ঢাকা, ২৪ মে ২০২৪, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

চোখ রাঙাবে আগামী অর্থবছর

বাড়বে ভ্যাটের চাপ, উদ্বেগ আছে মূল্যস্ফীতিতেও

অর্থনীতি | অনলাইন ডেস্ক

(১ মাস আগে) ৭ এপ্রিল ২০২৪, রবিবার, ১২:১৮ অপরাহ্ন

banglahour

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আগামী অর্থবছরে সংকোচনমূলক বাজেট প্রণয়নের উদ্যোগ নেওয়া হলেও বাড়তি রাজস্ব আদায়ে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) ও সম্পূরক শুল্ক থেকে সংশোধিত বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৫১ শতাংশ বেশি রাজস্ব আয়ের পরিকল্পনা করছে অর্থ মন্ত্রণালয়। স্টেকহোল্ডাররা বলছেন, এ উদ্যোগের ফলে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যেতে পারে, যা সরকারের উদ্দেশ্য ব্যাহত করবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের খসড়া বাজেট ডকুমেন্ট অনুসারে, আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ৪ লাখ ৭৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি আদায় করা হবে পণ্য ও সেবা খাতের ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক থেকে। 

স্টেকহোল্ডারদের তথ্যমতে, বাড়তি রাজস্ব আদায়ের জন্য ২০২৪-২৫ অর্থবছরে বেশ কিছু খাতে নতুন করে ভ্যাট আরোপ করার পাশাপাশি বিভিন্ন খাতে ভ্যাটের হার বাড়তে পারে।

এনবিআর ইতিমধ্যে মেট্রোরেলের টিকেটমূল্যের ওপর ভ্যাট বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে। স্থানীয় শিল্প ভ্যাটে যে ছাড় পেয়ে আসছে, আগামী অর্থবছরে তা সংকোচিত করা হতে পারে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। 

এর প্রভাবে পণ্যের উৎপাদন ব্যয় বাড়লে পণ্যমূল্যও বাড়বে এবং চূড়ান্ত বিচারে ভোক্তাদেরই তা পরিশোধ করতে হবে বলে জানান তারা। এতে মূল্যস্ফীতি আরও উসকে যেতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল মজিদ টিবিএসকে বলেন, 'ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক বাড়লে তা ভোক্তাকেই বহন করতে হয়, এটি সবাই জানে।' 

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) দেশে বিরাজমান উচ্চ মূল্যস্ফীতির মধ্যে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ভ্যাট বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। 

আবারও ভ্যাট বাড়ানো হলে তা নিম্ন-আয়ের মানুষের জন্য অসহনীয় হয়ে যাবে বলে টিবিএসের কাছে মন্তব্য করেন ক্যাবের কর্মকর্তারা। 

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক খাতে ২ লাখ ২৪ হাজার ৫৪০ কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল এনবিআর। গত জানুয়ারি শেষে এ খাত থেকে আয় হয়েছে ১ লাখ ৩ হাজার ২৮৩ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে এ খাত থেকে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৬৬ কোটি টাকা। 

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ডকুমেন্ট অনুযায়ী, গত ২০২২-২৩ অর্থবছরে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৫৭ কোটি টাকা; আগের অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৫৮ হাজার ১৮১ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগের অর্থবছরের তুলনায় গত অর্থবছরে এ খাতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে প্রায় ৭ শতাংশ। 

এদিকে আগামী অর্থবছরের বাজেটে ট্যাক্সেস অন ইনকাম অ্যান্ড প্রফিট থেকে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ১ লাখ ৭৫ হাজার কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে এর পরিমাণ ছিল ১ লাখ ৫৩ হাজার ২৬০ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটে যা কমিয়ে নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৮৬৫ কোটি টাকা।

অন্যদিকে আগামী অর্থবছরের বাজেটে কাস্টমস ডিউটি থেকে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এটি সংশোধিত বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় প্রায় ৪২ শতাংশ কম। 

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ চ্যালেঞ্জিং হতে পারে

আগামী অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতির হার ৬.৫ শতাংশে আটকে রাখার প্রাক্কলন করা হয়েছে। এজন্য সরকারের ঋণ নিয়ন্ত্রণ, অভ্যন্তরীণ কৃষি উৎপাদন বাড়ানো এবং সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা বাড়ানো হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

চলতি অর্থবছরের বাজেটেও মূল্যস্ফীতি একই হারে ধরে রাখার প্রাক্কলন করা হয়েছিল। তবে বছরজুড়েই তা ১০ শতাংশ ছুঁই ছুঁই করেছে। 

চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে মূল্যস্ফীতি কমিয়ে ৭.৫ শতাংশ প্রাক্কলন করা হলেও তা অর্জন করা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন নীতিনির্ধারকরা। বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আর্থিক সমন্বয় পরিষদের সভায় উপস্থিতরা এ সংশয় প্রকাশ করেন।

আয়বৈষম্য কমাতে অর্থনীতিবিদরা আয়কর আদায় বাড়ানোর ওপর জোর দিলেও সেখানে লক্ষ্যমাত্রা খুব বেশি বাড়ছে না। সংশোধিত বাজেটের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ট্যাক্সেস অন ইনকাম অ্যান্ড প্রফিট খাত থেকে প্রায় ১৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি প্রাক্কলন করা হচ্ছে।

ক্যাবের কর্মকর্তারাও বলেন যে তারা দীর্ঘদিন ধরে এনবিআরকে আয়কর বাড়ানোর জন্য অনুরোধ করে আসছেন।

