ঢাকা, ১৫ জুন ২০২৪, শনিবার, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

পাঠ্যবইয়ের ত্রুটি তুলে ধরলেন চরমোনাই পীর, সংশোধন না করলে আন্দোলন

শিক্ষা | নিজস্ব প্রতিবেদক

(১ বছর আগে) ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, রবিবার, ৪:৪৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ আপডেট: ৫:৩৯ অপরাহ্ন

banglahour

ঢাকা: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, শিক্ষা সিলেবাসের অসঙ্গতি, ত্রুটি-বিচ্যুতি নিয়ে আমরা ধারাবাহিকভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ আন্দোলন করে আসছি। আমাদের এ ধারাবাহিক কার্যক্রমকে শিক্ষামন্ত্রী ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে মিথ্যাশ্রয়ী সাব্যস্ত করার চেষ্টা করেছিলো। এখন শিক্ষামন্ত্রীই মিথ্যুক প্রমাণিত হয়েছেন। অতএব শিক্ষা মন্ত্রী এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকতে পারেন না। 

আজ রবিবার (২৯ জানুয়ারী) পুরানা পল্টনস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শিক্ষা সিলেবাস ২০২৩-এর অসঙ্গতি বিষয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য রাখেন এ কথা বলেন ইসলামী আন্দোলনের আমীর চরমোনাই পীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম।

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, ২০২৩ এর মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যপুস্তকে জনগণের বোধ-বিশ্বাস, সংস্কৃতি ও জাতীয় স্বার্থকে উপেক্ষা করে সাম্প্রদায়িক উস্কানি, তথ্য ও ইতিহাস বিকৃতি, বিতর্কিত ও অবৈজ্ঞানিক মানব সৃষ্টিতত্ত্ব অনুপ্রবেশ, ট্রান্সজেন্ডার, পৌত্তলিক ও ব্রাক্ষণ্যবাদী সংস্কৃতির আধিপত্য, ইসলামকে ভিনদেশি সাব্যস্ত করা এবং প্লেজারিজমের মত নিন্দনীয় কাজের আশ্রয় নেওয়া হয়েছে; যা জাতি হিসাবে আমাদের জন্য উদ্বেগ ও হতাশার।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা সিলেবাসে ভুলেভরা বই বাজেয়াপ্ত করার দাবি এবং দোষীদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনার দাবিতে আগামী ৩ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার সারা দেশে প্রতিটি জেলা ও মহানগরে বিক্ষভ মিছিল ও ১০ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং সুশীল সমাজের সাথে গোল টেবিল বৈঠক কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের আমীর।

 পাঠ্যপুস্তকে বিদ্যমান সমস্যাসমূহ তুলে ধরেন পীর সাহেব চরমোনাই।

সুলতানি আমলের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস বিকৃতি: 
সপ্তম শ্রেণির ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুসন্ধানী বই এর পাঠ্যসূচির অধিকাংশ অধ্যায়ে আদিম সভ্যতা, হিন্দু ও বৌদ্ধধর্মের শাসন ইতিহাস এবং নগরায়ণের কথা বলা হয়েছে এবং শেষের অধ্যায়ে অল্প পরিসরে সুলতানি আমলের ইতিহাস আলোচিত হয়েছে। বাংলায় প্রায় ৬০০ বছরের মুসলিম শাসনকে আগেকার মৌর্য ও গুপ্ত সাম্রাজ্য, সেন, পাল আমল এবং পরের ব্রিটিশ ও পাকিস্তানী শাসনের সাথে তুলনা করা হয়েছে। সবগুলোই “বিদেশীদের শাসন”, সবাই নিজেদের “ভাষা, ধর্ম, রাজনীতি এখানকার মানুষের উপর চাপিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। স্পষ্ট করে মুসলিম শাসনামলকে দখলদারিত্ব বলা হয়েছে।

হিন্দুধর্মের ধর্মীয় গ্রন্থ বেদকে এক ঐতিহাসিক দলিল হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। দ্বিতীয় অধ্যায়ে গৌতম বুদ্ধের জীবনীর অনেক অনুষঙ্গ আনা হয়েছে, যা সপ্তম শ্রেণীর জন্য জরুরি নয়। “চলো আমরা আমাদের বৌদ্ধধর্মের বন্ধুদের কাছ থেকে/ বৌদ্ধধর্মের বই থেকে জাতকের গল্প পড়ে নেই” শিরোনামে শিক্ষার্থীদের ব্যাবহারিক কাজ দেয়া হয়েছে। পাল ও সেন আমলকে ইতিহাসের প্রাচীন যুগ বলে মুসলিম শাসনকে বহিরাগত হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে। সুলতানি শাসনব্যাবস্থার বৈশিষ্ট্য হিসেবে জবরদখল করে শরীয়াহ আইন প্রতিষ্ঠা, একনায়কতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা, মুসলমানদের সাম্প্রদায়িক সুবিধাজনক অবস্থান, বর্ণভেদ চালু করা, নারীদের শোচনীয় অবস্থা ইত্যাদি বিষয় চিত্রায়ন করা হয়েছে।

সপ্তম শ্রেনীর ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ বইয়ে সুলতানী আমল নিয়ে পক্ষপাতমুলক আলোচনা করা হয়েছে। মৌর্য, গুপ্ত এমনকি ব্রিটিশ শাসনকে যেভাবে তুলে ধরা হয়েছে সুলতানী শাসনের উল্লেখ তার চেয়ে আলাদা। মুসলমানদের আগমনকে দখলদারিত্ব হিসাবে চিত্রায়িত করা হয়েছে। মুসলিম আগমনের সাথে বিহার-পাঠাগার ধ্বংসের সম্পর্ক দেখানো হয়েছে, যা ভারত গবেষকদের গবেষণায় মিথ্যাচার হিসাবে প্রমাণিত। যেখানে অন্য শাসনামলের ইতিবাচক দিকে বেশি আলোকপাত করা হয়েছে, সেখানে মুসলিম শাসনের নেতিবাচক দিকে মনোযোগ দেয়া হয়েছে বেশি, অন্যদিকে তাদের অবদানগুলো হয়েছে উপেক্ষিত। যে সমস্যা মৌর্য, গুপ্ত, সেন এবং সুলতানী শাসন সব আমলেই ছিল, বাকিদের বেলায় সেটা আলোচনা করা হয়নি। কিন্তু মুসলিম শাসনের উপর সেই দোষ চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। নিরপেক্ষাভাবে পড়লে যে কারো চোখে এই মুসলিম বিদ্বেষ চোখে পড়বে।

পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণীর বইগুলোর বিভিন্ন অধ্যায়ে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বাংলার বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক আন্দোলনের কথা আনা হয়েছে। কিন্তু এখানেও এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে ইসলামী আন্দোলনগুলোকে। শহীদ তিতুমীর এর বাঁশের কেল্লা এবং ফরায়েজী আন্দোলনের কথা একেবারেই অনুপস্থিত। কোথাও কোন উল্লেখ নেই ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিপ্লবে আলেমগণের ভূমিকা এবং আত্মত্যাগের ইতিহাস। 

অন্যদিকে বিভিন্ন শ্রেনীর বইতে বারবার কলকাতা কেন্দ্রিক বেঙ্গল রেনেসাঁ (নবজাগরণ), স্বদেশী আন্দোলন এবং ক্ষুদিরাম-সূর্যসেনদের সশস্ত্র আন্দোলনের কথা এসেছে। বাংলার ইসলামী আন্দোলনের একমাত্র উল্লেখ পাওয়া যাচ্ছে নবম-দশম শ্রেনীর “ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা” বইতে। সেখানেও বৈষম্যটা স্পষ্ট। ফকির বিদ্রোহ, তিতুমীরের আন্দোলন, খিলাফত আন্দোলন এক-এক পৃষ্ঠা করেও আলোচনা পায়নি। ফরায়েজী আন্দোলনের আলোচনা টেনেটুনে দেড় পৃষ্ঠা পেয়েছে। অন্যদিকে কলকাতার বেঙ্গল রেনেসাঁ নিয়ে হয়েছে বিস্তারিত আলোচনা। প্রীতিলতাদের “সশস্ত্র বিপ্লবী আন্দোলন” নিয়ে আলোচনা হয়েছে চার পৃষ্ঠা জুড়ে। 

বাংলার ইসলামী পরিচয়কে আড়াল করা: 
মুসলিম শাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতমুলক আচরণের পাশাপাশি বাংলার ইসলামী পরিচয় যথাসম্ভব আড়াল করা হয়েছে। বাংলায় ইসলামের আগমনের ইতিহাস নিয়ে আলাদাভাবে তেমন কোন আলোচনা নেই। কোন কথাবার্তা নেই খান জাহান আলী, শাহজালাল, শাহপরান, পীর-আউলিয়া কারো ব্যাপারেই। আবার যখন ইসলামের আলোচনা করা হচ্ছে তখনও ইসলামের মূল শিক্ষার বদলে লোকজ প্রচলনের ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।  এখানে একটি বিষয় পরিস্কার করা দরকার। বিদেশি শাসন কাকে বলে? যারা বিদেশ থেকে এসে শাসন করে দেশের সম্পদ লুটে নিয়ে চলে যায় তাদেরকে বিদেশি শাসন বলা যায়। অন্যদিকে যারা বাইরে থেকে আসলেও এই ভূখন্ডেই স্থায়ী হয়েছেন, এখানকার সভ্যতা, সংস্কৃতি বিকাশে ভুমিকা রেখেছেন তাদেরকে বিদেশি শাসক বলা যায় না। এই কারণেই বাংলার ইতিহাসের মূলধারায় মুসলিম শাসকদেরকে বিদেশি বা উপনিবেশিক শক্তি আকারে দেখা হয় না। তেমনি পাল ও সেন রাজাদেরকেও বিদেশি বা উপনিবেশিক শক্তি আকারে দেখা হয় না।
কিন্তু আমরা দেখতে পাচ্ছি- বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই পাঠ্যপুস্তকের বিকৃতি ঘটানো ও  ইতিহাস থেকে মুসলমানদেরকে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, বাংলার প্রচলিত ইতিহাসের বিরুদ্ধে গিয়ে পাঠ্যপুস্তকে প্রতিবেশী, ব্রাক্ষ্মন্যবাদীদের, সুরে সুর মিলিয়ে মুসলিম শাসনকে দখলদারিত্ব ও উপনিবেশিক শাসন বলা হয়েছে। ইতিহাসে খ্যাত স্বাধীন সুলতানি আমল ও বারো ভুঁইয়াদের গৌরবময় ইতিহাসকেও অস্বীকার করা হয়েছে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ জোরালোভাবে এর প্রতিবাদ জানাচ্ছে। আমরা সুস্পষ্টভাবে জানাতে চাই যে, বাংলা একটি রাজনৈতিক একক ভূখন্ড হিসেবে গড়ে উঠেছে মুসলামানদের হাতে এবং বাংলা ভাষার আশ্রয় ও বিকাশও হয়েছে মুসলমানদের হাতে, এটা ইতিহাসের সত্য ঘটনা। এই ঘটনার বাইরে গিয়ে বিদেশী উদ্দেশ্য প্রনোদিত কোন মিথ্যা ইতিহাস বাংলাদেশে চলতে দেয়া যায় না। একই সাথে আমরা দাবি জানাচ্ছি যে, পাঠ্যপুস্তকের এই মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রনোদিত বিকৃতি যারা আমাদের শিশুদের পাঠ্যপুস্তকে সংযুক্ত করেছেন তাদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনতে হবে।  

প্রকৃতিবিরুদ্ধ ও দেশীয় সংষ্কৃতি বিরোধী ট্রান্সজেন্ডার প্রমোট:
সপ্তম শ্রেণির ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুশীলনী বইয়ে ট্রান্সজেন্ডার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। যেখানে “শরীফার গল্প” নামে অধ্যায়ে ছেলে থেকে মেয়ে হয়ে যাওয়ার একটি ঘটনা স্বাভাবিকভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। এখানে মনে করিয়ে দেয়া বাঞ্চনীয় যে, হিজড়া আর ট্রেন্সজেন্ডার এক বিষয় না। হিজড়া একটি বায়োলজিক্যাল বিষয়। ইসলাম তাদেরকে অন্যদের মতো সমান মর্যাদা ও গুরুত্ব প্রদান করে। ইসলামী ফিকাহের প্রতিটি কিতাবে তাদের সম্পর্কে আলোচনা আছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে হিজড়াদের প্রতি এক ধরণের বঞ্চনার রেওয়াজ আছে। এই পরিস্থিতি পরিবর্তনে আলেমদের উদ্যোগে তাদের শিক্ষা প্রদান ও মুলধারায় সম্পৃক্ত করার নানা আয়োজন করা হয়েছে। কিন্তু ট্রান্সজেন্ডার বিষয়টি ভিন্ন। এটা হলো মানুষের  জৈবিক লিঙ্গ পরিবর্তন করা। আর এই পরিবর্তনের পেছনে প্রধান যুক্তি হলো “মনে হওয়া”। পাঠ্যবইয়ে যে গল্প বলা হয়েছে সেখানেও বলা হয়েছে যে, “মনে মনে ছেলে বা মনে মনে মেয়ে হওয়া” এর কারণে একজন ছেলে থেকে মেয়ে হয়ে যাচ্ছে। ট্রান্সজেন্ডার আদতে নারী অধিকার ও নারীর স্বার্থ বিরোধী। কারণ দৈহিকভাবে ছেলে এমন ব্যক্তি নিজেকে “মনে মনে মেয়ে” দাবী করে ধর্ষণের মামলা থেকে রেহাই পাওয়া, নারীদের জন্য বিশেষায়িত ক্ষেত্রগুলোতে বাড়তি সুবিধা নেয়াসহ নারীদের মাঝে প্রবেশাধিকার পেয়ে নারীর ক্ষতিসাধন করার আইনত অনুমোদন পেয়ে যাবে। এটা জন্মহারকে নেতিবাচক ধারায় প্রবাহিত করবে। যা পশ্চিমা বিশ্বসহ বহু দেশে আতংকের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সার্বিকভাবে এই ট্রান্সজেন্ডার গোটা মানবজাতির প্রাকৃতিক চরিত্রকে ধ্বংস করবে। যা ইসলাম ও  বাংলাদেশের সংস্কৃতি অনুমোদন প্রদান করে না। 

শিশু মনে আত্ম-পরিচয় সংকট সৃষ্টি করা: 
সপ্তম ‘শ্রেণীর ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুশীলনী বইয়ের ৫২ -৫৬ পৃষ্ঠায় ছেলে-মেয়েদের কোন পার্থক্য নাই বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে যে, শিশু বড় হয়ে যেমন চিন্তা করবে সে তেমনই হতে পারবে। অথচ এটি একটি প্রকৃতিবিরোধী বক্তব্য। 

স্বাস্থ্য সুরক্ষার নামে হাজার বছরের প্রথা ও রীতির বিরুদ্ধতা:  
স্বাস্থ্য সুরক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আমাদের সমাজে এই বিষয়টি প্রধানত দুইভাবে করা হতো। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ও পারিবারিকভাবে। মেয়ে ও ছেলেদের বয়ঃসন্ধিকালে যে পরিবর্তন হয় সে সম্পর্কে বিগত হাজার বছর ধরে পারিবারিকভাবেই বাচ্চারা জেনে আসছে। কিন্তু নতুন পাঠ্যবইয়ে বিষয়গুলো নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করা হয়েছে, যা ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির বাচ্চাদের জন্য উপযোগী না এবং এসব বিষয়ে এমন আলোচনা বাচ্চাদের ভেতরে অহেতুক কৌতুহল তৈরি করবে যা ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। তারচেয়েও বড় কথা হলো, এই বিষয়ে আলোচনার প্রয়োজন কেন হলো? কেন আমাদের হাজার বছরের রীতি ও প্রথাকে এভাবে উপেক্ষা করতে হবে? এই বইগুলোতে বিশেষত সপ্তম শ্রেণীর বইয়ে “মন ও শরীরের ওপরে চাপ কমানো ও আরাম অনুভব করার কিছু ব্যায়াম” শিরোনামে যা বলা হয়েছে তা যোগব্যায়ামের সদৃশ। মুসলিম প্রধান দেশে চাপ ও আরাম প্রাপ্তির জন্য যোগব্যায়ামের মতো ভিনদেশি সভ্যতা প্রসূত বিষয় পাঠ্যসুচিতে অন্তর্ভুক্তি করা অশুভ লক্ষণ বলে মনে হয়েছে। একই সাথে এই বইয়ে নারী-পুরুষের সম্পর্ককে খুবই সহজভাবে দেখানো হয়েছে। এমনকি বাচ্চাদের মাঝে প্রেম-ভালোবাসার মতো বিষয়কেও  স্বাভাবিকভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। এখানে গুরুত্বপূর্ণ হলো, আমাদের হাজার বছরের সামাজিক পূঁজিকে অপরাধের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে।  

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দৃঢ়ভাবে মনে করে, স্বাস্থ্য সুরক্ষার মতো বিষয় অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। তবে অবশ্যই তা আমাদের রীতি-নীতি ও প্রথাশুদ্ধ হতে হবে। পশ্চিমারা যে সামাজিক পুঁজির চর্চা করে তার ফলে পশ্চিমা পরিবার ও সভ্যতা এমনকি মানব প্রজননের মতো বিষয়ও হুমকির মুখে পড়েছে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য পশ্চিমা রীতি ও কৌশল আত্মস্ত করার কোন প্রয়োজন নেই। সেজন্য পুরো বইটাকেই পুনরায় আমাদের চর্চিত রীতি-নীতি ও সামজিক পুঁজির আলোকে সাজাতে হবে।

ইসলামকে হেয় প্রতিপন্ন করা: 
ইসলামের ফরয বিধান পর্দা এবং মুসলিম পুরুষের পরিচয়বাহক দাঁড়ি-টুপিকে কটাক্ষ করা হয়েছে। সপ্তম শ্রেণির ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুশীলনী বইয়ে পর্দাকে অবরোধ প্রথা এবং অবরোধবাসিনী শিরোনামের গল্পে পর্দাকে কটাক্ষ করে কিছু মনগড়া কল্পকাহিনী যুক্ত করা হয়েছে, যা অত্যন্ত নিন্দনীয় । 
ষষ্ঠ শ্রেণির ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুশীলনী বইয়ে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারীদের চিত্র ফুটিয়ে তুলতে দাঁড়ি-টুপি পরিহিত ছবি ব্যবহার করা হয়েছে; যার ঐতিহাসিক দালিলিক কোন ভিত্তি নেই। এভাবে বিশ্লেষণ করলে যে কারো কাছে প্রতীয়মান হবে যে, পুরো বইটাই একধরণের ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব থেকে লেখা। স্বাধীনতার সময়কার রাজনীতির বর্ণণা দিতে গিয়ে আরবের দেশগুলো যারা একনায়কতন্ত্রের অধীনে পরিচালিত, তাদেরকে ইসলামী শরীয়াহ পালনকারী দেশ হিসেবে দেখিয়ে স্বাধীনতার বিপক্ষে তাদের অবস্থান দেখানো হয়েছে। পাকিস্তানী শাসকদেরকে ইসলামী শাসক হিসেবে দেখানো হয়েছে। আদতে পাকিস্তানী শাসক এবং আরবের শাসকবৃন্দ- তারা কেউই পুর্ণাঙ্গ ইসলাম অনসৃত না। অথচ এই বইয়ের উপস্থাপনা কৌশলে কোমলমতি বাচ্চাদের মনে ইসলামী শাসন সম্পর্কে বিরুপ ধারণা গড়ে উঠবে। আদতে যার কোন ভিত্তি নাই। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনে করে, পুরো বইটি বাতিল করতে হবে এবং সত্যনিষ্ঠ শিক্ষাবিদদের দ্বারা তা পুনরায় লিখতে হবে।

বিতর্কিত ও অবৈজ্ঞানিক বিবর্তনবাদকে চাপিয়ে দেয়া: 
৬ষ্ঠ শ্রেণির ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুশীলনী বইয়ে বিবর্তনবাদের ইতিহাস উল্লেখ করে বানর থেকে ধারাবাহিকভাবে মানুষে রুপান্তর হওয়ার অবৈজ্ঞানিক এবং অবান্তর চিত্র দেখানো হয়েছে। বিবর্তনবাদ নিয়ে নুতন করে বলার কিছু নাই। এটা স্পষ্টত ইসলামসহ বিশ্বের সকল ধর্মের মৌলিক ধারণার বিরুদ্ধে। বিশ্বের বিভিন্ন স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক বিজ্ঞ প্রফেসর ডারউইনের বিবর্তন মতবাদকে অবৈজ্ঞানিক এবং অযৌক্তিক বলে প্রমাণ করেছেন। ইতিমধ্যে রোমানিয়া, সাউথ কোরিয়া, তুরস্ক, সুইজারল্যান্ড, বৃটেন, আমেরিকাসহ বিভিন্ন রাষ্ট্রে সিলেবাস থেকে এই থিউরি বাদ দেয়া হয়েছে। এমনকি বাংলাদেশে ইংলিশ মাধ্যমের শিক্ষা, যা ক্যামব্রীজ ইউনির্ভাসিটির সিলেবাস অনুযায়ী প্রবর্তিত, সেখানে এ লেভেল পযন্ত এই বিবর্তনের উল্লেখই নেই। এই বিবর্তনবাদকে বাংলাদেশের কোমলমতি বাচ্চাদের মনে চাপিয়ে দেয়া আদতে কোন বিজ্ঞান চর্চা না বরং ইসলাম ও ধর্ম বিরোধী একটি এজেন্ডা। আমরা পরিস্কার করে জানাতে চাই যে, এই ধরণের  কোন বিতর্কিত ধারণা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের শিখতে দেয়া যাবে না।

ধর্মীয় স্বাতন্ত্রতাকে বিলীন করে দেয়ার অপচেষ্টা:  
বাংলাদেশের প্রত্যেক নাগরিক একে অপরের ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এ অঞ্চলের হাজার বছরের চর্চিত সংস্কৃতি। প্রত্যেক ধর্মেরই আলাদা আলাদা রীতি-নীতি ও সংষ্কৃতি রয়েছে। কিন্তু ষষ্ঠ শ্রেণীর ঊহমষরংয ঋড়ৎ ঞড়ফধু বইয়ের ১৩৫-১৪৮ পৃষ্ঠা গল্পে চার ধর্মের চার বন্ধুর কাহিনী উল্লেখ করা হয়েছে ; যেখানে প্রত্যক বন্ধুর প্রধান ধর্মীয় উৎসবে অপর সকল বন্ধুদের দাওয়াত দিয়ে একসাথে উদযাপনের কথা বলা হয়েছে। বিষয়টি সৌহার্দ্যপূর্ণ মনে হলেও এমন গল্পের মাধ্যমে প্রত্যেকের নিজ নিজ ধর্ম, বিশ্বাস, আচার-অনুষ্ঠানের স্বাতন্ত্রতা ও নিজস্বতা বিলীন হয়ে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। কারণ ইসলাম ও হিন্দু ধর্মের মাঝে পরস্পর সাংঘর্ষিক অনেক বিষয় আছে। যার মাধ্যমে প্রত্যেকেরই ধর্মীয় বিশ্বাস ক্ষতিগ্রস্থ হবে।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনে করে, ধর্মীয় সম্প্রীতি শেখানোর জন্য সকলের ধর্ম ও বিশ্বাস বিনষ্ট করার কোন অর্থ হয় না। বরং যার যার ধর্ম ও বিশ্বাস যথাযথ জায়গায় রেখেই ধর্মীয় সম্প্রতি রক্ষা করা যায়। যার উদাহারণ আমরা বাঙালীরা হাজার বছর ধরে প্রদর্শন করে আসছি। ফলে এই ধরণের বিষয় পাঠ্যসুচি থেকে বাদ দিতে হবে। 

প্রচ্ছদ এবং বইয়ের পাতায় পাতায় ভিনদেশী সংস্কৃতি উপস্থাপন: 
ষষ্ঠ শ্রেণির শিল্প ও সংষ্কৃতি বই এবং সপ্তম শ্রেণীর ‘ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান’ অনুসন্ধানী বইয়ের প্রচ্ছদ এবং পিছনের পাতার প্রচ্ছদে ময়ূরের ছবি দেয়া হয়েছে , যা অন্য একটি দেশের (ভারতের) জাতীয় পাখি । মৌর্য আমলের বৌদ্ধ সমাজের পাটলিপুত্র মন্দির এবং হিন্দু সংস্কৃতির শিলালিপির। এটা আমাদের দেশের ইতিহাস সঠিকভাবে চিত্রায়ন করে না। প্রচ্ছদে পদ্মফুল, জবা ইত্যাদি আমাদের দেশের কোন প্রতিকীয় অংশ নয়। এছাড়াও ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেনীর ইতিহাস বইয়ে অসংখ্য মূর্তি, মন্দির, প্যাগোডা, মঠ, শিলালিপির ছবি দেয়া হয়েছে, যা অতি অপ্রাসঙ্গিক। পক্ষান্তরে মাত্র ৩ টি মসজিদের ছবি দেয়া হয়েছে। ইতিহাস বইয়ের প্রথম পাতায় মুক্তিযুদ্ধে সহায়তাকারী বিদেশী বন্ধু শিরোনামে অপ্রাসঙ্গিকভাবে ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি, সেনাপ্রধান সহ অন্যান্য বিদেশীদের ছবি যুক্ত করা হয়েছে। এক কথায় নৃ-তাত্ত্বিক বিশ্লেষণের ঐতিহাসিক বর্ণণায় একচোখা আচরণ করা হয়েছে। এর অর্থ পরিস্কার। এইসব বইয়ের লেখকরা বাংলার সাথে ইসলামের হাজার বছরের ইতিহাসকে অস্বীকার করতে চাইছে। এই অঞ্চলের সাথে ইসলামের সম্পর্ক অস্বীকার করার এই প্রবণতা একটি উদ্দেশ্যমূলক রাজনৈতিক এজেন্ডা। আমরা পরিস্কার করে জানাতে চাই যে, ইসলামকে উপেক্ষা ও দুর্বল করার কোন এজেন্ডাই এদেশে বাস্তবায়ন করতে দেয়া হবে না।

প্লেজারিজম বা চৌর্যবৃত্তির আশ্রয় নেয়া: 
সপ্তম শ্রেণীর বিজ্ঞান অনুসন্ধানী বইয়ের ইংরেজী ভার্সনে প্রথম অধ্যায়ে ৩য় পৃষ্ঠা থেকে জীববৈচিত্র্য বিষয়ক অনেকগুলো পৃষ্ঠায় বিদেশী একটি ওয়েবসাইট থেকে তথ্য হুবহু নিয়ে আসা হয়েছে এবং বাংলা ভার্সনের বইয়ে গুগল থেকে অনুবাদ করে তা এখানে বসিয়ে দেয়া হয়েছে। যা একাডেমিক মানদন্ডে অপরাধ। অথচ, বই রচনা এবং সম্পাদনার দায়িত্বে যারা থাকেন তাদের কাজ হলো মৌলিক রচনা তৈরি করা এবং নির্ভুলভাবে সম্পাদনা করা।

তথ্য ও বানানগত ভুল এবং ভাষাগত আগ্রাসন:
বিভিন্ন বই বিশ্লেষণ করে দৃষ্টিগোচর হযেছে যে, পাতায় পাতায় ইংরেজী ও বাংলা বানানে ভুল, শাব্দিক অর্থে ভুল, ইতিহাসের তথ্যে ভুল, বঙ্গবন্ধুর পিতার নামে ভুল। এ সমস্ত ভুলে ভরা পাঠ্যবই শিশুদের পাঠদান করা হলে শিশুরা ভুল শিখবে। আমরা আরও উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করেছি, বইয়ের বিভিন্ন গল্পের উদাহরণে যেসব চরিত্র ব্যবহার করা হয়েছে তাদের অধিকাংশের নামে দেশীয় ছাপ নেই বরং সুকৌশলে পাশ্চাত্য এবং ভারতীয় বিভিন্ন নাম ব্যবহার করে সাংস্কৃতিক অগ্রাসন চালানো হয়েছে ।
সার্বিক পর্যালোচনায় এমন বহু বিষয় আছে যা এদেশের মানুষের বোধ-বিশ্বাস, সামাজিক পুজির সাথে সাংঘর্ষিক। বিজ্ঞানের নামে বিজ্ঞান অসমর্থিত বিষয় পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো, এই অঞ্চলের ইতিহাসের একটি ভুল ও মিথ্যা বর্ণনা দেয়া হয়েছে যার ভিত্তি আমাদের কাছে মনে হয়েছে ধর্ম নিরপেক্ষতার আড়ালে ব্রাক্ষ্মন্যবাদী, হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক এজেন্ডা। কারণ এই অঞ্চলে ইসলাম ও মুসলমানদের উপনিবেশিক ও আগ্রাসী শক্তি আকারে দেখানো হিন্দুত্ববাদ প্রতিষ্ঠার পুর্বশর্ত। আমাদের পাঠ্যবইয়েও এই কাজ করা হয়েছে।
এরপরে ট্রান্সজেন্ডার এর ইস্যু আরেকটি ভয়াবহ দিক। এটা আমাদের পরিবার, সমাজ, মানব প্রজননসহ গোটা সমাজ ব্যবস্থাকে ভেঙ্গে ফেলবে।
অতএব ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনে করে, এই বই সংশোধন না বরং বাতিল করতে হবে। এবং সত্যনিষ্ঠ শিক্ষাবিদ ও উলামাদের সমন্বয়ে নতুন করে বই লিখতে হবে। একই সাথে এই বই রচনার সাথে জড়িতদের ভিন্ন কোন রাজনৈতিক দুরভিসন্ধি আছে কিনা তা খুঁজে বের করতে হবে এবং তাদেরকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com