় ফিরবে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘‘ বাসায় ফেরার বিষয়টা প্রেডিক্ট করাটা খুব টাফ।উনার পরীক্ষাগুলো সম্পন্ন হলে বোর্ড রিভিউ করবেন। তারপরে আমরা আশা করতে পারি খুব সহসাই উনার বাসায় ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে।”

‘লকডাউন’ বাড়লো ৫ মে পর্যন্ত

0

করোনা সংক্রমণ রোধে লকডাউনের আদলে দেওয়া কঠোর বিধিনিষেধ ৫ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। বুধবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন সমন্বয় অধিশাখার জারি করা প্রজ্ঞাপনে এ কথা বলা হয়। আগের বিধিনিষেধ বহালের সঙ্গে সঙ্গে নতুন কিছু শর্ত যুক্ত করে ২৮ এপ্রিল মধ্যরাত থেকে ৫ মে মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

এতে বলা হয়, দোকানপাট ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন সাপেক্ষে খোলা রাখা যাবে।

ভারত থেকে স্থল, নৌ ও বিমান পথে দেশে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি উল্লেখ করে বলা হয়, কেবল পাসপোর্টের মেয়াদোত্তীর্ণ বাংলাদেশিরা ভারতে অবস্থিত বাংলাদেশ হাইকমিশনের অনুমতি/অনাপত্তি ছাড়পত্র নিয়ে দেশে প্রবেশ করতে পারবে।

চলতি বছর ফেব্রুয়ারি থেকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকে এবং মার্চের শুরুতে এসে সেটি তীব্র আকার ধারণ করে।

সংক্রমণ ঠেকাতে ৫ এপ্রিল থেকে প্রথম দফায় সাত দিনের জন্য ‘বিধিনিষেধ’ শুরু হয়। পরে আরও দুই দিন বাড়িয়ে শেষ হয় ১৩ এপ্রিল। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় ‘কঠোর বিধিনিষেধ’ ঘোষণা করে সরকার, যা চলে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত।

পরে ২১ তারিখ থেকে আরেক দফা এই বিধিনিষেধ বাড়িয়ে ২৮ এপ্রিল করা হয়। নতুন ঘোষণায় এবার তা ৫ মে পর্যন্ত বাড়ানো হলো।

দেশে রাশিয়া ও চীনের টিকা উৎপাদনে নীতিগত অনুমোদন

0

রাশিয়া ও চীনের করোনা টিকা বাংলাদেশে উৎপাদনের ক্ষেত্রে নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। আজ বুধবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে এ কথা জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

তবে কোন কোম্পানি উৎপাদন করবে সেটা এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

এর আগে, বাংলাদেশের স্থানীয় ফার্মাসিউটিক্যালগুলোর সহযোগিতায় করোনা (কোভিড-১৯) টিকা উৎপাদনের প্রস্তাব দেয় রাশিয়া। দেশটি তাদের তৈরি ‘স্পুটনিক-ভি’ টিকা বাংলাদেশে উৎপাদন করতে আগ্রহ প্রকাশ করে।

করোনার টিকার জন্য এতোদিন বাংলাদেশ ছিলো আমদানি নির্ভর। এবার টিকা উৎপাদন হবে দেশেই। এমন সম্ভাবনার কথা জানিয়ে গত বৃহঃস্পতিবার (২২ এপ্রিল) পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানান, ‘রাশিয়ার তৈরি ‘স্পুৎনিক ভি’ টিকা যৌথভাবে উৎপাদন করার বিষয়ে চুক্তি হয়েছে। আমাদের সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছে সেখানে আমরা বলেছি যে, কিছু আমরা ক্যাশ দিয়ে কিনব, আর কিছু এখানে স্থানীয়ভাবে উৎপাদন করব। তবে এক নম্বর শর্ত হচ্ছে যে, ভ্যাকসিন উৎপাদনের ফর্মুলা অন্য কারও সঙ্গে শেয়ার করা যাবে না। এছাড়াও দক্ষিণ এশিয়ায় করোনার টিকা রাখার জন্য সংরক্ষণাগারের প্রস্তাব দিয়েছে চীন, বাংলাদেশ এতেও সম্মত হয়েছে।’

বিএনপিই বিকারগ্রস্ত : তথ্যমন্ত্রী

0


বিএনপিই বিকারগ্রস্ত -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১:
‘সরকার নয়, বিএনপিই বিকারগ্রস্ত এবং দুষ্কৃতিকারীদের পক্ষে’ বলেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টু রোডের বাসভবনে সীমিত পরিসরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্য ‘জোর করে ক্ষমতা ধরে রাখতে গিয়ে সরকার বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েছে এবং কল্পকাহিনী সাজিয়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা করছে’ এর প্রতি সাংবাদিকরা দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রী একথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সরকার নয়, বিএনপিই বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়েছে এবং এজন্য নানা উল্টাপাল্টা কথা বলছে। আপনারা দেখেছেন করোনার টিকা নিয়ে তারা কিভাবে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে, এখনও সেই অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, টিকা আসতে ছয়মাস লাগবে, অথচ আগামী মাসেই করোনার টিকা আসছে’ উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার অত্যন্ত দক্ষতার সাথে মহামারি মোকাবিলা করছে এবং একইসাথে মানুষের জীবিকা রক্ষার জন্যও কাজ করে যাচ্ছে।

এসময় মন্ত্রী আরো বলেন, ‘বিএনপি সবসময় দুষ্কৃতিকারীদের পক্ষ নেয়। তাদের নিজেদের দলে আগুনসন্ত্রাসী ও সন্ত্রাসী, যারা মানুষ ও মানুষের সহায়-সম্পত্তিতে আগুন দিয়েছে, তারা থাকার কারণেই বিএনপি দুষ্কৃতিকারী-সন্ত্রাসীদের পক্ষ নেয়।

শেখ জামাল ছিলেন দুঃসাহসী অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা

এদিন বক্তব্যের শুরুতেই আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ জাতির পিতার শহীদ দ্বিতীয় পুত্র শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন উপলক্ষে তার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, শেখ জামাল ছিলেন দুঃসাহসী অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা।

মন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, আমাদের নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় কন্যা শেখ রেহানা, কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের সঙ্গে শেখ জামালও গ্রেফতার হয়েছিলেন। তাদেরকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী অন্তরীণ করে রেখেছিল। সেখান থেকে দু:সাহসিকতার সাথে পালিয়ে ভারতে গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

এসময় ড. হাছান শহীদ শেখ জামালকে দেশের একজন দক্ষ সেনা অফিসার হিসেবে বর্ণনা করে বলেন, তিনি ছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লং কোর্সের প্রথম ব্যাচের কমিশন্ড অফিসার শেখ জামাল যুগোস্লাভিয়ার মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে ক্যাডেট হিসেবে প্রশিক্ষণ নেন। এরপর ব্রিটেনের স্যান্ডহার্স্ট অ্যাকাডেমি থেকে প্রশিক্ষণ শেষে দেশে ফিরে ঢাকা সেনানিবাসে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে যোগদান করেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালোরাত্রিতে ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে জাতির পিতা এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে শাহাদতবরণকারী শেখ জামালের বিদেহী আত্মার শান্তির জন্য আমরা কায়মনে প্রার্থনা করি।’

শব্দদূষণ মুক্ত থাকতে সবাইকে শব্দসচেতন হতে হবে

0

শব্দদূষণ মুক্ত থাকতে সবাইকে শব্দসচেতন হতে হবে।

  • আন্তর্জাতিক শব্দ সচেতনতা দিবসের অনুষ্ঠানে পরিবেশ মন্ত্রী।

ঢাকা, ২৮ এপ্রিল, বুধবারঃ
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন বলেছেন,
শব্দদূষণ থেকে মুক্ত থাকতে আমাদের প্রত্যেককে শব্দসচেতন হতে হবে। অপ্রয়োজনীয় শব্দ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। এলক্ষ্যে শিশুদেরকে শৈশব থেকেই শব্দসচেতন করে গড়ে তুলতে হবে। সকলে মিলেই নিরাপদ আবাস গড়ে তোলার মাধ্যমে আমরা গড়ে তুলব ‘শব্দদূষণমুক্ত পরিবেশ, শেষ হাসিনার বাংলাদেশ’ ।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) “Protect Your Hearing. Protect Your Health” প্রতিপাদ্য ধারণ করে আন্তর্জাতিক শব্দ সচেতনতা দিবস-২০২১ উদযাপন উপলক্ষ্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের “শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে সমন্বিত ও অংশীদারিত্বমূলক প্রকল্প” আয়োজিত ভার্চুয়াল কর্মশালায় ঢাকাস্থ সরকারি বাসভবন হতে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