ক্যাবের সহসভাপতি এসএম নাজের হোসেন টিবিএসকে বলেন, 'আমরা দীর্ঘদিন ধরে এনবিআরের কাছে দাবি জানিয়ে আসছি আয়কর বাড়ানোর জন্য। ভ্যাটের ভার যেহেতু সবার ওপরে যায়, এতে সাধারণ মানুষের কষ্ট বাড়ে—এজন্য ভ্যাট না বাড়ানোর জন্য বলে আসছিলাম। কিন্তু এনবিআর আমাদের কথা শুনছে না।'

তিনি আরও বলেন, 'মানুষ এমনিতেই গত দুই বছর ধরে উচ্চ মূল্যস্ফীতি মোকাবিলা করছে, যার ফলে তাদের প্রকৃত আয় কমে গেছে। এর মধ্যেও অনেক নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে সরকার ভ্যাট হিসেবে বাড়তি টাকা আদায় করেছে। নতুন করে আবার ভ্যাটের চাপ দেওয়া হলে তা স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য অসহনীয় হবে।'

আইএমএফের পরামর্শ

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী, এনবিআরের আগামী বছর ভ্যাট আদায় করার লক্ষ্য রয়েছে ১ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা। চলতি বছরের লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় যা ২৬ হাজার ১০০ কোটি টাকা বেশি।

 এই টাকা কী উপায়ে আদায় করা হবে হবে, তার একটি আউটলাইনও এনবিআর সংস্থাটির কাছে পাাঠিয়েছে। এনবিআরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গত সপ্তাহে আইএমএফ এর কাছে এনবিআর এ-সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন পাঠিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ধারণা করা হচ্ছে, ভ্যাট অফিসের নিয়মিত ব্যবস্থা গ্রহণের ফলে রাজস্ব আয় ১১.৬ শতাংশ বাড়তে পারে, যার পরিমাণ হবে ১৬ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। বাকিটা, অর্থাৎ ৯ হাজার ৪০০ কোটি টাকা 'বাড়তি' ব্যবস্থা গ্রহণ করে আদায় করা হবে। 

ভ্যাট বিভাগ আশা করছে, বাড়তি ভ্যাট হিসেবে তারা ৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা আদায় করতে পারবে। এর মধ্যে ৩ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা সিগারেট করব্যবস্থা পুনর্গঠনের মাধ্যমে আদায় করা হবে। ট্রেডিং পর্যায়ে ইলেকট্রনিক ফিসকাল ডিভাইস সিস্টেমের যথাযথ বাস্তবায়নের ফলে এ খাত থেকে বাড়তি ৯৫০ কোটি টাকা আয় হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা কর অব্যাহতি কমিয়ে আনার পরামর্শ দিয়ে আসছে আইএমএফ।

এনবিআর জানিয়েছে, আগামী বছর কিছু খাতের অব্যাহতি তুলে দেওয়া বা কমিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে নতুন করে ওই সব খাতে কর আরোপ করা হবে। সেইসঙ্গে কমপ্লায়েন্স গ্যাপও কমিয়ে আনার মাধ্যমে বাড়তি ৫ হাজার কোটি টাকা আদায় হবে।

 এনবিআরের সংশ্লিষ্ট বিভাগের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে টিবিএসকে বলেন, 'আইএমএফ ভ্যাট আদায়ের যে লক্ষ্যমাত্রা আমাদের দিয়েছে, তার ভিত্তিতে আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরের একটি রূপরেখা আমরা ইতিমধ্যে সংস্থাটির কাছে পাঠিয়েছি।'

রাজস্বে প্রভাব ফেলতে পারে আমদানি হ্রাস ও প্রকল্প বাস্তবায়নের ধীরগতি

আইএমএফকে পাঠানো প্রতিবেদনে এনবিআর বলেছে, আমদানি কমার চলমান ধারা অব্যাহত থাকলে এবং সরকারি প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতির কারণে ২৬ হাজার কোটি টাকা বাড়তি আদায়ের যে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করা হয়েছে, তা অর্জন না-ও হতে পারে।

এনবিআরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মোট ভ্যাট আয়ের প্রায় ৪০ শতাংশ আসে উৎপাদন খাত থেকে। উৎপাদন খাত থেকে ভ্যাট আদায় মূলত আমদানি করা কাঁচামালের ওপর নির্ভরশীল, আর বাণিজ্য খাত থেকে রাজস্ব আদায় ভোগ্যপণ্য আমদানির পাশাপাশি পণ্য উৎপাদনের ওপর নির্ভরশীল। চলতি বছরে আমদানিতে নেতিবাচক ধারা দেখা গেছে। এই প্রবণতা অব্যাহত থাকলে রাজস্ব আদায় ধীর হতে পারে।

এ কারণে প্রাক্কলন করা রাজস্ব আদায়ের পূর্বশর্ত হচ্ছে কাঁচামাল এবং ভোগ্যপণ্যের আমদানিতে স্থিতিশীলতা, বিদ্যমান ডলার সংকট হ্রাস, এবং উৎপাদন চালিয়ে যাওয়ার জন্য পর্যাপ্ত জ্বালানি সরবরাহ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, মোট ভ্যাট আয়ের ১০ শতাংশ আসে সরকারি প্রকল্প ও অন্যান্য সংস্থার কেনাকাটা থেকে আহরণ করা ভ্যাট থেকে। চলতি বছর এ খাতে রাজস্ব আদায় কমতে পারে, কারণ অনেক কোম্পানি ও সরকার ইতিমধ্যে তাদের বাজেট কমিয়ে দিয়েছে।
খবর: বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন

সর্বশেষ

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com