banglahour
সমবায় অধিদপ্তরের যুগ্ম-নিবন্ধক নবীরুল ইসলাম

চাকরি’র শুরু থেকে অনিয়মই যার কাজ

অনুসন্ধান | নিজস্ব প্রতিবেদক

(৯ মাস আগে) ৩ আগস্ট ২০২৩, বৃহস্পতিবার, ৬:১৭ পূর্বাহ্ন

তার নাম মো: নবীরুল ইসলাম। সমবায় অধিদপ্তরের যুগ্ম নিবন্ধক হিসেবে ময়মনসিংহ বিভাগীয় কার্যালয়ে কর্মরত আছেন। ২০তম বিসিএস দিয়ে সমবায় অধিদপ্তরে চাকরি শুরু করেন। জালিয়াতির মাধ্যমে বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, বাবা মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কোটায় সমবায় অধিদপ্তরের চাকরি নেন তিনি। এরপর থেকে চাকরি জীবনে যত জায়গায় দায়িত্ব পালন করেছেন, সব জায়গায় করেছেন অনিয়ম। অধিদপ্তর থেকে কয়েকবার সাময়িক বরখাস্ত, অনিয়মের কারণ দর্শাণোর নোটিশসহ বিভাগীয় ব্যবস্থা নিয়েও নবীরুলের অনিয়মের লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না অদৃশ্য কারণে। এর মধ্যেই নিয়েছেন পদোন্নতি, ফের পদোন্নতি নিতে তোরজোড় চালাচ্ছেন এই কর্মকর্তা। 

নবীরুলের অনিয়মে তাকে অধিদপ্তরের একাধিক নোটিশ, বরখাস্ত ও ব্যবস্থা নেওয়ার কাগজপত্রে এমনটি উল্লেখ রয়েছে। জানা যায়, নবীরুল ইসলাম সমবায় অধিদপ্তরে চাকরিতে প্রবেশের আগে বিপিএসসিতে চাকরি করতেন। সেখানকার এক কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রথমে জালিয়াতির মাধ্যমে বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর বাবা মরহুম মো: সহিদুল ইসলামকে মুক্তিযোদ্ধা দেখিয়ে সমবায় অধিদপ্তরে চাকরিতে প্রবেশ করেন। এসব জালিয়াতি ধরা পড়ায় ২০০১ সালের ১২ ডিসেম্বর রাজধানীর কাফরুল থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। মামলা নং ২৪। মামলার তদন্তে দায়িত্ব পায় দুদক। পরবর্তীতে দুদকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২০০২ সালের ১৫ জুন চাকরি থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু অদৃশ্য শক্তির কারণে দমিয়ে রাখা সম্ভব হয়নি তাকে। প্রভাব খাটিয়ে রেহায় পেয়ে যান। 

২০১১ সালে সিরাজগঞ্জে উপ-নিবন্ধকের দায়িত্ব পালনকালে সিরাজগঞ্জ কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংকের ৬ শতক জমি অবৈধভাবে বিক্রি করা হয়। গোপনে জমি বিক্রির মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ করা হয়। এই জমি বিক্রি ও টাকা আত্মসাতের সঙ্গে ওৎপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন নবীরুল ও তৎকালীন আরেক কর্মকর্ত। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলাও দায়ের হয়েছে। কিন্তু এই মামলা চালকালীন মামলার বিষয়টি গোপন রেখে পদোন্নতি নেন নবীরুল ইসলাম। এত অনিয়ম, অভিযোগের পরও প্রভাব খাটিয়ে এখন অতিরিক্ত নিবন্ধক হিসেবে পদোন্নতি নিতে পায়তারা করছেন তিনি।  

এরপর ২০১২ সালে রাজশাহীর বিভাগীয় দপ্তরে দায়িত্ব পালনকালে জমি বন্ধকী ব্যাংক লিমিটেড নিজস্ব জমির উপর অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের ক্ষেত্রে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ৮০ শতাংশ সুযোগ দিয়ে সরকার ও সমবায়ের বিপুল পরিমাণ সম্পদ বেহাত করার সুযোগ করে দেন নবীরুল। এ ঘটনায় পরের বছর তৎকালীন বিভাগীয় যুগ্ম নিবন্ধক বাধা দিলে তাকে শারীরিকভাবেও লাঞ্চিত করেন নবীরুল ইসলাম।

শুধু তাই নয়; সমিতির নিবন্ধন নিতে প্রত্যেকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিতে এই কর্মকর্তা। পথিমধ্যে হঠাৎ সমিতির অফিস পরিদর্শন করে বিলও নিতেন। বর্তমানে বিভিন্ন কর্মকর্তার নামে বেনামী দরখাস্ত দিয়ে মানুষকে হয়রানি করে আসছেন বলে একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল