ঢাকা, ২৪ মে ২০২৪, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
banglahour গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল

প্রলোভন দেখিয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক র‍্যাবের জালে আটক

অনুসন্ধান |

(১ বছর আগে) ১৯ অক্টোবর ২০২২, বুধবার, ১:৩৯ অপরাহ্ন

banglahour

‘জনতা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লি:’ এর প্রতারক আজাদ

দেশের বিভিন্ন জেলায় ‘জনতা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর নামে বিভিন্ন লোভনীয় প্রলোভন দেখিয়ে সাত সহস্রাধিক গ্রাহক হতে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হওয়া চক্রের মূল হোতা আজাদকে রাজধানীর কল্যাণপুর থেকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, খুলনা, রাজশাহী, মাগুরা, ঝিনাইদহসহ বিভিন্ন এলাকায় হাজার হাজার সাধারন পেশাজীবী মানুষ এই প্রতারক চক্রটির খপ্পরে পড়ে ব্যবসায়ে অতিরিক্ত লভ্যাংশ প্রাপ্তির আশায় লক্ষ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে সর্বস্বান্ত হয়েছেন। মানুষ তাদের কষ্টার্জিত জমানো অর্থ হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। প্রতারক চক্রের সদস্যরা সাধারন মানুষের প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যায়। দেশের বিভিন্ন জেলায় মানববন্ধন, সংবাদ সম্মেলন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ভুক্তভোগী সাধারন মানুষ। যার ফলে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমেও প্রতারণার ঘটনা প্রচারে দেশব্যাপী চাঞ্চল্য ও আলোড়নের সৃষ্টি হয়। ফলশ্রতিতে র‍্যাব উক্ত ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে। 
এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৮ অক্টোবর ২০২২ তারিখ রাতে র‍্যাব-৩ এর অভিযানে রাজধানীর কল্যাণপুরে আত্নগোপনে থাকা অবস্থায় প্রতারণাপূর্বক অর্থ আত্মসাৎকারী চক্রের মূলহোতা ১। খন্দকার আবুল কালাম আজাদ (৫৩), পিতা-খন্দকার রওশন আলী, সাং-তারাগুনিয়া, থানা-দৌলতপুর, জেলা-কুষ্টিয়াকে গ্রেফতার করে।

জানা যায়, ২০০৩ সাল থেকে “জনতা মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি” নামে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার খন্দকার আবুল কালাম আজাদ নামের এক ব্যক্তি উচ্চ মুনাফার প্রলোভন দেখিয়ে বিপুল পরিমান অর্থ জামানত হিসেবে গ্রহণ করত। এভাবে ২০১২ সাল পর্যন্ত কার্যক্রম চালিয়ে যায়। ২০১৩ সাল হতে  কুষ্টিয়া, খুলনা, মেহেরপুর, মাগুরা, ঝিনাইদহ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও রাজশাহী জেলায় উক্ত প্রতিষ্ঠানটির নাম পরিবর্তন করে বৃহদাকারে “জনতা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামে প্রতিষ্ঠান শুরু করে। 
সহজ শর্তে ব্যবসায়ীদের জন্য মোটা অঙ্কের ও প্রান্তিক মানুষের জন্য ক্ষুদ্রঋণ বিতরণের কার্যক্রম শুরু করে। গ্রাহকরা “তফশিলি ব্যাংক” মনে করে তাতে আমানত রাখতে শুরু করেন। অনেক ব্যবসায়ীকে প্রতিষ্ঠানটি মোটা অঙ্কের ঋণ প্রদানের কারনে ব্যবসায়ীরা ঝুঁকে পড়ে ওই প্রতিষ্ঠানে। বিভিন্ন জেলা শহর গুলোতে দৃষ্টিনন্দন ও নামীদামি বাড়ি ভাড়া নিয়ে চাকচিক্যময় অফিস খুলে বসে। মূলত সে পরিবার কেন্দ্রিকভাবে ব্যবসা শুরু করে যেখানে তার স্ত্রী, ছোট ভাই এবং ভাইয়ের স্ত্রী মিলে উক্ত প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করত। এভাবে অল্প সময়ে তারা প্রচুর পরিমান অর্থ জামানত হিসেবে গ্রহণ করতে আত্মসাৎ করে মানুষকে সর্বশান্ত করে।

এই প্রতারকচক্রটি গ্রাহকদের বিভিন্ন আশা দেখিয়ে তাদের নিকট হতে রক্ষিত সকল জামানতের অর্থ নিয়ে ২০১৭ সালে ঈদুল ফিতর এর ছুটিতে সে তার আঞ্চলিক সকল অফিস গুটিয়ে এবং সকল ফোন নম্বর একযোগে বন্ধ করে দিয়ে ঢাকার উত্তরায় এসে গা ঢাকা দেয়। পালানোর সময় মাঠপর্যায়ে তার প্রতিষ্ঠান দ্বারা প্রদত্ত ঋণের পরিমান ৩২ লক্ষ ছিল বলে সে জানায় যা সে আর সংগ্রহ করতে পারেনি।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায়, মাঠ পর্যায়ে গ্রাহক ও অর্থ সংগ্রহের জন্য গ্রেফতারকৃতের সাথে প্রায় আটশতাধিক কর্মী নিয়োজিত ছিল। যাদেরকে কোন প্রকার বেতন প্রদান করা হত না। তাদের গ্রাহকদের বিনিয়োগের মাধ্যমে বার্ষিক ১৮-২০% মুনাফার প্রলোভন দেখাত। এছাড়াও তারা গ্রাহকদের নিকট হতে উচ্চ মুনাফা ও ডিপিএস এর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করত। তার এই প্রতিষ্ঠানটির টার্গেট গ্রুপ ছিল দিনমজুর, চায়ের দোকানদার, মুদি দোকানদার, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন শ্রেণীর পেশাজীবী মানুষ। গ্রাহক বৃদ্ধির জন্য সে বিভিন্ন সময়ে বিশেষ প্যাকেজ ও প্রনোদনা ঘোষণার মাধ্যমে প্রলোভন দেখিয়ে তাদের আকৃষ্ট করত এবং ফলশ্রুতিতে অল্প সময়ে তারা গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধিতে সক্ষম হন। 
তারা বেশকিছু গ্রাহককে উচ্চ মুনাফায় লোন প্রদান করে। ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান না হলেও তারা ব্যাংকের মতই গ্রাহকদের নিকট হতে আমানত সংগ্রহ ও ঋণ গ্রদানের কার্যক্রম পরিচালনা করত। গ্রাহকদের সংগৃহীত অর্থ তারা নিজস্ব অন্যান্য ব্যবসায় বিনিয়োগের মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছে। তারা এ পর্যন্ত প্রায় ৫০-৭০ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে বলে জানায়। গ্রাহকদের তথ্যমতে সংগৃহীত টাকা পরিমান আরো বেশি হতে পারে। তার নামে কুষ্টিয়া, খুলনা, মেহেরপুর, মাগুরা, ঝিনাইদহ, পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও রাজশাহী জেলার বিভিন্ন থানায় চেক জালিয়াতি ও প্রতারনাসহ সর্বমোট ৬০টি মামলা রয়েছে বলে জানায়। যার মধ্যে ৩৬ টি মামলার ওয়ারেন্ট রয়েছে।
গ্রেফতারকৃত আজাদ কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর ডিগ্রী কলেজ থেকে বিএ পাশ করে। ছাত্র অবস্থায় ইটের ভাটার ব্যবসা, ঠিকাদারী ব্যবসা, কুষ্টিয়ার একটি স্থানীয় পত্রিকার প্রচার সম্পাদক এবং একটি জাতীয় পত্রিকার আঞ্চলিক প্রতিনিধি ছিল। পরবর্তীতে ২০০৩ সালে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর এলাকায় “জনতা মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি” নামে প্রতিষ্ঠান চালু করে এবং পরবর্তীতে বৃহৎ পরিসরে “জনতা সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড” নামে প্রতিষ্ঠানের পরিধি বাড়ায়। 
পর্যায়ক্রমে ধীরে ধীরে দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রায় ৪০টির মত অফিস চালু করে। এছাড়াও সে “ঠিকানা লিভিং লিমিটেড” নামে আরও একটি ডেভেলপার কোম্পানির মাধ্যমে ফ্ল্যাট তৈরী করে ক্রয়-বিক্রয় করত। উক্ত প্রতিষ্ঠানের নাম করে নিজের জেলা কুষ্টিয়াতে ১৫ বিঘা জমি, ০১টি ০৬ তলা বিশিষ্ট ভবন, ০১টি ইটের ভাটা এবং রাজশাহীতে ১১ বিঘা জমি ক্রয় করে। আত্মসাৎকৃত অর্থ দিয়ে সে ঢাকার উত্তরায় বেশ কয়েকটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট ও গাড়ি ক্রয় করে। তার স্ত্রীর নামে পোষ্ট অফিসে ২০ লক্ষ টাকা ফিক্সড ডিপোজিট রয়েছে বলে জানা যায়। বর্তমানে বিভিন্ন ব্যাংকে তার একাউন্ট রয়েছে এবং একটি প্রাইভেট ব্যাংকে তার ২ কোটি টাকা ঋণ রয়েছে। এছাড়াও নামে বেনামে নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের নামে প্রচুর সম্পদ রয়েছে। 

অনুসন্ধান থেকে আরও পড়ুন

সর্বশেষ

banglahour
banglahour
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত নিউজ পোর্টাল
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ হোসনে আরা বেগম
নির্বাহী সম্পাদকঃ মাহমুদ সোহেল
ব্যবস্থাপনা সম্পাদকঃ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম
ফোন: +৮৮ ০১৭ ১২৭৯ ৮৪৪৯
অফিস: ৩৯২, ডি আই টি রোড (বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিপরীতে),পশ্চিম রামপুরা, ঢাকা-১২১৯।
যোগাযোগ:+৮৮ ০১৯ ১৫৩৬ ৬৮৬৫
contact@banglahour.com
অফিসিয়াল মেইলঃ banglahour@gmail.com