পরিবেশ অধিদপ্তরের রুটিন দায়িত্বে নিয়োজিত মহাপরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব জিয়াউল হাসান এনডিসি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপচার্য প্রফেসর প্রাণ গোপাল দত্ত এবং সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মোঃ হুমায়ুন কবীর (যুগ্ম সচিব)। এছাড়াও কর্মশালায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, পুলিশ বিভাগ, পরিবহণ সেক্টর, সিটি কর্পোরেশন, বেসরকারী সংস্থা, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, গবেষক এবং গণমাধ্যমের প্রতিনিধিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, সরকার শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে আন্তরিকভাবে কাজ করছে। সচিবালয়ের চারপাশে নীরব এলাকা বাস্তবায়ন করতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশেন এর সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই গৃহীত পরিকল্পনা বাস্তাবায়ন করা হবে। বর্তমানে আগারগাঁও এলাকাসহ সকল (৯টি) সিটি কর্পোরেশনে “নীরব এলাকা” ঘোষণা করা হয়েছে যেখানে হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও প্রশাসনিক এলাকা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সকল নীরব এলাকা শব্দমুক্ত করার জন্য পরিবেশ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ পুলিশ, সিটি কর্পোরেশন, বিআরটিএসহ বিভিন্ন সংস্থা একসাথে কাজ করবে। প্রয়োজনে বিদ্যমান আইন পরিবর্তন করে নতুন আইন প্রবর্তন এবং কঠোরভাবে বিদ্যমান আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, ঢাকা শহর সহনীয় মাত্রার চেয়ে তিনগুন তীব্রতার শব্দদূষণে আক্রান্ত। এর ফলে প্রায় অর্ধ কোটি মানুষ স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। প্রতিনিয়ত অসচেতনতাবশত, অকারণেই ঘরে এবং ঘরের বাইরে শব্দদূষণ করা হচ্ছে। আবাসিক এলাকায় যানবাহনে অযাচিত হর্ণের ব্যবহার, নির্মাণ কাজে সৃষ্ট শব্দ, বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে মাইক/সাউন্ড বক্সের মাধ্যমে সৃষ্ট শব্দ দ্বারা প্রতিনিয়ত শব্দদূষণ হচ্ছে যা মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাত্রা ব্যহত করছে।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, উচ্চ শব্দ কম সময়ের জন্য হলেও তা শ্রবণ শক্তির জন্য ক্ষতিকর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ১.১ বিলিয়ন মানুষ (১২-৩৫ বছর বয়সী) অত্যধিক শব্দযুক্ত বিনোদনমূলক কর্মকাণ্ডের সাথে যুক্ত থাকার কারণে শ্রবণশক্তি হ্রাস হওয়ার ঝুঁকিতে রযেছে। মানসম্মত জীবন যাপনের লক্ষ্যে শব্দদূষণের বিভিন্ন ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে নিজে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি অন্যকেও সচেতন করতে সবাইকে আন্তরিক হওয়ার আহবান জানাই।


বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক সৈয়দ শাহজাহানের ইন্তেকালে তথ্যমন্ত্রীর শোক

0

বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক সৈয়দ শাহজাহানের ইন্তেকালে তথ্যমন্ত্রীর শোক

ঢাকা, বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১:
বাংলাদেশের প্রথম উপরাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের প্রেস সচিব, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীণ সাংবাদিক সৈয়দ শাহজাহানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) বিকেলে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭৮ বছর বয়সে এই নিবেদিতপ্রাণ সাংবাদিকের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগের সংবাদে তথ্যমন্ত্রী প্রয়াতের আত্মার শান্তিকামনা করেন এবং তার শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। মৃত্যুকালে সৈয়দ শাহজাহান তার স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্রসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

ড. হাছান মাহমুদ তার শোকবার্তায় দৈনিক ইত্তেফাকের সাবেক প্রধান প্রতিবেদক সৈয়দ শাহজাহানকে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, দক্ষ জনসংযোগ কর্মকর্তা এবং অনন্য সাংবাদিক হিসেবে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। মন্ত্রী বলেন, দেশ ও গণমাধ্যমের জন্য সৈয়দ শাহজাহানের ভালোবাসা তাকে স্মরণীয় করে রেখেছে।

স্বাক্ষরিত/-
-মীর আকরাম উদ্দীন আহম্মদ/ পরিচালক-তথ্য ও জনসংযোগ/
nijhum77@yahoo.com

ডিজিটাল লার্নিং এ দক্ষতা অর্জনকারী গ্রাজুয়েটদের কাজের সুযোগ করে দিতে হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

0

কমনওয়েল্থ অফ লার্নিং এশিয়ান কনভোকেশন-২০২১ এ
কমনওয়েল্থ দেশগুলোর দক্ষ গ্রাজুয়েটদের
কাজের সুযোগ করে দিতে হবে

ঢাকা ঃ ১৪ বৈশাখ (২৭ এপ্রিল,২০২১) ঃ
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, এমপি বলেছেন, কমনওয়েল্থ ডিজিটাল লার্নিং এ দক্ষতা অর্জনকারী গ্রাজুয়েটদের কাজের সুযোগ করে দিতে হবে। চলমান প্রতিযোগিতা মূলক বিশ্ববাণিজ্য ডিজিটাল হয়েছে, সর্বক্ষেত্রে অটোমেশন চালু হয়েছে, এখন দক্ষতা অর্জনের বিকল্প নেই। ই-কমার্স, ডাটা এনালাইসিস, ই-ফামির্ং, ই-এগ্রিকালচার বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। এজন্য কারিগরি দক্ষতা খুবই প্রয়োজন। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উঠে আসা দক্ষ জনশক্তিকে আমাদের কাজের লাগাতে হবে। এতে করে কমনওয়েলথ ভুক্ত দেশগুলো উপকৃত হবে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, কমনওয়েল্থভুক্ত ৫৪টি দেশের দক্ষ জনশক্তি তৈরীতে অনলাইনে প্রশিক্ষণ বিপুল সম্ভাবনার সৃষ্টি করেছে। কমনওয়েল্থভুক্ত দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের বিশ্বের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় ও ট্রেনিং ইনস্টিটিউট গুলোতে শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে। এ সুুযোগকে যথাযথ ভাবে কাজে লাগাতে হবে। ডিজিটাল ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন এবং ইন্টার পার্টনারশিপের মাধ্যমে তা কাজে লাগানো প্রয়োজন। কমনওয়েল্থ ডিজিটাল লার্নিং প্লাটফর্ম এ অনলাইন ট্রেনিং, করোনা কালে এবং পরবর্তী সময়ে কমনওয়েল্থ ভুক্ত দেশগুলো বেকার জনবলকে কাজের সুযোগ সৃষ্টি করে দিতে হবে। কমনওয়েল্থ রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের আসন্ন মিটিং-এ উল্লিখিত বিষয়ে একটি প্রস্তাবনা বিবেচনার জন্য উপস্থাপন করা যেতে পারে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ (২৭ এপ্রিল) ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে কমনওয়েল্থ অফ লানির্ং এশিয়ান কনভোকেশন-২০২১ এ বিশেষ বক্তার বক্তব্য প্রদানের সময় এসব কথা বলেন। কনভোকেশনের অপর বিশেষ বক্তার বক্তব্য রাখেন মালদ্বীপের হায়ার এডিউকেশন মিনিস্টার ড. ইব্রাহিম হাসান (উৎ. ওনৎধযরস ঐধংংধহ), শ্রীলংকার শিক্ষামন্ত্রী প্রফেসর জি এল পেইরিস (চৎড়ভবংংড়ৎ এ খ চবরৎরং)।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ সকল ক্ষেত্রে দ্রুততার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন দৃশ্যমান। অতি সম্প্রতি জাতিসংঘ বাংলাদেশকে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত করনের জন্য চুড়ান্ত ভাবে সুপারিশ প্রদাণ করেছে। চলমান মহামারি কোভিড-১৯ এর কারনে নানামুখি চ্যালেঞ্জ সফলভাবে মোকাবেলা করে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এ মহুর্তে কমনওয়েল্থভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোতিা বৃদ্ধি এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে একযোগে। বাংলাদেশসহ সবদেশের কমনওয়েল্থ কোর্স গ্রাজুয়েটদের স্বাগত জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, আন্তরিকতার সাথে দক্ষতা অর্জন করে তা কর্মক্ষেত্রে সফলভাবে কাজে লাগাতে হবে এবং ডিজিটাল সেক্টরে কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে নিজেকে একজন দক্ষ উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, কমনওর্য়েথ অফ লার্নিং এর স্পেশাল এডভাইজার ড. নাভিদ মালিক (উৎ. ঘধাববফ গধরষশ)। অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন কুরসিরার চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার জেফ মেগিঅনকলডা (ঔবভভ গধমমরড়হপধষফধ), কনভেকেশন বক্তব্য রাখেন কমনওয়েল্থ অফ লার্নিং এর প্রেসিডেন্ট এন্ড চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার প্রফেসর আশা কানওয়ার (চৎড়ভবংংড়ৎ অংযধ কধহধিৎ) এবং অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন কমনওয়েল্থ অফ লার্নিং এর এডভাইজার (স্কিল) ড. বাশিরহামাদ শাধরাচ ( উৎ. ইধংযববৎযধসধফ ঝযধফৎধপয)।

স্বাক্ষরিত
২৭/০৪/২০২১
(মো. আব্দুল লতিফ বকসী )
সিনিয়র তথ্য অফিসার ও জনসংযোগকর্মকর্তা
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়
মোবা. ০১৭১১-১৬৫ ৮৮০,
ষধঃরভ.নধশংযর@মসধরষ.পড়স

ফের বেড়েছে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম

0

করোনা আবহে গত বছর স্বর্ণের দাম তুমুল বৃদ্ধি পেয়েছিল। এ বছরও দামের গতি উথাল-পাতাল লক্ষ করা যাচ্ছে। বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম বেড়ে সাত সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে। প্রতি আউন্সের দাম হয়েছে এক হাহার ৭৭৮ ডলার।

এপ্রিলের শুরুতে স্বর্ণের দাম প্রায় এক বছরের সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু বিশ্ববাজারে হলুদ ধাতুর দাম এবং ডলার-টাকার দামের ভিত্তিতে গত সপ্তাহে ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে স্বর্ণ।

বিশ্লেষকদের মতে, স্বর্ণের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার মূল কারণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রভাব। যুক্তরাষ্ট্রের ১০ বছর মেয়াদি বন্ডের ইল্ড কমায় এর দাম বেড়ে গেছে। ফলে বন্ডে মানুষের আগ্রহ কমছে। সেই সঙ্গে অন্য অনেক মুদ্রার বিপরীতের ডলারের দর কমে গেছে। এতে স্বর্ণের দামে প্রভাব পড়েছে। এ ছাড়া স্বর্ণের দামে প্রচ্ছন্ন একটি প্রভাব ফেলেছে চীন।

করোনা মহামারির ফলে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর বাজারে নগদের পরিমাণ বাড়াচ্ছে। সেই সঙ্গে যোগ হচ্ছে আঞ্চলিক টানাপোড়েন, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্যিক টানাপোড়েন এবং বিশ্ববাজারে অনিশ্চয়তার ফলে দাম বাড়ছে সোনার।

রয়টার্স জানিয়েছে, বিশ্বের বৃহত্তম স্বর্ণের গ্রাহক চীন তার দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক ব্যাংকগুলোকে প্রচুর পরিমাণে স্বর্ণ আমদানির অনুমতি দিয়েছে। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে মূল্যস্ফীতির শঙ্কায়ও স্বর্ণের দাম বাড়িয়েছে।

বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির প্রতি জনগনের কোন আস্থা নেই: ওবায়দুল কাদের

0

২৭ এপ্রিল ২০২১

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের রাজনীতির মূল মন্ত্র ছিলো সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়ন করা।

তিনি শেরে বাংলা একে ফজলুল হক অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী ছিলেন বলেও জানান।

ওবায়দুল কাদের আজ সকালে শেরে বাংলা একে ফজলুল হকের ৫৯ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর সমাধিস্থলে আওয়ামী লীগের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এসব কথা বলেন।া

ক্ষমতায় গেলে অনেকেই জনগণের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য কাজ করেন না,তবে শেরে বাংলা ও বঙ্গবন্ধু ছিলেন ব্যতিক্রম উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন তাদের পথ অনুসরণ করেই বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একই কাজ করে যাচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এখন সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে দিবারাত্রি পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

পৃথিবীব্যাপী যে করোনা মহামারী চলছে, তা বাংলাদেশেও আঘাত এনেছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসম সাহসী নেতৃত্বে পরিস্থিতি মোকাবেলা করে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

তিনি করোনার এই দিনে ঘরে ঘরে সচেতনতার দুর্গ গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে বলেন দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপির কাছে এখন কোনো ইস্যু নেই, তারা আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ, তাই একটি দায়িত্বশীল বিরোধী দল হিসেবে ব্যর্থতার দায়ে তাদের টপ টু বটম পদত্যাগ করা উচিত।

বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির প্রতি জনগনের কোন আস্থা নেই বলে মনে করে ওবায়দুল কাদের বলেন সে কারণে আজ বিএনপি নিজের দলকে চাঙা রাখতে যখন যা খুশি তাই বলে যাচ্ছে, তাদের রাজনীতি হচ্ছে সরকার বিরোধিতার নামে অন্ধ সমালোচনা করা।

মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে টিসিবি’র ন্যায্যমূল্যের পণ্য পৌঁছে দিবে ই-কমার্স

0

টিসিবি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্টানে বাণিজ্যমন্ত্রী
মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে টিসিবি’র ন্যায্যমূল্যের
পণ্য পৌঁছে দিবে ই-কমার্স
ঢাকা ঃ ১৩ বৈশাখ (২৬ এপ্রিল,২০২১) ঃ
বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্শি, এমপি বলেছেন, দেশের মধ্যবিত্ত মানুষের ঘরে টিসিবি’র ন্যায্যমূল্যের পণ্য পৌঁছে দিবে ই-কমার্স। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশ(টিসিবি) ট্রাক সেলের মাধ্যমে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ন্যায্যমূল্যে দেশব্যাপী বিক্রয় করছে। মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ যাতে এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত না হয়, সেজন্য সরকার ই-কমার্সের সহযোগিতায় ভোজ্য তেল, সোলা, চিনি এবং ডাল এ চারটি পণ্য বিক্রয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। ২০০৯ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ উপহার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেশ পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করেছিলেন। আজ ডিজিটাল সুবিধা ভোগ করছে দেশের মানুষ। ই-কমার্স খুব কম সময়ের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, গত বছর প্রায় ১৬ হাজার কোটি টাকার বাণিজ্য হয়েছে অন-লাইনে। সরকার ই-কমার্সকে সহযোগিতা করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে। ই-কমার্সে নিয়োজিত জনবলকে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য এবং স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে সরকার প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। মানুষ যাতে প্রতারিত না হয় এবং ঘরে বসে ই-কমার্সের সুবিধা ভোগ করতে পারে। চলমান ই-বাণিজ্যে যে সকল ভুলক্রুটি ধরা পরছে, সেগুলো যাতে পুনঃরায় না ঘটে, সে বিষয়ে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে। চলমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে ই-কমার্সের জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী আজ (২৬ এপ্রিল) ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশ (টিসিবি) এর সহযোগিতায় ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশন(ই-ক্যাব) আয়োজিত “মাহে রমযানে ঘরে বসে স্বস্তির বাজার” কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, টিসিবি’র ন্যায্য মূল্যের পণ্য মধ্যবিত্তের ঘরে পৌছে দেয়ার জন্য ই-কমাসের সহযোগিতা নিয়েছে। বিগত দিনে পেঁয়াজ ও আম বিক্রয়ের ক্ষেত্রে দেশের মানুষ সুফল পেয়েছে। আশা করা যায়, মানুষ ই-কমার্সের প্রতি আস্থাশীল হবেন। যাতে সুশৃঙ্খল ভাবে ই-বাণিজ্য দেশে প্রসার লাভ করতে পারে। ই-কমার্সের কর্মীরা জীবনের ঝুকি নিয়ে ঘরে ঘরে পণ্য পৌছে দিচ্ছে। এটি একটি মহতি ও প্রশংসনীয় কাজ। এ বিপদের সময় মানুষ ঘরে বসে পণ্য ক্রয়ের সুযোগ পাচ্ছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে, আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি বঙ্গবন্ধুর স্বপেরœ সোনার বাংলা গড়ার জন্য। ডিজিটাল বাংলাদেশের সুবিধা মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

উল্লেখ্য, ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত (ই-ক্যাব) ডিজিটাল হাট ডট নেট এর ৮টি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ন্যায্য মূল্যে দেশের মধ্যবিত্ত মানুষের সুবিধার্থে অন-লাইনে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় করছে। আজ থেকে সপ্তাহব্যাপী অর্থাৎ আগামী ৬ মে পর্যন্ত ভোজ্য তেল, সোলা, চিনি এবং ডাল এ চারটি পণ্য বিক্রয় শুরু করেছে। ভোজ্য তেল প্রতিলিটার ১০৮ টাকা এবং চিনি, সোলা এবং ডাল ৫৮ টাকা দরে বিক্রয় করছে। একজন ক্রেতা সপ্তাাহে ৫ লিটার তেল এবং ৩ কেজি করে চিনি, সোলা, ডাল ক্রয়ের সুযোগ পাবেন। ডেলিভারি চার্জ সর্ব্বোচ্চ ঢাকা শহরে ৩০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ঢাকা, টাঙ্গাইল ও সিরাজগঞ্জ জেলায় এ সকল পণ্য বিক্রয় শুরু হয়েছে।

ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন। সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রণারয়ের অতিরিক্ত সচিব, ডব্লিউটিও সেলের মহাপরিচালক মো. হাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব (আমদানি ও অভ্যন্তরিন বাণিজ্য) এএইচএম শফিকুজ্জামান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন টিসিবি’র পরিচালক(যুগ্ম সচিব) মইন উদ্দিন আহমেদ, ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক জিয়া আশরাফ, স্বপ্ন অন-লাইনের পরিচালক শাহেদুল ইসলাম, চালডাল ডট কম এর পরিচালক ইশরাত জাহান নাবিলা এবং ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশন এর সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল ওয়াহেদ তমাল।

মেধাসম্পদ নীতিমালা ২০১৮ প্রণয়ন করা হয়েছে- সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

0

ঢাকা (২৬ এপ্রিল, ২০২১):

জাতীয় উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়নে অর্থবহ অবদান নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যেই মেধাসম্পদ নীতিমালা ২০১৮ প্রণয়ন করা হয়েছে- সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় প্রবেশ করেছে। একটি স্বনির্ভর, উন্নত ও টেকসই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিসহ সকল ক্ষেত্রেই মেধার বিকাশ নিশ্চিতকরণ ও মেধাস্বত্ব সংরক্ষণের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক জাতীয় উদ্ভাবন ও মেধাসম্পদ নীতিমালা ২০১৮ প্রণয়ন করা হয়েছে। জাতীয় উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়নে অর্থবহ অবদান নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই এ নীতিমালা প্রণয়ন করা করেছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ দুপুরে ‘বিশ্ব মেধাস্বত্ব দিবস ২০২১’ উপলক্ষে
Intellectual Property Association Bangladesh (IPAB) আয়োজিত “IP & SMEs: Taking ideas for achieving SDGs” শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, ‘জাতীয় উদ্ভাবন ও মেধাসম্পদ নীতিমালা ২০১৮’ প্রণয়নে বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা, নীতিমালা, কৌশল, আইন ও বাংলাদেশের সাথে সম্পৃক্ত আন্তর্জাতিক চুক্তিসমূহ বিবেচনায় আনা হয়েছে।নীতিমালাটিতে মেধাসম্পদ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং উদ্ভাবন ও সৃজনশীলতা উৎসাহিতকরণের জন্য প্রয়োজনীয় কর্মপরিকল্পনা ও কৌশল নির্ধারণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, জাতীয় মেধাসম্পদ নীতিমালা ২০১৮ বাস্তবায়নের জন্য যেসব সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ করা হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- মেধাসম্পদ অধিকার ব্যবস্থাপনা আধুনিকীকরণের জন্য বর্তমানে বিদ্যমান মেধাসম্পদ সম্পর্কিত অফিসগুলোতে (পেটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস) স্বয়ংক্রিয় সার্ভিস পদ্ধতি চালুর মাধ্যমে অফিসগুলোর স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সেবার মান উন্নয়ন করা; বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেমন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং অন্যান্য সরকারি ও বেসরকারি গবেষণা, উন্নয়ন এবং উদ্ভাবনী কেন্দ্রের মাধ্যমে মেধাসম্পদ সম্পর্কিত শিক্ষার প্রসার ঘটানো; মেধাসম্পদজনিত আউটরিচ প্রোগ্রাম চালু করা; মেধাসম্পদ সম্পর্কিত সরকারি-বেসরকারি অফিসসমূহের সাংগঠনিক কাঠামোর পুনর্বিন্যাস করা, আইপি অফিসসমূহে স্বয়ংক্রিয় ই-সার্ভিস চালু করা, ন্যাশনাল আইপি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা, মেধাসম্পদ ফান্ড গঠন, মেধাসম্পদ কৃষ্টির প্রসার ইত্যাদি।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, কপিরাইট ও মেধাসম্পদ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক ইতোমধ্যে জাতীয় প্রয়োজন ও আধুনিক সতত পরিবর্তনশীল বিশ্বব্যবস্থার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কপিরাইট আইন ২০২১ এর চূড়ান্ত খসড়া প্রণয়নপূর্বক মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, মেধাসম্পদের স্বীকৃতি, সংরক্ষণ ও সুরক্ষার জন্য আইনে প্রয়োজনীয় সবকিছুই সন্নিবেশিত করা হয়েছে।

কে এম খালিদ বলেন, কাজের স্বীকৃতি, নিশ্চয়তা ও পরিবেশ সৃষ্টির জন্য এ বিশ্ব মেধাস্বত্ব দিবস পালিত হচ্ছে। এ আয়োজন আমাদের সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে আমাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে, কর্মের পরিধি সুনির্দিষ্টভাবে নির্ধারণপূর্বক কর্মক্ষেত্রকে আরো প্রসারিত করবে মর্মে তিনি এসময় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তাছাড়া আয়োজকদের এ সময়োপযোগী ওয়েবিনার আয়োজনের জন্য তিনি আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

Intellectual Property Association (IPAB) এর সভাপতি শামসুল আলম মল্লিক এফসিএ’র সভাপতিত্বে ওয়েবিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব কেএম আলী আজম ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. বদরুল আরেফীন। সম্মানীয় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই এর সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সচিব) শরীফা খান। সেমিনারে আলোচনা করেন IPAB এর মহপরিচালক মো. আজিজুর রহমান, পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্ক অধিদপ্তরের রেজিস্ট্রার মো. আব্দুস সাত্তার এবং কপিরাইট অফিসের রেজিস্ট্রার জাফর রাজা চৌধুরী।

প্যানেলিস্ট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই এর সাবেক পরিচালক গোলাম মাইনুদ্দিন, সাবেক সিনিয়র সচিব এম শহীদুল হক, BAC International এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. এম হারুনুর রশীদ, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো’র সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জালাল আহমেদ, অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক (এপিবিএন) মোশাররফ হোসেন বিপিএম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য ড. মো. শহীদুল ইসলাম, এটুআই এর প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মো. আবদুল মান্নান ও বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি শহিদ উল মুনীর। ওয়েবিনারটি সঞ্চালনা করেন সাবেক সচিব কে এইচ মাসুদ সিদ্দিকী।

উল্লেখ্য, বিশ্ব মেধাস্বত্ব দিবস ২০২১ এর প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- “IP & SMEs: Taking your ideas to market.” এ প্রতিপাদ্যের সাথে মিল রেখে Intellectual Property Association Bangladesh (IPAB) আয়োজিত ওয়েবিনারের নাম রাখা হয়েছে- “IP & SMEs: Taking ideas for achieving SDGs.”

ধর্ম ব্যবসায়ীরা করোনাভাইরাসের চেয়েও ভয়ংকর: নাছিম

0

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, এদেশের ধর্ম ব্যবসায়ী ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী অশক্তি যারা, তারা বাংলাদেশের মানুষের ভালো চায় না। এরা করোনাভাইরাসের চেয়েও ভয়ংকর। 

তিনি বলেন, ধর্ম ব্যবসায়ীদের হাত থেকে দেশ ও দেশের মানুষকে রক্ষা করার জন্য অপশক্তিকে রুখে দিতে হবে। 

সোমবার বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বালেন্দা গ্রামে ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ প্রতিকৃতির ধান কাটা উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, এদেশের ধর্ম ব্যবসায়ী, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী অশক্তিকে আদর্শিক ও নৈতিক চিন্তা-চেতনার মধ্যে দিয়ে মোকাবিলা করা হবে। এ ধর্ম ব্যবসায়ীরাই অশুভশক্তি। এরাই মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছিল এবং ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। এরাই সাম্প্রদায়িকতার মূলে থেকে দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করে ও তরুণ সমাজকে বিপদগ্রস্ত করছে। ধর্মকে কাজে লাগিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বাধাগ্রস্থ করছে।

তিনি বলেন, তারা কখনো বিএনপি, কখনো জামায়াত, কখনো শিবির আবার এখন হেফাজত ইসলামের নামে ফয়দা লুটার চেষ্টা করছে। ধর্মকে ব্যবহার করে এ হেফাজতিরা বিরাজনীতিকরণের মাধ্যমে রাজনৈতিক ফয়দা লুটার চেষ্টা করছে। হেফাজতে ইসলামের নামে যারা সরকারের বিরোধীতা করছেন, তারা মূলত জামাত-বিএনপির হেফাজতকারী। এরা ইসলামের হেফাজতকারী নয়। আমাদের লড়াই হচ্ছে এ অশক্তির বিরুদ্ধে। এ হেফাজতিরা তারেক রহমানের এজেন্ডা বাস্তবায়ন নিয়ে ব্যস্ত। এ অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। 

হেফাজতকে প্রতিহত করার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, এ প্রতিক্রিয়াশীল অশক্তির বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ আছি। এ ধর্মব্যবসায়ীদের হাত থেকে আমরা বাংলাদেশকে রক্ষা করবো। তারা যে নামেই আসুক না কেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিঘ্ন ঘটাতে দেব না। যেকোনো মূল্যে আমরা তাদের প্রতিহত করবো।

ধান কাটা উৎসবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, উদ্বোধন করেন ‘শষ্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ জাতীয় পরিষদের আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, কৃষকলীগের সভাপতি কৃষিবিদ সমীর চন্দ। সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ, সহ-সভাপতি ম. আব্দুর রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

‘মহামারির মধ্যে যারা দুষ্কর্ম করে তাদের কি গ্রেফতার করা যাবে না?’ -বিএনপিকে প্রশ্ন তথ্যমন্ত্রীর

0

ঢাকা, সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১:
করোনা মহামারির মধ্যে হেফাজত নেতাদের গ্রেফতার না করতে বিএনপি মহাসচিবের দাবির জবাবে ‘মহামারির মধ্যে যারা দুষ্কর্ম করে, তাদের কি গ্রেফতার করা যাবে না?’ বলে প্রশ্ন রেখেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

সোমবার দুপুরে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটির পক্ষ থেকে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য ও বিভিন্ন গণমাধ্যম সংস্থার প্রতিনিধিদের মাঝে করোনাসুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই প্রশ্ন রাখেন তিনি।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘এই করোনা মহামারির মধ্যে একটি উগ্রবাদী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির অপচেষ্টা চালিয়েছিল। আর অত্যন্ত দু:খজনক হলেও সত্য, তাদের পক্ষে বিবৃতি দিচ্ছেন বিএনপি মহাসচিব।’

‘যারা নিরীহ মানুষের ঘরবাড়ি, সহায়-সম্পত্তি, যানবাহন জ্বালিয়ে দেয়, ভূমি অফিসে আগুন দিয়ে সাধারণ মানুষের জমির দলিলপত্র পোড়ায়, ফায়ার-রেল-পুলিশ স্টেশনে হামলা করে, ঐতিহ্য-পুরাকীর্তি বিনষ্ট করে, অন্য ধর্মের উপাসনালয়ে আক্রমণ করে, তাদের কি গ্রেফতার করা যাবে না! তাদের বিরুদ্ধে কি দেশের ফৌজদারি আইন অকার্যকর করে দিতে হবে?’ প্রশ্ন রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

করোনা মহামারির মধ্যে অন্য কোনো রাজনৈতিক দল নয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই যে একমাত্র পুরোটা সময়জুড়ে জনগণের পাশে আছে, সেটা গণমাধ্যমে চোখ রাখলেই দেখা যায় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, শুধু তাই নয়, আওয়ামী লীগের কর্মীরা কৃষকের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান এসময় মহামারির মধ্যে প্রাণের মায়া তুচ্ছ করে অক্লান্ত কাজ করে যাওয়া গণমাধ্যমকর্মীদের ভূয়সী প্রশংসা করেন, আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীকে স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী সরবরাহের জন্য ও এগুলো বিতরণের উদ্যোগের জন্য ডিইউজে নেতৃবৃন্দকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

সেইসাথে তিনি বলেন, ‘করোনাকালে ব্যবসায় মন্দার অজুহাতে গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানে সাংবাদিকদের চাকরিচ্যুতি অত্যন্ত দু:খজনক, অনভিপ্রেত ও আমার কাছে অগ্রহণযোগ্য। সম্প্রতি যেখানে চাকরিচ্যুতি হয়েছে, সেগুলো নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে এবং সাংবাদিক ইউনিয়নগুলো চেষ্টা করছে। আশা করবো, যাদেরকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে তাদেরকে পুণর্বহাল করার দিকেই কর্তৃপক্ষ যাবে, এই আমার প্রত্যাশা।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল এবং দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত।

পত্রিকা, টিভি, বেতার, অনলাইন গণমাধ্যমসহ প্রায় ৭০টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠানে অতিথিদের হাত থেকে করোনাসুরক্ষা সামগ্রী গ্রহণ করেন।

https://youtu.be/COsVDSklIsA

আম সম্পর্কে দশটি তথ্য

0

আমের মৌসুম চলছে এখন। রসালো, একে ফলের রাজা বলা হয়। মিয়ানমার, বাংলাদেশ ও ভারতের উত্তরপূর্ব এলাকায় সেই প্রাচীন কাল থেকে আম চাষ হচ্ছে। প্রায় ৫ হাজার বছর আগে উপমহাদেশে আমের চাষ শুরু হয়।

জানা যায়, বিশ্বজয়ী আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট আমাদের উপমহাদেশে এসে আম খেয়ে এর মিষ্টি স্বাদে মুগ্ধ হয়ে যান। পরে গ্রিসে ফিরে যাওয়ার সময় সঙ্গে করে প্রচুর আম নিয়ে যান তিনি। চীনা পর্যটক হিউয়েন সাং ছয় শতকে তৎকালীন বাংলাদেশে ভ্রমণে এসে আম খেয়ে মুগ্ধ হন। তার মাধ্যমে বিশ্ববাসী আম সম্পর্কে জানতে পারে। কালের বিবর্তনে এখন নানা জাতের আম চাষ হয় বিশ্বজুড়ে। আমাদের দেশে কয়েক শ’ জাতের আমচাষ করা হয়।

হিমসাগর, আম্রপালি, ল্যাংড়া, হাড়িভাঙ্গা, গোপালভোগের মতো বেশকিছু জাতের আম খুব জনপ্রিয়। সুমিষ্ট এই ফল নিয়ে কয়েকটি তথ্য নিচে উল্লেখ করা হলো-

১। আম ভারত, পাকিস্তান ও ফিলিপাইন এই তিনটি দেশের জাতীয় ফল। আর আম গাছ বাংলাদেশের জাতীয় গাছ।

২। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আম উৎপাদন হয় ভারতে। বছরে প্রায় ২৫ মিলিয়ন টন উৎপাদন করে দেশটি। দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে আছে ইন্দোনেশিয়া ও চীন।
৩। মধ্য ভারতের খানদেশ এলাকায় বিশ্বের সবচেয়ে পুরোনো একটি আম গাছ আছে। প্রায় ৩০০ বছর পুরোনো এই গাছে এখনো আম দেখা যায়।

৪। আমের স্বাদ নির্ভর করে এতে থাকা টারপিন, ফিউরানোন, ল্যাকটোন ও অ্যাস্টারের মতো রাসায়নিক উপাদানের উপস্থিতিতে।

৫। গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের তথ্যমতে, বিশ্বের সবচেয়ে বড় আমটি ২০০৯ সালে উৎপন্ন হয় ফিলিপাইনের এক বাগানে। আমটির ওজন ছিল প্রায় সাড়ে তিন কেজি, সেটি ছিল এক ফুট লম্বা।

৬। আম গাছের নিচে গৌতম বুদ্ধ ধ্যানমগ্ন হয়েছিলেন বলে এই গাছ বৌদ্ধদের কাছে খুব পবিত্র।

৭। মোগল সাম্রাজ্যে আম শুধুমাত্র রাজ পরিবারের বাগানেই চাষ করার অনুমতি ছিল। তারপর সম্রাট শাহজাহান রাজ পরিবারের বাইরে আমের চাষ করার অনুমতি দেন বলে জানা যায়।

৮। ভারতে ঝুড়ি ভরা আম উপহার দেয়া ভালোবাসা ও বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হয়।

৯। ‘এ হিস্টোরিক্যাল ডিকশনারি অব ইন্ডিয়ান ফুড’ বই অনুসারে পর্তুগীজরা প্রথম আমের চাষ শুরু করে। তারপর তারা ফেরত যাওয়ার সময় আমের বীজ সংগ্রহ করে নিয়ে যায় এবং বিভিন্ন দেশে তা ছড়িয়ে দেয়। এভাবেই দেশে বিদেশে আমের ফলন শুরু হয়।

১০। দক্ষিণ ভারতে তামিল ভাষায় আমকে আম-কায় নামে অভিহিত করা হতো। পরবর্তীকালে তা মাম-কায় নামে পরিচিত হয়। তারপর তার নাম হয় মাঙ্গা। পর্তুগীজরা শেষমেশ ‘ম্যাঙ্গো’ নামকরণ করে যা পরবর্তীকালে বিখ্যাত হয়।

বৈশ্বিক ভ্রমণ ও পর্যটন সূচকে বাংলাদেশের তিন ধাপ উন্নতি

0

বৈশ্বিক ভ্রমণ ও পর্যটন সূচকে ৩ ধাপ উন্নতি ঘটেছে বাংলাদেশের। আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম-ডব্লিউইএফের তৈরি সূচকে বিশ্বের ১শ’ ১৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশর অবস্থান ১০০ তম।

দা ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্স: রিবিল্ডিং ফর এ সাসটেইনেবল অ্যান্ড রিজিলিয়েন্ট ফিউচার- এ এই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ভ্রমণ ও পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন, টেকসই ব্যবস্থা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিস্থাপকতার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা এই সূচকে বাংলাদেশের উন্নতি ঘটলেও প্রতিবেশী ভারতের ৮ ধাপ অবনতি ঘটেছে। সূচকে সবার শীর্ষে রয়েছে জাপান। শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, ফ্রান্স, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং যুক্তরাজ্য। তবে এবারের সূচকে আফগানিস্তান, ভূটান এবং মালদ্বীপ জায়গা পায়নি।

গত বছরের শীর্ষ দশে বেশ পরিবর্তন হয়েছে। যেমন, যুক্তরাজ্য পাঁচ ধাপ পিছিয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারতের অবস্থান ৫৪তম। গতবারের তালিকায় দেশটির অবস্থান ছিল ৪৬তম। অর্থাৎ ৮ ধাপ পিছিয়েছে। ছয় ধাপ এগিয়ে পাকিস্তানের অবস্থান ৮৩তম। ২০১৯ সালে ছিল ৮৯তম। এছাড়া নেপালের অবস্থান ১০২তম। দেশটি গতবারের সূচকেও একই অবস্থানে ছিল।

প্রতিবেদনে করোনাভাইরাস মহামারি ধাক্কার পর বৈশ্বিক ভ্রমণ ও পর্যটন খাতের পুনরুদ্ধারের তথ্য উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, এ খাতে পুনরুদ্ধার হলেও গতি মন্থর এবং অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। সূচকে ১১৭টি দেশের ভ্রমণ ও পর্যটন খাতে টেকসই ও স্থিতিশীল প্রবৃদ্ধি চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের এভিয়েশন, ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের প্রধান লরেন আপপিঙ্ক বলেন, ‘কোভিড-১৯ লকডাউন শিথিলের পর বিশ্বজুড়ে অনেক দেশ ভ্রমণ ও পর্যটন খাতে বেশ জোর দিয়েছে। আগামী দিনে ভ্রমণ ও পর্যটন খাতে অবশ্যই একটি শক্তিশালী এবং স্থিতিশীল পরিবেশ তৈরিতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। যদিও সামগ্রিক আন্তর্জাতিক পর্যটন এবং ব্যবসায়িক ভ্রমণ এখনো প্রাক-মহামারি স্তরের নিচে রয়েছে।

এবারের বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের আলোচনার টেবিলে পর্যটনের চারটি দিক গুরুত্ব পাচ্ছে। এগুলো হলো প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক সম্পদ, বিমান পরিবহণ পরিকাঠামো, জাতীয় ভ্রমণ ও পর্যটন নীতি এবং উপযুক্ত পরিবেশ (নিরাপত্তা থেকে শুরু করে শ্রমবাজারের স্বাস্থ্যবিধি)।

বিমান পরিবহণ অবকাঠামো, নিরাপত্তা, সংস্কৃতি, বাসস্থান, টাকার মান ও স্থিতিশীল ভ্রমণের সুযোগসহ ৯০টি মানদণ্ড বিবেচনা করে ১১৭ দেশের র‌্যাংকিং করা হয়েছে। তালিকার একেবারের তলানিতে আছে চাদ। এরপর আছে ইয়েমেন, মালি, সিয়েরা লিওন, অ্যাঙ্গোলা, ক্যামেরুন, লেসেথো, নাইজেরিয়া, মালাউ ও ভেনিজুয়েলা।

চালের উৎপাদন বাড়াতে আহ্বান করেছেন কৃষিমন্ত্রী

0

চালের উৎপাদন বাড়াতে বিজ্ঞানী, সম্প্রসারণকর্মী ও কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।

(৩০ জানুয়ারি, রবিবার) সচিবালয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।
কৃষিমন্ত্রী বলেন, রেকর্ড উৎপাদন ও সর্বকালের সর্বোচ্চ সরকারি মজুদ থাকার পরেও দেশে চালের দাম নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। চাল আমাদের প্রধান খাদ্য। যেকোনো মূল্যে চালের উৎপাদন আমাদের বাড়াতে হবে। এ অবস্থায়, হাওর, উপকূলসহ প্রতিকূল এলাকায় ধানের চাষ সম্প্রসারণ এবং নতুন উদ্ভাবিত উচ্চ উৎপাদনশীল জাতগুলোকে দ্রুত মাঠে নিয়ে যেতে হবে। বিজ্ঞানী, সম্প্রসারণকর্মীসহ সব কর্মকর্তাদের সমন্বিত ও নিবিড়ভাবে কাজ করতে হবে।
সভায় জানানো হয়, চলমান ২০২১-২২ অর্থবছরে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের সংখ্যা ৭১টি। মোট বরাদ্দ ২ হাজার ৯২৮ কোটি টাকা। ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত বাস্তবায়ন অগ্রগতি হয়েছে প্রায় ৩২শতাংশ, যা জাতীয় গড় অগ্রগতিরে চেয়ে ৮ শতাংশ বেশি। এ সময়ে জাতীয় গড় অগ্রগতি হয়েছে ২৪শতাংশ।
সভায় মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মো. আবদুর বউফ, কমলারঞ্জন দাশ, মো. রুহুল আমিন তালুকদার, বলাই কৃষ্ণ হাজরা, আব্দুল্লাহ সাজ্জাদ, অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সংস্থাপ্রধান ও প্রকল্প পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

Mission Impossible – মিশন ইম্পসিবল সমাচার

0

মিশন: ইম্পসিবল, আমেরিকান অ্যাকশন স্পাই ফিল্ম সিরিজ এবং ব্রুস গেলারের তৈরি একই নামের টেলিভিশন সিরিজ থেকে একটি ফলো-অন। সিরিজটি প্রধানত টম ক্রুজ প্রযোজনা করেছেন এবং অভিনয় করেছেন, তার চরিত্র ইথান হান্ট, ইম্পসিবল মিশন ফোর্সের একজন এজেন্ট।
এ পর্যন্ত এই সিরিজের ছয়টি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছেঃ

Mission: Impossible-1996 (মিশনঃ ইম্পসিবল-১৯৯৬)
ইথান হান্ট, একজন আমেরিকান বিশেষ IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্স) এজেন্ট, তাকে নির্দোষ প্রমাণ করতে এবং প্রকৃত অপরাধীকে ধরার জন্য সংগ্রাম করে যখন তার বিরুদ্ধে পুরো দলকে হত্যার মিথ্যা অভিযোগ করা হয়।

Mission: Impossible 2-2000 (মিশনঃ ইম্পসিবল ২-২০০০)
ইথান হান্ট, IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্সের) একজন সদস্য, একটি সন্ত্রাসী সংগঠনকে একটি ল্যাবে তৈরি একটি জেনেটিকালি-ইঞ্জিনিয়ারড ভাইরাসের ক্ষতি থেকে দেশকে বাচাতে সিডনিতে প্রেরণ করা হয়।

Mission: Impossible 3-2006 (মিশনঃ ইম্পসিবল ৩-২০০৬)
IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্স) এজেন্ট ইথান হান্টকে তার একজন ছাত্রকে উদ্ধার করতে এবং ওয়েন ডেভিয়ান, একজন নির্মম অস্ত্র ব্যবসায়ী, যে ইথানের স্ত্রী জুলিয়া মিডকে অপহরণ করেছিল, তার মুখোমুখি হওয়ার জন্য ডাকা হয়।

Mission: Impossible-Ghost Protocol-2011 (মিশনঃ ইম্পসিবল-গোস্ট প্রোটোকল-২০১১)
ক্রেমলিন বোমা হামলার জন্য যখন IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্স) ভুলভাবে অভিযুক্ত হয়, তখন ইথান এবং তার দল প্রকৃত অপরাধীদের খুঁজে বের করতে এবং তাদের সংস্থার সুনাম রক্ষার জন্য সময়ের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

Mission: Impossible-Rouge Nation-2015 (মিশনঃ ইম্পসিবল-রগ ন্যাশন-২০১৫)
IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্স) ভেঙে দেওয়া এবং সিআইএ তাকে আটক করার সাথে সাথে, ইথান এবং তার দল তাদের পরবর্তী আক্রমণের পরিকল্পনা করার আগে একটি অত্যন্ত দক্ষ সন্ত্রাসী সংগঠন সিন্ডিকেটের অস্তিত্ব প্রমাণ করার জন্য সময়ের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

Mission: Impossible-Fallout-2018 (মিশনঃ ইম্পসিবল-ফলআউট-২০১৮)
সন্ত্রাসীদের একটি দল বিভিন্ন শহরে একযোগে পারমাণবিক হামলার জন্য তিনটি প্লুটোনিয়াম কোর বিস্ফোরণের পরিকল্পনা করেছে। ইথান হান্ট, তার IMF (ইম্পসিবল মিশন ফোর্স) দলের সাথে, হত্যাকাণ্ড বন্ধ করার জন্য যাত্রা শুরু করে।

আরোও যেসব চলচ্চিত্র মুক্তি পাবার অপেক্ষায়ঃ

Mission: Impossible-Dead Reckoning Part One-2023 (মিশনঃ ইম্পসিবল-ডেড রেকনিং-২০২৩)
Mission: Impossible 8 -2024 (মিশনঃ ইম্পসিবল-৮-২০২৪)

যদিও চলচ্চিত্রগুলি বিশেষ বিশেষ গল্পের ওপরে নির্মান করা হয়েছে এবং হচ্ছে। তাই এর গ্রহনযোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তা ভিন্ন। তবে সবগুলোই ভিন্ন ভিন্ন রোমাঞ্চ আর অনুভুতি প্রদান করে। প্রতিটি চলচ্চিত্রই নতুন করে নতুন কিছু নিয়ে আসে। দুঃসাহসিকতা এবং প্রায় অসম্ভবকে সম্ভব করে তোলার নতুন নতুন গল্প এবং ধারাবাহিক নিয়ে চলচ্চিত্রগুলি পর্যায়ক্রমে নির্মিত হচ্ছে।
টম ক্রুজের উল্লেখযোগ্য কিছু চলচ্চিত্র ও ধারাবাহিকের মধ্যে এই সিরিজটি অন্যতম। এ সমস্ত চলচ্চিত্রের পেছনে বিশেষ প্রচেষ্টা, উদ্যোগ থাকে। তাই দর্শক মহলে এসব চলচ্চিত্র নিয়ে বিশেষ আকর্ষন বিরাজ করে।

আমাদের মাঝে একটি বিশেষ শ্রেনীর দর্শক এধরনের চলচ্চিত্রের জন্য অপেক্ষা করে থাকে। সেই শুভকামনা থেকেই আমরা আগত চলচ্চিত্রের অপেক্ষায় রয়েছি।

Top Gun- Maverick (টপ গান-ম্যাভরিক)- টম ক্রুজের সর্ববৃহৎ এবং সর্বাধিক ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র

0

টপ গান-ম্যাভরিক চলচ্চিত্রটি, “টপ গান-১৯৮৬” চলচ্চিত্রের একটি ধারাবাহিক হিসেবে তৈরী করা হয়েছে। প্রথম চলচ্চিত্রে ১৯৮৬ (লেফটেনেন্ট পিট- ম্যাভরিক) টম ক্রুজকে একজন নৌ বিমানচালকের চরিত্রে দেখা যায়। সেখানে টম ক্রুজের বিপরীতে নায়িকা হিসেবে ছিলেন কেলি ম্যাকগালিস(চারলট ব্ল্যাকউড-“চার্লি”)।
৩৬ বছর পরে উক্ত চলচ্চিত্রের ধারাবাহিক হিসেবে টপ গান- ম্যাভরিক ২০২২ প্রকাশিত হয়। এই চলচ্চিত্রের নির্মান পরিকল্পনা অনেক আগেই থেকেই চলছিল, কিন্তু টম ক্রুজ এই ধারাবাহিকের জন্য একটা উপযুক্ত গল্প খুঁজছিলেন। প্রথম চলচ্চিত্রটি (টপ গান-১৯৮৬) বক্স অফিসে প্রচুর সুনাম অর্জন করেছিল। এর গল্প জানতে হলে আপনাকে দেখে আসতে হবে প্রথম চলচ্চিত্রটি।
https://www.imdb.com/title/tt0092099/

পরবর্তী এই চলচ্চিত্রে টম ক্রুজের বিপরীতে অভিনয় করেছেন জেনিফার কনেলী (পেনি বেনজামিন)। এই চলচ্চিত্রের গল্প ছিল খুবই কম সময়ের মধ্যে কিছু তরুন বিমানচালকদেরকে একটি দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালনার জন্য টম ক্রুজকে (ম্যাভরিককে) টপ গানের প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়, যথেষ্ট বেপরোয়া এবং দুঃসাহসী হওয়ার কারণে এত কম সময়ে এরকম একটি দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষণের দায়িত্বভার ম্যাভরিককে দেওয়া হয়। এত বছর পরে আবারো তার টপ গানে ফিরে আসা, তার সহকারী বিমানচালককে হারানোর পুরোনো স্মৃতি, এ সমস্ত ঘটনার জন্য তার নিজেকে দায়ী করা, তার আত্মগ্লানি থেকে তার বেরিয়ে আসতে না পারা, আবারও সেসব স্মৃতির মুখোমুখি হওয়া। এসব ব্যাপারকে সে কিভাবে নিচ্ছে তা জানতে হলে আপনাকে দেখতে হবে টপ গান ম্যাভরিক ২০২২। এটি সত্যিই একটি বড় পর্দার জন্য নির্মিত চলচ্চিত্র। আটি আপনাকে অন্য রকম একটি অভিজ্ঞতা দিতে বাধ্য।
https://www.imdb.com/title/tt1745960/

এই চলচ্চিত্র ইতোমধ্যে বক্স অফিসে ৩০০ মিলিয়ন ডলারেরও বেশী আয় করে। চলচ্চিত্রটি এর সত্যিকারের দুঃসাহসিক স্টান্ট এবং গল্পের জন্য ইতিহাসে খ্যাত হয়ে থাকবে।
এর একটি পর্যালোচনা ( Cinema Review ) নিম্নে দেওয়া হলো।

পদ্মা সেতু শুধু দক্ষিনাঞ্চল নয়, পরিবর্তন আনবে সারাদেশের অর্থনীতিতে- প্রধানমন্ত্রী

0

পদ্মা সেতু সারাদেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনবে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

নিজস্ব অর্থে পদ্মা সেতু হওয়ায় দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনা সংকট, ইউক্রেন যুদ্ধ, এরপর বন্যা- সব মিলিয়ে বিশ্বঅর্থনীতির সঙ্গে বাংলাদশও কিছুটা সংকটে পড়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তবে সবার সহযোগিতায় দেশের অর্থনীতির চাকা সচল আছে।

সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান অনুদানের চেক হস্তান্তর করে। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তাঁর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুদান গ্রহণ করেন।

সদ্য চালু হওয়া পদ্মা সেতু প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেতু চালু হওয়ায় শুধু দক্ষিণাঞ্চল নয়, পরিবর্তন আসবে সারাদেশের অর্থনীতিতে। সরকার সারাদেশে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করছে জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, আমরা রেল যোগাযোগ পুনরুজ্জীবিত ও নতুন নতুন রেলপথ স্থাপন করছি। সেতু নির্মাণের পাশাপাশি ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নদীগুলো খনন করছি। শেখ হাসিনা এ প্রসঙ্গে বলেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা শিল্পায়নকে ত্বরান্বিত করার পাশাপাশি ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণে সাহসিকতা ও সাফল্যের দিক তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী এসময় বলেন, আমাদের দেশেরই এক ব্যক্তির প্ররোচণায় বিশ্বব্যাংক যখন পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধ করে দেয়, পাশাপাশি অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগিরাও সরে দাঁড়ায়, তখন আমি ঘোষণা দিয়েছিলাম নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করবো। তখন দেশের জনগণের পাশাপাশি আপনারাও অনেকে আমার পাশে এসে দাঁড়িয়ে সব ধরনের সহযোগিতা করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। সে জন্য আমি আপনাদের ধন্যবাদ জানাই।

দেশের জনগণকে সবচেয়ে বড় শক্তি হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের সাহস এবং সহযোগিতা এবং তারা পাশে থাকাতে আমরা আমাদের নিজস্ব টাকায় এই পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের দক্ষিণাঞ্চলের বিশাল অঞ্চল যেটি দীর্ঘদিন অবহেলিত ছিল সেখানে এখন শিল্পায়নের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এই অঞ্চলের মানুষের আর্থিক উন্নতি হবে। সেখানেও আপনাদের উৎপাদিত পণ্যের বাজারজাত করার একটি ক্ষেত্র তৈরি হবে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বাড়বে এবং এই অঞ্চলের ২১টি জেলার মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়ে যাবে।

বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বরেন, প্রথমবার সরকারে আসার পর তাঁর সরকার যমুনা নদীর ওপর বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু নির্মাণ করেছিল যেখানে বিদ্যুৎ, রেল এবং গ্যাস সংযোগও প্রদান করা হয়। পদ্মা সেতুটাও সেভাবেই করা হয়েছে, মাল্টিপারপাস। সেখানেও গ্যাস, বিদ্যুৎ, রেল সংযোগের সঙ্গে অত্যাধুনিক ওয়াইফাই সুবিধা থাকবে।

বন্যার্তদের আর্থিক সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস এর সদস্য এনআরবি ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এনআরবি ব্যাংকের মো. জামিল ইকবালসহ ৪৫টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে মোট ৩০৪ কোটি ৪১ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করে।

অনুদান প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, রুপালী ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বিডিবিএল, ইডকল, বিআইএফএফএল, এক্সিম ব্যাংক, আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, এবি ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ঢাকা ব্যাংক, ডাচ বাংলা ব্যাংক, ইস্টার্ন ব্যাংক, ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক, গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ও আইএফআইসি ব্যাংক।

এছাড়া ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, যমুনা ব্যাংক, মেঘনা ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, মিডল্যান্ড ব্যাংক, মধুমতি ব্যাংক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, এনসিসি ব্যাংক, এনআরবি ব্যাংক, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক, পদ্মা ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক, প্রাইম ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, এসবিএসি ব্যাংক, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক, সোসাল ইসলামী ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, ইউনিয়ন ব্যাংক এবং উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড তাদের অনুদান চেক হস্তান্তর করে।

ঢাবির ‘খ’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশ, ৯০ শতাংশই ফেল

0

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এবারের পরীক্ষায় পাশের হার ৯.৮৭ শতাংশ।
আজ সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ভবনের অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল প্রকাশ করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হয়েছেন সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের শিক্ষার্থী নাহলুল কবির নুয়েল। তিনি মোট নম্বর পেয়েছেন ৯৬.৫। এ ছাড়া ২য় হয়েছেন তাবিয়া তাসনীম। তিনি মোট নম্বর পেয়েছেন ৯৬.২৫। তিনি বরিশাল সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী। ৩য় হয়েছেন সাবরিন আক্তার কেয়া। তিনি সরকারি নাজিমুদ্দিন কলেজের শিক্ষার্থী। তিনি মোট নম্বর পেয়েছেন ৯৬.২৫। একই নম্বর পেলেও নীতিমালার আলোকে তিনি ৩য় হয়েছেন।

ফল জানবেন যেভাবে-
পরীক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে লগইন করে ফল জানতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার রোল নম্বর, বোর্ডের নাম, পাসের সাল এবং মাধ্যমিক পরীক্ষার রোল নম্বর লাগবে।

এ ছাড়া আবেদনকারীরা যে কোনো মোবাইল অপারেটর থেকে DU Kha টাইপ করে 16321 নম্বরে পাঠিয়ে ফিরতি এসএমএসে ফল জানতে পারবেন।

ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের আগামী ৪ঠা জুলাই বিকেল ৩টা থেকে ২১শে জুলাই বিকেল ৩টা পর্যন্ত ভর্তি পরীক্ষার ওয়েবসাইটে নিজ প্রোফাইলে বিস্তারিত ফরম ও বিষয় পছন্দক্রম ফরম পূরণ করতে হবে।

কোটায় আবেদনকারীদের ১৭ই জুলাই থেকে ২৪শে জুলাই পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কোটার ফরম কলা অনুষদের ডিন কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে হবে এবং তা যথাযথভাবে পূরণ করে ওই সময়ের মধ্যে ডিন কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। ফলাফল পূণঃনিরীক্ষণ করতে চাইলে তা নিরীক্ষার জন্য ফি দেওয়া সাপেক্ষে ২৯শে জুন থেকে ৬ই জুলাই পর্যন্ত কলা অনুষদের ডিন কার্যালয়ে জমা দিতে হবে।

মেধাক্রমে এগিয়ে থাকা উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ১৭ বিভাগ, আইন অনুষদের ১ টি, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ১৬ বিভাগ এবং চারটি ইনস্টিটিউট তথা শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট, সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট, আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউট, স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের অধীনে ভর্তি হতে পারবেন।

মানবিক শাখার এই পরীক্ষায় মোট ১২০ নম্বরের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হয়। এর মধ্যে মাধ্যমিক/সমমান ও উচ্চমাধ্যমিক/সমমান পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ২০ (১০ + ১০) নম্বর। বাকি ১০০ নম্বরের মধ্যে ৬০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক এবং ৪০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষার ওপর ভিত্তি করে ফলাফল তৈরি করা হয়। পরীক্ষার সময় ছিল দেড় ঘণ্টা।

এর আগে গত ৪ঠা জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং ৭টি বিভাগীয় শহরে একযোগে এই ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এবার ‘খ’ ইউনিটে ১ হাজার ৭৮৮টি আসনের বিপরীতে অংশগ্রহণ করেন ৫৬ হাজার ৯৭২ জন। সে অনুপাতে প্রতি আসনের বিপরীতে পরীক্ষায় অংশ নেন প্রায় ৩৩ জন শিক্ষার্থী। পাশ করে ৫ হাজার ৬২২ জন।

ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার সমন্বয়ক ও কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আব্দুল বাছিরসহ প্রমুখ।

নারায়ণগঞ্জে কৃষক লীগ নেতা দৌলত হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা

0

নারায়ণগঞ্জের চর সৈয়দপুরে কৃষক লীগ নেতা ও সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য দৌলত হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তৃতীয় শীতলক্ষা সেতুর গোলচত্বর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, দৌলত হোসেনের ওপর হামলা চালায় রুবেল গ্যাংয়ের প্রধান রুবেল, সহযোগী আনসার আলী, ইমরান, শাওন, হিমু, শুভ, নাজিরসহ তার আরও ১০ থেকে ১৫ জন সহযোগী।
প্রথমে হাতুড়ি ও পাথর দিয়ে আঘাত করে দৌলত হোসেনের দুই পা ভেঙে দেয়া হয়। পরে হামলাকারীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান দৌলত।
স্বজনদের দাবি, ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের কারণেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। তারা আরও জানায়, ঘটনার আগের দিন অভিযুক্তরা তার বাসায় হামলা করে। এসময় গুলিবর্ষণ করা হয় বলেও জানা যায়।
এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

২৪ ঘণ্টায় পদ্মা সেতুতে টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৯ লাখ

0

সাধারণের চলাচলের জন্য সেতু খুলে দেয়ার পর থেকে ২৪ ঘণ্টায় পদ্মা সেতু দিয়ে পারাপার হয়েছে ৫১ হাজার ৩১৬টি যানবাহন। আর এসব যানবাহন থেকে টোল আদায় করা হয়েছে ২ কোটি ৯ লাখ ৪০ হাজার ৩০০ টাকা।
রবিবার ভোর ছয়টা থেকে সাধারণের জন্য পদ্মা সেতু খুলে দেয়া হয়। প্রথম দিনে যাত্রীবাহী গণপরিবহন ছাড়াও সেতুতে পার হয়েছে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মোটরসাইকেল ও ব্যক্তিগত যানবাহন। তবে দুই প্রান্ত থেকে সেতু দেখতে আসা মানুষেরা পড়েন বিপাকে।

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বাসেক) তথ্য অনুসারে, প্রথম দিন মাওয়া দিয়ে যানবাহন পার হয়েছে ২৬ হাজার ৫৮৯টি। এপথে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৮ লাখ ৯৫ হাজার ৯০০ টাকা। জাজিরা দিয়ে যানবাহন পার হয়েছে ২৪ হাজার ৭২৭টি। আয় হয়েছে ১ কোটি ৪ লাখ ৪ হাজার ৪০০ টাকা।

পদ্মা সেতু নির্মাণের আগের পূর্বাভাস বলা হয়েছিল দিনে প্রায় ২৪ হাজার যানবাহন চলাচল করবে এই সেতু দিয়ে। সে তুলনায় প্রথমদিন পূর্বাভাসের দ্বিগুণের বেশি যান চলেছে। তবে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের (বাসেক) সূত্র বলেছে, প্রথম দিনের যানবাহনের বড় অংশই মোটরসাইকেল। অবশ্য আজ ভোর ৬টা থেকে সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।
এদিকে, শুধু সেতু পারাপারের ব্যবস্থা না থাকায় হতাশা প্রকাশ করেন তারা। অনেকেই আবার কয়েক গুণ বাড়তি ভাড়া দিয়ে দুরপাল্লার যানবাহনেই পদ্মা সেতু পার হওয়ার অভিজ্ঞতাও নিচ্ছেন। উল্লেখ্য, উদ্বোধনের প্রায় ১৮ ঘণ্টা পর বহুল প্রতীক্ষিত স্বপ্নের পদ্মা সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরু হয়। রবিবার সকাল ৬টা থেকে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয় এ সেতুর দ্বার।
যান চলাচলের জন্য সেতুটি খুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দুই প্রান্তের ১৪টি টোল গেট চালু হয়ে যায়। সবকয়টি গেটে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে টোল আদায় করা হচ্ছে। নির্ধারিত টোল দিয়ে থ্রি-হুইলার ছাড়া যেকোনো গাড়ি পার হতে পারছে পদ্মা সেতু দিয়ে।

ঢাবির ‘খ’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশ আজ

0

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের কলা অনুষদভুক্ত ‘খ’ ইউনিটের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষার ফল আজ সোমবার প্রকাশ করা হবে।
রবিবার (২৬শে জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। সোমবার দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফলাফল প্রকাশ কওরা হবে। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।
গত ৪ জুন ঢাকা ও ঢাকার বাইরে সাতটি বিভাগীয় শহরে খ -ইউনিটের ভর্তিপরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর মোট আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৫৮ হাজার ৫৫১ জন। আর মোট আসন সংখ্যা ১ হাজার ৭৮৮টি। এ হিসেবে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়েছেন প্রায় ৩৩ জন।