banglahour

সাবেক মেয়রের আরেক নাম কমিশন জাহাঙ্গীর!

অনুসন্ধান | মু: শাহপরান সাইম

(১ বছর আগে) ২২ মে ২০২৩, সোমবার, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন

ঢাকা: এলজিআরডি ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে জিসিসির অভ্যন্তরীন তদন্তে বের হয়ে আসে সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীরের অপকর্মের ফিলিস্তি। এই তদন্তের ভিত্তিতে তাকে বরখাস্ত করা হয়। তিনি এবং তার বন্ধুরা কিছুই বাদ দেননি। এমনকি জাতীয় শোক দিবসেও চাঁদা বসিয়েছেন দুস্থদের খাওয়ানো অর্থে। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি কুকি জারে তাদের হাত পেীঁছেছে। ছোবল পরেছে হতদরিদ্র মানুষের পেটে, আয় ও জায়গা জমিতে।

বরখাস্তকৃত মেয়র সর্বত্র দুর্নিতির ছাপ রেখে গেছেন। জিসিসির অনুদান বিতরণ, বালু ভরাট, রাস্তা প্রশস্তকরণ, ময়লা পরিষ্কারকরণ কার্যক্রম থেকে শুরু করে বিশ্ব ইজতেমায়  ভক্ত-মুসল্লিদের খাওয়ানো কিছ্ইু বাদ যায়নি তাদের দুর্নিতি থেকে। 

বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী উদযাপনের জন্য বরাদ্দ অর্থেও ভাগ বসাতে তারা বসে নেই। জিসিসির অভ্যন্তরীণ তদন্ত প্রতিবেদনে জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে  এরুপ অগণিত অভিযোগের বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া হয়েছে।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন তিন অর্থবছরে আটটি এলাকায় আবর্জনা পরিষ্কারের জন্য প্রায় ১৩  কোটি টাকা ব্যয় দেখিয়েছে। অথচ ওইসব এলাকায় কোন ধরণের ময়লা আবর্জনা পরিষ্কারই করা হয়নি। কোন প্রকার পরিষ্কার কার্যক্রম না করেই বিপুল পরিমান অর্থের বিল দেখিয়েছে মেয়র জাহাঙ্গীর ও তার অনুসঙ্গরা। জিসিসির তদন্ত প্রতিবেদনে বর্ণনা করা হয়েছে যে কীভাবে সমস্ত আইন উপেক্ষা করে দুর্নিতিকে সর্বত্র বিস্তার করা হয়েছিল।

জাহাঙ্গীর, গাজীপুর শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। ২১ জানুয়ারি একটি করুনার আবেদনের প্রেক্ষিতে তাকে ক্ষমা করার পর আবার সে শিরোনাম হল জিসিসির প্রতিবেদনের মাধ্যমে অসখ্য দুর্নিতির ফিলিস্তির নজিরবিহীন উপমা দিয়ে। 

একটি ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল হওয়ার পর ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর তাকে আওয়ামীলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। ভিডিওটিতে তাকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য ও মুক্তিযুদ্ধের শহীদরের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করতে দেখা যায়।

দল থেকে বহিষ্কারের ৭ দিন পর ২৫ নভেম্বর তাকে মেয়র পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। ওই সময় মন্ত্রণালয় স্থগিতাদেশের কারণ হিসেবে জমি দখল ও ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ উল্লেখ করেন। 
জাহাঙ্গীর ২৭ জুলাই ২০১৮ সালে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছিলেন। 
সিটি কর্পোরেশন আইন ২০০৯ এর ১৩ এর ১ ধারা অনুযায়ী একজন মেয়র এই অপরাধের জন্য পদত্যাগ করতে পারেন। কিন্তু মেয়র জাহাঙ্গীর তা করেননি।  

তবে এলজিআরডি ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেছেন, তার সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করবে। সোমবার তার মন্ত্রণালয়ে তাজুল ইসলাম বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আমরা তা বিশ্লেষণ করব এবং তারপর সিদ্ধান্ত নেব। তদন্তে সর্বশেষ অবস্থা জানতে তদন্ত প্যানেলের প্রধান অতিরিক্ত সচিব ফারুকীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন মন্তব্য করতে চাননি।

তদন্ত প্রতিবেদনের সদস্য জহিরুল ইসলাম বলেন, তদন্তকারী সংস্থা এখনো চুড়ান্ত প্রতিবেদনটি জমা দেয়নি।  তিনি আরও বলেন, আমরা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনকে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে অনুরোধ করেছি। শেষ পর্যন্ত তারা নথি দিতে বাধ্য হয়েছে। এখন আমরা সেই নথিগুলি বিশ্লেষণ করছি। আমরা শিগরিই চুড়ান্ত প্রতিবেদনটি  সম্পন্ন করব। এগিকে জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আনা দুর্নিতির অভিযোগগুলিরও তদন্ত শুরু করেছে দুর্নিতি দমন কমিশন।

ময়লার দুর্নীতির প্রতিবেদন:
জিসিসি ২০১৮-২০১৯, ২০১৯-২০২০ ও ২০২০-২০২১ আবর্জনা অপসারণের জন্য প্রায় সাড়ে ১২ কোটি টাকা ব্যয় করেছে। এর মধ্যে ২০১৮-২০১৯ সালের জন্য প্রায় সাড়ে ৩  কোটি, ২০১৯-২০২০ সালের জন্য সাড়ে তিন কোটি এবং ২০২০-২০২১ সালের জন্য সাড়ে ৫ কোটি টাকা খরচ দেখিয়েছে। 
কিন্তু বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে সরকারি নিয়ম নীতির তোয়ক্কা করা হয়নি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে নিয়মের পরিপন্থি হয়ে ভাউচারের মাধ্যমে ১০ লাখ টাকা বেশি পরিশোধ করা হয়েছে।

সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী ভাউচারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ২৫,০০ টাকা পরিশোধ করা যাবে। কাগজপত্রে দেখানো হয়যে ৮টি এলাকার ড্রেন পরিষ্কারের জন্য একটি টেন্ডিার করা হয়েছিল এবং বিলগুলি যথাযথভাবে পরিশোধ করা হয়। কিন্তু বাস্তবে কোন দরপত্র আহবান করা হয়নি, কোন কমিটি গঠন করা হয়নি, কোন দরপত্রও সংগ্রহ করা হয়নি। জিসিসির তদন্তে বলা হয়, এর সবই অর্থ আত্নসাতের সমতুল্য।

তাছাড়া তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, বিল পরিশোধ করা হলেও ওইসব এলাকয় কোন ড্রেন পরিষ্কারই করা হয়নি। এলাকর কাউন্সিলররাও এই বিষয়গুলি নিয়ে নানান প্রশ্ন তুলেছেন। 
উল্লেখ্য, জিসিসির অভ্যন্তরীণ তদন্ত প্রতিবেদনে জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে  এরুপ অগণিত অভিযোগের বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া হয়েছে।

উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল